২৯/০৬/২০২২-ফিনল্যান্ড, সুইডেন এবং তুরুষ্কের মধ্যে ত্রিপক্ষীয় চুক্তিঃ

অবশেষে ফিন ল্যান্ড এবং সুইডেনকে ন্যাটোতে যোগদানে ত্রি-পক্ষীয় চুক্তির শর্তে আগামী জুন শেষে তুরুষ্ক ভেটো প্রদান থেকে বিরত থাকবে বলে চুক্তি স্বাক্ষরিত।

(ক) সুইডেন এবং ফিনল্যান্ডের YPG/PYD কে টেরোরিষ্ট অর্গ্যানাইজেশন হিসাবে আখ্যায়িত করা হলো। ফলে এদের দ্বারা কিংবা এদের সিস্টার অর্গ্যানাইজেশন বা এদের দ্বারা প্রতিপালিত যে কোন সংস্থা, ব্যক্তি কিংবা এই জাতীয় যে কোনো ভার্চুয়াল কিংবা রিয়েল কার্যকলাপ অথবা এই সন্কেসথাকে যারা বা যে কোনো অর্গ্যানাইজেশন সাপোর্ট করবে কিংবা সহযোগীতা করবে তাদের সমস্ত কার্যিকলাপকে টেরোরিষ্ট এক্টিভিটি হিসাবে গন্য করে উভয় দেশ তা প্রতিহত, এবং নিসচিত করবে। এর জন্য উভয় দেশের ক্রিমিনাল কোডে যে সব এমেন্ডমেন্ট উভয় দেশ অতীতে এনেছিলো সেগুলি সংশোধন পূর্বক নতুন ক্রিমিনাল কোড অন্তর্ভুক্ত করে সাংবিধানিকভাবে ১ম জানুয়ারী ২০২২ থেকে কার্যকরী করে তা বাস্তবায়ন করবে।

(খ) এই গ্রুপের যে সব নেতা এবং ব্যক্তিবর্গকে তুরুষ্ক টেরোরিষ্ট হিসাবে পূর্বেই চিহ্নিত করেছিলো, তাদেরকে তুরুষ্কের হাতে তুলে দিতে হবে, সে ব্যাপারে ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন রাজী হয়েছে।

(গ) তুরুষ্কের উপর সমস্ত আর্মস নিষেধাজ্ঞা অবমুক্ত। উপরন্ত তুরুষ্ক সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড থেকে সাভাবিক পদ্ধতিতে যে কোন ধরনের মিলিটারী অস্ত্র আমদানী করতে পারবে বলে নিসচিত প্রদান করা হইলো।

(ঘ) তুরুষ্কের বিরুদ্ধে কোনো প্রকারের হুমকী, মিলিটারী এক্টিভিটিজ কিংবা নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয় এমন যে কোনো কার্যকলাপ থেকে উভয় দেশ সর্বদা বিরত থাকবে বলে অংগীকার।

যারা পুরু ট্রাইলেটারাল চুক্তিটা পড়তে চান, দেয়া হলো।

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

 

২৯/০৬/২০২২-হিটলারের শেষ আদেশের কপি

১৯৯৭-৯৮ সালে আমি যখন ষ্টাফ কলেজ করছিলাম, তখন দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের উপর আমার ইন্টারেষ্ট  আসে। ফলে আমি পুরু ২য় মহাযুদ্ধের সময় জার্মানদের পরিকল্পনা বা কিভাবে যুদ্ধটা পরিচালিত হয়েছে সেটা জানার জন্য প্রচুর বইপত্র এবং তার সাথে অনেক দালিলিক দস্তাবেজ জোগাড় করে পড়তে থাকি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশী জরুরী বইটি ছিলো H R Trover Roper সংকলিত Hitler’s war Directives -1939-1945

হিটলার মোট ৫২টি ডাইরেক্টিভস ইস্যু করেছিলেন, আর কিছু ছিলো Führer Orders। হিটলারের সমস্ত ইন্সট্রাক শন এবং আদেশ অন্য সব কিছুর উর্ধে ছিলো, এর মানে  These instructions superseded laws of the German government as Hitler was considered to be above the law. ২য় মহাযুদ্ধের ১ম ডাইরেক্টভ ইস্যু হয়েছিলো ৩১ আগষ্ট ১৯৩৯ সালে। হিটলারের সর্বশেষ Führer Orders ছিলো Fuhrer Order-74, ১৫ এপ্রিল ১৯৪৫ সালে যার হেডলাইন ছিলো ‘Order of the Day ‘। এখানে বলে রাখা ভালো যে, Führer Orders were issued later in the war. They tended to be less strategic and more specific in nature. হিটলার তার সেই ৭৪ নাম্বার ফুয়েরার আদেশে কি লিখেছিলেন সেটা এখানে পোষ্ট করলাম।

Fuhrer Order-74

Order of the Day 15 April 1945

Soldiers of the German Eastern front!

For the last time our deadly enemies the Jewish Bolsheviks have launched their massive forces to the attack. Their aim is to reduce Germany to ruins and to exterminate our people. Many of you soldiers in the East already know the fate which threatens, above all, German women, girls, and children. While the old men and children will be murdered, the women and girls will be reduced to barrack-room whores. The remainder will be marched off to Siberia.

We have foreseen this thrust, and since last January have done everything possible to construct a strong front. The enemy will be greeted by massive artillery fire. Gaps in our infantry have been made good by countless new units. Our front is being strengthened by emergency units, newly raised units, and by the Volkssturm. This time the Bolshevik will meet the ancient fate of Asia-he must and shall bleed to death before the capital of the German Reich. Whoever fails in his duty at this moment behaves as a traitor to our people. The regiment or division which abandons its position acts so disgracefully that it must be ashamed before the women and children who are withstanding the terror of bombing in our cities. Above all, be on your guard against the few treacherous officers and soldiers who, in order to preserve their pitiful lives, fight against us in Russian pay, perhaps even wearing German uniform. Anyone ordering you to retreat will, unless you know him well personally, be immediately arrested and, if necessary, killed on the spot, no matter what rank he may hold. If every soldier on the Eastern front does his duty in the days and weeks which lie ahead, the last assault of Asia will crumple, just as the invasion by our enemies in the West will finally fail, in spite of everything.

Berlin remains German, Vienna will be German again, and Europe will never be Russian.

Form yourselves into a sworn brotherhood, to defend, not the empty conception of a Fatherland, but your homes, your wives, your children, and, with them, our future. In these hours, the whole German people looks to you, my fighters in the East, and only hopes that, thanks to your resolution and fanaticism, thanks to your weapons, and under your leadership, the Bolshevik assault will be choked in a bath of blood. At this moment, when Fate has removed from the earth the greatest war criminal of all time [Editor's note: Hitler was referring to the recently deceased Franklin Roosevelt], the turning-point of this war will be decided.

[signed]
Adolf Hitler

বাংলায়

হে আমার জার্মানীর পশ্চিম ফ্রন্টের সৈনিকগন।

আমাদের মরনব্যাধি জুয়িস বলশেভিক শত্রুবাহিনী তাদের সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে আমাদেরকে আক্রমন করেছে। জার্মানীকে চিরতরে শেষ এবং জার্মানীর সমুদয় জনগোষ্ঠিকে সমুলে নিশ্চিহ্ন করে দেয়াই তাদের একমাত্র উদ্দেশ্য। আমাদের পূর্ব জার্মান উপকূলে নিয়োজিত সামরিক বাহিনীর সৈনিকগন ইতিমধ্যে মন্দ ভাগ্যের ব্যাপারে অবগত হয়েই গেছেন। সবচেয়ে দুর্দশায় আছে এখন আমাদের মেয়েরা, নারীরা এবং বাচ্চারা। সত্যি বলতে কি, আমাদের বৃদ্ধ পুরুষ মানুষদেরকে এবং বাচ্চাদেরকে তারা নির্বিঘ্নে হত্যা করছে, মেরে ফেলা হচ্ছে বা হবে, আর যুবতী মহিলারা তাদের ব্যারাক হাউজে পতিতা হিসাবে নিগৃহীত হচ্ছে। আর বাকী যারা থাকবে, তারা সরাসরি সাইবেরিয়ায় বন্দি হিসাবে চালান দেয়া হবে।

আমরা এটা আগেই বুঝতে পেরেছিলাম এবং সে মোতাবেক  গত জানুয়ারী থেকে যত প্রকারের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নেয়ার দরকার তার কোনোটাই বাদ রাখিনি। কিন্তু শত্রুবাহিনী তাদের আর্টিলারী দিয়ে আমাদের সব শক্ত অবস্থান গুলিকে গুড়িয়ে দিয়ে হয়তো উল্লাস করছে বা করবে। আমরা সর্বাত্তক চেষ্টা করেছি আমাদের পদাতিক বাহিনীর মাঝে যে সব গ্যাপগুলি আছে, সেগুলিকে অগনিত নতুন ইউনিট দিয়ে সুরক্ষা করার চেষ্টা করার। আমাদের সম্মুখভাগের যুদ্ধ লাইনকে ইমারজেন্সী ইউনিট দিয়েও সুরক্ষা করার চেষ্টা করা হয়েছে। আমার ধারনা যদি সব কিছু পরিকল্পনা মাফিক চলে, তাহলে এবারো আমাদের শত্রু বলসেভিক বাহিনী আমাদের রাজধানী জার্মান রিখে আসার আগে এশিয়ার ভাগ্যের মতো রক্তাক্ত ভাগ্যবরন করতে হবে। তবে, এই অবস্থায় যারাই তাদের দায়িত্ত পালনে অপারগ হবে বা পালনে অস্বীকার করবে তারা রাষ্ট্রোদ্রোহী হিসাবেই পরিচিত হবে। যেসব রেজিমেন্ট বা ডিভিশন লজ্জাজনকভাবে শত্রুকে প্রতিহত না করে তাদের স্থান ত্যাগ করবে, তারা যেনো একবার আমাদের জার্মান নারী, যুবতী এবং শিশুদের কথা মাথায় রাখে যারা ক্রমাগত বোম্ব এবং শত্রুর দ্বারা দূর্বিসহ আক্রমণে মারা যাচ্ছে। তারা যেনো এতা সব সময় মাথায় রাখে যে, তাদের এই লজ্জাজনক স্থান ত্যাগে তাদেরকে সেই সব নারী, যুবতী, আর বাচ্চাদের সামনে লজ্জিত করবে। আরেকটি কথা যে, আমাদের মধ্যেই অনেক বিশ্বাসঘাতক অফিসার এবং সৈনিক আছে যারা জার্মান ইউনিফর্ম পড়া অথচ আমাদের টাকায় শত্রুর সাথে হাত মিলিয়ে আমাদেরকেই আঘাত করছে তাদের থেকে নিজেদেরকে সুরক্ষায় থাকতে হবে। যদি কোনো অফিসার বা যে কেউ তোমাদের যুদ্ধের স্থান ত্যাগ করতে বলে, তাহলে সে যেই পদবিরই হোক তাকে ইমিডিয়েটলী এরেষ্ট করতে হবে এবং প্রয়োজনে মেরে ফেলতে হবে। সে যে পদবীরই হোক না কেনো। যদি প্রতিটি সৈনিক পুর্বফ্রন্টে আমার এই আদেশ মোতাবেক দায়িত্ত পালন করে, তাহলে শত্রুর সর্বাত্তক অভিযান পরাজয় বরন করতে বাধ্য যেভাবে আমাদের পশ্চিমাফ্রন্টে তারা পরাজয় বরন করেছে।

বার্লিন জার্মানীর আছে আর সেটা জার্মানীরই থাকবে। ভিয়েনা আবারো জার্মানীর হবে এবং ইউরোপ কখনোই রাশিয়ার হবে না, না ইউরোপ রাশিয়ার কখনো বন্ধু হবে।

তোমাদের নিজ পিতৃভূমিকে রক্ষাই শুধু নয়, তোমাদের নিজ গৃহকে, নিজের পরিবারকে, নিজেদের সন্তানদেরকে এবং তাদের সাথে আমাদের ভবিষ্যতকে সুরক্ষা করার জন্য তোমরা নিজেরা নিজেরা ভাতৃত্ববোধ তৈরী করো। এই কঠিন সময়ে সমস্ত জার্মানবাসী তোমাদের দিকে তাকিয়ে আছে।

হে আমার যোদ্ধারা, তোমরা আমার আশা, ভরষা, তোমাদের অস্ত্রকে, তোমাদের বলিষ্ঠ নেতৃত্তকে আমি শ্রদ্ধা জানাই যে, তোমাদের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে মরনব্যাধি জুয়িস বলসেভিক শত্রুরা তাদের নিজের রক্তে ভেসে যাবে। ঠিক এ সময়ে যখন পৃথিবী থেকে ভাগ্য নামক চিন্তাধারা উঠে গেছে, তখন পৃথিবীর সেরা ওয়ার ক্রিমিনালদেরকে পরাজিত করেই আমরা ডিসাইসিভ ফলাফল নিয়ে আসবো।

হিটলার

নোটঃ এ সময়ে রুজভেল্ট এর মৃত্যুতে হিটলার কিছুটা উল্লসিত হলেও এই ১৫ এপ্রিলে আসলে হিটলার তার পরাজয় এক রকম বরন করেই নিয়েছিলো। হিটলারের এই শেষ ন্যারেটিভস আসলে তার এরোগ্যান্সির একটা বহির্প্রকাশ ছিলো। কারন ২ এপ্ল্রিলে হিটলার নিজেই স্বীকার করেছিলো যে, ন্যাশনাল সোস্যালিজমের পতন হয়েছে, এখন শুধু তার ফলোয়ারদের দায়িত্ত কিভাবে তারা এগুবে। সেদিন অর্থাৎ ২ এপ্রলি হিটলার নিজেই এক সমাবেশে বলেছিলো ‘ to go on fighting, even without hope, to the very end’ although ‘I personally would not endure to live in the Germany of transition which would succeed our conquered Third Reich’ অর্থাৎ শেষ অবধি যুদ্ধ চালিয়ে যাও যদি জিতার কোনো সম্ভাবনা নাও থাকে। আমি হয়তো জার্মানীর ৩য় রিখের এই জয়ের ঘটনার সময়ে জীবিত থাকবো না ।

বস্তুত হিটলারের এই আদেশের পর পরই রাশিয়া জার্মানীর চারিদিক ঘিরে ফেলে এবং হিটলার ২২ এপ্রিল তার অবস্থান থেকে রিজাইন দেন। ৩০ এপ্রিল ১৯৪৫ সালে হিটলার আত্মহত্যা করেন। অতঃপর, ২ মে ১০৪৫ তারিখে ইতালীর জার্মান আর্মি ইতালীর জেনারেল আলেক্সান্ডারের কাছে, উত্তর-পশ্চিমের ৪র্থ আর্মি জেনারেল মন্ট গোমারীর কাছে, এবং ৭ মে ১৯৪৫ সালে জেনারেল আইসেন হাওয়ারের অধীনে জার্মানির আত্তসমর্পনের দলিল স্বাক্ষরিত হয়।

২৭/০৬/২০২২-আমার একটা জিনিষ কিছুতেই বুঝে আসে না

আমার একটা জিনিষ কিছুতেই বুঝে আসে না যে, নিষেধাজ্ঞা কি আসলেই  কোনো কাজ করে? হ্যা, করতো যদি সারা দুনিয়ার দেশগুলি একসাথে সেই সিদ্ধান্তে এক থাকে। সেটা যে কোনো ক্ষমতাশীল দেশের জন্যে অবশ্যই বিপদজনক। কিন্তু সারা দুনিয়া কি এক সাথে এই নিষেধাজ্ঞায় কাজ করছে? করছে না। তাহলে দেখি-কতগুলি দেশ এবং কত জনসংখ্যার মানুষ এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে?

সারা দুনিয়ায় দেশ আছে ১৯৫টি। ইউরোপেই আছে ৪৪ দেশ। ইউরোপের ৪৪টি দেশের মধ্যে ইইউ এর অধীনে আছে ২৭টি দেশ। বর্তমানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মাধ্যমেই শুধু রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হচ্ছে, পুরু ইউরোপের মাধ্যমে কিন্তু নয়। এরমানে ইইউ, আমেরিকা, ইউকে আর কানাডা মিলে মাত্র ২৯টি দেশ নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে। ২৭টি ইইউ দেশের জনসংখ্যা ৪৫০ মিলিয়ন। আর পুরু ইউরোপ জুড়ে জনসংখা ৭৫০ মিলিয়ন। অর্থাৎ ইউরোপেই প্রায় ৩০০ মিলিয়ন মানুষ রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দেয় নাই। ইউরোপের বাকী ১৭টি দেশ এবং ৩০০ মিলিয়ন লোক রাশিয়ার বিরুদ্ধে নয় ধরে নেয়া যায়। অন্যদিকে অর্থাৎ সারা দুনিয়ার আরো ১৯৫ টি দেশের মধ্যে ১৬৫টি দেশ নিষেধাজ্ঞা দেয় নাই।

সারা দুনিয়ায় মানুষের সংখ্যা ৮ বিলিয়ন বা ৮০০০ মিলিয়ন। এই ৮ হাজার মিলিয়ন থেকে মাত্র ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন প্লাস আমেরিকা কানাডা আর ইউকে মিলে ৪৫০ মিলিয়ন মানুষের দেশসমুহ রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় বাকি ৭৫৫০ মিলিয়ন মানুষের দ্বারা রাশিয়া নিষেধাজ্ঞা পায় নাই। অর্থাৎ মাত্র ৫%+ এই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। বাকী ৯৫% রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞায় রাখে নাই। এতো বিশাল জনগোষ্ঠীর মার্কেটিং, অপুরচুনিটি তো অবাধ!! তারমধ্যে রাশিয়া নিজেই কিছু কিছু জায়গায় খুব শক্ত অবস্থানে যেমন খাদ্য সামগ্রী, ইউরেনিয়াম, গোল্ড, ডায়মন্ড, তেল, গ্যাস, আয়রন, কয়লা, প্লাটিনাম, নাট্রোজেন ফার্টিলাইজার, কপার, কাঠ, ক্যামিকেল ফার্টিলাইজার (ফসফরাস, পটাশিয়াম) এ তারা সয়ং সম্পুর্ন এবং এক্সপর্ট করে।  রাশিয়ার এইসব পন্যের উপর সারা দুনিয়ার বেশিরভাগ দেশ সমুহ কোনো না কোনোভাবে নির্ভরশীল। সেই সব দেশ সমুহের মানুষেরা অযথা ইউক্রেনের উপর এতো আবেগিত হয়ে তাদের নিজের ক্ষতি করার মতো পাগল এখনো হয় নাই।  তারমানে, রাশিয়ার বাজার ৯৫% লোকের জন্য উম্মুক্ত।

এবার আসি, এই ইউরোপিয়ান দেশগুলির মধ্যে শক্তিধর দেশ হিসাবে কারা কারা। বলা হয় ফ্রান্স, জার্মানী এবং ইতালী হচ্ছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মেরুদন্ড। এবার দেখি এদের মেরুদন্ডের শক্তিটা কত। ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২২ এর হ্যান্স এন্ড ম্যাট কোর্ডার হিসাব মতে মোট ৯টি দেশে নিউক্লিয়ার অস্ত্র আছে-পাকিস্তান (১৬৫), ভারত (১৬০), ইসরায়েল (৯০), ফ্রান্স (২৯০), আমেরিকা (৫৪২৮), ব্রিটেন (২২৫), রাশিয়া (৫৯৭৭), চায়না (৩৫০) এবং নর্থ কোরিয়া (২০)। ইরানের ব্যাপারটা এখনো পরিষ্কার নয়। রাশিয়া এবং আমেরিকা একত্রে মোট ৯০% নিউক্লিয়ার অস্ত্র আছে আর বাকী ১০% আছে বাকি ৭টি দেশে। এরমানে ফ্রান্সের আছে ২৯০টি নিউক, জার্মানীর নাই, ইতালীর নাই। এটা হচ্ছে প্রধান ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মেরুদন্ড।

একটা কথা সবার জানা থাকা দরকার যে, আমেরিকা, ব্রিটেন, এবং কানাডা কিন্তু ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অংশ নয় এবং তারা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্যও না। কানাডা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে স্ট্রাটেজিক পার্টনার, ইউকে ইতিমধ্যে বেরিয়ে গেছে, আমেরিকা ইউরোপের অংশই না। হ্যা, তারা ন্যাটোর সদস্য। ন্যাটো আর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এক কথা নয়। ফলে ইউরোপিয়ানের শক্তি শুধু জার্মান, ফ্রান্স আর ইতালী যাদের শুধুমাত্র ফ্রান্সের ২৯০ টি নিউক আছে। সম্বল এটাই।

অন্যদিকে যেহেতু ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের না হয়েও ন্যাটোর সদস্য আমেরিকা আর ইউকে, তাই ন্যাটোর সদস্য হিসাবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের থেকে ন্যাটোর নিউক বেশী। তারমানে এটা ইউরোপের সম্পদ না। একটা ডায়ালগ প্রায়ই শুনে থাকবেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বা ইউকে প্রেসিডেন্টের মুখে যে, আমরা ন্যাটোভুক্ত দেশের প্রতিটি ইঞ্চি রক্ষা করবো, এটা বলে না যে, আমরা ইউরোপের প্রতিটা দেশের  প্রতিটি ইঞ্চি রক্ষা করবো।

আমেরিকার নিউক্লিয়ার অস্ত্র বেলজিয়াম, জার্মানী, ইতালি, তুরুষ্কের সাথে ন্যাটোর অংশ হিসাবে শেয়ার্ড করা। এরমানে হচ্ছে আমেরিকার বেশ কিছু নিউক্লিয়ার অস্ত্র এসব দেশে মোতায়েন করা আছে যেগুলির কন্ট্রোল আমেরিকার কাছে তবে ন্যাটো দেশ যাদের নিউক নাই তারা এগুলিতে ট্রেনিং নেয়। ব্যাপারটা বিকন্দ্রিকরনের মতো। রাশিয়া, চায়না, ইন্ডিয়া, পাকিস্তান আর নর্থ কোরিয়া মিলে মোট নিউক আছে  ৬৬৭২। তারা সেগুলি পূর্ন কন্ট্রোলে রেখেছে, বিকন্দ্রীকরন করে নাই। আমেরিকা, ফ্রান্স, ইউকে, ইসরায়েল মিলে নিউক আছে ৬০৩৩ টি। ইসরায়েল এই যুদ্ধে নিউক ইউজ করবে না কারন তার ভয় ইরান। ফলে ইসরায়েল বাদ গেলে ন্যাটোর কাছে মোট নিউক আছে ৫৯৪৩। যদি অনুপাত করি তাহলে দাঁড়ায়, (1) : (0.88)

শুধুমাত্র এই শীতকাল যদি রাশিয়া নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে উঠতে পারে, তাহলে মনোপলিজম এর মতো ইউনিপোলারিটির একচ্ছত্র রাজত্তের অবসান হবে, পেট্রো ডলারের রাজত্ব হারিয়ে যাবে, সারা দুনিয়ার হিসাব কিতাব অনেক বদলে যাবে।

এবার যেহেতু গোল্ডের উপর নিষেধাজ্ঞা এসছে, এর প্রভাব সবচেয়ে ভাল পাবে অন্যান্য দেশ, আর নেগেটিভিটিতে থাকবে হেজিমুনিয়াল কারেন্সী ডলার এবং ইউরো। এটা নিয়ে আরেকদিন লিখবো।

১৭/০৬/২০২২-সেন্ট পিটসবার্গে পুটিনের ভাষন

সেন্ট পিটসবার্গে পুটিন তাঁর বিখ্যাত ভাষনটি দিয়েছেন। মোট ৭টি এরিয়া সে কাভার করেছে। আমি সেটাইই অনুবাদ করার চেষ্টা করেছি। আসলে হুবহু অনুবাদ করা অনেক কঠিন। বিশেষ করে থিম ঠিক রাখা। আমার বন্ধু আসাদ এ ব্যাপারে অনেক পারদর্শী। যাই হোক, ভুল ভ্রান্তি ক্ষমা করবেন।  

The old world order is gone with the wind

নতুন ‘সেন্টার অফ পাওয়ার’ ইতিমধ্যে দুনিয়ায় প্রসব করেছে। ইউনিপোলার ওয়ার্ল্ড আর কখনোই ব্যাক করবে না। না ‘কলোনিয়াল’ ধারনার আর কিছু অবশিষ্ট থাকবে। যেদিন নিজে নিজে “কোল্ড ওয়ার” এ আমেরিকা জিতে গেছে বলে নিজেকে ডিক্লেয়ার করলো, সেদিন থেকেই তারা তাদেরকে মনে করেছে, “ম্যাসেঞ্জার অফ গড”। তাদের সব চিন্তা চেতনা, তাদের সুবিধাভোগী ভাবনাই শুধু সঠিক এবং পবিত্র। তাঁকে চ্যালেঞ্জ করার কোনো সুযোগ নাই অন্য কারো। পাশ্চাত্যের এই ধ্যান ধারনা সবাই না মানতে পারলেও ঠিক সেদিন থেকেই অন্যান্যের মধ্যে নিজেদের রাষ্ট্রীয় সিস্টেম, আর্থিক মডেল এবং সার্বোভোমত্তকে প্রোটেক্ট করার জন্য সুপ্ত নতুন সেন্টার অফ পাওয়ারের জন্ম হোক সেটা ভাবছিলেন। সেই ভাবনায় লুকিয়ে ছিলো সত্যিকারের একটা রেভুলেশন, জিওপলিটিক্সে টেক্টোনিক পরিবর্তন এবং বর্তমান টেকনোলজিক্যাল বিষয়ে সার্বিক গ্লোবাল অর্থনীতির পরিবর্তন ও তাঁর বিকাশ। অন্যান্য সবাই জানে যে, এটা একটা মৌলিক পরিবর্তন যাকে এতোদিন পশ্চিমারা অস্বীকার করেছে। আজকের যে নতুন সেন্টার অফ পাওয়ার তৈরী হতে যাচ্ছে, এটা আজ না হয় হয়, কাল হতোই। কেউ এতো লম্বা সময় ধরে এই টার্বুলেন্ট পরিবর্তনের জন্য অপেক্ষা করতে চায় নাই। সবকিছু আবার নরম্যাল হোক এটাই সবাই চেয়েছে। আর সেটাই এখন হতে যাচ্ছে।

Anti-Russian sanctions backfired on the West

যখন আমেরিকা এবং তাঁর মিত্ররা ইউক্রেনের অপারেশনকে সামনে রেখে একসাথে রাশিয়াকে বাতিল বলে ঘোষনা দিলো, তাতে তারা মনে করেছিলো রাশিয়া দ্রুতগতিতে এর ঐতিহ্য হারাবে এবং নতজানু অর্থনীতিতে ভেংগে পড়বে। কিন্তু সেটা না হয়ে যেটা হয়েছে- বুমেরাং, সামাজিক এবং অর্থনৈতিক বিপর্যয় এবং মিত্রদের মধ্যে পারষ্পরিক হতাশা আর বিভেদ। বিশেষ করে ইউরোপিয়ান মিত্রদের মধ্যে যারা একটা অদৃশ্য জালের মধ্যে আটকে গেছে।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং পশ্চিমারা তাদের পলিটিক্যাল সভরেন্টি সম্পুর্নভাবে আস্থা হারিয়েছে। ইউরোপিয়ান বুরুক্রেটিক্সগন অন্যের বাজনার সুরে, সেটা যে সুরই হোক, নৃত্য করতে গিয়ে তারা তাদের নিজেদের মানুষগুলির উপর এবং চালিকাশক্তি অর্থনীতির  চরম ক্ষতি এবং ভারসাম্য নষ্ট করেছে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের এহেনো অবাস্তব অবিবেচক সিদ্ধান্তে প্রতিবছর তাদের কম করে হলেও ৪০০ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতি সম্মুখিন হতে হবে। এটা একটা ক্লিন হিসাব।

‘Elite change’ awaits the West

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন এবং আমেরিকা নেতাদের সম্মিলিত সিদ্ধান্তের মধ্যে যথেষ্ট পরিমান ফারাক রয়েছে। কারো কারো আর্থিক বা সামরিক দুর্বলতার কারনে কিংবা সামাজিক মানদন্ডের পার্থক্য থাকায় কেউ কেউ সিদ্ধান্ত পার্টিসিপেশনে কোন প্রকারের প্রাধান্যই পায় না। প্রাধান্য না পাওয়ার সেইসব দেশের নাগরিকেরাও নিজেদেরকে অন্য মিত্রদের কাছে হেয় অনুভুতিতে ভোগছেন। তারা তাদের ভ্যালু, অরিয়েন্টেশন, ঐতিহ্য যেনো এই ইউরোপিয়ান কোয়ালিশনে এসে হারাতে বসেছেন। এই যে অলিখিত কিন্তু প্রকাশ্য বাস্তবিক দুরুত্ত যা প্রতিটা মিত্রের মধ্যে বিদ্যমান, সেটা তলে তলে আগ্নেয়গিরির মতো ফুলে ফেপে উঠছিলো। এটা আরো প্রকট হয়েছে এই ইউক্রেন যুদ্ধের কারনে আরো বেশী। তারা নিজেরাই এখন বুঝতে পারছিলো কে কার কোথায় অবস্থান কিংবা কে কাকে কতটুকু সুরক্ষিত দেখতে চায় এবং সেটা কিভাবে। এই প্রেক্ষাপট তারা নিজেরা নিজেদের অনুভুতি দিয়ে এবার বুঝার চেষ্টা করছে বলে সেখানে একটা রেডিক্যাল মুভমেন্ট, সোস্যাল এবং অর্থনীতির পরিবর্তন, এবং মোদ্দাকথা একটা ‘এলিট পরিবর্তনের আন্দোলনের আভাষ সামনে হাজির হচ্ছে। এটা শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র।  

Economic development is an expression of sovereignty

২১ শতকে দাঁড়িয়ে সার্বোভোমত্তকে একটা আংশিকখাত হিসাবে দেখার কোনো সুযোগ নাই। সার্ভোবোমত্তের যতগুলি উপাদান আছে, তার প্রতিটি উপাদানকে সমানভাবে জরুরী এবং প্রয়োজনীয় মনে করতে হবে। কারন প্রতিটি উপাদান একে অন্যের সাথে জড়িত। রাশিয়া আর্থিক উন্নতির উপাদানে পাচটি মৌলিক নীতি অনুসরন করবে-(ক) ওপেননেস (খ) ফ্রিডম (গ) সোস্যাল জাষ্টিস (ঘ) ইনফ্রাষ্ট্রাকচার (চ) টেকনোলোজিক্যাল সভরেন্টি। রাশিয়া কখনোই সেলফ আইসোলেশন এবং অটার্কীতে বিশ্বাস করে না এবং করবেও না। তাই রাশিয়া যে কোনো কারো সাথে যখন খুশী, বন্ধুত্বপুর্ন মর্যাদা রেখে একে অপরের সাথে বোঝাপড়ায় আন্তরিকতার সাথে সম্পর্ক বাড়াতে চায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের যা যা আছে তা আমরা আপনাদের সাথে শেয়ার করবো, প্রাইভেট ব্যবসা বানিজ্যে রাশিয়া আপ্নাদেরকে সাহাজ্য করবে, সামাজিক বৈষম্য দূরিকরনে রাশিয়া যোগাযোগ ব্যবস্থা থেকে শুরু করে টেকনোলোজি পর্যন্ত আমরা একে অপরের সাথে শেয়ার করবো। একটা কথা আমি নিশ্চিত দিয়ে বলতে চাই যে, স্বাধীন দেশসমুহ ইকুয়াল পার্টনারশীপে কাজ করার কথা। সেখানে কে কোন দিকে দূর্বল আর কে কোন দিকে সবল সেটা কোনো বিবেচ্য বিষয় হওয়া কখনোই উচিত না। পুতিনের কথাটা ঠিক এ রকমের-

“Truly sovereign states are always committed to equal partnerships,” while “those who are weak and dependent, as a rule, are busy looking for enemies, planting xenophobia, or finally losing their originality, independence, blindly following the overlord,” he said.

 Reasons for the Ukraine conflict

গত ফেব্রুয়ারীতে ইউক্রেনে বিশেষ অপারেশনের একটাই কারন যে, পশ্চিমারা তাদের দেওয়া প্রতিশ্রুতিই মানতে অস্বীকার করছিলো বারবার এবং তাদের সাথে আর কোনোভাবেই কোনো প্রকারের সমঝোতা করার কোনো স্কোপই ছিলো না, আবার নতুন করে কোনো সন্ধি করার ব্যবস্থাও ছিলো না। কারন তারা এ ব্যাপারে আমাদের কোনো কথাই শুনতে নারাজ ছিলো।

ইউক্রেনে বিশেষ অপারেশন চালানোর ব্যাপারে আমার উপরে বলতে পারেন বাধ্য করেছিলো এবং এটার খুবই দরকার ছিলো। কারন, রাশিয়ার নিরাপত্তা এমনভাবে বিঘ্নিত হচ্ছিলো যে, আমরা শংকিত হয়ে পড়েছিলাম। আর এটার বাহ্যিক উদাহরন ছিলো দনবাসে রাশিয়ানপন্থি মানুষগুলিকে কিংবা রাশিয়ান ভাষাভাষি নাগরিকদেরকে গনহত্যা করা হচ্ছিলো। আর এর পিছনে মদদ ছিলো পশ্চিমাদের। যারা নব্যনাৎসি বাহিনী তৈরী করে সেই ২য় বিশ্ব যুদ্ধের তরিকায় নির্বিঘ্নে এবং খুবই অমানবিক কৌশলে গনহত্যা চালিয়ে যাচ্ছিলো। পশ্চিমারা বছরের পর বছর অস্ত্র দিয়ে, ট্রেনিং দিয়ে, এবং সামরিক যতো প্রকারের উপদেষ্টাগত পরামর্শ দিয়ে এই ইউক্রেনকে বেছে নিয়েছিলো এই নিধনে। এই অবস্থায় ইউক্রেনের মানুষগুলির কি হবে, ইউক্রেনের অর্থনীতির কি ক্ষতি হবে, বা ইউক্রেনের সার্বিক কি হতে পারে সেটায় পশ্চিমারা একটুও মাথা ঘামায় নাই। তাদের শুধু লক্ষ্য ছিলো রাশিয়াকে কিভাবে বাতিল করা যায়। ফলে ইউক্রেনকে এক তরফা ভরষা দিয়ে রাশিয়ার দারপ্রান্তে পশ্চিমাদের  সামরীক শক্তি ন্যাটোকে রাশিয়ার নাকে ডগায় নিয়ে আসতে চেয়েছিলো। আর এই কাজটা একদিনে ওরা করে নাই। ইউক্রেনিয়ানদের মনে রাশিয়ার বিরুদ্ধে একটা ঘ্রিনা এবং রাগের মতো মনোভাব তৈরীতে সক্ষম হয়েছিলো, বিশেষ করে শাসক গোষ্টির মধ্যে।  স্কুল কলেজ, গির্জা, কালচার, ধর্ম কিংবা আচার আচরনে সর্বক্ষেত্রে ইউক্রেনের নাগরিকদের মনে, মাথায় ধ্যানে কার্যকলাপে এতাই শিক্ষা দেয়া হচ্ছিলো যে, রাশিয়ানরা খারাপ যাকে রাশিফোবি বলা চলে। আমাদের কোনো উপায় ছিলো না। এবার রাশিয়া তাঁর এজেন্ডা মোতাবেক সবগুলি নির্মুল না করা পর্যন্ত আমাদের আনকন্ডিশনাল এই অভিযান চলতেই থাকবে, এটা নিয়ে কারো কোনো সন্দেহ থাকা উচিত নয়।

Energy prices and inflation are self-inflicted

এনার্জি প্রাইস এবং ইনফ্লেশন যদি বলেন, পশ্চিমারা এর জন্য দায়ী করছে রাশিয়াকে।  তারা যেটা বলেছে- “Putin’s price hike is a “stupidity” and “designed for people who can’t read or write,”  পশ্চিমাদের এই অপবাদ কোনোভাবেই সত্য নয় এবং গ্রহনযোগ্য নয়। দাম বাড়া এবং ইনফ্লেশনের জন্য আমাদেরকে দায়ী করতে পারেন না, দায়ী আপ্নারা। দায়ী আপনাদের অবিচকের মতো অবাস্তব সিদ্ধান্তসমুহ।  কভিডের কারনে ইউরোপিয়ান এবং আমেরিকা অগনিত ইউরো আর ডলার ছাপানোর কারনে যেমন এখন ইনফ্লেশন তৈরী হয়েছে, তেমনি অন্ধভাবে রাশিয়ার গ্যাস এবং তেলের বিকল্প তৈরীতে আরো এতো লম্বা সময় লাগবে যে, ইউরোপ এবং পশ্চিমাদের অর্থিনীতিতে এর প্রভাব পড়তে বাধ্য। সেই ইনফ্লেশন তারা কিভাবে মোকাবেলা করবেন সেটা তাদের নিজস্ব ব্যাপার।

If there’s a famine, it won’t be Russia’s fault

পশ্চিমা দেশ এবং ইউরোপের নিষ্রধাজ্ঞার কারনে খাদ্যশস্য এবং সার এর সল্পতার কারনে যদি দূর্ভিক্ষ হয়, তাঁর জন্য তো দায়ী তারা। দুনিয়ার অনেক দরিদ্র দেশসমুহ কোনো অপরাধ না করেও তারা দূর্ভোগ বহন করবে। তারা এই জরুরী খাদ্যপন্য এবং পরবর্তী বছরের জন্য সার পন্য না পেলে তাদেরও অনেকদেশ ক্ষতির মুখে পড়বে। আর এর জন্য দায়ী শুধুমাত্র ইউরোপিয়ান বুরুক্রেটস এবং পশ্চিমা নেতাদের অবাস্তব সিদ্ধান্ত এবং নিষেধাজ্ঞা।

আফ্রিকা, মধ্য প্রাচ্য, এশিয়ার সর্বত্র রাশিয়া এই জরুরী পন্যসমুহ সরবরাহ করতে প্রস্তুত আছে। কিন্তু পশ্চিমাদের দেয়া ট্রান্সপর্ট ব্যবস্থায় নিষেধাজ্ঞার কারনে এই সরবরাহ অনেক অংশে বিঘ্নিত হচ্ছে। সেটা তো রাশিয়ার দোষ নয়। আমরা সবাইকে সব কিছু দিতে প্রস্তুত আছি।

পশ্চিমা এবং ইউরোপিয়ান নেতাদের অদুরদর্শীতার কারনে তারা নিজের সমস্যা যেমন সমাধান করতে অপারগ, তেমনি তাদেরকে যারা অন্ধ্যের মতো অনুসরন করে, তারাও এখন সমস্যায় নিমজ্জিত। আর এই পুরু অকৃতকার্যতার দোষ শুধুমাত্র রাশিয়ার উপরে বর্তায়ে তারা পার পেতে চাচ্ছেন। কিন্তু সময় বলে দিচ্ছে- বাস্তবটা কি। শুধু তাইই নয়, অপরিকল্পিত predatory colonial policy,”  র মাধ্যমে অগনিত

15/06/2022-দিলে দেন, না দিলে আগেই কইয়া দেন

ইউক্রেন ন্যাটোভুক্ত হওয়ার জন্য প্রানপন দিয়ে গত ১০ বছর যাবত চেষ্টা করে যাচ্ছে। তাঁর এই চেষ্টার সাথে একাত্ম ঘোষনা করে প্রতিবার আমেরিকা, ইউরোপ, যুক্তরাজ্য সর্বদা একটা মুলা ঝুলিয়েই রাখছে। সবশেষে যখন রাশিয়া ইউক্রেনকে আক্রমন করেই বসলো-তখন যেনো সবাই উঠে পড়ে লেগে গেলো কত তাড়াতাড়ি ইউরোপ এবং ন্যাটোভুক্ত দেশগুলি ইউক্রেনকে তাদের সদস্য করা যায়। এই যুদ্ধেও সেরকমের আশা দিয়েই চলেছে আমেরিকা, ইউরোপ এবং অন্যান্য বাল্টিক কিছু দেশ। শক্তিশালী মোড়ল দেশদেরকে বিশ্বাস না করেও উপায় থাকে না। কিন্তু তাদের রাজনীতির ধারা এতো জটিল যে, কোন ‘হ্যা” আসলে “না’, আর কোন “না” আসলে যে “হ্যা” সেটা বুঝাই দায়।

এবার ইউরোপিয়ান কমিশন প্রেসিডেন্ট উরসুলা গত শনিবার (১১ জুন ২২) সারপ্রাইজ ভিজিটে কিয়েভে গিয়ে দারুন আশার বানী শুনালেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীকে। তিনি খুবই হাস্যজ্জোল মুখে এবং খুব অবাক হবার মতো একটা দারুন আনন্দের খবর নিয়ে প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীকে জানালেন-

-ন্যাটোতে ইউক্রেনের যোগদানের ব্যাপারে সদস্যরা দিন-রাত অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে এবং আগামী ২৩/২৪ জুনে এ ব্যাপারে চুড়ান্ত একটা ফলাফল জানিয়ে দেয়া হবে। ইউক্রেনের ব্যাপারে ২৭ টি সদস্য দেশের কারো কোনো দ্বিমত না থাকলে ক্যান্ডিডেচার স্ট্যাটাস অনুমোদিত হবার কথা।  তবে রাশিয়ার যুদ্ধের সাথে কিংবা কেউ ইউক্রেনকে ভালোবাসে এই কারনে ইউক্রেনকে অতিরিক্ত সুবিধা দেওয়ার মতো কোনো কারন নাই। এখানে সদস্যদেশ হবার জন্য যা যা ক্রাইটেরিয়া লাগবে তার সবগুলিই পালন করতে হবে যা ইউক্রেনের বেশীর ভাগ যেমন “solid” political system, “robust and well-anchored institutions,” and “functioning administration on all level  ইত্যাদি আছে। তবে কিছু কিছু জায়গায় ইউক্রেনের অসুবিধা আছে যা ইউক্রেনকে পুর্ন করতে হবে, যেমন- address the crackdown on opposition parties and media launched by Zelensky even before Moscow began the military operation, but which was intensified afterwards, addressing the minority group in a democratic way, reforming stronger military etc.

আমার প্রশ্নটা হচ্ছে- উরসুলা বলছে ইউক্রেনের “solid” political system  আছে আবার এটাও বলছেন যে, ফান্ডামেন্টাল ইস্যু যেমন বিরোধী রাজনীতি দলকে রাজনীতি করার স্বাধীনতা নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে। মিডিয়ার ব্যাপারে তিনি বলছেন এটাও প্রায় সং গতিতেই আছে কিন্তু media launched by Zelensky even before Moscow began the military operation, but which was intensified afterwards ! উরসুলা বলছেন, ইউক্রেনে “robust and well-anchored institutions,” and “functioning administration on all level আছে তবে  মাইনোরিটি গ্রুপকে স্বাধীন এবং গনতন্ত্র মাফিক জীবন যাপনে সমর্থন দিয়ে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। বর্তমানে ইউক্রেনের সামরিক শক্তি প্রায় সর্বশান্ত। এটাকে রিফর্মেশন না করে ন্যাটোতে যোগ দেয়া কষ্ট হবে।

উরসুলা জানেন যে, ইউক্রেন আসলে ন্যাটোতে যোগ দিতে পারবে না। তাহলে একটি দেশকে কেনো বারবার ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট উরসুলা তাঁকে ন্যাটোতে সদস্য করবেন বলে আশা দিচ্ছেন, যখন তারা জানে যে, এই সপ্ন বাস্তবায়িত হতে গেলে আরো এক যুগ পার হয়ে যাবে? ফ্রান্স বলেছে প্রায় এক যুগের বেশী লাগবে, অষ্ট্রিয়া বলেছে কম পক্ষে ৫ থেকে ৭ বছরের আগে এটা ভাবাই যায় না, এবং অন্যান্য দেশ সমুহ এখনো নিশ্চুপ আছে যারা তাদের মতামত এখনো ব্যক্তই করে নাই। এটা আসলে অন্যায়।

আরে ভাই, দিলে দেন, না দিলে আগেই কইয়া দেন। খামাখা মাইর খাওয়াইতাছেন কেন?

14/06/2020-এ যাবতকাল যতো যুদ্ধ হয়েছে,

এ যাবতকাল যতো যুদ্ধ হয়েছে, সম্ভবত অতি অল্প সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশী এইড পেয়েছে ইউক্রেন। বিভিন্ন সময়ে বরাদ্ধ কৃত এইড মিলিয়ে প্রায় ৭০ বিলিয়ন ডলার ইতিমধ্যে ইউক্রেনকে দেয়া হয়েছে। সবচেয়ে বড় প্যাকেজ ছিলো আমেরিকার দেয়া এক কালীন ৪০ বিলিয়ন।

কিন্তু অবাক করার ব্যাপার হচ্ছে- এই এইড কিভাবে ইউক্রেন কোথায় খরচ করছে তাঁর হিসাব নিতে পারছে না আমেরিকা। না তাদের কোনো একাউন্টিবিলিটি আছে। আমেরিকায় ক্রমবর্ধমান ইনফ্লেশন, বেবী ফর্মুলা, তেলের দাম, খাবারে দাম, অন্যান্য সব আইটেমের দাম এতোটাই স্কাই রকেটিং এ যাচ্ছে যে, এর মধ্যে আমেরিকান নাগরিকেরাই তাদের প্রশাসনকে কোথায় এতো টাকা দেয়া হয়েছে তাঁর হিসাব দিতে বলেছেন। নাগরিকেরা এখন অধইর্য হয়ে গেছেন এই ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য। দেশের ভিতরে বাইডেন প্রশাসন চাপের মুখে থাকায় বাইডেন প্রশাসন এবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীকে আপাতত এই ৪০ বিলিয়ন ডলারের খরচের খাতের হিসাব দিতে বলেছেন। কিন্তু জেলেনেস্কী এই তথ্য আমেরিকার কাছে দিতে অস্বীকার করেছেন।

এখন এই পর্যায়ে তিনটা প্রশ্নের অবতারনা হয়ঃ

(ক)  হটাত করে কেনো বাইডেন প্রশাসন এখন এই টাকার খরচের খাত চেয়েছেন।

(খ)  জেলেনেস্কীই বা কেনো এই খরচের খাতের হিসাব দিতে চাচ্ছেন না।

(গ)  আসলেই এই টাকাগুলি গেলো কই?

নিউইয়র্ক টাইমসের সাবেক এক কর্মকর্তা এ ব্যাপারে মন্তব্য করেছে যে, জেলেনেস্কী কেনো ইউক্রেন মিলিটারী অপারেশনাল পরিকল্পনা আমেরিকার সাথে শেয়ার করছে না? যদি ইউক্রেন তাদের এই মিলিটারী পরিকল্পনা আমেরিকার সাথে শেয়ার নাইবা করে, তাহলে কিভাবে কোথায় আমেরিকা ইউক্রেনকে কি দিয়ে টার্গেট বাতলে দিবে সেটাই তো সম্ভব না। 

এ ব্যাপারে তিনি মন্তব্য করেছেন যে, প্রাথমিকভাবে মিডিয়ার কারনেই হোক অথবা প্রশাসনের অত্যাধিক ততপরতার কারনেই হোক, ইউক্রেন যুদ্ধে প্রায় বেশীর ভাগ নাগরিকেরা এটাই চেয়েছিলো যে, আমেরিকা সবকিছু দিয়েও যেনো ইউক্রেনকে সাহাজ্য করে। রিপাবলিকানরাও সেটাই চেয়েছিলো।  কিন্তু বর্তমানে এই ভাবনায় তাদের ছেদ পড়েছে। ৪০ বিলিয়ন ডলার দেয়ার সময় মাত্র একজন এমপি ভেটো দিয়েছিলো কিন্তু বর্তমানে উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন অস্ত্র এবং আরো এইড পাঠানোর ব্যাপারে এবার প্রায় ৫৭ জন এমপি ভেটো দিয়েছে। তারা বিব্রিতি দিয়েছেন যে, আগে যে এইড পাঠানো হয়েছে তাঁর একটা খাতওয়ারী হিসাব ইউক্রেনকে দিতে হবে।

ইক্রেনের প্রেসিডেন্ট সেই এইডের খাতওয়ারী হিসাব দিতে অস্বীকার করেছেন। আসলে যুদ্ধের প্রথমদিন থেকে বাইডেন প্রশাসন যে ভাবটা দেখিয়েছিলো সেটা হচ্ছে-ইউক্রেন যুদ্ধটা যেনো আমেরিকার নিজের যুদ্ধ। ফলে জেলেনেস্কী মনে করছে, সে বাইডেন প্রশাসনের হয়েই ইউক্রেন যুদ্ধটা চালিয়ে যাচ্ছে। তাই তাঁর আবার হিসাব দেয়ার কি আছে? সে তো আমেরিকার হয়েই কাজ করছে!! জেলেনেস্কীর মধ্যে আরো একটা চিন্তা কাজ করছে বলে ধারনা করা হচ্ছে যে, বাইডেন প্রশাসন খুব একটা শক্ত না। তারা তো ইউক্রেনকে শক্ত করে হিসাব দেয়ার কথাও বলছে না। ফলে ইউক্রেন যুদ্ধে হেরে গেলেও যেনো এটা আমেরিকারই হার। আর আমেরিকাক্র হার না মানতে চাইলে তাদের জেলেনেস্কীকে দরকার।  তাই তাঁকে সাহাজ্য করতেই হবে।

তারপরেও অন্ধকারে ঢিল মেরেছেন রিপাব লিকান এমপি মারজুরী টেলর গ্রীনি যে, সম্ভবত এই এইড প্যাকেজ মানি লন্ডারিং এর একটা অংশ। তাঁর ভাষায় যদি বলি সেটা এ রকম- The Georgia Republican said that federal lawmakers “fund non­profits, they fund NGOs, they fund grants, grants that go to people, and if you really look into it, a lot of times it’s their friends and families that operate these non­profits and NGOs, and it’s basically like money laundering schemes.” Greene, along with 56 House Republicans, has incessantly strived to block Biden’s efforts to lavish hard-earned American money on Ukraine. We do know that Ukraine has become a black hole of sorts. Ukraine is home to neo-Nazi groups, informal militias and non-State actors.

কয়দিন আগে several US intelligence experts বিবৃতি দিয়েছেন যে, “American military aid falling into the hands of non-state actors. Various US officials, policy, and defence analysts have raised concerns about the fact that some of these weapons may end up in the hands of militias that the US does not want to arm in the long run. So, American Dollars being exported to Ukraine could end up in hands of militias or get laundered for vested interests.

ইউক্রেন যুদ্ধটা যতো দীর্ঘায়িত হবে, তাতে অনেক কিছুই বেরিয়ে আসবে যা এতোদিন হয়তো বড় বড় হোমড়া চোমড়ারা অতি গোপনে সুরক্ষিত রেখেছিলেন।

-https://tfiglobalnews.com/2022/06/11/ukraine-denies-to-furnish-any-information-about-the-usage-of-the-40-billion-sent-by-the-us/

13/06/2022-বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রীর গদি নড়বড়ে

বুলগেরিয়া ক্রমাগত আর্থিক ইনফ্লেশনের কারনে এবং এ অবস্থাতেও দেশের সার্থ সর্বোচ্চ পর্যায়ে চিন্তা না করে ইউক্রেন যুদ্ধকে সাপোর্ট করতে গিয়ে বর্তমানে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সবচেয়ে গরীব দেশ বুলগেরিয়া এখন বিপদে। বুলগেরিয়ার প্রচুর বৈদেশিক ঋণ রয়েছে এবং অর্থনীতি এখন প্রায় বিপর্দস্থ অবস্থায় আছে। এরপরেও বুলগেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী পেটকভ ইউক্রেন যুদ্ধে মিলিটারী এইড দিতে রাজী হওয়ায় আর তারই সরকারের কোয়ালিশন পার্টের (Inspectia tehnica periodica (ITP) নেতা টিফানভ তাতে রাজী না হওয়ায় শেষমেস ITP র ডিপ্লোমেটিক চীফ টিউদোরা সহ মোট ১৩ জন এমপি সরকারী দল থেকে রিজাইন দিয়েছেন। এতে কার্যত পেটকভ তাঁর মেজরিটি হারিয়ে ফেলেছেন।

বুলগেরিয়ার আরেকটি কোয়ালিশন দল সুফিয়া অঞ্চলের ‘বুলগেরিয়ান সোস্যালিষ্ট পার্টি (BSP)ও একই হুমকী দিয়েছে যে, তারাও কোয়ালিশন সরকার থেকে তাদের সাপোর্ট উঠিয়ে নেবে।

This has increased the chances of Bulgaria being pushed into a state of ‘political instability’ again. এখানে উল্লেখ থাকে যে, গত ২০২১ সালে পরপর তিনবার নির্বাচন হয়েও কোনো দল নিরঙ্কুশ মেজরিটি পায় নাই বিধায় ৪টি দলই একত্রে মিলে বুলগেরিয়ার সরকার গঠিত হয়। তাঁর মধ্যে ITP এবং BSP দুইটি দল। অনেকদিন যাবত বুলগেরিয়ার অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই দৈন্যদশা চলছিলো এবং সেন্ট্রাল ব্যাংক ব্যর্থ হচ্ছিলো ফরেন ঋণ পরিশোধের। আর অর্থনৈতিক দুরাবস্থার কারনেই বুলগেরিয়া রাশিয়া থেকে গ্যাস/তেল রুবলে কিনতে পারছিলো না। ফলে ইউক্রেনকে সাপোর্টকারী দেশ হিসাবে বুলগেরিয়াকে রাশিয়া ‘আনফ্রেন্ডলী দেশ” হিসাবে রাশিয়া বুলগেরিয়ায় তেল সাপ্লাই বন্ধ করে দিয়েছিল। তাতে বুলগেরিয়ার নাগরিকদের অবস্থা আরো শোচনীয় পর্যায়ে পড়ে।

বেচারা ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাসে প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হইয়েছিলেন। মাত্র ৬ মাস।

দেশের মানুষের সার্থ রক্ষা না করে অদৃশ্য বিগ বসদের হুকুম তামিল করলে পরিনতি এমনই হবে। ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আরো কতজনের কপালে যে কি আছে, সময় শুধু বলতে পারে।

(সুত্রঃ ইউরো নিউজ)

12/06/2022-ইউক্রেন যুদ্ধটা এখন “ফান পর্যায়ে” চলে

ইউক্রেন যুদ্ধটা এখন "ফান পর্যায়ে" চলে গেছে বলে মনে হয়। উরসুলা জানে না সে কি বলছে এবং যা বলছে ২/৩ মাস পরেই সেটা আবার পালটে যাচ্ছে। বাইডেন কথা বলতে বলতে অন্য মনষ্ক হয়ে এক কথার মধ্যে আরেক কথা বলে ফেলে, আসল বিষয়বস্তু মাঝে মাঝে ভুলেই যায়।

এবার বাইডেন বলছে, US could buy cheap Russian Oil and supply to EU. অথচ তারাই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। যুদ্ধটা ইউক্রেনের, আমেরিকা বা ন্যটো কোনোভাবেই এই যুদ্ধে জড়াইতে চায় না, আবার অন্যদিকে এটাও বলছে যে, এই যুদ্ধে রাশিয়াকে হারানোর জন্য দুনিয়া এদিক সেদিক করতেও আমেরিকা প্রস্তুত।

লং রেঞ্জ HIMARS যার রেঞ্জ ৩০০ কিমি যা আঘাত হানতে পারে রাশিয়ার টেরিটোরিতে, আবার এটাও বলছে যে, রাশিয়ার টেরিটোরিতে যেনো কোনো আঘাত না আনা হয় এই ভরষায় HIMARS দিচ্ছে ইউক্রেনে।

অন্যদিকে এত অস্ত্র যাচ্ছে কই এই প্রশ্নও আমেরিকা করছে। কারন তারা কোনো প্রকারের হদিস পাচ্ছে না পাঠানো অস্ত্রের। অনলাইনে ব্ল্যাক মার্কেটে জেভেলিন, স্টিংকার কেনার সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। ইউরোপে ইল্লিগেল আর্মস ভরে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের লিগ্যাল আর্মস দিয়ে। ইউক্রেনের প্রায় ২০ থেকে ২৫% অঞ্চল রাশিয়ার দখলে চলে৷ গেছে, এখনো জেলেনেস্কি ভাবছে - জিত তাদেরই হবে। হ্যা হবে হয়ত, কিন্তু অনেক অনেক যুগ কেটে যাবে তাতে। ইউরোপে ইউক্রেন রিফুজি যতটা আনন্দের সাথে আশ্রয় পেয়েছিল, এখন প্রতিটি পরিবার এবং দেশ এই ওভার বার্ডেন্ড রিফুজিকে নিয়ে খারাপ মন্তব্য করছে, খারাপ ব্যবহার করছে।

দেশে দেশে তেল গ্যাস খাবারের সল্পতা দেখা দিচ্ছে, তারপরেও নিজেদের ক্ষতি করে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে আরো ক্ষতির মুখে পড়ছে। অথচ শুধুমাত্র রাশিয়াকে ধরাস্ত করার মনোভাবে ইউক্রেনসহ নিজেদের মানুষগুলিকে বিপদে ফেলছে।

আমেরিকা ইউরোপের কোনো দেশই না, রাশিয়া হচ্ছে ইউরোপের একটা পার্ট, অথচ সেই ইউরোপ রাশিয়াকে বাদ দিয়া আমেরিকার সাথে টাই আপ করে প্রকারান্তে ইউরোপ নিজেই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সব কিছু রাশিয়ার উপর নির্ভরশিল ( গম, সিরিয়াল, তেল গ্যাস, ইউরেনিয়াম, লোহা, ডায়মন্ড সব) হয়েও রাশিয়াকে চেপে ধরেছে। ইউক্রেনকে ন্যাটোতে মেম্বার তো করবেই না, ইউরোপিয়ান ব্লকেও আনতে চায় না ই ইউ। অথচ বিনা প্রয়োজনে ইউক্রেন সেই ন্যাটো বা ই ইউতে যাওয়ার জন্য এমন মনোভাবে থেকে রাশিয়াকে ক্ষেপিয়ে তুল্লো। এটার হয়তো প্রয়োজনো ছিল না।

জার্মানি আধুনিক আইরিশ-টি দিবে ইউক্রেনকে অথচ ওদের ইনভেন্টরিতে আইরিশ-ট ই নাই। পোল্যান্ড ইউক্রেনকে তার সব ট্যাংক দিয়ে দিলো জার্মানি পোল্যান্ডকে আধুনিক ট্যাংক দিবে এই আশায়। জার্মানি তার বদলে আরো পুরানো ট্যাংক দিতে চাইছে পোল্যান্ডকে।

এটা একটা ফান ছাড়া আর কিছুই না। ফানটা অনেক খারাপ একটা ফান।

12/06/2022-কাউন্টারিং নেগোশিয়েশন

যে কোনো যুদ্ধের সমাপ্তি হয় নেগোশিয়েশনের মাধ্যমে। ১ম বা ২য় বিশ্ব যুদ্ধও কিন্তু শেষমেশ নেগোশিয়েশনের মাধ্যমেই শেষ হতে হয়েছিলো। কিন্তু সেই নেগোশিয়েশনে বসা পার্টিগুলি কে কিভাবে প্রভাবিত করবে তার নির্ধারন হয় পার্টিগুলির হাতে কি কি তুরুকের তাস আছে তার উপর। যার হাতে যতো বেশী বার্গেনিং কার্ড থাকবে, তাঁর ততো দাবী নেগোশিয়েশন টেবিলকে প্রভাবিত করবে, এটাই নিয়ম। যেমন-২য় মহাযুদ্ধে যখন হিটলার হেরে গেলেন, তখন তাঁর দেশ জার্মানীর হাতে আর কিছুই ছিলো না। কিন্তু মিত্রবাহিনীর কাছে ছিলো পুরু তুরুকের তাস। বিধায় মিত্রবাহিনী যা যা ডিমান্ড করেছে, তার শতভাগ ওই নেগোশিয়েসন টেবিলে জার্মানীকে মানতে এবং ছাড় দিতে হয়েছে। সেই চুক্তিকে বলা হয়, প্যারিস চুক্তি-১৯৪৭। একটু সারসংক্ষেপ যদি দেখি কি কি ছাড় দিতে হয়েছিলো জার্মানিকে?

-জার্মানীকে ১০% টেরিটোরিয়াল ল্যান্ড ছাড়তে হয়েছে।

-জার্মানীর বাইরে জার্মানীর যতো ওভারসিজ কলোনী ছিলো (যেমন Alsace and Lorraine to France, cede all of its overseas colonies in China, Pacific and Africa to the Allied nations) তার সবগুলি কলোনী ছেড়ে দিতে হয়েছে।

-১৬% কয়লার খনি, ৪৮% লোহার খনি এবং ১৩% জনবসতি ছাড়তে হয়েছে।

-বার্লিন যেটা সোভিয়েত টেরিটোরিতে ছিলো, সেটাকে ৪টি ভাগে ভাগ করতে হয়েছিলো। সোভিয়েট নিয়েছিলো পূর্ব পাশ, আর পশ্চিম পাশ ছাড়তে হয়েছে অন্যান্য মিত্র বাহিনীকে। একটা পার্ট আছে জার্মানীর কাছে এখন।

-ওডার এবং নিশি নদীর পূর্ব পাশের সমস্ত টেরিটোরি ছাড়তে হয়েছে পোল্যান্ডের কাছে।

-এই চুক্তি অনুসারে বেলজিয়ামকে, চেকোস্লাভাকিয়াকেও কিছু ল্যান্ড ছাড়তে হয়েছে।

-শর্ত অনুসারে জার্মানী আক্রমণাত্মক কোনো আর্মি গঠন করতে পারবে না, শুধুমাত্র ডিফেন্সিভ বাহিনী হিসাবে সীমিত আকারে নৌ, বিমান এবং সেনা বাহিনীর করতে পারবে। ফলে জার্মানী বিশ্বে বর্তমানে ৩০তম বৃহত্তর মিলিটারী ফোর্স হিসাবে পরিগনিত। তবে ন্যাটো ফোর্সে তাঁর অবস্থান ২য়।

-শর্ত অনুযায়ী জার্মানী কোনো প্রকার বায়োলজিক্যাল, ক্যামিক্যাল এবং নিউক্লিয়ার অস্ত্র তৈরী করতে পারবে না। ফলে জার্মানীর কাছে কোনো প্রকার নিউক্লিয়ার অস্ত্র নাই, তবে ন্যাটোর বাহিনীর সদস্য হিসাবে যুক্তরাজ্যের নিউক্লিয়ার অস্ত্রের উপর তাদের ট্রেনিং করানো হয়।

-৪ লক্ষ হলোকাষ্ট সার্ভাইবারদেরকে জার্মানী প্রতি বছর ক্ষতিপুরন দেয়। তাতে দেখা যায় যে, জার্মানী প্রতিবছর প্রায় ৫৬৪ মিলিয়ন ডলার পে করে।

-চুক্তি করার সময়ে মিত্রবাহিনীকে জার্মান এককালীন ২৩ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতি পুরন দিতে হয়েছিলো।

এবার বুঝেন, ২য় মহাযুদ্ধে জার্মানির মেরুদন্ড শুধু ভাংগাই হয় নাই, সোজা করে দাড়ানোর মত শক্তিও রাখে নাই। হিটলারের যদি তখন নিউক্লিয়ার শক্তি থাকতো, তাহলে নেগোশিয়েশন টেবিলেই জার্মানী বসতো না। কিন্তু আক্ষেপের বিষয় (অথবা সুখের বিষয়) যে, হিটলারের কাছে তখন নিউক্লিয়ার অস্ত্র ছিলো না।

এবার আসি, রাশিয়া আর ইউক্রেনের যুদ্ধ বন্ধের কিছু অপশন।

সবচেয়ে বড় দূর্বলতা ইউক্রেনের যে, তারা না পরাশক্তি, না নিউক্লিয়ার ক্ষমতাধর, না ন্যাটোর মেম্বার, না ইউরোপিয়ান ব্লকের কেউ। এদেরকে কেউ পিছন থেকে উষ্কানী দিচ্ছে, আর সেই উষ্কানী ইউক্রেন ১০০% বিশ্বাস করে ভাবছে, তাঁকে কেউ না কেউ উদ্ধার করবেই। কিন্তু আজকে প্রায় ১১০ দিন পার হয়ে গেছে যেখানে কোনো পরাশক্তি, কোনো সাহাজ্যকারী আর্মি, কিংবা কোনো নিউকধারী দেশ কার্যত ইউক্রেনকে সরাসরি সাহাজ্য করতে আসে নাই, আর আসবেও না। একটা 'নো ফ্লাই যোন" পর্যন্ত করলো না। এদিকে আগ্রাসী রাশিয়া সেই সুযোগে ইউক্রেনের বেশ কিছু কিছু শহর নিজের করে শুধু নিচ্ছে না, সেখানে রাশিয়ার সমস্ত চরিত্র ইঞ্জেক্ট করে দিচ্ছে। পাসপোর্ট, কারেন্সী, ন্যাশনাল আইডি, সবকিছু পালটে দিয়ে রাশিয়ান কালচার প্রতিষ্ঠা করে দিচ্ছে। দিন যতো যাচ্ছে, পিপড়ার গতিতেই হোক, বা কচ্ছপের গতি, রাশিয়া ধীরে ধীরে ইউক্রেনের বেশ কিছু টেরিটোরি গিলেই ফেলছে। কেউ সেটাকে প্রতিহত করছে না বা ডাইরেক্ট কিছুই করছে না। অন্যদিকে, ইউক্রেনের সামরিক শক্তি ধীরে ধীরে এতোটাই নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে যে, একটা সময় সম্ভবত রাশিয়াকে আর কোনো বোম্ব বা মিজাইল মারতে হবে না, এম্নিতেই দখলে চলে যাবে। যে রাশিয়া নিজেই অন্য পরাশক্তিকে মোকাবেলা করতে প্রস্তুত, সে রাশিয়াকে কোন পরাশক্তি আক্রমন করবে? এটা কিন্তু ভাবতে হবে। তারমধ্যে চীন, ইন্ডিয়া, মধ্য প্রাচ্য, এশিয়া, আফ্রিকা রাশিয়ার পাশে। এমন কি ইজরায়েল নিজেও। ইউক্রেনের সপ্ন ভঙ্গ হতে হয়তো একটু বেশী সময় লাগছে।

বিভিন্ন দেশ যারা ইউক্রেনকে সাহাজ্য করতে আপাতত আভাষ দিয়েছিলো, তারা তাদের দেশেই এখন খাদ্য সংকট, তেল সংকট, গ্যাস, এবং অন্যান্য কমোডিটির ঘাটতিতে নিজের দেশের নাগরিকদের কাছে অপ্রিয় হয়ে যাচ্ছে। ব্যাপারটা এখন এমন পর্যায়ে চলে যাচ্ছে যে, সেইসব রাষ্ট্রনায়কেরা তাদের গদি টিকিয়ে রাখার জন্যই আর ইউক্রেনকে নিয়ে ভাবার সময় হয়তো হবে না। উপরন্ত, যেসব রিফুজি অন্যান্য দেশে আশ্রয় নিয়েছে, তাদেরকে নিয়েও সেইসব দেশগুলি এখন ক্রমাগত বিব্রতবোধ করছে তাদের দেশের নাগরিকদের কাছে। সেইসব রিফুজির জন্যেও তো দেশগুলির অর্থনীতির উপর চাপ বাড়ছে। কার বোঝা কে নেয়?

রাশিয়া বারবার ইউক্রেনকে নেগোশিয়েশন টেবিলে বসাতে চাইলেও ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কী সেটায় কর্নপাত করছে না। রাশিয়ার তিনটা শর্ত বারবার উচ্চারিত করছে যে, ক্রিমিয়া, দনবাস, এবং ডোনেটস্ক কে (যা আগেই রাশিয়ার কন্ট্রোলে বা তাঁর নিয়ন্ত্রীত বাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রীত ছিলো) এর স্বীকৃতি, ইউক্রেন যেনো কোনো অবস্থাতেই ইউরোপিয়ান ব্লকের অধীনে মিলিটারী জোট ন্যাটোতে যোগ না দেয় আর তাঁর আর্মি এমন একটা সীমিত পর্যায়ে থাকবে যাতে অফেন্সিভ বাহিনীতে পরিনত না হয়। রাশিয়া কোনোভাবেই রিজিম চেঞ্জ চায় না, তাঁর দরকারও নাই। এটা জেলেনেস্কীর মাথায় যেনো ঢোকছেই না। গো ধরে বসে আছে কোনো এক আলাদিনের চেরাগের আশায়। গত ১৫ বছরেও ইউক্রেন ন্যাটোর মেম্বার হতে পারে নাই, না ইউরোপিয়ান ব্লকের কোনো সদস্য। এই ১৫ বছরের অভিজ্ঞতায় তাদের কি এটা বুঝা উচিত না যে, ইউরোপ ইউক্রেনকে কিভাবে দেখে? ইউক্রেনকে ভালোবেসে অন্যান্য ইউরোপিয়ান দেশগুলি বা পশ্চিমারা তাঁকে সাহাজ্য করছে বলে জেলেনেস্কীর যে ধারনা, সেটা আসলে ভুল। আসলে তারা চেয়েছিলো রাশিয়াকে সাইজ করতে। ইউক্রেন তো শুধু একটা ক্যাটালিষ্ট। আজকে রাশিয়া আগ্রাসীর ভুমিকায় না হয়ে যদি এটা হতো জার্মানী কিংবা ইউকে বা আমেরিকা, তাহলে সারা দুনিয়ার মানুষ হয়তো জানতোই না যে, ইউক্রেনে জার্মানি, বা ইউকে বা আমেরিকা এটাক করেছে। এই যুদ্ধে রাশিয়া নিজেও তাঁর অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্য লড়ছে, আবার ইউক্রেনও। অন্য যারা উষ্কানী দিচ্ছে, তারা স্রেফ মেলায় অংশ নিয়েছের মতো।

যুদ্ধ যতো লম্বা হবে, ধীরে ধীরে ইউক্রেন আরো অনেক টেরিটোরি হারাবে বলে আমার ধারনা। যেমন সে এখনই মারিউপোল, খেরশন, খারখিভ, সেভেরিদোনেটক্স, আজভ সাগরের পোর্ট অর্থাৎ প্রায় ২৫% টেরিটোরি ইতিমধ্যে রাশিয়া দখল করেছে বলে জানা যায়। এমতাবস্থায়, ইউক্রেনের উচিত ছিলো নিজের ভালোটা বুঝা এবং ইউক্রেনের উচিত হাতে কিছু থাকতে থাকতে রাশিয়ার সাথে নেগোশিয়েশন টেবিলে বসা। পশ্চিমাদের উষ্কানী বা আশ্বাসে বিলম্ব না করে একটা সমঝোতা চুক্তিতে যাওয়া এবং নিজের দেশের মানুষগুলিকে তথা যারা বাস্তহারা হয়ে গেছে, তাদেরকে ফিরিয়ে এনে আবারো নতুন ইউক্রেন হিসাবে তৈরী করা। রাশিয়ার সাথে তাঁর একটা বন্ধুত্বপুর্ন সম্পর্ক তৈরী করলে এবং সে পশ্চিমা ধ্যান ধারনা থেকে সরে এসে রাশিয়ার সাথে আতাত করলে হয়তো রাশিয়াই তাঁকে আবার পুনর্গঠনে সাহাজ্য করতেও পারে।

এখানে একটা কথা ক্লিয়ার করা উচিত যে, জার্মানীর কাছে কোনো প্রকার নিউক্লিয়ার উইপন নাই। আর সে এটা করতেও পারবে না। করলে ২য় মহাযুদ্ধের সময় এলাইড ফোর্সের সাথে ওদের চুক্তি ভঙ্গের জন্য অপরাধ হবে। তবে Under NATO nuclear weapons sharing, the United States has provided nuclear weapons for Belgium, Germany, Italy, the Netherlands, and Turkey to deploy and store. তারা শক্তিশালী মিলিটারী ফোর্সও বানাতে পারবে না। জার্মানী সামরিক শক্তির দিক দিয়ে বিশ্বে ৩০তম দেশ। এখানে NATO nuclear weapons sharing বলতে আসলে কি বুঝায়? এটা হলো-ন্যাটো দেশভুক্ত রাষ্ট্রগুলির ভুখন্ডে আমেরিকা ইয়াদের কিছু কিছু নিউক্লিয়ার উইপন স্টোর বা মজুত করে ডিপ্লয় করে রাখে। সেগুলিতে একচ্ছত্র কমান্ড থাকে পেরেন্ট দেশের অধীনে। যেসব দেশে এগুলি ডিপ্লয় করা থাকে, তারা শুধু এগুলির উপর ট্রেনিং করে থাকে যাতে পেরেন্ট দেশ আদেশ করলেই তারা সেগুলি মারতে পারবে। ফলে আমেরিকার নিউক্লিয়ার উইপন আসলে ভাগ হয়ে আছে Belgium, Germany, Italy, the Netherlands and Turkey তে।

11/-6/2022-ইন্টারন্যাশনাল ইকুইলিব্রিয়াম অফ পাওয়ার

ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধটা নিয়ে কোনো আলাপ করতে চাইছিলাম না। কিন্তু যে কার্যকরনটা নিয়ে পুরু বিশ্ব এখন তালমাতাল, সেটা আর এই যুদ্ধের মধ্যে কোনো অবস্থাতেই সীমাবদ্ধ নাই। যেমন, ফুড সংকট, তেল সংকট এবং আরো অন্যান্য সংকট। এটা এমন নয় যে, শুধুমাত্র রাশিয়া আর ইউক্রেন একাই সারা দুনিয়ার খাবার সরবরাহ করে, অথবা শুধু রাশিয়াই সারা দুনিয়ায় তেল বা গ্যাস সরবরাহ করে। সবদেশই কিছু না কিছু ফুড গ্রেইন উৎপন্ন করে, এবং নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিষপত্র উৎপন্ন করে। তারা রপ্তানীও করে। উদাহরন দেইঃ

গম উৎপাদনে রাশিয়া ১৩%, আমেরিকা-১৩%, অস্ট্রেলিয়া ১৩%, কানাডা-১২%, ইউক্রেন-৮%, ফ্রান্স-৮%, আর্জেন্টিনা-৬%, জার্মানি, রুমানিয়া, ইন্ডিয়া, বুলগেরিয়া প্রত্যেকেই-৪% করে গম রপ্তানী করে। এ ছাড়া কাজাখিস্থান, পোল্যান্ড, লিথুনিয়া, হাংগেরীও গম উৎপাদন করে। এরা সবাই মিলে ৯৫% গম রপ্তানী করে থাকে সারা দুনিয়ায়। যদি রাশিয়া এবং ইউক্রেন একত্রে ধরি তাহলে তারা উভয়ে মিলে ২১% রপ্তানি করে। এর মানে ৭৪% গমের রপ্তানী কিন্তু করে অন্যান্য দেশ। অথচ ইতিমধ্যে গম, ভুট্টা, যব ইত্যাদির একটা বিশাল শুন্যতা দেখা গিয়েছে। আর এই মুল উপাদান শস্যের কারনে অন্যান্য সব খাবারের উপর প্রভাব পড়েছে। এর কারন কি? এর একটাই কারন-এই যুদ্ধ কোথায় গিয়ে থামবে, এটা কেউ বলতে পারছে না। ফলে সবাই একটা এমন আতংকের মধ্যে আছে যে, কেউ এখন তাদের গোডাউন খালী করতে চায় না। সবাই যার যার খাদ্য সামগ্রী অন্যত্র রপ্তানী থেকে বিরত রয়েছে। আর একারনেই সংকট। অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যের বেলাতেও তাই হয়েছে। এটা যুদ্ধ আতংকের বাই প্রোডাক্ট। আমেরিকা সম্ভবত এই ক্যালকুলেশনেই রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা প্রনয়ন করেছিলো যে, মাত্র ১৩% শর্টফল কাভার করা সম্ভব, কিন্তু এর সাইড ইফেক্টটা কি হবে সেটা সম্ভবত হিসাবের মধ্যে ধরেনি।  

একইভাবে তেল উৎপাদনকারী দেশসমুহের মধ্যে যদি দেখি, তাহলে দেখবেন

আমেরিকা, রাশিয়া, সৌদি আরব, কানাডা, ইরাক, চায়না, আরব আমিরাত, ব্রাজিল, কুয়েত এবং ইরান মিলে মোট ৯৫% তেল উৎপাদন করে কিন্তু আমেরিকা ছাড়া অন্যান্য সবাই রপ্তানী করে। শুধু রাশিয়ার উৎপাদন বাদ দিলে মোট উতপাদনের পরিমান থেকে মাত্র ২৫% রপ্তানী হয়তো বাদ পড়বে এবং বাকী ৭০% অন্যান্য দেশ থেকে পুরন করা যেতো যদি তারা সবাই একটু একটু করে উৎপাদন বাড়িয়ে দিতো।, তাহলে রাশিয়ার তেল ছারাও চলতো। তারমানে রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী হতো। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী হচ্ছে না কেনো?  

এর কারন কিন্তু ফুড গ্রেইনের মতো আতংকের কারনে নয়। এটা হচ্ছে আমেরিকা বা ন্যাটো, বা ইউরোপের উপর অন্যান্য দেশের একটা প্রতিশোধমুলক ব্যবস্থার কারনে। আমেরিকা একচ্ছত্রভাবে যেটাই করুক, সেটাই ন্যায়, তাঁর কোনো অন্যায় নাই, এটা হয়তো আমেরিকা মনে করলেও, অন্যান্য দেশ সেটা মনে করে না। আবার সেটা অন্যান্য দেশ মেনে না নিলেও এতোদিন তাঁরা যে কোনো কারনেই হোক (হোক সেটা পলিটিক্যাল, হোক সেটা একাকীত্ব, হোক সেটা নিজেরা আইসোলেট হবার ভয়ে) সেটার ব্যাপারে সোচ্চার হওয়াও সম্ভব ছিলো না। ফলে আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, এশিয়া, চীন, সবাই ভিতরে ভিতরে একটা রাগ সুপ্ত অবস্থাতে লালন করছিলো। এই যুদ্ধে রাশিয়া বেকে বসায় এবার সেই অন্তর্দাহ কিংবা সুপ্তরাগ একসাথে সবাই আমেরিকার বিরুদ্ধে উচ্চারিত হতে দেখা গেছে। একটা কথা আছে- শত্রুর শত্রুরা একে অপরের কিন্তু বন্ধু। আর ঠিক এটাই হয়েছে এবার। রাশিয়ার সাথে চীন, ইন্ডিয়া, সাথে মধ্যপ্রাচ্য, লাগোয়া আফ্রিকা সবাই একযোগে বন্ধু হয়ে গেছে আর তাদের কমন শত্রু যেনো ইউরোপ, আমেরিকা, অথবা ন্যাটো।

এই তথ্যগুলির প্রচুর অভাব ছিলো সম্ভবত আমেরিকার গোয়েন্দা বাহিনীর তথ্য ভান্ডারে। পুতিনকে তারা পড়তে পারেনি, পড়তে পারেনি চীনের মনোভাবকেও, কিংবা ইন্ডিয়া বা মধ্যপ্রাচ্যের নেতাদেরকেও। আবার অন্যদিকে তলে তলে যে এই সব বিচ্চু বাহিনীগুলি এতোটা জোটে আবদ্ধ হয়ে যেতে পারে, এই প্রেডিকশনটা আমেরিকা-লিড জোট ভাবেই নাই। আর যখন তাদের বোধোদয় হয়েছে, তখন গরম গরম সাক্ষাতেও তাদেরকে আর দলে টানা যাচ্ছিলো না, যায়ও নাই। ফলে প্রতিটি নিষেধাজ্ঞা বুমেরাং হয়ে নিজেদের উপরেই ফিরে আসা শুরু করেছে।

আমার ব্যক্তিগত ধারনা যে, ন্যাটোকে নিয়ে তো শুধুমাত্র রাশিয়ার ভয়। চীন, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা তাদের তো ন্যাটোকে নিয়ে কখনো কোনো মাথা ব্যথাও ছিলো না, এখনো নাই। ন্যাটোর যতো এক্সপানশন, যতো প্রস্তুতি সবইতো এই রাশিয়াকে ঘিরেই। ন্যাটোকে জীবিত রাখাই হয়েছে রাশিয়াকে সাইজ করার জন্য। আর ন্যাটো তো একটা সুযোগই খুজছিলো কবে কিভাবে এই ন্যাটোকে দিয়ে রাশিয়াকে সাইজ করবে। এবার তো সেই সুযোগটা এসেছিলো যেটার জন্য তারা এতো যুগ ধরে অপেক্ষা করেছে। তাহলে ন্যাটো কি আসলেই তৈরী ছিলো রাশিয়াকে সাইজ করার এই মুক্ষোম সুযোগটা পেয়ে? ন্যাটোর নিজেরও কোনো প্রস্তুতি ছিলো না। অতি সন্নাসীতে যে গাজন নষ্ট হয়, এই প্রবাদটা ইংরেজীতে মনে কেউ পড়ে নাই। জানা থাকলে আগে তারা ন্যাটো কতটা ঐক্যবদ্ধ্য সেটা যাচাই করা দরকার ছিলো। অনেক হোমওয়ার্ক করার দরকার ছিলো। আমরা দেখেছি-প্রতিটি মেজর মেজর সিদ্ধান্ত পশ্চিমারা নিতে সময় নেয় নাই। প্রত্যেকটা সিদ্ধান্ত হয়েছে এক রাতের মধ্যে কিংবা এক দুপুরের মধ্যে, কখনো কখনো একই দিনেও অনেক বড় বড় সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। কিন্তু একটিবারও ভাবেন নাই, এসব মারাত্তক মারাত্তক সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে পরে কি কি ইফেক্ট হতে পারে। পুরু ব্যাপারটা ঘটেছে গুটিকতক মানুষের ব্রেইন চাইল্ড হিসাবে। ফলে একজন ‘ইয়েস’ বলেছে আর সবাই এর পুরুপুরি বিশ্লেষণ না করেই হুজুগের বশে ‘ইয়েস’ বলেছে আর যারা বলতে পারেনি, তারা হয়তো মৌন থেকেছে। বাধা দেয় নাই। এর ফলে নিষেধাজ্ঞার পর নিষেধাজ্ঞায় কোনো কাজ হচ্ছিলো না। দেখা গেছে ৭ম নিষেধাজ্ঞা দিয়েও কাজ হয় নাই।

সুইফট বন্ধ করলে কি হতে পারে, বিকল্প তৈরী হয়ে গেলে কি করা যাবে, পেট্রো ডলার আউট হয়ে গেলে কি হতে পারে, অন্য কারেন্সী ইন্টারন্যাশিনাল কারেন্সী হিসাবে গন্য হয়ে গেলে অতিরিক্ত ডলারগুলির কি হবে, বড় বড় কোম্পানীগুলি তাদের ব্যবসা বানিজ্য গুটিয়ে নিলে কি হতে পারে, যারা পুতিনকে কিংবা চীনকে বুঝিয়ে একটা দফারফা করতে পারে সেই লোকগুলিকে নিষেধাজ্ঞায় ফেলে দেয়ায় কি হতে পারে এগুলির কোনো হোমওয়ার্ক একেবারেই করা হয় নাই। ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন নিজেই নিজেরা কতটা কে কাকে ভরষা করে, এটাও যাচাই করার দরকার ছিলো এসব করার আগে। সেটাও করা হয় নাই। প্রতিটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধান তাদের নিজেদের নাগরিকের কাছে দায়বদ্ধ, আমেরিকা বা ইউরোপের কাছে নয়। তারা ইচ্ছে করলেই তাদের নাগরিকদেরকে পথে নামিয়ে দিয়ে পশ্চিমাদের খুশী করার জন্য কিংবা তাদের তাবেদারী করে ক্ষমতায় থাকতে পারেনা। এটা বুঝা দরকার ছিলো। একদিকে ডেমোক্রেসির কথা বল্বো আবার অন্যদিকে দেশের নাগরিকের কথা মাথায় রাখবো না, এটা হতে পারে না।

আমি শুধু পশ্চিমাদেরকেও দোষ দেবো না। কারন তারা গত কয়েক যুগ এভাবেই ক্ষমতা প্রয়োগের মাধ্যমে সফলতা পেয়েছে। সফলতা পেয়েছে ইরানে, ইরাকে, আফগানিস্থানে, সিরিয়ায়, প্যালেষ্টাইনে, ইয়েমেনে, লিবিয়ায়, মেক্সিকো, সোমালিয়া, নিকারাগোয়া, কিউবা, ভিয়েতনাম, কংগো, কম্বোডিয়া, হাইতি, মিশর, এবং অন্যান্য আরো দেশ সহ আফ্রিকান দেশগুলিতে। ফলে যখন এভাবে তারা সফলতা পেয়েই গেছে, তাহলে একই ইন্সট্রুমেন্ট তারা ব্যবহার তো করবেই। কিন্তু এবারের দেশটা ছিলো রাশিয়া। ২য় বৃহত্তর মিলিটারী ফোর্স, নিউকের অধিকারী, ভেটো ক্ষমতার অধিকারী, নিজেরাই প্রায় সবদিক দিয়ে সাবলম্বী, আর তারমধ্যে এতো বেশী সময় ধরে অভিজ্ঞ একজন রাষ্ট্রপ্রধান পুতিন যার মেয়াদ আরো বাকী ১৪ বছর, যার ব্রেইনকে পড়ার জন্য ইন্টেলকে একটা আলাদা সেল খুলতে হয়েছে, তাঁকে অন্যান্য সবার কাতারে ফেলে এমন হুইমজিক্যাল গেম খেলা ঠিক হয় নাই।

এর মানে আমি এটা বলছি না যে, ইউক্রেনকে রাশিয়া আক্রমন করে ঠিক কাজটাই করেছে। সেও অন্যায় করেছে। কিন্তু পশ্চিমারা তো এই অন্যায়গুলিই করে এসছে এতোকাল। পুতিনের তো হোম ওয়ার্ক করা ছিলো। পুতিন তো এটাই বলেছে- হয় এখন, না হয় আর কখনোই না। ফলে এক কালা জাহাংগীর (কেউ খারাপ ভাবে নিয়েন না) আরেক কালা জাহাংগীরকে শায়েস্তা করার আগে কালা জাহাংগীরদের তো আরো অনেক বেশী হোমওয়ার্ক করার দরকার থাকে। যদু মধুওকে থাপ্পর দিয়ে পার পেলেও এক কালা জাহাংগীর আরেক কালা জাহাংগীরকে শায়েস্তা করার আগে কি শুধু থাপ্পর দিলেই কাজ হয়ে যাবে?

ফলে এই অকালিন এবং কিছু গুটিকতক মাথামোটা মানুষের বুদ্ধির কারনে যেটা আমি দেখতে পাচ্ছি, সেটা হচ্ছে-

(ক) ইউরোপের ইউরোর মতো এশিয়ায় আরেকটা কমন কারেন্সীর প্রবর্তন হবে।

(খ) পেট্রো ডলারের আধিপত্য শেষ হয়ে যাবে।

(গ) ট্রেড প্রবাহে ইউরোপ বা পশ্চিমারা পিছিয়ে যাবে।

(ঘ) ইউরোপ একটা নড়বড়ে জোটের সৃষ্টি হবে।

(চ) ন্যাটোর উপর সর্বজনীন আস্থা কমে যাবে।

(ছ) রাশিয়া, চীন, ইন্ডিয়া, তুরষ্ক, এবং অন্যান্য দেশ মিলে প্যাসিফিক নিয়ন্ত্রন করবে।

(জ) সুইফট সিস্টেমের আধিপত্য শেষ হবে।

(ঝ) রিজার্ভ শিফট হয়ে যাবে অন্যত্র এবং অন্য কারেন্সীতে।

(ট) ইউরোপ এবং পশ্চিমা দেশ গুলিতে ইনভেষ্টমেন্টে ভাতা পড়বে।

(ঠ) জাতিসংঘের পাশাপাশি আরেকটা লিগ অফ ন্যাশনের সৃষ্টি হবে।  

ইন্টারন্যাশনাল ইকুইলিব্রিয়াম অফ পাওয়ার বলতে যা বুঝায় তাঁর জন্ম হতে যাচ্ছে। ২০১১ জুন প্রকাশনায় ডিফেন্স জার্নালে ঠিক এ রকম একটা লেখা ছিলো আমার। Is Super Power Shifting? Why and Who is Next?

10/6/2022-শিয়ালটা কে?

ফ্রান্স, জার্মান এবং ব্রিটিশ এই তিন দেশের অফিসারদেরকে আপনি কখনো পাশাপাশি দাড়াতে দেখবেন না। যদি কখনো দাড়াতে দেখেনও তারপরেও দেখবেন এরা একে আরেকজনের সাথে ফ্রেন্ডলী কথা বলে না। জাতী সংঘ মিশনে দেখেছি- বাসার সল্পতা থাকা সত্তেও এরা আরেকজনের সাথে রুম শেয়ার করে না। হয়তো বিল্ডিং শেয়ার করে কিন্তু একই রুমে ওরা থাকে না। এর একটা কারন আছে। আর সেটা হল-এরা সবাই ২য় মহাযুদ্ধে একে অপরের শত্রু ছিলো। ফ্রান্সের সাথে ব্রিটিশদের চিরাচরিত শত্রুতা মনোভাব। অন্যদিকে জার্মান তো ব্রিটিশ এবং ফ্রান্সের বিরুদ্ধেই ছিলো ২য় মহাযুদ্ধে।

আমার এক খুব প্রিয় গুরুজন বলতেন-যখন শত্রুরা নিজেরা নিজেরা বন্ধু হয়ে যায়, এদের বন্ধুত্তের মধ্যে থাকে ধুর্ততা আর সার্থপরতা। সবার নিজ নিজ এজেন্ডা নিয়ে বন্ধুত্ত করে। তারা কখনো একজনকে আরেকজন বিন্দুমাত্র বিশ্বাস করে না। যা দেখায় সেটা হচ্ছে আবরন।

"ন্যাটো"- এই দলের মধ্যে এরা সবাই আছে। আছে ব্রিটিশ, আছে জার্মান, আছে ফ্রান্স, আছে আমেরিকান। আবার আছে তুরুষ্ক। বিশ্বাসের ভিত্তিটা এখন কত শক্ত অনুমান করা কঠিন না। এখানে আরেকটা সমস্যা আছে। এই সম্মিলিত বাহিনীকে কে কাকে কমান্ড করবে? ব্রিটিশ জার্মানী দ্বারা কমান্ডেড হতে চায় না, জার্মান ব্রিটিশ দ্বারা, না ফ্রান্সের মিলিটারী অন্য বাহিনী দ্বারা অথচ এদের একটা কমান্ড স্ট্রাকচার আছে। সেই কমান্ড স্ট্রাকচার আজ পর্যন্ত টেষ্টেড হয় নাই কোনো যুদ্ধ পরিস্থিতিতে। মিশন এরিয়ায় আমি দেখেছি-কোনো আমেরিকান ইউনিট অন্য কোনো দেশের কমান্ড স্ট্রাকচারের অধীনে কখনোই কাজ করে না। কোনো ব্রিটিশ ইউনিট একমাত্র আমেরিকান কমান্ডার ছাড়া অন্য কোনো দেশের কমান্ডারদের অধিনে কাজ করতে চায় না। হ্যা, ফোর্স কমান্ডার, বা সিএমও (চীফ মিলিটারী অবজারভার) এগুলি আলাদা বিষয়। সেখানেও তাদের একটা জয়েন্ট কমান্ড রাখে।

মজার ব্যাপার হলো, ন্যাটোর কোনো আলাদা মিলিটারী নাই। প্রতিটি দেশের মিলিটারীই ন্যাটোর মিলিটারী। এটা একটা বিএনসিসির মতো মিক্সড। কেউ খুবই প্রোফেশনাল, আবার কেউ অনেক কিছুই জানে না। বিশেষ করে মিলিটারি অস্ত্র হ্যান্ডলিং বা ট্যাক্টিক্সের দিক দিয়া।

তুরষ্ক ন্যাটোর মিলিটারীর মধ্যে একটা বিশাল অংশ। তুরষ্ক তাঁর নিজের মনোভাব ইতিমধ্যে প্রকাশ করে ফেলেছে সুইডেন আর ফিনল্যান্ডকে ন্যাটোতে বাধা দিয়ে। তুরষ্ককে ইচ্ছে করলেই ন্যাটো থেকে বা ইউরোপিয়ান ব্লক থেকে আউট করা যাচ্ছে না। তুরষ্ককে আউট করলেই ন্যাট কিংবা আমেরিকা, বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন জিও পলিটিক্সে ধরা। আবার অন্য দিকে তুরষ্ককে আউট করলে সে যে রাশিয়া বা চায়নার সাথে এক হয়ে যাবে না কে জানে? মহা বিপদ। ফলে তুরষ্কের বাধার কারনে এতো ইচ্ছা থাকা সত্তেও ন্যাটো সুইডেন বা ফিন ল্যান্ডকে ঢোকাতে পারছে না।

হাংগেরী, ক্রোয়েশিয়া কে দেখুন। ছোট দেশ, খুব ক্ষমতাশীল না। তারপরেও ন্যাটর বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সব সিদ্ধান্ত মেনে নিতে চাইছে না। কারন তাদের নিজের দেশের ইন্টারেষ্ট আগে। আবার এদেরকে ছেড়ে দিলেও টুষ করে রাশিয়া খেয়ে ফেলবে, দলে নিয়ে যাবে। এখন যে যাকেই ছেড়ে দিবে, সেইই অন্য দলে ঢোকে যাবে। দেশীয় রাজনীতির মতো। একটা ছোট উদাহরণ দেই, সলোমন আইল্যান্ডকে আজ অবধি ওয়ার্ল্ড ব্যাংক বা আইএমএফ খুব বেশী একটা সাহাজ্য করে নাই। কিন্তু যেই না চায়না সলোমনের সাথে ঝুকে গেছে, কথা নাই বার্তা নাই, ১৩০ মিলিয়ন ডলার সাহাজ্য এম্নিতেই গ্রান্ট করে দিলো ওয়ার্ল্ড ব্যাঙ্ক গতকাল। সলোমান আইল্যান্ড কিন্তু রিফিউজ করে নাই। ওয়ার্ল্ড ব্যাংকই তো। এটা তো আর ওপেনলী আমেরিকা বা ব্রিটিশ না। নিতেই পারে, আবার চায়নাও এখন হিউজ টাকা ঢালছে সলোমনে। এখন সবাই সবার দল ভারী করার চেষ্টা করছে, হোক সেটা ছোট বা বড়।

জার্মানকে দেখুন। তারা কোনো অস্ত্র কিন্তু সরাসরি ইউক্রেনকে দিচ্ছে না। কখনোই না। তারা হয় দিচ্ছে পোল্যান্ডকে, অথবা অন্য ন্যাটোভুক্ত দেশকে। যাতে জার্মান ইউক্রেনে সামরিক অস্ত্র দিচ্ছে এই ব্লেইম তাঁকে না নিতে হয়।

পোল্যান্ডকে দেখুন, ইউক্রেনের পশ্চিমা অংশ এক সময় পোল্যান্ডের ছিলো যা ২য় মহাযুদ্ধে তাঁকে ছাড়তে হয়। একটু হলেও তো মনের ভিতরে একটু খস খস আছেই। পোল্যান্ড সেই পশ্চিমা অঞ্চলে ইউক্রেনের সাথে বর্ডার একত্রিত করতে চায়। জেলেনেস্কি একটু রাজী রাজী ভাব। উদ্দেশ্যটা একটু খটকার মতো। রাশিয়া ক্রিমিয়া খেয়েছে, মারিউপোল খাইলো, ডনবাস শেষ, এখন ইষ্টার্ন ব্লকে এগুচ্ছে, পশ্চিমা অংশ পোল্যান্ডের নজর।

এটা তো রুটির মতো ভাগ হয়ে যাচ্ছে মনে হচ্ছে।

বিড়াল তো দেখতে পাচ্ছি কিন্তু শিয়ালটা কে আসলে?

9/6/2022-ক্ষমতার ভারসাম্য

একটা সময় ছিলো যখন ‘সময়’ টাকে রাজত্ব করেছে বাইজেন্টাইন, রোম, প্যারিস, জার্মানী, তারপর ব্রিটিশ। এখন তারা আর সেই একচ্ছত্র ক্ষমতার শীর্ষেও নেই, রাজত্বও করার সুযোগ নাই। নব্বই দশক থেকে একচ্ছত্র ক্ষমতার শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র। প্রতিটি শীর্ষ ক্ষমতাধর সম্রাজ্য কোনো না কোনো যুদ্ধের মাধ্যমেই তাদের পতন হয়েছে।

যারা আগের দিনে রাজত্ব করেছে, তারা যদিও একেবারে নিঃশেষ হয়ে যায়নি কিন্তু তাদের মধ্যে সেই মোড়লগিড়ি করার প্রবনতাটা বিদ্যমান আছে আর সেই প্রবনতা থেকেই বর্তমান বড় মোড়লের তালে তাল মিলিয়ে ক্ষমতার একটা মজার ভাগ তারাও শেয়ার করে যাচ্ছে। 

এবার এই ইউক্রেন যুদ্ধকে আমার কাছে মনে হয়েছে সেই রকম একটা যুদ্ধ যেখানে একচ্ছত্র ক্ষমতার পালাবদল হয়।  টার্নিং পয়েন্ট। আমি প্রতিদিন দেখতে পাচ্ছি- দ্রুত ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের মধ্যে নিজেদের সার্থের দন্ধে বিভাজিত হয়ে যাচ্ছে, ভুল কিছু নিষেধাজ্ঞার কারনে সারা দুনিয়া থেকে পেট্রো ডলারের একচ্ছত্র প্রভাব শেষ হয়ে যাচ্ছে, সুইফট সিস্টেমের এর বিপক্ষে অনেকগুলি সমগোত্রীয় অন্য সিস্টেম কাজ করা শুরু হয়ে গেছে। ফলে একচ্ছত্র অর্থ নিয়ন্ত্রনের মুল কারবারীর বিশ্ব অর্থিনীতি থেকে ডলার বা ইউরো হারিয়ে যাবে ধীরে ধীরে। এর বিপক্ষে অন্য কারেন্সী প্রাধান্য পাবে।

যারা একটা সিস্টেমকে বিশ্বাস করে ব্যক্তি পর্যায়ে বা দেশীয় পর্যায়ে মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের সমপরিমান অর্থ যুক্ত্রষ্ট্রের মতো দেশের রিজার্ভ ব্যাংকে এতো পরিমান নিজেদের অর্থ রাখে, সেই অর্থ একটা মুখের কথায় যখন বাজেয়াপ্ত হয়ে যাওয়ার কালচার আমেরিকা শুরু করেছে, ফলে কোনো দেশ বা কোনো ব্যক্তি অন্তত আর ওই পথে পা ফেলবে বলে মনে হয় না। তাতে আমেরিকার রিজার্ভ ব্যাংক ধীরে ধীরে খালী হয়ে যাবে। অন্যদিকে আমেরিকা যে পরিমান অর্থ চায়না বা অন্যান্য ধ্বনি দেশগুলি থেকে ঋণ নিয়েছে, তাঁর পরিমানও নেহায়েত কম নয়। অর্থাৎ ইকোনোমিক্যাল ব্যালেন্সও কিন্তু ইকুইলিব্রিয়ামের মধ্যে নাই।

এমন একটা অবস্থায় পুর্বের মোড়ল গুলি যেমন জার্মানী, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, তুরুষ্ক এবং তাদের সাথে ইউরোপিয়ান গোষ্ঠীরা খুব দ্রুত অন্যান্য দেশ যেমন  চায়না, রাশিয়া, মিডল ইষ্ট, এবং আমেরিকাকে পছন্দ করে না এমন দেশ সমুহ একজোট হয়ে যাচ্ছে। এতে যেটা হবে, খুব বেশীদিন হয়তো আমেরিকা তাঁর শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে পারে কিনা আমার সন্দেহ হচ্ছে। আজকাল মিডিয়ার যুগ, মিস-ইনফর্মেশন-ওয়ার খুব একটা সুফল আনে না। তথ্যের উপর নিষেধাজ্ঞা দিলেও ইনফর্মেশন সুপার হাই ওয়েতে সব তথ্য এক সাথে চলে আসে। ফলে আমেরিকাকে তাঁর হেজিমুনি ধরে রাখতে  এখন সুপার ইন্টেলেকচুয়াল এবং অনেক বেশী বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন নেতার প্রয়োজন।

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হলেই যে সে ভালো নেতা, সব বুদ্ধির অধিকারী, কিংবা চালাক কিংবা দুরদর্শী লিডার বা ইন্টেলেকচুয়াল এমনটা ভাবার দিন হয়তো শেষ।

9/6/2022-আমেরিকার নিষেধাজ্ঞার দেশসমুহ

এ যাবত কাল আমেরিকা কর্তৃক নিষেধাজ্ঞা জারি করা দেশসমুহঃ

কিউবা, নর্থ কোরিয়া, ইরান, ভেনিজুয়েলা, সিরিয়া, আফগানিস্থান, বেলারুশ, বলিভিয়া, কম্বোডিয়া, ক্রিমিয়া, ইরিত্রিয়া, লাওস, নিকারাগুয়া, প্যালেস্টাইন, ইয়ামেন, জিম্বাবুই, রাশিয়া

আর ব্যক্তি পর্যায়ে আমেরিকা যে দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে তাদের লিষ্টঃ

বাংলাদেশ, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক, চায়না, কংগো, হংকং, ইরাক, লেবানন, লাইবেরিয়া, মালি, মায়ানমার, সোমালিয়া, সুদান, তুরুষ্ক

এভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করতে করতে একটা সময় আসবে, সবাই যার যার জায়গায় অন্যের সাথে ঠিকই ব্যবসা বানিজ্য, যাতায়ত, কালচারাল এক্সচেঞ্জ, স্পোর্টস এক্টিভিটিজ ইত্যাদি করা শুরু করেছে আর সেখানে নাই শুধু আমেরিকা। নিজের জালে আমেরিকা ফেসে যাচ্ছে। তার আর কোথাও যাওয়ার জায়গা থাকবে না। আমেরিকাকে বুঝতে হবে, পুরু পৃথিবী তার নিয়ন্ত্রনে নয়। আর সেটা সে নিয়ন্ত্রন করতে পারবেও না। তাই এই “নিষেধাজ্ঞা” নামক অস্ত্র আমেরিকাকে পরিত্যাগ করে ভিন্ন পথে আগাইতে হবে। না আগাইলে তার নিজেরই ক্ষতি হবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী।

উদাহরনঃ আমেরিকার নতুন আফ্রিকান ট্রেড মিটিং সবাই বয়কট করলো আজ। এরমানে কেউ তাদের সাথে কোনো টাই-আপ করতে নারাজ।

নর্থ কোরিয়াকে আবারো নতুন নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার প্রস্তাব আমেরিকা পেশ করার পর জাতিসংঘের স্থায়ী কমিটিতে চায়না এবং রাশিয়া শতভাগ ভেটো প্রদান করেছে। ফলে একচ্ছত্র নিষেধাজ্ঞা দেয়া সম্ভব হয় নাই। তাই শুধুমাত্র আমেরিকার ট্রেজারী ব্রাঞ্চ উক্ত নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে। নর্থ কোরিয়া তো গত ১৫ বছর যাবত নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই আছে, তার আবার নতুন কি নিষেধাজ্ঞা?

এগুলি আমেরিকার লিডারদেরকে ভালো করে মাথায় নেয়া উচিত। এ গুলি ভালো লক্ষন নয় আমেরিকার জন্য।

7/6/2022-NATO chief conditions for Finland and Sweden

জেনস স্টল্টেনবার্গ বলেছেন যে, আগামী ২৮-৩০ জুন ২০২২ তারিখে ন্যাটোর সম্মিলিত মিটিং এ ফিনল্যান্ড এবং সুইডেন যতোক্ষন না তুরুষ্কের দাবী না পুরন করবে, ততোক্ষন তারা ন্যাটোর সদস্য পদের জন্য মনোনীত হবেন না। তিনি আরো বলেছেন “No country has suffered as much from terrorist attacks as Turkey," Stoltenberg said, adding that "Turkey is an important ally and when an ally has concerns it should be discussed and the problem resolved.” এই পরিপ্রেক্ষিতে তিনি নর্থ মেসিডোনিয়ার উদাহরন টেনে বলেন, গ্রীসের বিরোধিতার কারনে মেসিডোনিয়াকে ১০ বছর লেগেছিলো ন্যাটোর মেম্বার হতে।  তবে মাদ্রিদে এই দুইটি দেশ অতিথি হিসাবে থাকতে পারেন কিন্তু কোনো কিছুই নিশ্চিত করে বলা যাবে না। কারন তুরষ্ক ন্যাটোর একটি অতীব ইম্পর্ট্যান্ট মেম্বার যাকে ন্যাটোর খুবই দরকার।

যদি এটাই হয়, তাহলে এই দুটি দেশের অবস্থা এখন কি হবে? একদিকে রাশিয়াকে ক্ষেপাইয়া দিলো, আগের অবস্থানে তো আর যেতেই পারবে না যদিও বারবার রাশিয়া একটা কথাই বলেছিলো যে, তাদের কোনো ভয় নাই যেমন ছিলো না বিগত বছরগুলিতেও। আবার না ন্যাটোর কোনো সিমপ্যাথি পাইলো।

ন্যাটো ষ্টুপিড নাকি দেশ দুটির নেতারা?

7/6/2022-আবার আলোচনায় নর্দান আয়ারল্যান্ড প্রটোকল

পুরানো ঘা আবার নতুন ঘায়ে পরিনত হতে যাচ্ছে। আর সেই ঘায়ের রেসে এবার ইউরোপ না নিজেই আহত হয় কে জানে। প্রসংগ- নর্দান আয়ারল্যান্ড। 

নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড প্রটোকলের অনেক প্রশ্নই অমীমাংসিত থেকে গেছে। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে ব্রেক্সিট চুক্তি সাক্ষরীত হলেও আয়ার ল্যান্ড কে নিয়ে ইউরোপ আর ব্রিটেনের মধ্যে অনেক দর কষাকষি চলছিলো। শেষ পর্যন্ত ব্রেক্সিট চুক্তির ১৬ নম্বর ধারা সংযোজন করে অবশেষে ইউরোপ থেকে ব্রিটেনের চিরতরে বিচ্ছেদ হয়। এর মানে ব্রিটেন কোনোভাবেই আর ইউরোপিয় ইউনিয়নের সদস্য নয়।

আয়ারল্যান্ডকে নিয়ে এতো কি সমস্যা ছিলো? নভেম্বর ২০১৮ সালে বাংলাদেশ ডিফেন্স জার্নালে আমার একটা পূর্নাজ্ঞ লেখা ছিলো যা পর পর ২টা প্রকাশনায় কাভার পেজ হিসাবে ডিফেন্স জার্নাল প্রকাশ করেছিলো। সেখানে এই আয়ার ল্যান্ড এর স্ট্যাটাস নিয়ে বিস্তারীত বলা হয়েছিলো। তারপরেও সবার কিছু মেমোরী ফ্রেস করার জন্য বলছি যে,

আইরিশ প্রজাতন্ত্র দুটুভাগে বিভক্ত, একটা শুধু আয়ারল্যান্ড নামে পরিচিত, আরেকটা নর্দান আয়ারল্যান্ড নামে। এই আয়ারল্যান্ড দ্বীপের আয়ারল্যান্ড অংশটি ইইউর সদস্য আর নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড যুক্তরাজ্যের অংশ। ব্রিটেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কারনে নর্দান আয়ারল্যান্ডও যুক্তরাজ্যের সাথে ইউরোপিয়ান ব্লক থেকে বেরিয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু আইরিশ প্রজাতন্ত্র বা আয়ারল্যান্ডের দুটু অংশই ইউরোপিয়ান ব্লকের সাথে থাকতে চেয়েছিলো এবং তারা সেভাবেই গনভোটে রায় হয়েছিলো। ইউরোপের যে কোনো দেশ কোনো প্রকার শুল্ক ছাড়া, কাস্টম চেক ছাড়া, কোনো ভিসা ছাড়া এক ইউরোপিয়ান দেশ আরেক ইউরোপিয়ান দেশে যাতায়ত, মালামাল পরিবহন, প্রোটেকশন, মালের স্ট্যান্ডার্ড সব কিছু অবাদে চলে। কিন্তু যখনই নর্দান আয়ার ল্যান্ডে কিছু আসবে সেখানে আর সেই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কোনো কিছু বহাল থাকার কথা নয়। এখানে সব কিছু ভিন্ন একটা দেশের মতো আচরন করার কথা কিন্তু এই আয়ারল্যান্ড তো মুল আয়ারল্যান্ডের সাথেই থাকতে চায়!! ফলে একটা দেশকে কেচি দিয়ে দুই ভাগ করে ফেলার মতো অবস্থা দারায়। ইউরোপিয়ান ব্লকে থাকলে এটা আর সমস্যা হতো না। কিন্তু ইউরোপ আর ব্রিটেনের ডিভাইডিং লাইনে চলে এসছিলো নর্দান আয়ারল্যান্ড জাষ্ট একটা ব্রেক্সিটের কারনে। অনেকদিন এর স্ট্যাটাস নিয়ে ঝুলে ছিলো। অনেক প্রপোজাল, অনেক অপশন অনেক সমাধানের পথ খুজেও যখন সমঝোতা হয় নাই।  ইইউ সদস্য রাষ্ট্র আইরিশ প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে ব্রিটেনের একমাত্র স্থলসীমান্তে পণ্যের অবাধ চলাচল নিশ্চিত করতে ব্রেক্সিট চুক্তির মধ্যে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড প্রোটোকল নামের বিশেষ ধারা রাখা হয়েছিল৷ ১৯৯৮ সালের আইরিশ শান্তি চুক্তির স্বার্থে ব্রিটেনের এই প্রদেশকে ইউরোপীয় অভিন্ন বাজারের মধ্যে রাখার চাপ মেনে নিতে কার্যত বাধ্য হয় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সরকার। ব্রিটেনের সংসদও ব্রেক্সিট চুক্তির অন্তর্গত সেই প্রোটোকল অনুমোদন করে। যাকে ১৬ নাম্বার ধারা বলা হয়। এই ১৬ নম্বর ধারাটি এখানে বলছি না। প্রায় ৮টি বিশেষ প্রটোকল আছে এর মধ্যে। এই প্রটোকলে ইইউ থেকে ব্রিটেন চলে যাওয়ার পর নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের বাণিজ্যনীতি কী হবে, তা বলা আছে।

তাহলে এখন আবার কি সমস্যা জাগরন হলো একে নিয়ে?

বাস্তবে উত্তর আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটেনের মূল ভূখণ্ডের মধ্যে পণ্য চলাচলের ক্ষেত্রে এক অদৃশ্য সীমানা স্পষ্ট হয়ে ওঠায় একতরফাভাবে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড প্রোটোকল বাতিল করার হুমকি দিচ্ছে ব্রিটেন। অন্যদিকে ইইউ ব্রেক্সিট চুক্তির মধ্যে কোনোরকম মৌলিক রদবদল করতে প্রস্তুত নয়

সংকটের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে ব্রিটেনের উত্তর আয়ারল্যান্ড প্রদেশ৷ ইইউ সদস্য রাষ্ট্র আইরিশ প্রজাতন্ত্রের সঙ্গে ব্রিটেনের একমাত্র স্থলসীমান্তে পণ্যের অবাধ চলাচল নিশ্চিত করতে ব্রেক্সিট চুক্তির মধ্যে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড প্রোটোকল নামের বিশেষ ধারা রাখা হয়েছিল৷ ১৯৯৮ সালের আইরিশ শান্তি চুক্তির স্বার্থে ব্রিটেনের এই প্রদেশকে ইউরোপীয় অভিন্ন বাজারের মধ্যে রাখার চাপ মেনে নিতে কার্যত বাধ্য হয় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সরকার৷ ব্রিটেনের সংসদও ব্রেক্সিট চুক্তির অন্তর্গত সেই প্রোটোকল অনুমোদন করে৷ কিন্তু বাস্তবে উত্তর আয়ারল্যান্ড ও ব্রিটেনের মূল ভূখণ্ডের মধ্যে পণ্য চলাচলের ক্ষেত্রে এক অদৃশ্য সীমানা আরও স্পষ্ট হয়ে ওঠায় একতরফাভাবে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ড প্রোটোকল বাতিল করার হুমকি দিচ্ছে ব্রিটেন। অন্যদিকে ইইউ ব্রেক্সিট চুক্তির মধ্যে কোনোরকম মৌলিক রদবদল করতে প্রস্তুত নয়৷

DW এর প্রতিবেদনে বলা হয়ঃ ……….[ব্রিটেন ব্রেক্সিট চুক্তির ১৬ নম্বর ধারা কাজে লাগিয়ে এমন একতরফা পদক্ষেপ নিলে তার পরিণাম সম্পর্কে সতর্ক করে দিয়েছে ইইউ ব্রিটেন থেকে উত্তর আয়ারল্যান্ডে পণ্যের সরবরাহ আরও সহজ করতে ইইউ একগুচ্ছ প্রস্তাব রাখবে বলে জানিয়েছে ইইউ কমিশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মারস সেফকোভিচ জানিয়েছেন, তিনি আগামী সপ্তাহেই সেই প্রস্তাবের খসড়া পেশ করবেন কোনো কারণে শেষ পর্যন্ত ঐকমত্য সম্ভব না হলে শাস্তিমূলক পদক্ষেপ হিসেবে ইইউ ব্রিটেনের পণ্যের উপর বাড়তি শুল্ক চাপাতে পারেব্রিটেনের শিল্প-বাণিজ্য জগত এমন চরম পদক্ষেপ এড়াতে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা মিটিয়ে নেবার আহ্বান জানিয়েছে শুধু ব্যবসা-বাণিজ্যে বিঘ্ন নয়, ইইউৃর সঙ্গে সংঘাতের কারণে উত্তর আয়ারল্যান্ডের ভঙ্গুর শান্তি প্রক্রিয়ার ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে ওঠার আশঙ্কা রয়েছে সে ক্ষেত্রে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন যে মোটেই ব্রিটেনের পাশে দাঁড়াবেন না, সে বিষয়ে কোনো সংশয় নেই ইউরোপের পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গেও সম্পর্কের অবনতি ব্রিটেনের স্বার্থের কতটা ক্ষতি করবে, সে বিষয়ে জল্পনাকল্পনা চলছে]

গত নির্বাচনে ৯০ টি আসনের মধ্যে শিন ফেইন পেয়েছে ২৫টি আর ডিইউপি পেয়েছে ২৫। ৩য় পার্টি পেয়েছে ৯টি।  কেহই সরকার গঠনে সমর্থ নয়। ডি ইউ পি চুক্তি বাতিলের পক্ষে। ৩য় পার্টি  চুক্তি বাতিলের পক্ষে অর্থাৎ ইউনাটেড আয়ারল্যান্ড। এর মানে নর্দান আয়ার ল্যান্ডের বিচ্ছেদ হতে পারে মুল ব্রিটেন থেকে। দেশটা আরো ছোত হয়ে যাবে এটা সিউর। আর তা না হলে যুদ্ধ। আর যুদ্ধ হলে ইউরোপ তো আর ব্রিটেনকে ছেড়ে দিবে না। আয়ার ল্যান্ড যে ইউরোপের একটা দেশ, তাই।

দেখা যাক, বরিস ভাই কি করেন। আর উরসুলা কি করেন।

01/06/2022-Kissinger-peace settlement in Ukraine

সাবেক ইউএস সেক্রেটারী অফ স্টেট হেনরী কিসিঞ্জারের দূরদর্শীতার প্রশংসা না করেই পারলাম না। ৯৮ বছরের এই ঝানু পলিটিশিয়ান বলেছেন-“আগামী দুই মাসের মধ্যে যদি শান্তি চুক্তির জন্য রাশিয়ার সাথে বসা না হয়, তাহলে রাশিয়া স্থায়ীভাবে ইউরোপ থেকে বেরিয়ে গিয়ে চায়নার সাথে স্থায়ীভাবে মিত্রতা করার সম্ভাবনা। রাশিয়া গত ৪০০ বছর যাবত যেখানে সে ইউরোপের সাথে আছে, তাকে কোনোভাবেই অবমুল্যায়ন করা যাবে না। নীতিগত এবং আদর্শগতভাবে ইউক্রেনের আগের অবস্থার সাথে যদি  ডিভাইডিং লাইনে না থাকা হয়, এরজন্য অনেক বড় মাশুল অপেক্ষা করছে। আমার মতে [কিসিঞ্জারের মতে], যদি ওই লাইনের বাইরে যুদ্ধকে নিয়ে যাওয়া হয়, তাহলে সেটা শুধু ইউক্রেনের সাধীনতাকেই খর্ব করবে না, সেটা ন্যাটোর সাথে রাশিয়ার সরাসরি যুদ্ধকেই প্রলুব্ধ করবে যা হবে আত্তঘাতী। মিন্সক চুক্তি অনুযায়ী যা করার দরকার ছিলো তাঁকে কোনোভাবেই ইউক্রেনের বা ন্যাটোর ভাংগার প্রয়োজন ছিলো না। যখন রাশিয়া ৮ বছর আগে ইউক্রেনে আর্মড কনফ্লিক্ট করে, তখনি আমি ]কিসিঞ্জার] বলেছিলাম, ইউক্রেন নিরপেক্ষ থাকুক, এবং ইউরোপ আর রাশিয়ার মাঝে একটা সেতুবন্ধন তৈরী করুক। কিন্তু তারা সেটা না করে ইউরোপের দিকে ঝুকে গিয়ে যুদ্ধে জড়িয়ে গেছে।“  

কিসিঞ্জার আরো বলেন, “ইউরোপিয়ানদের এটা মনে রাখা উচিত যে, গত ৪০০ বছর যাবত রাশিয়া ইউরোপের একটা অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং রাশিয়ার যতো না ইউরোপকে দরকার তার থেকে অনেক বেশী দরকার রাশিয়াকে ইউরোপের। ইউরোপের তাই এটা সর্বদা মাথায় রাখতে হবে যেনো রাশিয়া কোনোভাবেই ইউরোপ থেকে স্থায়ীভাবে বিদায় না নেয়। রাশিয়া যদি স্থায়ীভাবে চায়নার সাথে মিত্রতা করে ইউরোপকে বিদায় জানায়, সেক্ষেত্রে ইউরোপের অবস্থা গুরুতর ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না। কারন চায়না এবং রাশিয়া মিলিত শক্তি আমেরিকা এবং ইউরোপের চেয়ে অনেক বেশী এবং এটা সারা বিসশে একটা দূর্জয় নেমে আসবে। “

তিনি আরো বলেন, “ইউক্রেনের রাজনীতিদের এটা বুঝতে হবে যে, অস্ত্র চাওয়ার থেকে তাদের শান্তির প্রয়োজন তাদেরই বেশী। তাই যুদ্ধ বিরতির জন্য বা শান্তি চুক্তির জন্য ইউক্রেনকেই এগিয়ে আসতে হবে।“  

 

30/5/2022-রাশিয়া ১৯৯০ সাল থেকেই একটা প্যাসিভ

রাশিয়া ১৯৯০ সাল থেকেই একটা প্যাসিভ মোডে ছিলো কারন তার সক্ষমতা ভেংগে গিয়েছিলো সোভিয়েট ইউনিয়নের পতনের পর। অন্যান্য সুপার পাওয়ারের মতো রাশিয়া তেমন কোনো ভুমিকা রাখতে না পারার কারনে তার ফরেন পলিশি ছিলো খুবই নমনীয়। আর এই সুযোগ গ্রহন করেছিলো আমেরিকা একচ্ছত্রভাবে। ইরাক, ইরান, নর্থ কোরিয়া, আফগানিস্থান, লিবিয়া, প্যালেষ্টাইন, ভেনিজুয়েলা, ফিলিপাইন, ইত্যাদি দেশসমুহে কোনো প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই আমেরিকার একচ্ছত্র আধিপত্য দেখা যায়। এ সময়ে দেশে দেশে রিজিম চেঞ্জের একটা থিউরী তৈরী হয়। যখনই কোনো দেশ এই পশ্চিমাদের বাইরে দাড়াতে চেয়েছে তখনই তাদের উপর নেমে এসছে খড়গ-আর সেটা প্রথমে নিষেধাজ্ঞা। মজার ব্যাপার হলো, প্রতিবারই এই নিষেধাজ্ঞা একটা মারাত্তক অস্ত্রের মতো কাজ করেছিলো এবং সফল হয়েছে।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন, ন্যাটো, জাতীসংঘ, সেন্ট্রাল রিজার্ভ ব্যাংক, আইএমএফ, বিশ্ব ব্যাংক, এমেনেষ্টি ইন্টারন্যাশনাল, আইসিজে, সমস্ত মিডিয়া ইত্যাদি যাইই কিছু বলি না কেনো, সব কিছুর নির্দেশদাতা যেনো একটি দেশ। আর তা হচ্ছে আমেরিকা। কোথাও কোন ট্রু জার্নালিজম নাই। ফলে যা কিছু ইচ্ছা করা যায় এমন একটা ধারনা আমেরিকার হয়েই গিয়েছিলো। সবাই তার কথা শুনতে বাধ্য, সবাই তার কথা মতো চলতে বাধ্য এবং যারাই তাদের কথামতো চলবে না, তাদেরকে একই অস্ত্রে বিদ্ধ করার ক্ষমতা তার আছে বলে আমেরিকার মনে ভয় একটু কমই ছিলো। কিন্তু রাশিয়ার বেলায়? সে তো আহত বাঘ। আহত বাঘ হয়তো প্রতিঘাত করার চেষ্টা করেনা ঠিকই কিন্তু ভিতরে তার প্রতিশোধের নেশায় থেকেই যায়। শুধু তার দরকার হয় কিছুটা সময়ের। রাশিয়া এখন ঠিক সেই জায়গাটায়।

সে হয়তো আরো পরে তার প্রতিক্রিয়া জানাতো, হয়তো সে আরো বড় প্রিপারেশনের পথে সে ছিলো। কিন্তু তাঁকে যখন কোনঠাসা করে তার ঘরের দরজায় ন্যাটো নোংগড় করতে চাইল, সে আর কাল বিলম্ব করে নাই। প্রিপারেশন তার চলমান ছিলোই। চীন, ভারত, পুর্ব এশিয়া, আফ্রিকান আর আরব দেশ মিলে তার একটা চলমান প্রিপারেশন প্রক্রিয়া ছিলোই। যা আমেরিকা বা ইউরোপিয়ানদের ছিলো না। ট্রাম যখন রাশিয়ার ব্যাপারে সতর্ক করেছিলো, সেটা এমনি এমনি করে নাই। ট্রাম্পের সাথে রাশিয়ার একটা গোপন বন্দধুত্ত ছিলো। সেই সুবাদে সে হয়তো কিছু গোপন ব্যাপার জেনেই গিয়েছিলো যা ট্রাম্প পরবর্তীতে আর গোপন রাখতে পারে নাই। আর সেটার খেসারত সে দিয়েছে নির্বাচনে পুনরায় না জিতে। সেখানেও রাশিয়ার হাত থাকতেই পারে যেমন হাত ছিলো প্রথবার ট্রাম্পের বিজয়ের উপর।

রাশিয়ার বিশেষ অভিযান (সে কিন্তু এটাকে যুদ্ধ বলে অভিহিত করে নাই, যেনো এটা একটা এক্সারসাইজ, একটা জাষ্ট অপারেশন) যখন ইউক্রেনে নেমে এলো, রাশিয়ার হোম ওয়ার্ক করা ছিলো, সব জায়গায় একতার পর একটা অপারেশনাল প্লেনের মতো সিরিয়াল করা অর্ডার এবং বিকল্প, বিকল্পের বিকল্প সাজানোই ছিলো। ২২ বছরের রাষ্ট্রপ্রধানের অভিজ্ঞতা সহ মোট ৪০ বছরের কেজিবি একজন মানুষ কে ছোট করে ভাবার কোনো কারন নাই। বর্তমান ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের লিডারস গন, ন্যাটোর কমান্দার গন কেজিবির এই প্রধানের কাছে অভিজ্ঞতায় অনেক পিছিয়ে তাতে কোনো সন্দেহ নাই। আরেকটা মজার ব্যাপার হলো, ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ভুক্ত দেশ গুলির আইন প্রনেতাদের মধ্যে মত ৫৫% হচ্ছেন শুধুমাত্র মহিলা যাদের পলিটিক্যাল অভিজ্ঞতা খুবই কম। কারো কারো বয়স ৪০ এর ও নীচে।  ফলে আমেরিকার জন্য এসব ইউরোপিয়ান দেশ সমুহে প্রভাব খাটানো খুব সহজ ছিলো। রাশিয়াকে ইউক্রেনের উপর আক্রমনের কারনে সেই একই আস্ত্র (নিষেধাজ্ঞা) দিয়ে ঘায়েল করার চেষ্টা করা হলো যা ছিলো মারাত্তক আত্তঘাতী। রাশিয়া গত ৩০ বছরের পশ্চিমাদের এই স্টাইল নিয়ে চুলচেড়া বিশ্লেষন করে দেখেছে, কোথায় কোথায় রাশিয়াকে হিট করা হবে। রাশিয়া সেই প্রোবাবল হিটিং এরিয়া ভেবে তার বিকল্প তৈরী সে করেছিলো একমাত্র রিজার্ভ ব্যাংকের কাউন্তার মেজার ছাড়া।

ইউক্রেন অপারেশনে রাশিয়া অনেক গুলি নতুন মিলিটারী ট্যাকটিক্সের জন্ম দিয়েছে। প্রথমে কিয়েভের মাত্র ১৫ কিমি দূরে থেকেও সে কিয়েভ ধংশ করে নাই এবং দুখল করে নাই। এটাকে বলা যায় ‘সুনামী ট্যাক্টিক্স”। মানে প্রথমে বীচ শুকিয়ে দেয়া, সবাই আনন্দে বীচে নামবে, পরে বড় ঢেউ দিয়ে সব তলিয়ে দেয়া হবে। রাশিয়া কিয়েভে গিয়ে সবাইকে এটাই বুঝিয়েছিলো, আর এদিকে রাশিয়া ইউক্রেনের এয়ার ফিল্ডস, আর্মামেন্টস স্টোর, পিস কিপিং অপারেশন আস্থানা, যেখানে যেখানে ইউক্রেনের সামরীক সনজাম ছিলো বা তৈরী হতো সব কিছু ধংশ করছিলো। একটা দেশকে পংগু করে দেয়ার মতো।

খেয়াল করলে দেখবেন প্রাথমিক দিন গুলিতে যে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের নেতা ব্রিন্দ, পশ্চিমা নেতা রা কি করবেন, কি করা উচিত, কি করলে কি হবে সেগুলি নিয়ে রাত ভর ঘুম হারাম হয়ে গিয়েছিলো, আর ওদিকে রাশিয়ার পুতিন নির্বিকার কাজ করে যাচ্ছিলো। অদ্ভুদ পার্থক্য। এক স্টন্টেনবার্গ, আরেক উরসুলা, এবং জো বাইডেন সহ বরিস ছাড়া কোন নেতার উচ্চসর শুনা যাচ্ছে না। সবাই জি স্যার জি স্যার ভুমিকায়। ফলে বারবার ভুল সিদ্ধান্ত ভুল সিগন্যাল যাচ্ছিলো ইউক্রেনের কাছে। ইউক্রেন মরিয়া কিন্তু পাশে সবাই অথচ কেউ নাই যেনো মাঠের কিনারে সবাই চিৎকার চেচামেচি কিন্তু বল শট দেয়ার মতো ক্ষমতা নাই।

২৮/৫/২০২২- প্রায় ৩০ বছর পিছিয়ে গেছে আমেরিকা

প্রায় ৩০ বছর পিছিয়ে গেছে আমেরিকা এই অঞ্চলে এই ধরনের একটা ট্রেড ইনিশিয়াটিভ গ্রুপ তৈরিতে। যেখানে চায়না, ইন্ডিয়া, রাশিয়া আরো ৩০ বছর আগে শুরু করেছিলো। এই অঞ্চলে যে কয়টা সবচেয়ে পুরানো এবং বড় ট্রেড ইনিশিয়াটিভ আছে সেগুলি (১) RCEP (২) CPTPP (৩) Belt and Road । আর এর প্রতিটিতেই চায়না, রাশিয়া আর ইন্ডিয়া জড়িত। এদের প্রত্যেকের ইনিশিয়াটিভের উদ্দেশ্য একই।

অন্যদিকে এই ১৩ টা দেশের বর্তমান যারা নতুন করে জয়েন করছে, তারা হলোঃ আমেরিকা, অষ্ট্রলিয়া, ব্রুনেই, ইন্ডিয়া, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, দক্ষিন কোরিয়া, মালয়েশিয়া, নিউজিল্যান্ড, ফিলিপাইন, সিংগাপুর, থাইল্যান্ড, এবং ভিয়েতনাম।

এখানে রাশিয়া আর চায়না নাই বটে কিন্তু তাদের গ্রেট এলায়েন্স ইন্ডিয়া আছে, ফিলিপাইন আছে, ইন্দোনেশিয়া আছে, আর আছে ভিয়েতনাম।

হিসাবটা খুব সহজ বলে মনে হবে না।

আমেরিকা বারবার এতো তাড়াহুড়া করছে এর অন্তর্নিহিত মানে বুঝার জন্য একটা কথাই যথেষ্ট। আর সেটা হলো রাশিয়ার উপর 'নিষেধাজ্ঞা' দিয়ে রাশিয়া এই অঞ্চলগুলিতে একচেটিয়া বাজার ধরে ফেলতেছে আর ডলার মুদ্রা পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে সুইফট ব্যবস্থা সহকারে। তাছাড়া, অল্প দামে রাশিয়া থেকে কমোডিটি পাওয়ায় অন্যান্য দেশের কমোডিটির দাম আমেরিকার কমোডিটির দামের চেয়ে কম থাকবে। ফলে আমেরিকার সব কমোডিটি খুব অচীরেই বাজারে দামের কারনে পিছিয়ে যাবে। বাজার হারানোর সম্ভাবনা খুব বেশী।

নিষেধাজ্ঞাটা খুবই খারাপ ফলাফল এনে দিয়েছে সমস্ত ইউরোপ এবং পশ্চিমা দেশে। একদিকে রিফুজি ক্রাইসিস নিয়ে ভোগা শুরু হবে ইউরোপের দেশ গুলি, অন্যদিকে এনার্জি সংকটে পড়ছে ইতিমধ্যে, ইউরোপিয়ান দেশগুলির মধ্যে ঐক্যের ফাটল শুরু হয়ে গেছে। সাধারন নাগরিকগন এখন আর এসব চাইছে না।

ফলে আমেরিকার সেফ এক্সিট পেতে হলে, ন্যাটো নিয়ে এতো কিছু থেকে সরে আসতে হবে, রাশিয়ার সাথে (ইন্ডিয়া, চায়নাসহ) এদের সাথে একটা সৌহার্দ্যপূর্ন কম্প্রোমাইজে আসতেই হবে।

এই যুদ্ধটার আনবিক বোমাটা হচ্ছে আসলে ইকোনোমি। রাশিয়া তাই যুদ্ধটা অনেক বিলম্ব করবেই। যত বিলম্ব হবে, ততো ইউরোপ আতঙ্কিত এবং সাফার করতে থাকবে। নিষেধাজ্ঞায় সবচেয়ে লাভবান হয়েছে রাশিয়া। যদি সারা বিশ্ব রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দিতো, তাহলে রাশিয়ার শক্তি কমাতে পারতো। শুধুমাত্র পশ্চিমা দেশ আর ইউরোপ নিয়েই তো সারা বিশ্ব নয়। এখানেই ভুলটা হয়েছে বড় বড় নেতাদের।

25/5/2022-অপিনিয়ন ইস ডিনায়েড

রাশিয়া ইউক্রেনকে আক্রমন করার সাথে সাথে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাশীল লোকজন যখন ন্যাটোতে যোগদানের একটা সুর তুল্লো, তখন ইংল্যান্ডের ইয়াং জেনারেশনের ব্রেক্সিট ভোটের মতো ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনের ইয়াং জেনারেশনও একই রকমভাবে ন্যাটোতে যোগ দিলে তাদের প্রোটেকশন বাড়বে এই ধারনায় একটা জোয়ারের মতো তাল দেয়া শুরু করেছিলো। ফলে আগের বছরগুলিতে ন্যাটোতে যোগদানের মতামতের ৪২% এর বিপরীতে হটাত করে স্যামপ্লিং এ ৭০% পজিটিভ মতামত চলে আসে। প্রাথমিকভাবে ন্যাটো এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন যেভাবে ইউক্রেনের পাশে দারানোত অংগীকার ব্যক্ত করেছিলো, তাতে যে কোনো আপাতত একটা দূর্বল জাতী সেটা গ্রহন করবেই। এই মতামতের ভিত্তিতে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাশীল লোকজন রেফারেন্ডাম লাগবে না এই ভিত্তিতে পার্লামেন্টে প্রায় এক তরফা ভোট পাশ হয়ে যায় ন্যাটোতে যোগদানের জন্য।

পরবর্তীতে ইউক্রেনের জন্য ন্যাটোর হাবভাব, তাদের জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা, কিংবা বিশ্ব মন্ডলে ইউক্রেন নাগরিকদের দেয়া সুযোগ সুবিধার উপর চুলচেড়া বিশ্লেষনের উপর দেশের স্ট্র্যাটেজিক বুদ্ধিদাতাদের লেখালেখি, মতামত এবং তারসাথে রাশিয়ার উপরে নিষেধাজ্ঞার প্রভাবে সারা দুনিয়ায় যেভাবে নেতিবাচক প্রভাব ঘটছে, তার রেশ অনুভুতিতে এনে ধীরে ধীরে ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনের সাধারন নাগরিকদের ভাবনায় ন্যাটোতে যোগদানের ব্যাপারটায় টনক নড়া শুরু করে। এর বাইরে ইউক্রেনের উপর রাশিয়ার এক তরফা আগ্রাসনের কারনে এবং ইউক্রেনের পাশে কাউকে না পাওয়ার কারনে এই দুই দেশের জনগনের মতামত হটাত করে ভাটা পড়তে শুরু করে। এখন সেই সার্ভে এসে দাড়িয়েছে প্রাতমিক ৪২% এরও নীচে। এর মধ্যে তুরুষ্ক এবং ক্রোয়েশিয়ার প্রবল আপত্তিতে ন্যাটোতে যোগদানের ব্যাপারে একটা অনিশ্চিত আশংকার স্রিষ্টি হয়। এছাড়া ন্যাটোতে যোগ দেয়ার সফল মেম্বার হওয়ার মাঝখানে প্রায় এক বছর সময়ে ‘না ন্যাটো’ না ‘নিরপেক্ষ’ এমন পরিস্থিতিতে রাশিয়ার হুমকী একটা ভয়ংকর আতংকের মধ্যে পড়েছে দেশের নাগরিকগন। প্রায় ১৩০০ কিমি কমন বর্ডারের দেশ ফিনল্যান্ড সর্বদা রাশিয়ার মতো শক্তিশালী প্রতিবেশী দেশের কাছে একটা যুদ্ধাংদেহী অবস্থায় থাকতে হবে, এইসব কারনে সবাই এখন ন্যাটোতে যোগ দেওয়াকে রিস্কী মনে করছেন। এমন অবস্থায় ফিনল্যান্ডের নাগরিকদের মধ্যে এখন অধিকাংশ জনগন ন্যাটোতে যোগদানে আগ্রহী নয়। তবে তারা সারাদেশের জনগনের একটা চুড়ান্ত মতামতের জন্য রেফারেন্ডাম চাইছে। অন্যদিকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাশীল লোকজন রেফারেন্ডাম দিতে নারাজ। এই টানাপোড়েনে দেশের ভিতরে একটা চলমান ক্ষোভের লক্ষন দেখা যাচ্ছে। এই অবস্থায় ফিনল্যান্ডে বলা হচ্ছে- যারা ন্যাটোতে যোগদানের বিপক্ষে তারা রাশিয়ান পন্থী। আর এই অপবাদে প্রচুর সংখক নাগরিক পুলিশের হয়রানী, এমন কি জেল জুলুমের খপ্পরে পড়ছেন বলে ফিনিশ এক জার্নালিষ্ট সাক্ষাৎকার দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, Opinion is denied

তবে একটা জিনিষ তো নিশ্চিত, শেষ পর্যন্ত সাধারন জনগনের চুড়ান্ত মতামতের জন্য রেফারেন্ডাম না নিলে শেষ অবধি প্রেসিডেন্ট সিউলি নিনিতসুকে এক সময় বিচারের কাঠগরায় দারাতে হতে পারে। এখানে উল্লেখ থাকে যে, যদিও ফ্রান্স ইউক্রেনের ন্যাটো মেম্বারশীপ বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে যোগদানের ব্যাপারে নেতিবাচক নয়, কিন্তু প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রন এবং ফ্রান্সের পররাষ্টমন্ত্রী ইউক্রেনের ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সদস্যপদ পাইতেই বলেছে এক যুগ পার হবে। এর মানে, ইউক্রেনকে সহজেই ইউরোপিয়ান ব্লকে বা ন্যাটোতে নেয়ার কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই। তাহলে কেনো আর কিসের কারনে এই যুদ্ধ?

সেই একই কাতারে কি এতো চমৎকার দুটি দেশ সুইডেন এবং ফিনল্যান্ড পড়তে যাচ্ছে?

19/5/2022-ফিলিপিনের নব নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বং

ফিলিপিনের নব নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বং মার্কোস এবং তার আগের প্রেসিডেন্ট দূতেরের মধ্যে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জাপান+ দক্ষিন কোরিয়ার ভিজিট উপলক্ষে ব্রিটিশ স্কলার এবং জিও পলিটিক্যাল এনালাইসিস্ট মার্টিন জ্যাক্স এর কিছু টুইটার মেসেজ শেয়ার করেছে। টুইটারে মার্টিন তার এনালাইসিসে বেশ কিছু এক্সক্লুসিভ তথ্য শেয়ার করেছে।

(ক) আমেরিকা এখনো অগোছালো। এশিয়ার ব্যাপারে বাইডেনের কোনো অর্থনইতিক পরিকল্পনা নাই।

আমেরিকা চায়না “বেল্ট এবং রোডের” চুক্তির ব্যাপারে কিছু উচ্চাকাখাংকা দেখালেও সেটা চায়নার কারনে আমেরিকা কোনোভাবেই সফল হবে না। কারন চায়না ইতিমধ্যে আমেরিকার চেয়ে শুধু অর্থনীতির ব্যাপারেই না, কোয়ালিশনের দিক দিয়ে এগিয়েই আছে।

(খ) পূর্ব এশিয়াতে আমেরিকা মিলিটারীর দিক দিয়ে খুবই একটা নাজুক অবস্থায় আছে। এখানে চায়না পুর্ব এশিয়াতে আমেরিকা থেকে অনেক গুন এগিয়ে আছে। প্রকৃতপক্ষে চায়না এসব স্ট্র্যাটেজিক পরিকল্পনাগুলি গত ১৯৯০ সাল থেকেই হাতে নিয়েছিলো যা আমেরিকা বুঝতেই পারে নাই। ফলে আমেরিকা এই পূর্ব এশিয়াতে তার কোনো মার্কেট বেজড সম্পর্ক গড়েই উঠে নাই। বলতে গেলে প্রায় বিচ্ছিন্ন।

(গ)  পুর্ব এশিয়াতে খুবই শক্ত সামর্থ তিনটা ট্রেডিং এগ্রিমেন্ট আছে। এরা হচ্ছে- (১) RCEP (২)  CPTPP (৩) Belt and Road এই তিনটার মধ্যে একটাতেও আমেরিকা নাই। কিন্তু চায়না তিনটার মধ্যেই আছে। আর এগুলি গত ২০ বছর আগে থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। এখন তো আমেরিকার পক্ষে আর এসবে ঢোকার কোনো সম্ভাবনাই নাই।

(ঘ) পুর্ব এশিয়ার সাথে চায়নার সম্পর্কটা দুতেরের গত ২০১৬ সালের নির্বাচনের সময়ই খুব জটিল ছিলো। দুতেরে নির্বাচিত হবার পর সে চায়নার সাথে আরো ঘনিষ্ঠতা বজায় রাখবে বলে অংগীকার করেছিলো। নির্বাচিত হয়েওছিলো। এবারের নির্বাচনে মার্কোস পরিবারের সদস্য যাদেরকে প্রায় ২০ বছর আগে উতখাত করা হয়েছিলো, সেই মার্কোস পরিবারের সদস্যই বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবার আরেকটি কারন যে, সেও দুতেরের থেকেও বেশী কাছে থাকবে চায়নার এটাই ছিলো তার নির্বাচনী মেনিফেস্টুর একটা অংশ। ফলে ফিলিপাইনকে আমেরিকা কাছে পাবার সম্ভাবনা কম। তার মানে পুর্ব এশিয়াতে আমেরিকার পদধুলী প্রায় স্তিমিত।

এই সব কিছবু মিলিয়ে এশিয়া এবং পুর্ব এশিয়াতে আমেরিকার বর্তমান কৌশল খুব একটা কাজে আসবে না হোক সেটা জাপানের মাধ্যমে বা দক্ষিন কোরিয়া। ফলে জো বাইডেনের ভিজিট কতটা আশা পুরুন করবে সেটা এখন বলা মুষ্কিল।

অনেক দেরী হয়ে গেছে ব্যাপারটা।

১৭/০৫/২০২২- কিছু তথ্য বেশ মজার।

ঠিক এই সময়ে কংগ্রেসে মোট ৩৭ জন ইহুদী আছেন। তারমধ্যে ৩৫ জন হচ্ছে রুলিং ডেমোক্রেটিক পার্টির এবং ২ জন বিরোধী রিপাবলিকান দলের। কট্টর ইহুদীরা সবসময় ডেমোক্রাটদেরকেই ভোট দেন আর এই ভোট ব্যাংকের অনুপাত সারা আমেরিকার জনগনের মধ্যে প্রায় ৩৫%। অর্থাৎ ৩৫ শতাংশ ভোট ডেমোক্রাটদের জন্য প্রায় নিশ্চিত। আর এ কারনে অনেকেই বলে থাকেন যে, যখনই ডেমোক্রাটরা ক্ষমতায় আসবে, ধরে নিতে হবে দেশ ইহুদীদের দ্বারা চালিত হচ্ছে। ডেমোক্রাট দলের জন্য বেজ কন্সটিটিউয়েন্সীর নির্নায়ক হচ্ছে ইহুদীরা। আমেরিকার নির্বাচনের সময় ইহুদীদের প্রধান বৈশিষ্ঠ হচ্ছে, একদল ইহুদী ডেমোক্রাটদের পক্ষে প্রচন্ড পরিমানে জনমত তৈরী করেন, আর আরেকদল ইহুদী একই সময়ে বিরোধী দল রিপাবলিকানদের বিপক্ষে জনমত তৈরী করতে থাকেন। ফলে রিপাবলিকানরা কোন ঠাসা হয় বারবার। কোনো কারনে যদি ডেমোক্রাটরা জিততেও না পারে, তারপরেও কোনো না কোনোভাবে ইহুদী আওন প্রনেতারা যেনো জয়ী হয় সে চেষ্টায় থাকে এই ইহুদীরা। সুপ্রিম কোর্টের অবস্থা সার্ভে করলে দেখা যাবে যে, প্রায় ৭৫% আইনজীবি ইহুদী বা ইহুদীপন্থী। যারা সর্বদা রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তে পরামর্শ দেয়। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ইহুদীরা খুবই অপছন্দ করে। প্রায় ৭৩% নেগেটিভ প্রচারনা করে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে।

গত নির্বাচনে ভোটারদের ভোট গননায় দেখা গেছে যে, বাইডের প্রাপ্ত ভোটের প্রায় ৬০% এর উপরে ইহুদীদের ভোট পড়েছিলো প্রেসিডেন্ট বাইডেনের পক্ষে। এখানে একটি কথা না বললেই নয়, জো বাইডেনের পূর্ব পুরুষেরা ছিলেন আইরিশ নাগরিক এবং ফ্রান্স নাগরিক।

বর্তমান স্পীকার ন্যান্সী পেলোসির অরিজিনালিটি হচ্ছে ইতালিয়ান। তার বাবা থমাস ডি আলেসান্দ্রো প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট রুজভেন্টের সময় এমপি ছিলেন এবং ইহুদী রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে থমাস ডি আলেসান্দ্রো প্রেসিডেন্ট রুজভেন্টের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তুমুল জনমত গড়ে তুলেছিলেন। তিনি ছিলেন কট্টর ইহুদীপন্থী এবং ইহুদী রাষ্ট্র সৃষ্টির একজন প্রধান কর্নধার। ( লিংক পড়তে পারেন-

(https://www.speaker.gov/newsroom/jerusalem-post-pelosis-father-bucked-fdr-truman-aid-jews-israel)

 এবার আসি এন্টনি ব্লিংকেন এর ব্যাপারে। এন্টনী ব্লিংকেন আপাদমস্তক ইহুদী পরিবারের সদস্য। Blinken was born on April 16, 1962, in Yonkers, New York, to Jewish parents, Judith (Frehm) and Donald M. Blinken, who later served as U.S. Ambassador to Hungary.  His maternal grandparents were Hungarian Jews. Blinken's uncle, Alan Blinken, served as the U.S. ambassador to Belgium. His paternal grandfather, Maurice Henry Blinken, was an early backer of Israel who studied its economic viability, and his great-grandfather was Meir Blinken, a Yiddish writer.

(লিংক পড়তে পারেন- https://en.wikipedia.org/wiki/Antony_Blinken)

অংকটা বেশ মজার। বিশেষ করে ইউক্রেন যুদ্ধের ব্যাপারে এর কি কোনো ইফেক্ট আছে বলে মনে হয়?

18/5/2022-সুইডেন-ফিনল্যান্ডের হেরীটেজ রোগঃ

গতকাল একটা খবরে খুবই আশ্চর্য হয়েছি যে, ফুন ল্যান্ড এবং সুইডেনদের একটা কমন রোগ আছে যা হেরিডিটি হিসাবে বংশগতভাবে ওরা পায়। আর সেটা হলো জেনেটিক ডিস অর্ডার। এর মাত্রা কমানোর উদ্দেশ্যে ওরা যেটা করে সেটা হলো- ওরা সুইডেন-সুইডেন, বা সুইডেন ফিনল্যান্ড, বা ফিনল্যান্ড-ফিনল্যান্ড কাপ্লিং থেকে বিরত থাকে। কারন উভয় বাবা মা যাদের জেনেটিক ডিস অর্ডার আছে, তাদের বাচ্চাদের ও সেই একই জেনেটিক ডিস অর্ডার  হ ওয়ার সম্ভাওবনা প্রায় শতভাগ। তাই ওরা সব সময়ই চায়, ফিন ল্যান্ড-রাশিয়ান, সুইডেন-রাশিয়ান কাপ্লিং করতে। এর ফলে যেটা হয়েছে, সেটা হলো, প্রায় প্রতিটি সুইডিস বা ফিনিশ পরিবারেই রাশিয়ান বংশভুত নাতি পুতি বিদ্যমান।

ন্যাটোতে যোগ দেওয়ার এত বড় সিদ্ধান্তটা কোনো দেশই রেফারেন্ডামে আনতে ভয় পাচ্ছে, কারন মিডিয়া হয়তো অতি রঞ্জিত করে ন্যাটোতে যোগ দেবার জনগনের রায় দেখাচ্ছে ৮০% এর উপরে, অথচ বাস্তবে ৪০% এর ও নীচে সাধারন জনগনের সায় আছে বলে এক সুইডিস সাংবাদিক গতকাল TFI Global এর বরাত দিয়েছে।

ওরা ন্যাটোতে যোগ দিক বা না দিক সেটা তাদের ব্যাপার, কিন্তু যদি পরি সংখ্যান টা এমনই হয়, তাহলে তো দেখা যাচ্ছে নাতি পুতিদের মধ্যে এবার যুদ্ধ বা ঝগড়ার সূচনা শুরু হয়ে গেলো।

দ্বিমুখী জীবন-৩১ মে ২০২২

মুক্তার সাহেব ‘পরকীয়া’ করছেন। খবরটি চারিদিকে এমনভাবে ছড়িয়েছে যে, সেটা নিয়েই যেনো সবাই মুখরোচকভাবেই আলাপে মত্ত। চায়ের দোকানে, পাড়ার মহল্লায়, আশেপাশে মানুষের মুখে মুখে যেনো খবরটা একটা ব্রেকিং নিউজের মতো এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ঝড়ো দমকা বাতাসে ছাই ঊড়ার মতো চারিদিকে রটিয়ে বেড়াচ্ছে। ব্যাপারটার সত্যতা নিয়ে কারো কোনো সন্দেহের অবকাশ ছিলো না এ কারনে যে, মুক্তার সাহেবের স্ত্রী আসমানী বেগমই এর প্রথম নালিশদাতা। অতঃপর দিন গড়িয়ে সপ্তাহ আসার আগেই এ বিষয়ে আসমানী বেগমের ঘোর নালিশের কারনে শেষ পর্যন্ত পারিবারিক আইন ও সালিসি আদালতে ঘটনাটি বিচারের সাব্যস্থ হলো। আমি সে সময়ে পারিবারিক আইন ও সালিসি অধিদপ্তরে কাজ করছিলাম। মুক্তার সাহেবের পরকীয়ার ঘটনাটি সরেজমিনে তদন্ত করার ব্যাপারে আমার উপরে দায়িত্ব দেয়া হলো। পরকীয়ার ব্যাপার স্যাপার, তদন্ত করা খুব সহজ কাজ নয়। তারপরেও এমন একটা স্পর্শকাতর ব্যাপারের আভ্যন্তরীন তথ্যাদি উদঘাটনের জন্য আমি এই কাজটি হাতে নিয়েছিলাম। তারই ধারাবাহিকতার জের ধরে আমি ঘটনায় জড়িত মুক্তার সাহেব, সাবিত্রি এবং আসমানী বেগমের জবানবন্দীসমুহ লিপিবদ্ধ করি। তাদের সবার জবান বন্ধী লিপিবদ্ধ করে এর পুরু সারমর্ম পড়ে আমি নিজে কোনো শুদ্ধ রায়ে উপনীত হতে পারিনি। অবশ্য আমার রায় দেবার ইখতিয়ারও ছিলো না। আমার কাজ ছিলো শুধু তাদের জবানবন্ধী নেয়া। গল্পটি তাদের সেই জবানবন্দীর অনুলিপি মাত্র।

মুক্তার সাহেব একজন নামকরা শিল্পপতি, মোটামুটি বেশ ভালোই সবার কাছে পরিচিত। অন্যদিকে, আসমানী বেগমও স্বনামধন্য একজন প্রতিষ্ঠিত নারী। তাকেও সমাজের অনেকেই চিনেন এবং ভালো পরিচিতি আছে। অপরদিকে, সাবিত্রী অল্প বয়সের একজন নারী যার না ছিলো কোনো নামধাম, না ছিলো কোনো সামাজিকভাবে প্রতিষ্ঠা। একজন গ্রাম্য এলাকার মেয়ে যে মুক্তার সাহেবের থেকেও প্রায় ৩০ বছরের ছোট। এই সাবিত্রীর সাথে মুক্তার সাহেবের পরকীয়া চলছে বলে চারিদিকে শোনা যাচ্ছে। আজকের ঘটনাবলী তার উপরেই।

 

আমি কেনো এই তদন্তটা হাতে নিয়েছিলাম সেটারও একটা কারন ছিলো। প্রায় ৩৩ বছর গর করার পর, সুখে শান্তিতে বসবাস করার পর, ছেলেমেয়েরা বড় হয়ে যাওয়ার পরে কেনো এই পরিবারের মধ্যে এমন একটা রহস্য, সেটাই আমার জানার খুব শখ ছিলো। এই কারনেই আমি এই কেসটার ব্যাপারে উৎসাহী হয়েছিলাম। তবে একটা কথা সত্যি যে, মুক্তার সাহেবের সাথে একটা মেয়ের পরকীয়া চলছিলো।

 

এখন প্রশ্ন হচ্ছে- ৩৩ বছর একসাথে ঘর করার পর কি কারনে মুক্তার সাহেব আসমানী বেগমের অলক্ষ্যে একান্তে সময় কাটানোর জন্যে সাবিত্রীর সাথে গোপন প্রনয় শুরু করেন, সেই ইতিহাস না জানলে মনে হবে, হয়তো মুক্তার সাহেব আসলেই একজন চরিত্রহীন এবং দায়িত্বহীন কোনো এক সামাজিক কিট। সমাজে মুক্তার সাহেবই প্রথম ব্যক্তি নন যিনি ঘরে ভালোবাসার সুন্দুরী আসমানিদের রেখেও তার থেকে অনধিক সুন্দুরী বা অনধিক শিক্ষাগত যোগ্যতার অধিকারী এই সাবিত্রীদের সাথে প্রনয় করেন। কিন্তু অন্য সবার ব্যাপারে এই জাতীয় ঘটনা খুব মুখরোচক না হলেও, মুক্তার সাহেবদের এসব খবর যখন নড়ে উঠে, তখন অনেকে বাসীরুটিও গরম করে খায়। সবসময় গরম গরম পরোটাই যে মজাদার তা নয়, কিন্তু মুক্তার সাহেবদের মতো মানুষদের এসব ঘটনা চারিদিকে যখন রটায় তখন গরম গরম পরোটার চেয়েও এ ধরনের বাসীরুটির কদর অনেক গুন বেড়ে যায়। যখন মুখরোচক খবরের ক্ষিদে পায়, তখন রুটি, পরোটা, লুচির মধ্যে আর কোনো তফাত করা যায় না। কিন্তু মুক্তার সাহেবরা তাদের এই ঘটনার জন্য নিজ থেকে কোনো সংবাদের শিকার হতেও চান না। কারন, একদিনের মুখরোচক সংবাদ হবার জন্য কিংবা এই নশ্বর পৃথিবীতে জোরালোভাবে নামডাক থাকুক, ইতিহাস হোক, অথবা বিখ্যাত হোক এ লোভে কেউ এসব কাহিনীর নায়ক হতে চান না। এটা তো ঠিক যে, এই ‘বিখ্যাত হবো’ ধরনের ক্ষুধার জন্য কেউ সারা জীবনের তৈরী করা বছরের শব্জীক্ষেত জালিয়ে দেয়ও না। পাশ্চাত্যের ব্যাপার স্যাপার আলাদা। আমাদের এই দেশে এটা মানান সই নয়। তারপরেও শব্জী বাগান জ্বলে। আর সেটা ভুলেই হোক, আর ইচ্ছায়ই হোক, কিংবা অন্য কারো দ্বারাই হোক, জ্বলতেই থাকে। আর এর প্রধান কারন একটাই, আবর্জনা যেমন সবসময় সাদা কাপড়েই বেশী ফুটে উঠে, তেমনি কিছু কিছু অপবাদও এই মুক্তার সাহেবদের মতো সাদা কাপড়েই বেশী চোখে পড়ে। হাওয়া যখন কারো নামে গরম হয়, তখন আমরা অনেকেই বলি, শনির দশা চলছে। কিন্তু শনি এমন এক হাওয়ার নাম, যে, এই হাওয়ায় কারো নাম ভাসতে থাকলে তার পিছনের কি ইতিহাস, কি আচরন, সত্য-মিথ্যার চকলেটে মোড়ানো বোরহানীর মতো ঝাল-মিষ্টি-টক সবকিছুই তখন একসাথে যেনো উড়ে বেড়ায়। যে যেটা পছন্দ করে, তখন সে সেটাই ব্রেকিং নিউজের মতো যতো দ্রুত সম্ভব বাতাসের সাথে মাটিও গরম করে দেয়। তখন চায়ের কাপে, বাজারের দোকানে, কিংবা নদীর ঘাটেও এর পরিব্যপ্তি আর বিস্তার কম হয়না। আর যে বলীর পাঠা হয়, তার যত নাম ডাকই থাকুক না কেনো, তখন সে হয়ে উঠে বিষাক্ত খাবার। আর সেই খাবার যতো দামিই হোক, তা ফেলেই দিতে হয়। যদি তা গোড়া থেকে উপড়ে  ফেলে না দেওয়া যায়, তখন তার মুল্য শুধু বিপদের আশংকাই বাড়িয়ে দেয় তা নয়, সেটা সমাজে একটা আইনের মতো ছড়িয়ে পড়তে থাকে। কিন্তু মুক্তার সাহেবের মতো ব্যক্তিত্তকে বিষাক্ত খাবার মনে করে আসমানী বেগমেরা তাকে ফেলেও দিতে চান না। তারা চান, কিভাবে এই বিষাক্ত খাবার আবার সিদ্ধ করে পুনরায় ঝলমলে পরিপাটি খাবারের টেবিলে পরিবেশন করা যায়। তাই হয়তো এমন গুরুতর অভিযোগের পরেও আসমানী বেগম চান যে, মুক্তার সাহেব ফিরে আসুক, আর সাবিত্রীরা ধংশ হোক। তাতেই হয়তো আসমানী বেগমেরা খুসি।

 

এসব পরকীয়ার কাহিনীর সাথে সাথে যেহেতু সে ব্যাক্তির পিছনের ইতিহাস, তার আচরন নিয়ে রমরমা পান্ডুলিপি এক হাত থেকে আরেক হাতে ছড়ায়ই, তাই এই মুক্তার সাহেবের অতীত ইতিহাস, কিংবা তার আচরন সম্পর্কে তার কাছ থেকেই জানা ভালো। এতে হয়তো কিছুটা রাখঢাক থাকতে পারে অথবা থাকতে পারে কিছু প্রচ্ছন্ন লুকানো তথ্য। সিংহভাগ তথ্য যখন একে একে সারিবদ্ধভাবে জোড়া লাগানো হবে, আমরা নিজেরাই বুঝতে পারবো, কোথায় কোন জায়গায় মুক্তার সাহেব কিছু ছেড়ে গেলেন, আর কোথায় কোন তথ্য নতুন করে আমদানী করলেন। সঠিকতার বিচার পাঠকের উপর। যে যেভাবে পারেন, তিনি তারমতো করে সেসব গড়মিল জায়গাগুলি নিজের মতো তথ্য যোগ করে প্রতিস্থাপন করলেই পূর্নাজ্ঞ গল্পটি নিজের মানসপটে ফুটে উঠবে। তাহলে শুনি তার নিজের মুখে দেয়া বিচারকের কাছে দেয়া তাঁর পরকীয়ার জবানবন্দী। বিচারকের পক্ষে আমিই সেই ব্যক্তি যে মুক্তার সাহেবের জবানবন্দী রেকর্ড করেছিলাম।  

 

মুক্তার সাহেবের জবান বন্দি

 

-আমার বয়স তখন সবেমাত্র কুড়ি পেড়িয়েছে। টকবকে যুবক। স্বাধীনতা বলতে যা বুঝায় ঠিক সে রকম। সব প্রকারের মানসিকতা নিয়েই আমি সমাজের প্রতিটি স্তরে অনায়াসেই যাতায়ত করতে পারি। সবার সাথেই ছিলো আমার বন্ধুত্ত। গাজার আসরে যেমন আমি ছিলাম মুক্তার মতো, তেমনি পড়াশুনায় ভালো করার কারনে উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্তদের কাছে ছিলাম মুক্তার হারের মতো। আর নিম্নবিত্ত মানুষদের কাছে যতোটা না ছিলাম আদর্শগত মডেল তার থেকে বেশী ছিলাম গোপন হিংসার একটা অদেখা আলাপের বিষয়বস্তু। কোনো এক সময়ের জমিদার বাড়ির সন্তান যখন নিম্নবিত্ত পরিবারের মতো বেড়ে উঠে, তখন তার প্রাচীন উদ্ধত্তভাবের সাথে দেমাগ আর জিদটা হয়তো বেচেই থাকে যদিও সামর্থ বলতে কিছুই থাকে না। আমার ছিলো সেরকমের একটা জিদ আর দেমাগ। লেখাপড়ার প্রতি অনেক ঝোক ছিলো আমার, তাই, গ্রামের আর দশটা যুবকের থেকে আমি ছিলাম একেবারেই আলাদা। অদুর অতীতে কি ছিলো আর ওসব থাকলেও এখন কি হতে পারতাম, এই চিন্তাটা মাথায় একেবারেই ছিলো না, বা না ছিলো কোনো আফসোস যে, কেনো অন্যদের অনেক কিছু আছে আর আমাদের নাই। কিন্তু আখাংকা ছিলো অনেক, যেভাবেই হোক নিজের পরিশ্রমে সৎপথে অনেক বড় কিছু হবার। শুনেছিলাম, সুন্দুরী অনেক যুবতীর সফলতা বড় লোকের বেডরুম দিয়ে আসলেও কোনো যুবকের সফলতা কোনো বড় লোকের ঘরজামাই থেকে আসে না। আর যাদের আসে, তারা হয় নেহায়েত ভাগ্যবান নয়তো তারা জীবনের জন্য আজীবন মৃৎপ্রায় লাশের সব শর্তাবলী গলায় নিয়েই ভোগবিলাস করেন। আমার এই ধরনের না ছিলো কোনো মানসিকতা আর না ছিলো এর সুযোগের সন্ধান।   

২১ বছর বয়সেই আমি আমার মেধার কারনেই হোক আর শিক্ষাগত যোগ্যতা যাচাইয়েই হোক, আমি দেশের একটি অত্যান্ত প্রতিষ্ঠিত এবং সম্মানজনক সেক্টরে অফিসার পদে চাকুরী পেয়ে যাই। যদিও আমার অন্যান্য সেক্টরে চাকুরী পাবার সম্ভাবনা ছিল আরো ঢের বেশী এবং সেসব সেক্টরেও প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত হবার জন্য যে কোর্ষ এবং ডিগ্রী দরকার তার সিলেকসনেও আমি ছিলাম অনেকের থেকে অনেক উপরে। কিন্তু সেই সিলেকশনের পর কোর্ষ চালিয়ে যাবার মতো মসলা বা জোগান হাতে ছিলো না যা বর্তমান সেক্টরে সরাসরি পাওয়া যায় বিধায় আমাকে অনেক সিদ্ধান্ত নিজের ইচ্ছের বিরুদ্ধেও পালটাতে হয়েছে। ফলে অন্যান্য সেক্টরের সপ্ন বাদ দিয়ে আমি বর্তমানকেই প্রাধান্য দিলাম যাতে আমি নিজেকে সাপোর্ট দিতে পারি এবং জীবন নিজের মতো করে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি। একটা জিনিষ আমি বুঝে গিয়েছিলাম যে, মাথার উপর ছাদ না থাকলে,  যে দুফোটা বৃষ্টি আকাশ থেকে প্রথমেই ঝরে পড়ে, সেটা আমার মাথায়ই প্রথম পড়বে। আমার না ছিলো কোনো ব্যাকআপ সাপোর্ট, না ছিলো কোনো অবলম্বন। আমাকে কেউ সাহায্য করারও নাই। এখন না হয় আমি একা, পরিবার হয় নাই, বিয়েটাও করি নাই, ফলে দুশ্চিন্তা হয়তো একটু কম, কিন্তু কখনো যদি আমার পরিবার হয়, সন্তান হয়, তখনো আমি জানি, আমাকে দুহাত বাড়িয়ে দিয়ে আমার অসময়ে বা দুঃসময়ে সাহাজ্য করার কেউ নাই। এই কঠিন বাস্তবতাটা আমার মাথায় এমনভাবে গেথে গিয়েছিলো যে, আমার কখনো ভুল হয়নি এটা ভুলে যাবার যে আমি একা। আমার বিকল্প আমিই, আর কেউ নয়। এ সত্যটা আজ অবধি সত্যই।

এই অবস্থায় আমার সাথে দেখা হয় এই আজকের আসমানীর। কথা থেকে চিঠি, চিঠি থেকে আরো ঘনিষ্ঠতা, আর সেই ঘনিষ্ঠতা থেকে একসময় প্রনয়। আমার কিংবা আসমানীদের পরিবারের অনেকেই আমাদের এই ঘনিষ্টতা পছন্দ করে নাই। এখানে আরেকটা কথা উল্লেখ না করলেই নয় যে, আমি কিন্তু এতিম ছিলাম না। আমারো মা ছিলো, ভাই ছিলো, বোনও ছিলো, ছিলো শুভাকাংখিও। কিন্তু তাদের অবস্থা এরকম নয় যে, আমার কোনো প্রয়োজনে হাত বাড়িয়ে কোনো আর্থিক সহায়তা করতে পারবেন, আমার পাশে দাড়াতে পারবেন বরং তারা তাদের আর্থিক দুরাবস্থার কারনে আমার দিকেই যেনো তাকিয়ে থাকেন। কিন্তু এসব শুভাকাংখির একটা বড় সমস্যা হলো যে, নিজেরা কোনো কিছু সাহাজ্য করতে না পারলেও, তারা বিজ্ঞের মতো এমন কিছু মতামত, বা উপদেশ দেন যেনো ওরাই না জানি আমার অভিভাবক বা তাদের পরামর্শ না শুনলে আমার জন্য একটা বড় অপরাধ কিংবা ঘোরতর বিপদের আশংকা আছে। কিন্তু ওই যে বললাম, আমি বরাবর স্বাধীনচেতা মনের মানুষ, আর আমার চিন্তাধারার সাথে কারো চিন্তাধারা মিলুক বা না মিলুক সেটা আমার কাছে বড় কোনো বিবেচ্য বিষয় ছিলো না। আমি শুধু ভাবতাম, আমার সমস্ত কিছুর জন্য আমিই দায়ী। হোক সেটা উত্থানের বা পতনের। আমার উত্থানে হয়তো তখন তারা তাদের ভুল পরামর্শের কারনে চুপ থাকবেন, না হয় আমার পতনের কারনে তারা আরো কিছু শুনিয়ে দেবেন যে, তাদের পরামর্শ না শোনার কারনে আজ আমার এতো অধোপতন। কিন্তু এটাও জানি, সেই অধোপতন থেকে আবার আমাকে টেনে বের করে কোনো এক সঠিক রাস্তায় দাড় করিয়ে দেবার মতো তাদের না আছে সামর্থ বা না আছে কোনো মানষিকতা।    

আসমানীর সাথে আমার ঘনিষ্ঠতা হবার পর আমি নিজেও বুঝতে পারলাম, আমার অবস্থা থেকে আসমানীর অবস্থা আরো গুরুতর। আমি ছেলে মানুষ, কোনো না কোনোভাবে হয়তো অনেক কিছুই পার পেয়ে যাবো। কিন্তু আসমানী মেয়ে মানুষ, তার অবস্থা আরো শোচনীয় থাকায় তার অবস্থা আরো বিপদজনক। তারও না আছে তেমন শক্ত কোনো অভিভাবক, না আছে বাবা, না আছে এমন কেউ যাকে নির্ভর করে সে তার মেয়েলী জীবনের একটা সুখের স্বপ্নের কথা ভাবতে পারে। তার শুধু একটা ভরষাই ছিল। আর সেটা হলো আগত ভবিষ্যতে তার স্বামীর উপর। তার চাওয়া পাওয়া, আবদার, আর যতো অভিমান যেনো লুকায়িত আছে সেই স্বামীকে ঘিরে। আসমানী এটাও জানতো যে, জীবনে এই আদর্শগত স্বামী পেতে হলে তাকেও একটা লেবেল পর্যন্ত যেতে হবে, বিশেষ করে পড়াশুনার দিক দিয়ে। তাই, আসমানীর লক্ষ্য যেমন ছিলো ভালো একটা জীবনের জন্য, তেমনি লক্ষ্যকে সফল করার জন্য তাকে এই সমাজ সংসারে এমন করে পরিশ্রম করতে হবে যেখানে সবচেয়ে কম খরচে সবচেয়ে ভালো কিছু করা যায়। সরকারী ইউনিভার্সিটি হলো সেই লক্ষ্যভেদের একটা সহজ কৌশল। আসমানি তার পূর্ন সদ্ব্যবহার করেছিলো। ফলে একদিকে আসমানী লেখাপড়া চালিয়ে যেতে লাগলো অন্যদিকে আমাকেও সে ধরে রাখলো।

একটা সময় এলো যে, আমি আর আসমানী একা একাই জীবনসাথী হয়ে গেলাম। আমি আসমানীকে আমার জীবনের বাইরে কখনো ভাবি নাই। আর এই ভাবার মধ্যে ব্যাপারটা এমন ছিলো যে, আমার মতো আসমানীরও কেউ নাই। আমিই আসমানীর দেবতা, আমিই আসমানীর আত্তা, আমিই আসমানীর সর্বত্র। ওর রাগ অভিমান, চাওয়া পাওয়া, সুখ আহলাদ, হাসি কান্না, সবকিছুই আমি। আর আমার বেলায়ও আমি জানি কাউকে আমার কষ্টের কথা, ব্যাথার কথা, কিংবা পরিকল্পনার কথা আসমানিকে ছাড়া কারো সাথেই শেয়ার করা সম্ভব ছিলো না। আমরা আসলে আক্ষরীক অর্থেই অর্ধাংগিনি রুপে একে অপরের জন্য স্থির হয়ে গেলাম। ভাবলাম, একদিন আমাদের সব ঠিক হয়ে যাবে, আমরা সব কিছু আমাদের মতো করেই তৈরী করবো।

মুক্তার সাহেব কিছুক্ষনের জন্য থামলেন। একটা দীর্ঘশাস ছাড়লেন। কিছুক্ষন চুপ করেও রইলেন। আমি বুঝলাম, তিনি ইমোশনাল হয়ে যাচ্ছেন। তারপর আবার শুরু করলেন-

আমরা সবাই সুকী হতে চাই।

-একটা জিনিষ জানেন? আমরা সবাই সুখী হতে চাই। ভাবি, ‘একদিন’ আমরা সুখী হবোই। এই “একদিন”, অদ্ভুত একটা সময়। সবসময় আমরা ভাবি, ‘একদিন’ আমার সবকিছু আমার মতো করে হবে, ‘একদিন’ আমি সবকিছু নিজের মতো করে পাবো, ‘একদিন’ আমি সবকিছু ছেড়ে নিজের মতো করে এই পৃথিবীকে দেখবো, দেখবো এর বিশালত্ব, এর সউন্দর্য, এর অপূর্ব রহস্যময়তা। কিন্তু আমি জানি না কবে সেই আমার ‘একদিন’। আমি জানিও না আমার সেই ‘একদিন’ আসলে কবে সেইদিন। আমি কিভাবে জানবো, সেই ‘একদিন’টা কবে আসবে আমার জীবনে? ছোট এই সমাজে যেখানে আমরা দৈনিন্দিন সবাইকে নিয়ে বসবাস করি, আমরা সেখানে চাইলেই সবকিছু করতে পারি না।  শিশুকাল থেকে কৈশোর পার করা অবধি আমরা সবাই ওই ‘একদিন’ এর অপেক্ষায়ই থাকি যেদিন আমার সব ইচ্ছা পূরন হবে, আমি মুক্ত পাখীর মতো এই বিশাল আকাশে হাওয়ায় উড়ে উড়ে মেঘ দেখবো, নীচের সবুজ গাছপালা দেখবো, সাগর দেখবো, পাহাড় দেখবো। কিন্তু ক্রমেই যতো একেকটা স্তর পার করে যখন আরেকটা স্তরে পা রাখি, ততোই সামনে চলে আসে কোনো না কোন দায়িত্ব, কোনো না কোনো নতুন আরেকটা চ্যালেঞ্জ। সেটাকে মোকাবেলা করতে করতেই জীবনের বেশ কয়েকটি স্তর, ধাপ পার হয়ে যায়। আমাদের কারোই সেই ‘একদিন’ সময়টা যেনো আর আসে না। আজ আমরা নিজের সংসারের জন্য বাচি, কাল আমরা স্বামী বা স্ত্রীর জন্য বাচি, তারপর হয়তো সন্তানের জন্য বাচি, আর এভাবেই সামাজিক, পারিবারিক ইত্যাদির দায়বদ্ধতা আর জীবনের তাগিদে আমরা ক্রমশই জীবন নামক নদীতে শুধু ক্লান্ত হয়ে ভাসতেই থাকি। আর ভাবী, নিশ্চয় ‘একদিন’ আমার সব চ্যালেঞ্জ, সব ক্লান্তি কিংবা সব ঝামেলা শেষ হবে, আর তারপর ‘একদিন’ আমার আর কোনো ঝামেলা, সমস্যা কিংবা আমার সুখের নিমিত্তে কোনো বাধা থাকবে না। সেই ‘একদিন’ নিশ্চয় আমি আমার মতো করে সারা দেশ ঘুরতে পারবো, পার্টিতে নাচতে পারবো, পাখীর মতো যেদিকে খুশী মনের আনন্দে উড়ে বেড়াতে পারবো। কিন্তু আমার সেই ‘একদিন” যেনো আর কখনোই আসে না। বারবার কোনো না কোনো বাধা এসেই দাঁড়ায়। আসলে এই ‘একদিন’ কখনোই আমাদের জীবনে আসে না। কিন্তু যদি জীবনের সবসুত্র, সব মায়াজাল, সব জটিল সমীকরন ছিন্ন করে প্রকৃতির সাথে চলমান ধারাবাহিকতায় সার্থপরের মতো দেখি, তাহলে এটাই চোখে পড়বে যে, আসলে, ‘একদিন’ হচ্ছে আজকের এইদিন, আজই। এই আজকের দিনটাই আসলে আমার সেই ‘একদিন’। আজকের দিনটার জন্যই আমি বাচি। আজকের দিনের পর হয়তো আমার জীবনে আরো একটিদিন নাও আসতে পারে। তাহলে সেই আগামীর একদিনের জন্য আমি কেনো আজকের দিনটাকে বিসর্জন দেই? হয়তো আরো ‘একদিন’ আর কখনোই আমার জীবনেই আসবে না। আমার কাছে শুধু ‘একদিন’ই বাকী-আর সেটা আজ। যদি আমার সারাটা ক্যালেন্ডারেকে একটা একটা করে দিন ভাগ করে সিডিউল বানাই, দেখা যাবে, আজকের দিনটাই আমার বাস্তবতা। আর এই আজকের দিনটাই সেই ‘একদিন’। আর বাকী দিনগুলি আমার হাতেও নাই, আর যেগুলি চলে গেছে তাদের আমি কখনো ফিরিয়েও আনতে পারবো না। যেটা আছে আমার কাছে, সেটা আজ- আর এটাই সেই ‘একদিন’। তাই আমি শুধু আজকের দিনটার জন্যই বাচতে চাই। হাসতে চাই, খেলতে চাই, আকাশটা দেখতে চাই, বৃষ্টিতে ভিজতে চাই, পৃথিবীর সব গাছপালা, সব পাহাড় পর্বত, নীল আকাশ, সবকিছু দেখে প্রানভরে বাচতে চাই। আমি শুধু আমার জন্যই আজ বাচতে চাই। কালটা থাকুক আর সবার জন্য।

কথাগুলি বলার সময় মুক্তার সাহেব কেমন অন্য মনষ্ক হয়ে গিয়েছিলেন। যে মুক্তার সাহেব তাঁর অফিসে এতো বড় একজন মানুষ, সবাই তাকে যেমন সমীহ করে, তেমনি তাকে সবাই খুব কঠিন মানুষও মনে করে। অথচ আমার সামনে যিনি বসে আছেন, তাকে দেখে একবারের জন্য ও মনে হয় না তিনি ভিতরে এতো কঠিন একজন মানুষ। মানুষ কত বিচিত্র। মুক্তার সাহেবের এই ‘একদিন’ এর ভাবনাটা কি আমারো নয়? আমিও কি ঠিক এটাই ভাবি না? আমিও তো ভাবি, একদিন আমি সব পাওয়ার শান্তিতে শুধু রেষ্ট করবো, ঘুরবো, বেড়াবো, আনন্দ করবো। কিন্তু আমিও তো সেই ‘একদিনের’ নাগাল পাইনা। আসলেই তো, তাহলে আমার সেই একদিনটা কবে? মুক্তার সাহেব ঠিকই বলেছে, হয়তো সেই দিনটা আজই। কিন্তু আমি কি পারি ‘আজ’ ঠিক এই মুহুর্তে সব কিছু ছেড়েছূড়ে কোথাও একা চলে যাই? কিংবা সব কিছু ছেড়ে বেড়িয়ে যাই যতোদিন খুশি ততোদিনের জন্য? অভিনব অতৃপ্তির জীবনে এই ‘একদিন’ একটা মরিচিকা ছাড়া আর হয়তো কিছুই না। জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত হয়তো আমরা এই ‘একদিন’ এর জন্যই বাচি কিন্তু সেই ‘একদিন’ কারো জীবনেই আসে না।

-যাই হোক, একটু ইমোশনাল কথা বলে ফেললাম। কিছু মনে করবেন না। যেটা বলছিলাম, আসমানীর কথা।

-আমি আসমানীকে পেতে সবাইকেই ছেড়েছিলাম। আমি যে আমার পরিবারের সবাইকেই ছেড়েছিলাম তারা হয়তো কোনোদিন জানতেও পারে নাই কবে থেকে আমি তাদের মন থেকেই ছেড়ে পর করে দিয়েছি। এই ছেড়ে দেয়া আর পর করে দেয়াটা এমন ছিলো যে, না কারো সাথে আমার খারাপ সম্পর্ক, না কারো সাথে আমার ভালো সম্পর্ক। কিন্তু সম্পর্কটা আছে। সম্পর্কটার চরিত্র এমন ছিলো যে, না আমি তাদের জন্য দায়িত্তশিল, না ওরা আমার জন্য। শুধুমাত্র আমার মা ছিলেন এই নির্বিকার সম্পর্কের বাইরে যিনি প্রকাশ্যেও আমাকে সাপোর্ট করেছিলেন এবং অপ্রকাশ্যেও। আসমানীর সাথে আমার সম্পর্ক স্থায়ী হবার পরে আমার একটাই লক্ষ্য ছিল, নিজেদেরকে সফল্ভাবে প্রতিষ্ঠিত করা। আর এই প্রতিষ্ঠার একটা বইশিষ্ঠ ছিলো। সেটা হলো যে, যদি কোনো কারনে আমার সব হোমওয়ার্ক শেষ না হয় এবং তারপুর্বেই আমার মৃত্যুবরন হয়, তাহলে সবচেয়ে কঠিন পরিস্থিতিতে পড়বে আমার এই আসমানী। তাই যেভাবেই হোক, আমার বর্তমানকে কাজে লাগিয়ে আমার প্রথম দায়িত্ত হবে আসমানীকে সাবলম্বি করে তোলা। আমার পক্ষ থেকে যা যা করা দরকার সেটা আমার শক্তির পুরুটা দিয়ে এবং আসমানীর নিজের দক্ষতায় আমি সে চেষ্টায় ব্রত হয়েছিলাম। ওই যে আবারো সেই ‘একদিন’। ‘একদিন’ সব ঠিক হয়ে যাবের মতো।

-আসমানী আমার একটা প্রোজেক্ট। আমি আসমানীকে ঠিক সেভাবেই তিলে তিলে গড়ে তুলছিলাম। কিন্তু আমার একার আর্থিক সচ্চলতার উচ্চতা এমন ছিলো না যে, অচিরেই পাহাড়ের মতো একটা সাবলম্বি পরিস্থিতি তৈরী করে ফেলি। দিন যায়, মাস যায়, বছর যায়, আমি আসমানিকে তার নিজের যোগ্যতায় গড়ে তুলতে সক্ষম হই আর সেই সক্ষমতায় আসমানিও একটা সরকারী চাকুরীর সুবাদে প্ল্যাটফর্ম পেয়ে যায়। আসমানীর এই প্লাটফর্মে আরো একটা বিড়ম্বনার সৃষ্টি হয়েছিলো আমার অন্যান্য আত্তীয়সজনের সাথে। যদিও আমার পরিবারের কারো সাথেই আমার তেমন সম্পর্ক টেকসই ছিলো না, তারপরেও আসমানীর চাকুরীটাকে অনেকেই সহজ করে মেনে নিতে পারে নাই। সবসময় তাদের অভিযোগ ছিলো, কেনো আমি আসমানীকে মহিলা হয়েও চাকুরী করার অনুমতি দিলাম, বিশেষ করে এই ইগোতে যে, স্ত্রীর রোজগারের উপর আমার ভরষা, স্ত্রীরা ঘরের বাইরে গেলে তাঁর চরিত্রস্খলনের সম্ভাবনা ইত্যাদি ইত্যাদি। আসমানীর উপর আমার শতভাগ আস্থা ছিলো। আজকালকার ছেলেমেয়েদের লাইফ ষ্টাইলের মতো আসমানীর লাইফ ষ্টাইল ছিলো না। আজকাল ছেলেমেয়েরা ওদের জীবনটাকে টাইম পাস মনে করে আর টাইম পাসকে জীবন মনে করে। কাল পর্যন্ত যে গার্লফ্রেন্ড ছিলো আজ সে বোন, আর আজ যে বোন সে কাল হয়ে যায় গার্লফ্রেন্ড। চোখের পলকে প্রেম হয়ে যায়, আবার চোখের পলকে প্রেম ভেঙ্গেও যায়। আসমানির চরিত্র কখনোই এমন ছিলো না। আর আসমানীর উপর আমার সেই আস্থা একদিনে গড়ে উঠে নাই। তার মানসিকতা, তার ভালোবাসার গভীরতা আমাকে কখনো এটা সন্দেহ করার অবকাশ দেয় নাই যে, আসমানী কোনো না কোনো অবস্থায় তার নিজ গন্তব্য আর ভালোবাসা থেকে ছিটকে পড়বে। আর সে ছিটকে পড়েও নাই কখনো। বরং ছিটকে পড়েছিলাম আমি।

-খুব ভালোভাবেই চলছিলো আমাদের। আমাদের সন্তান হলো, সংসারে খরচ বাড়লো বটে কিন্তু দুজনের মিলিত চেষ্টায় আমাদের অন্তত প্রাত্যাহিক জীবন ধারনের নিমিত্তে কোনো দুশ্চিন্তা করতে হচ্ছিলো না। আমরা ধীরে ধীরে আর্থিকভাবে সচ্ছল হতে শুরু করলাম। ওইযে বললাম, আমার মাথা থেকে কখনো এটা সরে যায় নাই যে, আমার অবর্তমানে আমার নিজস্ব পরিবার যেনো থাকে সুরক্ষিত এবং সাবলম্বি। সেই লক্ষ্যটা আমার কোনোদিন বিচ্যুত হয় নাই। আগে শুধু আসমানীকে নিয়ে ভাবনা ছিলো, এখন তাঁর সাথে যোগ হলো আমার সন্তানেরা। তাই তাদের স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য বাড়ি, নিরাপদে চলার জন্য গাড়ি, কিছু স্থায়ী আর্থিক উৎস যা যা লাগে আমি সেটার ব্যবস্থা করছিলাম। সময়ের সাথে সাথে সেটা আসলেই একটা স্থায়ী রুপও নিয়েছিলো। আর এই লম্বা সময়টার দৈর্ঘ ছিলো প্রায় ২৫ বছর। এই ২৫ বছরে আমি চড়াও উতড়াই পার হয়েই এখানে এসেছি। কেউ আমাকে সাহাজ্য করে নাই। না আমি কারো সাহাজ্যের জন্য পথ চেয়েছিলাম। এখন আমার আসমানি জানে সে সাবলম্বি, আমিও জানি আমার আসমানি সাবলম্বি। সে নিজে নিজে চলতে পারবে। তার একটা স্থায়ী আর্থিক উৎস আছে। এই বিশাল অবস্থানটা করতে আমাকে আমার জীবনের বহু মুল্যবান সময় পার করতে হয়েছে বটে কিন্তু এরই মধ্যে আমি আমার যৌবন পেরিয়ে মধ্য বয়স্ক পুরুহীতে পরিনিত হয়ে গেছি। আমি অনেক খুসী।

কিন্তু তারপর…।

এই পর্যায়ে এসে মুক্তার সাহেব একটা বেনসন এন্ড হেজেস সিগারেট ধরালেন। জবানবন্দি নেবার সময় আমরা মুক্তার সাহেবকে সর্বপ্রকার সুযোগ দিয়েছিলাম যাতে তিনি সাবলীল্ভাবে তাঁর মনের কথা বলতে পারেন। তিনি এককাপ কফি চাইলেন, এবং কফির কাপে চুমু দিলেন। তারপর আমাকে তিনি প্রশ্ন করলেন- বলুন তো, একটা মানুষের জীবন সুখী হয় কি কি জিনিষ থাকলে?

আমি বললাম, টাকা থাকলে, সম্পদ থাকলে, সমাজে একটা ভালো পজিসন ইত্যাদি থাকলে আর যদি শরীর সুস্থ থাকে, তাহলে তো সে সুখী মানুষ বলেই গন্য হয়।

মুক্তার সাহেব একটু মুচকী হাসলেন। তারপর বললেন,

-তাহলে কি আপনি বলতে চাচ্ছেন, রাস্তায় যে সব মানুষ ভিক্ষা করে, তারা কেউ সুখী নয়? কিংবা যাদের এক ফোটা সম্পদ নাই, তারা কি সুখী নয়? অথবা সমাজে যারা অনেক বড় বড় পজিশন নিয়ে বাস করেনা, তারা কি সুখী নয়? অথবা যদি বলি, বিছানায় অবশ হয়ে পড়ে থাকা সব মানুষই কি দুখী? তারা কি কোনো না কোনো স্তরে সুখী না? যদি এমন হতো যে, টাকা আছে, পয়সা আছে, অঢেল সম্পদ আছে, সমাজে মানসম্মান প্রতিপত্তি আছে আবার শারীরকভাবে সুস্থও আছে, তারা তাহলে কিসের নেশায় নিজের ঘরে থাকা সুন্দুরী স্ত্রীকে রেখে পুনরায় পরকীয়ায় মেতে উঠেন? সবাই কি পারভার্ট? নাকি যৌনতাই প্রধান? অথবা যদি বলি যে, ৯০ বছরের এক বৃদ্ধ যখন তার অঢেল টাকা পয়সা ব্যাংক ব্যালেন্স থাকার পরেও নিজের ৮৫ বছরের স্ত্রীর বিয়োগে আরেকটা বিয়ে করতে মানিসকভাবে প্রস্তুতি নেন, যখন তার যৌনতায়ও কোনো ক্ষমতা নাই, সে তাহলে এটা কিসের নেশায় করে? আমি অবিশ্বাস করছি না যে, সবক্ষেত্রেই আমার এই প্রশ্ন সঠিক বা সঠিক নয়, তবে এর অন্তরনিহিত গুর রহস্য খুজতে গেলে দেখা যাবে, এসবের কোনটাই এর উত্তর  নয়। উত্তর লুকিয়ে আছে শুধুমাত্র না দেখা একটা অনুভুতিতে। আর সেটা হচ্ছে- একাকীত্ত বা নন একোম্প্যানিয়ন।

আমি কিছু বলতে চেয়েছিলাম, কিন্তু মুক্তার সাহেব তার হাতের ইশারায় আমাকে থামিয়ে দিয়ে আবার বলতে লাগলেন-

-হ্যা, হয়তো আপনি আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন, এই একাকীত্ত কি বা এই নন-একোম্প্যানিয়ন এর মর্মার্থ কি। এটা বুঝবার জন্য আপানাকে কিছু সুক্ষ জিনিষের ভিতরে ঢোকতে হবে। আর সেটা হচ্ছে-অনুভুতি, আবেগ, তার সাথে মানবিক চাহিদা। মানবিক চাহিদার সাথে শারীরিক চাহিদার একটা যোগসুত্র থাকতে পারে যা আমি পরে বল্বো। এর পরিপ্রেক্ষিতে আমি আপনাকে ছোট একটা উদাহরন দেই। কখনো কি উপলব্ধি করেছেন যে, A person can be lonely in a crowdy city? অথবা কখনো কি ভেবেছেন যে, an one-month infant baby who has no idea about the world or even does not know how to talk, does understand our any language, can be a good accompanist as well!! অর্থাৎ একটা কোলাহলপুর্ন জনসমুদ্রের মধ্যেও কেউ একা। আশেপাশে হাজার হাজার লোক ঘুরছে, ফিরছে, খাচ্ছে, তামাশা করছে, আনন্দ করছে অথচ কোনো একজন এই ভীড়ের মধ্যেও একা। আবার অন্যদিকে দেখবেন, অনেক আপন লোকজন আপনার আশেপাশে আছে, কথা শুনার মতো লোকজনও আছে, কিন্তু তাদের থেকে আপনার কাছে মনে হবে একটা অবুঝ বাচ্চা যে কথাই বলতে শিখে নাই, যে আপনার কথার আগামাথা কিছুই বুঝে না, তারসাথেও আপনি ঘন্টার পর ঘন্টা কাটিয়ে দিতে পারছেন। আপনি তাঁর কাছে একা নন। সে যেনো আপনার একাকীত্তের একজন ভালো সাথী। তার সাথে আপনি বিজ্ঞান নিয়ে আলাপ করতে পারেন, মহাকাশ নিয়া আলাপ করতে পারেন। হয়তো সে এসবের কিছুই বুঝে না। আপনি একাই তাঁর সাথে অনর্গল কথা বলে সময় অতিবাহিত করতে পারবেন। সে হয়তো কখনো কোনো কারন ছাড়াই কেদে দেবে, কখনো সে চার হাত পা নেড়ে নেড়ে কি জানি ভাব প্রকাশ করবে যার সাথে আপনার বিষয়বস্তুর কোনো মিল নাই, অথচ আপনি খুব ভালো সময় কাটাচ্ছেন। এই নবজাতক এক মাসের বাচ্চাটাও আপনার খুব ভালো সংগি হয়তো। এই অনুভুতি কি বুঝেন? আর এখানেই মানুষের সুখ এবং সাথীর সাথে আপনার চিরবন্ধন। এই বন্ধন থেকে আপনি কখনোই টাকার বিনিময়ে, সম্পদের বিনিময়ে, কিংবা আপনার সামাজিক উচ্চতার মাপকাঠিতে মুক্ত হতে পারবেন না। যতো বিপদই আসুক, যতো খারাপ সময়ই আসুক, এই বন্ধন থেকে মুক্ত হওয়া যায় না।   

মুক্তার সাহেবের এই যুক্তি বুঝতে আমার বেশ অনেক সময় লেগেছিলো। হয়তো আমি আমার ছোট এই মস্তিষ্কে ব্যাপারটা তখনো ধারন করে উঠতে পারি নাই। কিন্তু যখন তিনি তার কাহিনিটার প্রায় শেষে, তখন আমার একটা কথাই মনে হয়েছিলো যে, যখন কোনো মানুষের দুঃখ থাকে, কষ্ট থাকে, অথবা থাকে ভিতরের কিছু কথা যা বলার জন্য মন ছটফট করে, তাহলে সে সবসময়ই চাইবে যে, সে অন্য কারো সাথে তার এই দুঃখটা, কষ্টটা, কিংবা অনুভুতিটা শেয়ার করতে। কেউ তো থাকবে যে, ওর কথা শুনবে। বুঝুক বা না বুঝুক সেটা আলাদা ব্যাপার, কষ্ট লাগব করুক বা না করুক সেটাও আলাদা ব্যাপার। কিন্তু কারো সাথে তো তার এই ব্যাপারগুলি শেয়ার করা দরকার। যখন এই লোকগুলি আর কাছে বসে তাকে আর সময় না দেয়, কিংবা যদি এমন হয় যে, তার এই ব্যাপারগুলি সে কারো কাছে আর শেয়ার করতে পারলো না, তখনই সে অনুভব করে, সে একা। আর এই একাকিত্ত মানুষটাকে ‘সময়’ নামক দানব বা বাহক ধীরে ধীরে সবার থেকে আলাদা করে এমন এক জায়গায় নিয়ে যায়, যেখানে সে খোজে কে আছে তার এই আবেগগুলি শোনার? আর যে শুনবে, তারই জিত, আর যারা শুনবে না, তারাই আস্তে আস্তে হারিয়ে যায় এই মানুষটার গন্ডি থেকে। সে যেই হোক, হোক তার স্ত্রী, হোক তার প্রানের সন্তান অথবা প্রিয় বন্ধুবান্ধব। অন্যদিকে, আরেকদল, যারা এই সুযোগ লুফে নেয়, সে যতোই অশিক্ষিত হোক বা অসুন্দর, কিংবা তুলনামুলকভাবে নিম্নধাপের, তাতেও কিছুই যায় আসে না, তারাই হয়ে উঠে তার মনের মানুষ, কাছের মানুষ। আর তাই বারবার তার এই একাকিত্তে ভোগা মন ছুটে যায় তাদের কাছে যারা তাকে সময় দেয়, দেয় একটা কম্প্যানিয়ন। আর সেই কম্পেনিয়নের মানুষদের মধ্যে যদি জেন্ডারের পার্থক্য থাকে, তখনই সেটাকে আমরা তৃতীয় নয়নে বলি ‘পরকীয়া’।

আমি মুক্তার সাহেবকে প্রশ্ন করলাম, তাহলে কি এমন একাকিত্তে আপনি ভোগছিলেন যেখানে শেষ অবধি মনে হলো যে, এই ৩৩ বছর একসাথে থেকেও আপনি আসমানীর থেকে একা? অথবা কি এমন কারন ছিলো যা আপনাকে সবার থেকে ধীরে ধীরে সরিয়ে নিয়েছে এই সাজানো সংসার, পাতানো সুখী জীবন থেকে?

মুক্তার সাহেব আবারো মুচকী হেসে বললেন,

-কই নাতো? আমি তো এই সাজানো সংসার বা পাতানো জীবন থেকে সরে যাইনি। ওই যে আপনাকে আগেই বলেছিলাম যে, বলীর সব পাঠা সবসময় বিষাক্ত হয় না। আর যদি হয়ও, আর যদি পাঠাটাকে বলী দিতে গেলে অনেক বিপদের সম্ভাবনা থাকে, কিংবা অনেক ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে, তাহলে সেই পাঠা বিষাক্ত হলেও তাকে কোনো না কোনোভাবে পুনরায় শুদ্ধ করে ঝলমলে পরিপাটি খাবারের টেবিলেই পরিবেশন করা হয়। আমিও ঠিক সেরকম ঝলমলে টেবিলেই এখনো আছি। তবে এই ‘আছি’র মধ্যে অনেক অংশ জুড়ে আছে  আসলেই ‘নাই’ আর অনেক অংশ জুড়ে আছে কিছু দায়িত্তবোধ। আমি ‘আছি’ আর আমি ‘দায়িত্তে আছি’ এই দুয়ের মধ্যে বিস্তর ফারাক। জেলখানায় বন্দি কয়েদির পাশে জেলখানায় বন্দি নয় এমন কোন এক মানুষ যখন বলে, ‘আমি আছি’ তোমার পাশে, এর মানে কি, সেটা তো আপনি নিশ্চয় বুঝেন। এর মানে, কখন তার কি করলে এই জেলখানা থেকে কয়েদির মুক্তি মিলবে তার একটা প্রতিশ্রুতি, অথবা অসুস্থ হলে দূরপাল্লা পথ অতিক্রম করে সে তখন চোখে জলভরা চাহনীতে আপনাকে দেখতে আসবে তার একটা নিশ্চয়তা, আপনার কষ্টে সে ব্যাথিত হবে, আপনাকে সে প্রতিনিয়ত মিস করবে ইত্যাদি। অথবা জেলখানায় বন্দি থাকা অবস্থায় সে আপনার একাকিত্তকে মিস করবে ইত্যাদি। কিন্তু সেই প্রহরী যে কয়েদির দায়িত্তে আছে, সেও কিন্তু কয়েদির পাশেই থাকে। কিন্তু তাঁর ভুমিকা নিশ্চয় এক নয়। কয়েদির দায়িত্তে থাকা প্রহরীর কাজ যেনো কোনোভাবেই এই বন্দিদশা থেকে কয়েদি পালাতে না পারেন, এটাই তার প্রথম দায়িত্ত।  কাছে থাকা আর দায়িত্তে থাকা কখনোই এক নয়। আমার কাজ যেনো সেই দায়িত্ত যাতে আমার এই সাজানো সংসার ভেংগে না যায়, আমার দায়িত্ত সেটা যাতে আমার অন্তত এই জীবদ্দশায় আমার আসমানীর জীবনে কোনো কষ্ট না আসে, আমার সন্তানের কোনো বিপর্জয় না আসে।

মুক্তার সাহেব আমার দ্বিতীয় প্রশ্নের উত্তরটা আগে দিলেন। তারপর তিনি শুরু করলেন আমার প্রথম প্রশ্নের উত্তর। আমি তার প্রতিটি কথা, প্রতিটি বাক্য এতো তন্ময় হয়ে শুনছিলাম যে, মনে হচ্ছিলো আমি কোনো ফিলোসোফির ক্লাশে উচ্চমানের কোনো তত্তকথা শুনছি। বারবার মনে হচ্ছিলো, মুক্তার সাহেব জীবনকে যেভাবে দেখেন, আমরা হয়তো এর বাইরের প্রাঙ্গণ থেকে দেখি। আমরা যখন অন্দর মহলের আগরবাতির গন্ধটা আনন্দ করি, তখন মুক্তার সাহেব এই আগরের গন্ধের সাথে সাথে আগরের জ্বলে পড়ে ছাই হবার কষ্টটাও দেখেন। আমরা সাধারনভবে যাকে প্রকৃতি বা ন্যাচার বলি, মুক্তার সাহেব এটাকে শুধু ন্যাচার বলে ঘটনাপ্রবাহ এড়িয়ে যান না। তিনি এর অন্তরনিহিত কারনগুলি খোজেন। আর সেই কারনের মধ্যেই যেনো আসল রুপ আর ঘটনা ঘটার সবগুলি উপাদান খুজে পান। মুক্তার সাহেব এবার বলতে শুরু করলেন-

-জীবন একটাই। আজ থেকে শতবর্ষ আগে সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মমতাজের জন্য যখন তাজমহল তৈরী করেন, তার ওই তাজমহল কতটা ভালোবাসা প্রকাশ করেছে সেটা জানার চেয়ে আমরা কি কখনো এভাবে ভেবে দেখেছি যে, সম্রাট কতোটা কষ্ট থেকে এই তাজমহল বানিয়েছেন? তাজমহলের ইমারতে কি সেই কষ্ট আমরা দেখতে পাই? আমরা যা দেখি, তা হচ্ছে শাহজাহানের ভালোবাসার নিদর্সন। যা দেখতে পাই, তা হচ্ছে মুল্যবান রত্নে খচিত একটা দামী প্যালেস। কিন্তু আমি যদি বলি এটা সম্রাট শাহজাহানের ভালোবাসার মৃত্যুর নিদর্সন? তাহলে কি ভুল হবে? যদি বলি এটা ভালোবাসার কষ্ট থেকে নির্বাসিত একাকি এক রাজার মনের কষ্টের আকুতি বা অনুভুতি? তাহলে কি ভুল কিছু বলা হবে? হয়তো দুটুই ঠিক। এখন আমার অনেকগুলি প্রশ্ন জাগে, সম্রাট শাহজাহানের ২য় স্ত্রী ছিলেন এই আরজুমান্দ বানু বেগম ওরফে মমতাজ। তার প্রথম স্ত্রী ছিলেন কান্দাহারী বেগম। রানী মমতাজ ছাড়াও সম্রাটের জীবনে আরো আটজন রানী এসেছিলো। তাহলে সম্রাট শাহজাহান শুধুমাত্র মমতাজের জন্যই এতোবড় একটা বিশ্বনন্দিত মহল তৈরী করলেন কেনো? আর কারো জন্যে নয় কেনো? এর অন্তর্নিহিত অনুভুতি হয়তো শুধু জানেন শাহজাহান নিজে। আমার মাঝে মাঝে এইরকম প্রশ্নও জাগে যে, এতো বড় বড় নাম যাদের, তারা কেনো একটিমাত্র নারীকে নিয়ে জীবনে সুখী হতে পারলেন না? শারীরিক চাহিদার কথা যদি বলি, তাহলে এক নারী কি দেয় না যা অন্য নারী দেয়? এর মানে হয়তো শারীরিক চাহিদাই সেখানে মুখ্য নয়। তাদের তো কোনো টাকা পয়সা, ধনদৌলত মান-ইজ্জত, প্রতিপত্তি, ক্ষমতার দাপট কোনো কমতি ছিলো না? তাহলে আবারো আমার ওই যে সেই আগের কথা ফিরে আসে। তারমানে, শুধু টাকা পয়সা, ধনদৌলত মান-ইজ্জর সম্মান প্রতিপত্তিই সুখী বা খুসী জীবনের একমাত্র ভিত্তিপ্রস্তর নয়। এর বাইরেও কিছু আছে যা যুগে যুগে কারো কারো ক্ষেত্রে প্রমানিত হয়েছে আর বেশীরভাগ মানুষের জীবনে তা প্রমানিত হয়ই নাই।

-আরেকটা ছোট তত্ত আমাদের সবার জানা থাকা দরকার যে, মানুষ তার নিজের প্রয়োজনে অনেক কিছুই মেনে যায়। আর সেই মেনে যাওয়া আর মেনে নেয়ার মধ্যেও একটা ফিলোসোফি থাকে। মানুষ একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কোনো কিছুর আশায় হয়তোবা অনেক কিছুই নিজের মনের ইচ্ছার বিরুদ্ধে মানিয়ে নেয়। কিন্তু যখন মানুষ সেই আশার সফলতা পেয়ে যায়, যখন সে নিরাপদ দুরুত্তে পৌঁছে যায়, তারমধ্যে তখন ‘আমিত্ত’ কাজ করে। তারমধ্যে তখন বৈতরনি পার হয়ে নিরাপদ জোনে চলে আসায় সে তখন  অনেক কিছুই আর আগের মতো অনুগত নাও থাকতে পারে। তখন ‘মেনে যাওয়া’ বা ‘মেনে নেয়ার’ বাধ্যবাধকতায় সে আর আটকে থাকে না। হয়তো ঠিক এই ব্যাপারটাই ঘটেছে আমার আসমানির মধ্যে। আমি বলছি না যে, সে সীমা অতিক্রান্ত করে আমাকে হেয় করছে অথবা সে আর আগের মতো নাই এমন না। কিন্তু একটা ব্যাপার তো সবার জীবনেই আসে, যার নাম ‘শ্লথ’। এই শ্লথ থেকে শুরু হয় নিয়মের মধ্যে নিয়ম ভাংগার সুক্ষ কিছু কর্ম। অর্থাৎ সময়ের সাথে পিছিয়ে যাওয়া, ডিমান্ডের সাথে ক্যাপাসিটির সমন্নয় না হওয়া। আমরা অনেকেই এটাকে বুঝি না। তখন যে কোনো পক্ষের কাছে এটা মনে হয়, মানুষটা যেনো আর আগের মতো নাই। ‘এই আগের মতো নাই’ ব্যাপারটাকে আমরা অনেকেই ভেবে থাকি তাচ্ছিলোতা। আর এটা যে আসমানীর মধ্যে ছিলো না সেটা ফেলে দেবার মতো নয়। আপনি আবার এটা ভাববেন না যে, আমি আসমানীর বিপক্ষে অভিযোগ তুলছি। না, এটা কখনোই হবে না। আসমানীও একজন মানুষ। তাঁর নিজের একটা জীবন আছে, সকীয়তা আছে, সে দাস নয়। আমি তাকে ক্রয় করে আনি নাই। তাহলে আমি আসলে কি বলতে চাচ্ছি? 

-কোনো একদা যে আসমানীকে আমি যাই উপদেশ দিয়েছি, বিনা বাক্যে, বিনা দ্বিধায় সে সেটা বেদবাক্য মনে করে অন্ধবিশ্বাসে গভীর শ্রদ্ধার সাথে পালন করেছে। কখনো কখনো আমি আসমানীকে নিয়ে ভরদুপুরে একই বিছানায় শুয়ে কার্টুন ছবি দেখেও খিলখিল করে হেসেছি। অনেক পয়সা ছিলো না, তারপরেও পাশের কোনো এক অখ্যাত রেষ্টুরেন্টে গিয়ে ভর্তা দিয়ে ভাত খেয়েও তৃপ্তি পেয়েছি। গাড়ি ছিলো না, রিক্সায় ঘুরে বেড়িয়েছি ঘন্টার পর ঘন্টা। রবীন্দ্রনাথের ‘শেষের কবিতা’ পড়তে পড়তে কখন আমি অপূর্ব আর আসমানী লাবন্য হয়ে যেতো বুঝতেই পারতাম না। কিন্তু আজ হাতে প্রচুর পয়সা আছে, গাড়ি আছে, কিন্তু আমি সেই আসমানীকে খুজে পাই না। হয়তো আসমানীও সেই মুক্তার সাহেবকে খুজে পান না। এর মানে এইটা নয় যে, সে আমার কথা শুনে না বা শুনতে চায় না। কিন্তু তারমধ্যে অনেক পরিবর্তন এসেছে। যখন আমাদের অনেক কিছু ছিল না, তখন একটা রিক্সায় করে মাইলকে মাইল ঘুরেও আমাদের আনন্দ হয়েছে যা এখন এসি গাড়িতেও পাওয়া যায় না। একটা সময় ছিল যখন আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা কি করলে কি হবে, কি করলে আরো ভাল হবে, সেটা নিয়ে কোনো তর্কবিহীন আলাপ আলোচনা শলাপরামর্শ হয়েছে। আজ যেটা করা তো দুরের কথা, আলোচনা করার জন্য পরিবেশও নাই। আমি বলতে চাইলেও তার হয়তো সময় নাই শোনার। এরমানে এই নয় যে, সে আমাকে অগ্রাহ্য করছে। আমি বলতে চাচ্ছি, এটা নিয়ে আর কোনো শলাপরামর্শ হয়না। একটা সময় ছিলো যখন, আমার প্রিয় খাবারগুলিই শুধু টেবিলে শোভা পেতো, যা এখন আমাকে বলেই দিতে হয় হয়ত এটা নয় ওটা খাইলেই মনে হয় ভালো লাগতো। কখনো কখনো ইচ্ছে না থাকলেও তাদের পছন্দের খাবারের তালিকাটাই এখন আমার খাবারের তালিকা করে নিতে হয়। এরমানে এই নয় যে, আমি বললে সেটা তৈরী করা হবে না। কিন্তু আগে এটা বলতে হয় নাই। পরিবর্তন সবখানেই আসে, আমাদের সম্পর্কের মধ্যেও এসছে। আর এটার জন্য অভিযোগ করা বোকামী। সমৃদ্ধ জীবনের চেয়ে অভাবী জীবনে অনেক বেশী প্রেম আর ভালোবাসা থাকে। যদিও সেখানে ঝগড়াও থাকে, তবে সেই ঝগড়াটাও একটা ভালোবাসার অন্য রকমের বহির্প্রকাশ।

শীতের  প্রথম সকাল যেমন ঝির ঝির বাতাসে কেমন একটা কটু অনুভুতি থাকে তেমনি একটা মিষ্টি অনুভুতিও অনুভুত হয়। পাশে পুষ্করিনীতীরের পাড়ে দম নেয়া একটা কোলা ব্যাং যেনো তাঁর সমস্ত ধ্যান ধারনাকে একদিকে পাশ কাটিয়ে সেই আগত শীতের রোদের আস্বাদ নিয়ে চোখ বুঝে থাকে, ঠিক তেমন আমিও যেনো মুক্তার সাহেবের তাঁর অনাগত কাহিনীর মর্মটা আস্বাদন করার নিমিত্তে অনেকটা দম নিয়েই বসেছিলাম। মুক্তার সাহেব তাঁর কথা বলতে থাকেন-

-জীবনে এমন একটা সময় আসে যখন আপনি জানেন আপনাকে নিয়ে কেউ আর হৈচৈ করেনা, আগের মতো সর্বত্র আপনার সেই ভূমিকার প্রয়োজন নাই কিংবা আমি যদি চানও সেখানে আপনার উপস্থিতি বা বক্তব্য আর আগের মতো তেমন জায়গা করে নেয় না তখন আপনার এটা মানতে অবশ্যই কষ্ট হয় যে, আপনার প্রয়োজন হয়তো তাদের কাছে ফুরিয়ে গেছে। আপনি যেনো আছেন শুধুমাত্র কারো কারো বিশেষ প্রয়োজন মিটানোর জন্য। আপনার কখন একটু ছাদে হাওয়া খেতে ভাল লাগবে, সেই হাওয়া খাওয়ার সময় আগে তো একজন আসমানীর সংগ পাওয়া যেতো কিন্তু এখন তার জগত অনেক বিশাল। এখানে আপনিই একমাত্র মানুষ নন যাকে ঘিরে তার দিনের সিংহভাগ সময় আরাধনায় কাটবে। এর মানে আবার এই নয় যে, আসমানি অন্য কাউকে মন দিয়ে বসে আছে। আগে আপনার অনুপস্থিতি হয়তো তাকে একা করে দিতো বটে কিন্তু এখন সেটা সেরকম নয়। কেনো যেনো মনে হয় কি যেনো মিসিং। এখন সম্পর্কটা যেনো একটা ডকুমেন্টের মধ্যে নেমে গেছে। মানসিক টর্চারের মতো মনে হয় কিছু কিছু সময়। অল্পতেই যেনো সব কিছু ঘোলাটে হয়ে যায়। সবাই যেনো কেনো অনেক অস্থির। কাউকেই যেনো কেউ সহ্য করতে পারছে না। সবার মতামত ভিন্ন, সবাই ঠিক, আপনি একাই ঠিক আর সবাই ঠিক নয় এটা আর এমন না। আর এর ফলে আমার কাছে এটাই মনে হয়েছে যে, দূর্বল সময়টা ওরা সবাই পেরিয়ে গেছে বলেই হয়তো এখন আর আগের মতো সব কিছুতেই বাধ্যবাধকতা থাকতে হবে এমনটা না। ব্যাপারটা জানি কেমন, সব না মানলেও তো সমস্যা তেমন নাই। উত্তর আর প্রতি-উত্তরের জামানা মনে হয় এখন, যেটা আগে ছিলো না। কম্প্রোমাইজ আর সাইলেন্ট থাকাই যেনো এখন সময়। কিন্তু এটা তো আমি চাইনি? আর এখান থেকেই সম্ভবত শুরু হয়, ‘অনীহা’ নামক একটা অনুভুতি।

-একটা জিনিষ সবসময় কারো মনে রাখা উচিত যে, ভালোবাসার যেমন একটা শক্তি আছে, অনিহারও একটা বিপদ আছে। অনিহার অতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ইমোশন যখন ধীরে ধীরে বুদবুদের মতো অন্তরে জমা হতে থাকে, একসময় সেটা সারা অন্তর জুড়েই এমনভাবে বিচরন করে যেনো ভালোবাসার বুদবুদের আর কোনো স্থানই থাকে না। অথচ আপনি জানেন, আগের সে ভালোবাসার বুদবুদগুলি তখনো মরে যায় নাই, বেচেই আছে কিন্তু কোনঠাসা হয়ে। তখন এই কোনঠাসা ভালোবাসার অতৃপ্ত বুদবুদগুলি জলবিহিন মাছের মতো অতি অল্প পরিসরে ছটফট করতে করতে একসময় কোনো এক দূর্বল ছিদ্র দিয়ে মনের অজান্তেই বেরিয়ে আসে। যখন এই ভালোবাসার বুদবুদগুলি একসাথে ঝাকেঝাকে বেরিয়ে আসে, তখন সেটা খুজতে থাকে কিছু নিরাপদ আশ্রয়। তাঁর তো কোথাও একটা জায়গা দরকার। আর সেই নিরাপদ আশ্রয় হয়ে দাড়ায় সাবিত্রীর মতো কিছু অসহায় মানুষ যারা একে স্থান দেয় সেই পূর্বেকার আসমানীদের মতো যখন আসমানীরা একসময় দূর্বল ছিলো, সাবলম্বি ছিলো না। সেই স্থানটা তখন দখল করে নেয় সাবিত্রীরা। তখনই ঘটে এক বিপ্লব। যে বিপ্লবের নাম, ওই যে বললাম, ‘আমি আছি’ আর  আমি দায়িত্তে আছি’র মতো বিপ্লবে। কেউ কেউ এসব সাবিত্রীদেরকে ডাকে-নোংরা মেয়ে মানুষ, আর যারা এই নোংরা মেয়ে মানুষদের সাথে সময় কাটায় তাকেই আমাদের সমাজ বলে ‘পরকীয়া’।

-এবার, আপনিই বলেন, এই অতৃপ্ত আত্তা, এই শুষ্ক হৃদয় কখন কোথায় ভিজে আবার উজ্জিবিত হয় সেটার নির্ধারন করে কে তাহলে? এটা হয়তো আসমানিদের দোষ নয়, না মুক্তার সাহেবদেরও। এটা সময়ের একটা চক্র যখন কোনো মরুভুমি আচমকা কোনো অঝর ধারায় বৃষ্টির  জলে সবুজ ঘাসের মাঠে রুপান্তিত হয়। তপ্ত বালিকনায়ও তখন সবুজ ঘাসের জন্ম হয়। প্রকৃতি মনে হয় এরকমই। সাবিত্রীরা আসলে দূর সমুদ্রের মধ্যে একটা দ্বীপ। আর সেই দ্বীপের চারিধারে যেমন নোনাজল থাকে, থাকে তাঁর সাথে সবুজ গাছরাজীরাও। শাখায় শাখায় পাখীরা কিচির মিচির করে, সন্ধ্যে বেলায় সব শান্ত হয়ে যে যার মতো ঘরে আসে। আমার মতো মুক্তার সাহেবেরাও সেই সাবিত্রীর কাছে এসে নির্ঝুপ শান্ত একরাতে চোখের অবশিষ্ট জল ফেলে হয়তো নিদ্রায় নিপতিত হয়। সুখ থাকে কিনা সেটা হয়তো মুখ্য ব্যাপার নয়, কিন্তু নিজকে আবিষ্কার করা যায়, আসলে আমরা কারা, আর কিসের নেশায় আমাদের ছুটে চলা।

মুক্তার সাহেব তাঁর চশমাটা খুলে একটু মুছে নিলেন, হয়তোবা তাঁর চোখের কোনে কিছু একটা ঝাপসা মনে হয়েছে। মুক্তার সাহেব অনেক শক্ত মানুষ, অল্পতেই তাঁর চোখ ভিজে আসে না হয়তো কিন্তু কষ্টটা তো কোথাও না কোথাও আছে।

এতোক্ষন আমি মুক্তার সাহেবের কথাগুলি খুব মনোযোগ সহকারে শুনছিলাম। কেনো জানি আমার কাছেও মনে হলো, মুক্তার সাহেব যেনো চোখে আংগুল দিয়ে আমার জীবনের কথাগুলিই বলে যাচ্ছেন। আমিও তো মাঝে মাঝে খুব একা, মাঝে মাঝে তো আমারো মনে হয়, কি যেনো মিসিং! আমার গিন্নীর সাথে, আমার পরিবারের সাথে, আমার অন্য সব সম্পর্কগুলির সাথেও তো আমি এ রকম একটা অনুভুতি পেয়েছি যেখানে আমিও মনে করেছি, আমার প্রয়োজন হয়তো ধীরে ধীরে ফুরিয়ে যাচ্ছে, আমি কারো কারো মনের বাসনা আর আগের মতো সফল করতে পারছি না। আমার হয়তো সাবিত্রি নাই, কিন্তু আমার তো কেহই নাই। কোথাও আমি মুক্তার সাহেবের অপরাধ হয়েছে বলে মনে হলো না। আবার এটাও মানা যায় না যে, কেনো এতো বছর পর আসমানিরা বদলে যায় কিংবা মুক্তার সাহেবেরা ছিটকে পড়ে যায় আরো একটা আসমানীর কাছে যাদের নাম সাবিত্রী। কেউ চলে যাবার পর হয়তো কিছু পরিবর্তন নজরে আসে। বিশ্বাস আর ভরষার যখন মৃত্যু হয়, তখন শারীরিক দুরুত্ত অনেকগুন বেড়ে যায়। আর এই দুরুত্ত বাড়ার সাথে সাথে তখন ‘সময়’ নতুন সম্পর্ক তৈরী করে। কষ্টের সময় যারা থাকে, তারাই তখন নিজের ফ্যামিলি হয়ে যায়। এই সময় ইচ্ছা থাকুক আর নাইবা থাকুক, অনেক কিছুই মেনে নিতে হয়। মুক্তার সাহেবদেরকে যখন শত ব্যর্থতার কারনেও আসমানীরা ছাড়তে চায় না, তখন হয়তো মেনে নেয় আসমানীরাও, আবার আসমানীরা আছে, এটা জেনেও মেনে নেয় সাবিত্রীরাও। মেনে নিতে শিখতে হয়। বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ দুজন মানুষের মধ্যে যখন ভালোবাসার এই অপুর্নতার সৃষ্টি হয়, তখন কোনো একজন তার কাংখিত সুখ কিংবা একাকিত্ত কাটানোর জন্য সেই সপর্কের বাইরে যেতেই পারে। এটা কারো নিজের ইচ্ছায় যে সবসময় হয় তাও না। আর যখনই পা একবার বাইরে ছুটে, তখন, তাকে আর বিয়ে নামক অলিখিত বায়বীয় সম্পর্কটা শক্ত ভীত তৈরী করতে সক্ষম হয় না। প্রবল স্রোতে তীরভাংগা পারের মতো প্রতিটা ক্ষনে এর ভাংগনের শব্দ পাওয়া যায়। আর যখন এই ভাংগা একবার শুরু হয় তখন চেয়ে চেয়ে দেখা ছাড়া আর কিছুই করার থাকে না। হয় তাকে মুক্ত করে দিতে হয়, আর তা না হলে মেনেই নিতে হয়। কাউকে জোর করে কিছুক্ষনের জন্য হয়তো চুপ করিয়ে রাখা যেতে পারে কিন্তু সত্য বেশীদিন লুকিয়ে রাখা যায় না। ফলে একদিকে যেমন আসমানীরা তাদের অধিকার ছেড়ে দিতে চায় না, আবার অন্যদিকে  মুক্তার সাহেবদের ধরেও রাখা যায় না। অগাধ সম্পত্তির বিবেচনায় একটা কথা ঠিক যে, পৃথিবীতে এমন কিছু সম্পর্ক আছে যা সব সম্পত্তির থেকেও বড়। আর সে সম্পর্কটা হচ্ছে অনুভুতির সম্পর্ক। আর মুক্তার সাহেবরা হচ্ছেন এমন এক সম্পর্কের নাম, যারা সাফল্যের সিড়ি বেয়ে বেয়ে উপরের তলায় স্থান করে নিয়েছেন। তাদের এই সাফল্যের একটা ফেসভ্যালু থাকায় তাদেরকে সবাই ছেড়েও যেতে চায় না। মুক্তার সাহেবের মতো বলতে গেলে বলতে হয়, সীমা লঙ্ঘন আর সীমা শেষ এক জিনিষ নয়। আসমানি, সাবিত্রী আর মুক্তার সাহবদের এই ত্রিমাত্রার সম্পর্কটা এমন পর্যায়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে যেখানে সিমা লংগন হয়েছে কিন্তু সীমা শেষ হয়ে যায় নাই। তারা সবাই যেনো দুঃখের খাচায় বন্দি। আর এটাই সত্যি। সত্যিটা কখনো কল্পনা হয় না। আর কোনো  কল্পনাকেও সত্যি বলা যায় না। সত্যি কখনো কারো এজেন্ডা হতে পারে না। সত্যি সেটাই যেটা বাস্তব। আসমানী বেগম যেমন বাস্তব, সাবিত্রীও বাস্তব। আর এই দুয়ের মাঝে দাঁড়িয়ে আছেন মুক্তার সাহেব। সেটাও বাস্তব।

মুক্তার সাহেব চশমাটা মুছে, আমার দিকে একটু হাস্যোজ্জল নেত্রে তাকিয়ে আরো একটা কাপে কিছু কফি আর আরেকটা সিগারেট ধরিয়ে বলতে লাগলেন,

-একটা জিনিষ কখনো উপলব্ধি করেছেন? আপনি যখন অনেককেই কেমন আছেন জিজ্ঞেস করলে তারা বলেন তারা ভালো আছেন, কিন্তু তারা জানেন তাদের সময়টাই ভালো যাচ্ছে না। সত্যি কথাটা বলার জন্যে সাহস থাকলেও সেটা আসলে পুরুপুরি কাউকে যে বুঝাবেন, সেটা মুখের কথায় বুঝানো যায় না। আয়নায় হয়তো আপনি কাউকে চেহারাটা দেখাতে পারবেন, কিন্তু কষ্টটা দেখাবেন কিভাবে? ভিতরের কষ্টটা কাউকে দেখানো যায় না। আর ভিতরটা কেউ দেখেও না, যদিও সত্যিটা ভিতরেই থাকে। সেই কষ্টেভরা সুর শুধু নিজের কান থেকে নিজের অন্তরেই ঘুরাঘুরি করে প্রতিধ্বনি করতে থাকে। অন্য কারো অন্তর কিংবা হৃদয়ে সেটা কোনোভাবেই আপনি পুশ করতে পারবেন না। আসলে একটা কথা আছে-কান্নার আহাজারীতে সুর থাকে না, থাকে বেদনা আর কষ্ট যে কষ্টের কোনো নাম নাই, যে কষ্টের রুপ কাউকে দেখানোও যায় না।

-যেদিন আমি প্রথম আসমানীকে দেখেছিলাম, ঠিক একই রকম ভাবেই আমি দেখেছিলাম এই সাবিত্রীকে। সাবিত্রীকে আমার খুজে বের করতে হয় নাই। সাবিত্রী ধরনীর ভাসমান এই পৃথিবীর কোন এক অসমতল প্লাটফর্মে একাই দাড়িয়েছিলো। তাঁর কি অতীত কিংবা কি ইতিহাস সেটা আমার জানা ছিলো না। আর আমি জানতেও চাইনি। একটা জিনিষ জানবেন, অনেক সময় এমনটা হয়, কারো মুখ দেখে কারো ভিতরের যন্ত্রনাকে উপলব্দি করতে পারবেন আপনি হয়তো। তখন কারো হয়তো মন চাইবে যে, তার কাছে যেতে, তার মনের কথা জানতে, কিন্তু আমাদের সমাজটা এমন এক পর্যায়ে চলে গেছে যেখানে সচেতন মানুষের মন বলে উঠে “মাথা ঘামিও না, যদি কোনো সমস্যায় পড়তে হয়!! যদি বিপদে জড়িয়ে পড়ো?” এই উপলব্ধিটা হয়তো সবাই করে। সবার মনকেই হয়তো ছুয়ে যায়। কেউ কেউ এগিয়ে আসেই না, আবার কেউ কেউ বিপদ জেনেও ঝাপিয়েও পড়ে। পাখীদের বেলায় কিংবা অন্য কোনো প্রানীদের বেলায় এটা কতটুকু, সেটা আমরা না কখনো ভেবে দেখেছি, না কখনো উপলব্ধি করেছি। ওরা দিনের শুরুতে আহারের খোজে বেরিয়ে যায়, পেট ভরে গেলে কোনো এক গাছের ঢালে বা পাহাড়ের কোনো এক ছোট সুড়ঙ্গে রাত কাটিয়ে দেয়। তাদের অট্টালিকার দরকার পড়ে না, ওরা কেউ কারো শত্রুতা করে না, কোনো পর্বনে বিশেষ কোনো কিছুর আয়োজনেরো দরকার মনে করেনা। কবে ছুটির দিন, কবে ঈদের দিন কিংবা করে কোন মহাযুদ্ধ লেগেছিলো সে খবরেও ওদের কিছুই যায় আসে না। ওদেরও সন্তান হয়, ওরাও দলবেধে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় চলে যায়, ওদের কোনো ভিসা বা ইমিগ্রেশনেরও দরকার পড়ে না। টেরিটোরিয়াল বাউন্ডারী ওদের জন্য কোনোদিন দরকার পড়ে নাই, আগামীতেও দরকার পড়বে না। ওরাও কষ্টে কিছুক্ষন হয়তো ঘেউ ঘেউ করে, কিংবা চিন্তিত হয়ে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় উড়ে চলে যায়, কিন্তু তাকে আকড়ে ধরে বসে থাকে না। ওদের সারাদিনের কর্মকান্ডের জন্য না কারো কাছে জবাব্দিহি করতে হয়, না কারো কাছে ধর্না দিতে হয়, এমনকি ওরা ঈশ্বরের কাছেও তাদের অপকর্মের কিংবা ভালোকর্মের কোনো জবাব্দিহিতা করতে হয় না। কোনো ট্যাক্স ফাইল নাই, কোনো ভ্যাট ফাইল নাই, না আছে কোনো ব্যাংক ব্যালেন্স, না দরকার তাদের গাড়িঘোড়ার। তাহলে তো ওরাই আসলে শান্তিতে থাকে, মানুষের থেকে অধিক। পশুপাখীরা ওদের জীবনের ব্যর্থতা কিংবা সফলতার ডেবিট-ক্রেডিট করে না। কিন্তু মানুষের বেলায় এটা একেবারেই প্রজোয্য নয়। তাদের বিপদে কাউকে না কাউকে এগিয়ে আসতে হয়, কারো না কারো সাহাজ্য লাগে। যখন বিপদের এমন মূহুর্তে সে সেটাই পায় যেটা সে মুহুর্তেই দরকার, হয়তো তাতেই তাঁর জীবনটা ঘুরে যায় অন্যদিকে। যখন পায় না, তখন হয়তো আরো অতল গহব্বরে তলিয়ে একেবারেই হারিয়ে যায়। সাবিত্রীকে সেদিন দেখে এটাই মনে হয়েছিলো-জীবনের সাথে তাঁর বোঝাপড়ায় সে ব্যর্থ হয়েছে। অদ্ভুদ মায়াবী এক অপলক নেত্রে সে দাড়িয়েছিলো, পরে লক্ষ্য করেছিলাম, ওর মা ওর সাথেই ছিলো ভাষাহীন এক মুর্তির মতো, হয়তো শুধু সঙ্গ দেয়ার জন্যই। এই এমন একটা পরিস্থিতি আমার আর সাবিত্রীর মাঝখানে বয়ে যাচ্ছিলো নাম না জানা একটা কৌতূহল। আমি সাবিত্রীর কাছে গিয়ে এমনভাবে দাড়িয়েছিলাম যেনো আমি তার অনেক চেনা একজন মানুষ। সাবিত্রী হয়তো আশাই করে নাই আমার হাত বাড়িয়ে দেবার ব্যাপারটা। মনুষ্যত্তের অবনমন যেমন আছে, মনুষত্যের উত্তোরনও তেমন আছে। সন্দেহের বশে অসুবিধায় রয়েছে এমন মানুষকে দেখে কোনো প্রশ্ন করা মোটেই অহেতুক হস্তক্ষেপ নয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই সেসব সচেতন মানুষ সামাজিক লাঞ্ছনার ভয়ে সেই কষ্টে থাকা মানুষের পাশে দাড়াতে ভয় পায়। কিন্তু আমি সেটা করতে পারিনি। অসহায় নির্লিপ্ত আমার থেকেও প্রায় ৩০ বছরের ছোট এই সাবিত্রীকে আমি সমাজের ভয়ে একা ছেড়ে দেইনি। তাঁর কাছে গিয়ে জানতে চেয়েছিলাম, তার মুখে লুকিয়ে থাকা কষ্টের কথা অথবা তাঁর সাথে ঘটে যাওয়া কোনো অত্যাচার কিংবা লাঞ্ছনার কোনো লুকানো কাহিনীর কথা। আর সেখান থেকেই শুরু হয় আমাদের দুজনের মধ্যে সম্পর্কের অদৃশ্য বন্ধন। আমি আমার একাকীত্তকে হয়তো কিছুটা হলেও লাঘব করতে পেরেছি, কিন্তু তাঁর কাছে আমি নিছক মুক্তার সাহেব নই, আমি হয়তো তাঁর কাছে এমন  একজন যাকে আপনি বলতে পারেন-‘অলিখিত ভগবান’।

মুক্তার সাহেবের কথা শুনতে শুনতে আমি যেনো ফিলসোফির ক্লাসের কোনো লেকচার কিংবা রহস্যে ঘেরা জীবনের চর্চাবিহীন কোনো অধ্যায়ের যুক্তিতর্কের তত্ত শুনতেছিলাম এটাই মনে হচ্ছিলো। মাঝে মাঝে তিনি এমন কিছু কথা বলছিলেন, যার সাথে আমরা অনেকেই পরিচিত নই কিন্তু তাকে অগ্রাহ্য করার ক্ষমতাও যেনো ছিলো না আমার। আমরা ঈশ্বরের কথা বলি, ভগবানের কথা বলি। কিন্তু কে সেই ঈশ্বর কিংবা ভগবান তাকে আমরা কখনো দেখি না। কিন্তু মনেপ্রানে এ বিশ্বাস থেকে প্রতিনিয়ত আমরা আমাদের সমস্যার কথা, আমাদের আবেগের কথা গোপন প্রার্থনার সাথে তাঁর কাছে বলে হয়তো মনের ভিতরের কষ্ট বেদনা দূর করার চেষ্টা করি। কিন্তু সবসময় কি তা আসলেই লাঘব হয়? দূর্বলই হোক কিংবা সবল, আমরা আমাদের ভাবাবেগের সবউত্তর যখন পাই না, তখন সেই ঈশ্বর কিংবা ভগবানের কাছে সমর্পন ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না জেনেও সেই ঈশ্বরের কাছেই আবার ফেরত আসি। এটা একটা সাইকোলজি। আমরা অনেক কিছু মেনে নেই কিংবা মেনে নিতে হয়। হয়তো সবাই সেটা মেনে নেয় না। মুক্তার সাহেবের বেলায় ব্যাপারটা কোন স্তরের তা নিরুপন করা কঠিন। তিনি যেমন ঈশ্বরকে বিশ্বাস করেন, তেমনি বিশ্বাস করেন মানুষ ঈশ্বরের একটা হাতিয়ার।

অলিখিত ভগবান? এটার ব্যাখ্যা কি? আমি মুক্তার সাহেবকে জিজ্ঞেস করলাম।

তিনি আমার এই প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে তিনি কথা চালিয়ে গেলেন।

-কিছু কিছু সময় আসে মানুষের জীবনে, যখন সবকিছু হাতের কাছে থাকলেও মনের অজান্তে মনে একটা না পাওয়ার আক্ষেপ তৈরী হয়। কি চেয়েছি, আর কি চাইনি, বা কি পেয়েছি আর কি পাইনি এই দুয়ের মধ্যে একটা টানাপোড়েন তৈরী হয়। এই টানাপোড়েন একটা হতাশা। কিন্তু যিনি বাস্তববাদী, যিনি ঈশ্বর বিশ্বাসী, তিনি এই টানাপোড়েনের ব্যাপারটা সমাধান করেন অন্যভাবে। তিনি ভাবেন-ভগবান মানুষের জন্য প্রতিটি দিন একই রকম করে পরিকল্পনা করেন না। আজ যে রবিবার আপনি হাসছেন, আগামী রবিবার আপনি নাও হাসতে পারেন, হয়তো সেদিন চোখের জলে প্রতিটি মুহুর্ত ভরে থাকবে আপনার। এই সপ্তাহটা হয়তো আপনার জন্য ভয়ানক অস্থির যাচ্ছে, কে জানে আগামী সপ্তাহটা হয়তো হবে একেবারেই সুন্দর ঝরঝরা। তাই হতাশ হবার কোনো কারন নাই। প্রতিটি ঝড় কিংবা বিপদের মাঝেও কিছু না কিছু সুসংবাদ থাকে, কিছু না কিছু ভালো জিনিষ আসে। একটা মৃত ঘড়ির দিকে তাকান, দেখবেন নষ্ট ঘড়িটাও দিনে দুবার একদম সঠিক সময় প্রকাশ করে। অপরিষ্কার জল খাবারের অনুপোযোগী হলেও সেটা আগুন নেভানোর কাজে লাগে। বোবা কিংবা বোকা বন্ধুও আপনার অন্ধ জীবনে রাস্তা দেখিয়ে দিতে পারে। এ রকম আরো অনেক বিকল্প উপায়ে মানুষ হতাশার অন্ধকার থেকে বাচার জন্য সঠিক ঘাটের সন্ধ্যান করেন। যখন তিনি সেখানেও ব্যর্থ হন, তখন তিনি স্থাপিত হন সেই ঘাটে যার আরেক নাম ‘তৃতীয় নদীর ঘাট’। কখনো কি এই “তৃতীয় নদীর ঘাটের” কথা শুনেছেন?

আমি তাঁর কথার উত্তর দেয়ার আগেই তিনি আমাকে থামিয়ে দিয়ে বলতে থাকেন

-যতোক্ষন আপনি সঠিক ঘাটের সন্ধ্যান না পাবেন, ততোক্ষন পর্যন্ত আপনি উদ্দেশ্যহীন একজন মাঝি। নৌকা আছে, বৈঠা আছে, আর সেই নৌকা চলার জন্য পর্যাপ্ত নদীও আছে, কিন্তু আপনি তাঁর ঘাট খুজে পাচ্ছেন না। যতোক্ষন আপনি আপনার মনের মতো সঠিক ঘাট খুজে না পাবেন, তখন মন ছুটে যায় এক ঘাট থেকে আরেক ঘাটে। এই সাবিত্রীর মতো। নিজের মনের মতো করে কেউ যখন সেই সঠিক ঘাটের সন্ধ্যান পায়, তখন মন আর অন্য কোনো ঘাটে ফিরে আসতে চায় না। পুরানো ঘাটে ফিরে আসা আর সেই পুরানো ঘাটে নোঙ্গর করার মধ্যে বিস্তর ফারাক আছে। হতে পারে আপনি যে ঘাটকে সঠিক ঘাট ভাবছেন, সেটাও ভুল। হতে পারে, সেই ভুলঘাটও আপনাকে ভুলপথে নিয়ে যেতে পারে। এই ভুলঘাট সবসময় একটা বিপদের সংকেত দেয়, কারন কেউ যখন একবার ভুলঘাটে তাঁর মন নোঙ্গর করে, সেখান থেকে হয়তো ফিরে আসার রাস্তাই আর তাঁর জানা থাকে না। রাস্তাটা একেবারেই অচেনা মনে হয়। আর অচেনা রাস্তায় অচেনা মানুষের কাছে আপনার চোখের জলের কোনো মুল্য থাকে না। আর মুল্যহীন জীবনে স্বপ্ন তো দূরের কথা বেচে থাকাই দূরুহ। কষ্ট থেকে বেরিয়ে যাবার তরে আরেক অচেনা দূরুহ রাস্তায় যখন মানুষ বেদনা নিয়ে বেচে থাকে, তখন সে জীবনের প্রতি মায়া হারিয়ে ফেলে, ভগবানের উপর সে আস্থা হারিয়ে ফেলে। ঈশ্বর আছে এটাই তখন আর বিশ্বাস করতে চায় না। কিন্তু সময় এমন এক জিনিষ, সময়ের সাথে সাথে অনেক কিছু পালটায়। তবে আপাতদৃষ্টিতে বিবেচিত সঠিক ঘাটেই যেনো সেই মনের সুখ আর শান্তি বিরাজ করে, এটা ভেবেই মানুষ দ্বিতীয়বার নোঙ্গর করে। সাবিত্রীর সাথে আমার দেখা হবার পর, আমার কাছে একটা বিকল্প ঘাটের সন্ধ্যান বলেই মনে হয়েছিলো। এটা হয়তো সাবিত্রীর বেলাতেও একই উপলব্ধি। ঠিক, বেঠিক, ন্যায়, অন্যায় ইত্যাদির ব্যাপারে আমি কোনো প্রশ্ন করতে চাইনি। হতে পারে সাবিত্রীর কাছেও আমার ঘাটটাই সঠিক বলে মনে হয়েছে। আমরা দুজনেই জানি-এই ঘাটে আরো অনেক সম্পর্ক জড়িত কিন্তু সেই সম্পর্কগুলি যেনো পুরানো সুতায় সব পেছিয়ে দিশেহারা হয়ে আছে। তা দিয়ে আর নতুন জাল বুনানো সম্ভব নয়। আবার যে এলোপাতাড়ি বুনন আছে সেটাও চিরতরে ধংশ করা সম্ভব নয়। এই সম্ভব আর অসম্ভবের মধ্যেই যেনো নতুন আরেকটি বুনন বেধে গিয়েছিলো আমার আর সাবিত্রীর।

মুক্তার সাহেব একটু থামলেন। আরেকটা সিগারেট ধরালেন। এর ফাকে আমার মনের ভিতরে ঘুরপাক খাওয়া সেই কথাটার ব্যাপারে জানতে চাইলাম। ‘অলিখিত ভগবান’ বা  ‘তৃতীয় নদী’। জিজ্ঞেস করলাম, আমরা নদীর তৃতীয় তীরের কথা অনেক সাহিত্যিকের লেখায় পড়েছি। যেমন হুয়াও হুইমারেস রোসার  ‘দি থার্ড ব্যাংক অফ দি রিভার’। কিন্তু তৃতীয় নদীর তীরটা কি? আমি যেনো বোকার মতো একটা প্রশ্ন করেছি এমনভাবে মুক্তার সাহেব একটা অট্টহাসি দিয়ে একমুখ ধোয়া বের করে বললেন-

-হুয়াও হুইমারেস রোসার সেই বিখ্যাত উপন্যাস ‘দি থার্ড ব্যাংক অফ দি রিভার’টা তাহলে পড়েছেন? গল্পটা কি মনে আছে আপনার? যাক, মনে না থাকলেও সমস্যা নেই। আমি পড়েছি। একটু ঝালাই করি তাহলে। হুয়াও হুইমারেস রোসা একজন দক্ষিন আমেরিকার বিখ্যাত ছোট গল্পলেখক। এই গল্পে এক পরিবারের খুব দায়িত্বশীল একজন পিতা একদিন একটা ডিঙি নৌকা তৈরি করেন। ছোট ডিঙি। গলুইতে শুধুমাত্র এক চিলতে জায়গা। একজনের বেশি মানুষ সেখানে বসতে পারবেনা। বিশাল এবং সুগভীর একটা নদীর তীরে পরিবারের বসতি। নদীটা এতোই বিশাল এবং প্রশস্ত যে, অন্য তীর দেখাই যায়না। অতঃপর একদিন তিনি নদীপাড়ের বাড়িতে তার পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বিশাল, সুগভীর নদীতে তার ডিঙি ভাসিয়ে দিলেন। কোন খাবার বা অন্য কোন রসদও সঙ্গে নিলেন না। এমনকি শেষবারের মত পরিবারের কাউকে কোন উপদেশও দেবার চেষ্টা করলেন না। অদ্ভুত ব্যাপার হলো তিনি আর কখনো ফিরেও আসলেন না। কিন্তু আবার কোথাও চলেও গেলেন না। মাঝ–নদী বরাবর অনির্দিষ্টভাবে ঘোরাফেরা করতে লাগলেন। কখনো উজানে। কখনোবা ভাটিতে। কিছু কিছু সময়ে তিনি দৃষ্টিসীমার বাইরে চলে যান। কিন্তু কখনই এমন দূরে নয় যে তার উপস্থিতিটা পরিবারের সদস্যরা অনুভব করতে সক্ষম না। … মৃত্যুই কি নদীর তৃতীয় তীর? এটাই ছিলো তাঁর কথার সারমর্ম। কিন্তু আমি তাঁরসাথে একমত নই। কেনো জানেন?

আমি উত্তরে বললাম, না জানি না। আপনি বলুন।

-আসলে এই তীর কি, কোথায় তার অবস্থান, কিংবা এটা কি এমন কোনো নদী যার তীর সচরাচর গোচরীভুত হয় না, অথচ আছে? অথবা এই নদীর কি আরো তীর আছে যার নাম হয়ত ‘চতুর্থ তীর’? সবুজ গাছ-পালা, আকাবাকা মেঠোপথের শেষপ্রান্তে প্রাকৃতিক বড় সৌন্দর্য পরিবেষ্টিত বিশাল জলাধারের চলমান স্রোতের প্রাবাহমান যদি কোন নদী হয়, সেই নদীর তীর হয়তোবা কখনো এই বিশাল জনরাশির সবার কমন। এখানে সবার রোমাঞ্চ, আশা, বেদনা, সবার কাহিনীর এক মহাপুস্তকের মতো। হয়তোবা এটা কখনো সভ্যতার জীবনধারার বাহকরুপী কোনো সময়ের রাজত্ব হলেও হতে পারে কিংবা কখনো সেই দৃশ্যমান নদী অতীত বর্তমানের সুখ দুঃখের এই বিশ্বভ্রমান্ডের সাক্ষীর ধারকবাহক হলেও হতে পারে। আর সেটাকেই আমরা কখনো নদী, কখনো উপসাগর অথবা কখনো সাগর থেকে মহাসাগরের স্তরে বিন্যাস করে কতোইনা উপমা করে থাকি। এই নদীর স্রষ্টা আছে, এর নিয়ন্ত্রণকারী আছে, আর তার উপর সমগ্র মানবকুল একটা মিশ্র বিশ্বাস নিয়েই কেউ এর স্রষ্টাকে পুজা করে, কেউ তাকে অস্বীকার করে আবার কখনো কখনো বিশ্বাস-অবিশ্বাসের মায়াজালে আশা-নিরাশার ভারদন্ড নিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে চলে। হয়ত এরই নাম “জীবন”, হয়তবা এরই নাম “সভ্যতা”। এই নদীর কিনারা থেকে পালিয়ে বেড়ানো মানে এই নয় যে, জীবন থেকে পালিয়ে বেড়ানো কিংবা সভ্যতা থেকে হারিয়ে যাওয়া। এই বিশ্বভ্রমান্ডের কোথাও না কোথাও আরেক নদীর তীর আছে যেখানে তার কিনারা পাওয়া যায়। সেখানেও নতুন করে সভ্যতা, জীবন এবং নতুন কাহিনীর রচনা হতে পারে এবং হয়।

-কিন্তু সমগ্র বিশ্ব থেকে যখন আমরা মানবকুল সবকিছু ছেড়ে ছোট একটা গন্ডি শুধুমাত্র গুটিকতক আপনজনের পরিসীমায় আবদ্ধ করে একটা মায়াজাল আবিষ্ট করি, তখন দিনের সবকাজ শেষ করে যখন নীড়ে ফিরে এসে হিসাব কষি, তখন সামনে এসে দাঁড়ায় আরেকটি নদী। হয়ত তাঁর নাম “মন-নদী’। এই নদীতে চলমান জলের প্রবাহ নেই, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের সমাহার নেই, পাহাড় নেই, আকাশ নেই, কিন্তু তারও আছে অনেক তীর। যা কখনো শান্তির মহাখুশিতে জলের ধারা বইয়ে চিকচিক করে জানান দেয়, ‘যা চেয়েছি তাই পেয়েছি’। আবার কখনো কখনো দুঃখের সীমাহীন যন্ত্রনায় সেই একই নদী তার দুই তীর জলের ধারায় শিক্ত করে নীরবে বলে যায়, ‘বড় যন্ত্রনায় আছি’। হয়ত তখন আমরা বলি, দুই নয়নের ধারা। নিজস্ব গন্ডির এই পরিসীমায় এই নদীর একক ধারক বাহক শুধু কিছু আপনজন, নিজে আর ব্যক্তিসত্তার অজানা উপাদানের সব সমীকরন। এখানে ঈশ্বর বাস করেন ক্ষনেক্ষনে, আবার ঈশ্বর উধাওও হয়ে যান ক্ষনেক্ষনে। এখানে ছোট গন্ডির গুটিকতক আপনজনের সার্থকতা, ব্যর্থতা, ভালোবাসা, দায়িত্বশীলতা, নির্ভরতা সবকিছু একেবারেই নিজস্ব। সমগ্র মানবকুলের হিসাব কিতাবের সাথে, সুখ দুঃখের সাথে, চাওয়া পাওয়ার সাথে, লাভ লোকসানের সাথে সব কিছু মিশে থাকে।

-এই নদীতে বাস করে “আমি”, আমার আমিত্ত আর আমার চারিধারের সব আমারত্ত। আর কেউ নেই। এখানে ঈশ্বর আমি, এখানে নিয়মের কোন বালাই নেই। এখানে আকাশের রঙ আমার নিজের মতো করে বানানো, আমার নদীর জল আমার ইচ্ছায় যখন যেভাবে খুশি প্রবাহিত হয়। এখানে আমার ইচ্ছাটাই সব। এখানে আমার ছোট ডিঙ্গী কখনো উজানে, কখনো ভাটিতে, কখনো নিরুদ্দেশে, কখনো জনসম্মুখে, কখনো কাছে কখনো দূরে যেথায় খুশী সেখানে আমার বিচরন। কাউকে আমার কিছু যেমন বলার নেই, কারো কোনো কিছুই আমার পরোয়া করারও কোন প্রয়োজন নেই। এখানে আমার কোন দায়িত্ববোধ নেই, আমার দায়িত্বও কারো উপর নেই। এখানে আমার সব নদীর উপস্থিতি যেমন আছে, তেমনি কোনো নদীর উপস্থিতিও আমাকে বিচলিত করে না। একদিক থেকে দেখলে এই নদীর কোন তীর নেই আবার আরেক দিক থেকে অনুধাবন করলে হয়ত দেখা যাবে এর আছে অজস্র তীর। কখনো উল্লাশের তীর, কখনো আনন্দের তীর, কখনো ব্যর্থতার তীর, কখনো সব হারিয়ে এক অবসন্ন জীবনের তীর। এখানে এই তীরে কেউ প্রবেশের অধিকারও নেই। এখানে আমার রশদের কোনো প্রয়োজন নেই, এখানে সর্বত্র আমি। আমি কি করতে পারতাম, কি করা উচিত ছিলো, কে কি করতে পারতো, কোথায় আমি ভুল করেছি, কোথায় আমার সার্থকতা ছিলো, কি আমার ভুমিকা হতে পারতো, কিংবা কি কারনে আমি আমার সবকিছু নিঃস্বার্থভাবে ছেড়ে আমি আমার তৃতীয় এই নদীতে একা পড়ে আছি, তার কোনো ব্যখ্যা আমি আর খুজতে চাই না। হয়ত কেউই এর কোনো উত্তর মেনেও নিবে না।

-এখন আরেকটি প্রশ্ন মনে আসে। তাহলো, এই তৃতীয় নদীটি কোথায়? কারো কাছে এই তৃতীয় নদীটি হয়ত বাস্তবের কোনো এক বিশাল জলপ্রবাহমান নদীর বুক, কারো কাছে হয়তবা ঘন গাছপালায় পরিবেষ্টিত এক নির্জন জঙ্গল, কারো কাছে হয়তবা এই বিশাল মানবকুলের ঘনবস্তির মধ্যেও একা কোনো জগত। কেউ বিশ্বাস করুক আর নাইবা করুক, এই নদী সবার আছে, কেউ তাকে গ্রহন করে, কেউ এর সন্ধান জানেও না। এই নদীতে ঝাপ দেওয়ার সামর্থ্য সবার থাকে না। কারন এর যেমন কোনো দৃশ্যমান তীর নেই, আবার সব তীরের ঘাটও এক রকম নয়। এর জলের রঙ সবনদীর মতো নয়। এর কোনো ঋতু নেই, যখন তখন বৃষ্টি, ঝড়, উল্লাস, আনন্দ, কান্না, পরিহাস সবকিছু ঘটে। আর এর একচ্ছত্র অনুভুতি, আস্বাদ, ইতিহাস শুধু নিজের আর কারো নয়। এই তৃতীয় নদীর কিনারে বসে শতবর্সী বয়োবৃদ্ধা তাঁর বাল্যকালের স্বপ্ন দেখেন, আবার কারো কারো অজান্তেই এই নদীর বালুচরে হেটে হেটে কোনো এক উদাসীন কিশোর তাঁর কল্পনার জগত পেড়িয়ে শতবর্ষ পরের কোনো এক জনবসতীর সপ্নজাল বুনন করেন। কেউ ফিরে আসে, কেউ আর ফিরে না। এই নদীর তীরে বসা সবাই একা, সবাই সুখী, আবার সবাই বিরহীর মতো। অথচ এতো কাছাকাছি থেকেও এদের মধ্যে কেউ সখ্যতা করেন না, কেউ কাউকে সম্মোহনও করেন না। যেদিন এই মন-নদী অবশান হয়, সেদিন সব তীরের ধারা একসাথে মন-নদীর সাথে তিরোধানও হয়। হয়ত তখন হুয়াও হুইমারেস রোসা্র লেখা “নদীর তৃতীয় তীর”টি আর কারো গোচরীতভুতও হয় না। সময়ের বিবর্তনে আমরা সবাই ঐ জেলের মতো হয়ত কোনো কোনো তীর থেকে খসে পড়ি। বৃন্তচ্যুত কলির তীরখসা জীবনের অজস্র তীরের যখন একচ্ছত্র ভীড় ঘনীভুত হয় মহামিলনে বা মহাবেদনায় অথবা মহাপ্রলয়ে, তখন চৈত্রমাসের তাপদাহের পর বৈশাখের কালো হিংস্র ঝড়ে তান্ডবের মতো আমরা শুধু সেটাই দেখি যা শ্রাবনের অঝোরধারায় এই মাটির ধরায় সবার পায়ে, মনে, ঘরে বা মানসপটে ভেসে উঠে।  

উফ কি অসম্ভব সুন্দর উপস্থাপনা মুক্তার সাহেবের। জীবন সম্পর্কে তাঁর চিন্তাধারা সবার থেকে যেনো অনেক আলাদা কিন্তু অবাস্তব মনে হচ্ছে না। আমি মুক্তার সাহেবের কথা যতোই শুনছি, ততোই যেনো অভিভূত হয়ে যাচ্ছি। মনে হচ্ছে-এগুলি তো আমারো ফিলোসোফি। এসেছিলাম, মুক্তার সাহেবের পরকীয়ার ব্যাপারে জবানবন্দী নিতে। কিন্তু আমি যেনো এখন জবানবন্দী নিচ্ছি জীবনের ফিলোসোফির। আমার মনের মধ্যে তখনো মুক্তার সাহেবের সেই কথাটি ঘুপাক খাচ্ছিল-‘অলিখিত ভগবান’। এটার ব্যাপারে মুক্তার সাহেবের ফিলোসোপিটা কি আসলে? জিজ্ঞেস করলাম। কিন্তু এবারো তিনি সেটা এড়িয়ে গেলেন। বললেন-আমি আসবো সে ব্যাপারটায়।

মুক্তার সাহেব আবারো সেই আসমানী এবং সাবিত্রীর প্রসঙ্গ আনলেন। কারন এখানে আসমানী এবং সাবিত্রীর ব্যাপারটা নিয়েই আমাদের সব আলোচনা করার কথা। মুক্তার সাহেব বললেন-

-দ্বৈত জীবনের নাম শুনেছেন কখনো?  একে অন্য নামেও অনেকে চিনে-‘দিমুখী জীবন’। এই দ্বৈত জীবনের সবচেয়ে বড় গুন যে, ডান হাত জানে না বাম হাত কি করছে। মন জানে না, অনুভুতি কি করছে, শরীর জানে না তাঁর মস্তিষ্ক কি করছে। সবকিছু থেকে সবকিছু আলাদা। একটা জীবনের দুটু আলাদা আলাদা অধ্যায়। একে অন্যের অপরিচিত এই অধ্যায়গুলি। এই দুটি জীবনের মধ্যে যখন একটা জীবন অতি দুঃখেকষ্টে ভরে উঠে, তখন আরেকটা জীবন হয়তো এর ঠিক বিপরীতে থাকে। হয়তো সেখানে কোনো কষ্টই থাকে না। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো-এটা কখনোই সম্ভব নয় যে, দ্বৈত জীবনের মধ্যে এক জীবনের প্রভাব অন্য জীবনের উপর পড়বে না। আসমানী ছিলো আমার একটা জীবন আর সাবিত্রী ছিলো দ্বৈত জীবনের আরেকটা। আসমানী ছিলো আমার স্ত্রী কিন্তু সাবিত্রী ছিলো আমার সব। কখনো স্ত্রী, কখনো মেয়ে, কখনো বন্ধু, কখনো খেলার সাথী, কখনো পাঠক, কখনো অস্তিরতা, কখনো আবার শুধুই একজন বহুদূর পর্যন্ত হেটে যাওয়া কোন কম্পেনিয়ন। জীবনের গাড়ি একটা চাকার উপর টানতে টানতে অনেকেই যখন হাপিয়ে যায়, তখন এর জন্য দরকার হয় আরেকটা চাকার। আর সেই চাকাটার নাম হচ্ছে হয়তো স্ত্রী। কিন্তু মানুষ যখন নিঃসঙ্গতায় ভোগে, আর সেটা কাউকে অনেক বেশী কুড়ে কুড়ে খায়, তখন দরকার হয় একজন সঙ্গীর। যখন ওই সঙ্গীর নেহায়েত প্রয়োজন হয় অথচ তাকে সংগী করা যায় না, তখন সে কিছু একটা তো করেই। আর সেটা যে কেউ শুনলেও কখনো বিশ্বাস করবে না, অথচ ব্যাপারটা সত্যি। সাবিত্রী ছিলো তেমন একটা মানুষ। সে ছিলো আমার দ্বিমুখী জীবনের বাস্তব সত্তা।

তাহলে আপনি কি এই দ্বিমুখী জীবনে বাস্তব জীবনের থেকেও বেশী সুখী ছিলেন? কিংবা আপনি কি আসমানীর সাথে সেই জীবনে কোনো কারনে আফসোসে ছিলেন? আমি মুক্তার সাহেবকে প্রশ্ন করলাম।

-কেউ সুখী না। আমিও না, এমনকি আপ্নিও না। আবার সবাই সুখী, সেখানে আমিও সুখী। এই মাত্রাটা সময়ের সাথে সাথে কখনো প্রখর হয় আবার কখনো বুঝাই যায় না সুখের কোন স্টেজে আমরা অবস্থান করছি। এর ফলে যেটা হয় যে, কখনো কখনো নিজের সন্তানকেও নিজেরা চিনতে পারি না, আবার কখনো কখনো আমাদের সন্তানেরাও আমাদের চিনতে পারে না। সবার স্বকীয়তা আলাদা, সবার চিন্তাধারা আলাদা, সবার পছন্দ আলাদা, সবার সুখের সংজ্ঞাও আলাদা। এই আলাদা আলাদা স্বকীয়তা, চিন্তাধার আর পছন্দের ভীড়ে কারো সাথেই কারো কিছুই মিল নাই বিধায় কোনো না কোনো সময়ে এরা একটি বিন্দুতে এসে কনফ্লিক্ট তৈরী করে। এই কনফ্লিক্ট তৈরির বিন্দুটি যদি কেউ খুব সহজে অতিক্রম করে বেরিয়ে যেতে পারে, তারা অন্যের থেকে সুখী। কিন্তু এই বিন্দুটি এড়িয়ে যেতে লাগে অনেক আত্মত্যাগ আর কম্প্রোমাইজ। যতো বেশী ছাড়, ততো বেশী সহজ জীবন। কিন্তু এটা সবসময় পারা যায় না। একটা সময় গিয়ে আপনি আর কতটুকু ত্যাগ করতে পারেন? কতটুকু কম্প্রোমাইজ করতে পারেন? যখন এটা সীমার বাইরে চলে যায় বলে মনে হয়, কেউ সুখী নয়, আপনিও না, আমিও না, কেউ না। শুরু হয় দ্বিমুখী আত্মার সৃষ্টি। এই পৃথিবীর বেশীরভাগ মানুষই কোনো না কোনো সময়ে দ্বিমুখী জীবনে বসবাস করে। কেউ জেনে করে, কেউ না জেনে। এই দ্বিমুখী জীবনের সবচেয়ে বড় দিক হচ্ছে এর কোনটা আগা আর কোনটা মাথা তার হদিস পাওয়া যায় না। কখনো এর শেষ থেকে শুরু আবার কখনো মাঝপথ থেকে। যাদের দ্বিমুখী জীবন জীবনের প্রারম্ভেই শুরু হয় তাদের বেলায় এটা বলা অনেক কঠিন তাদের আসল অবয়াববটা কি। এই দ্বিমুখী জীবনের মানুষগুলি সর্বদা একটা বর্নচোরা রুপে এই সমাজে, এই সংসারে এমন করে বাস করেন যাদের মুখ এবং মুখোস কোনোটাই আলাদা করা যায় না। তাদের প্রতিটি দৃষ্টিভংগীতে থাকে আবছা আবছা কিংবা পরিকল্পিত কোনো ছায়ার রুপরেখা যেখানে সামনে থাকা মানুষগুলিকে তারা কখনোই সাধারন মানুষ হিসাবে দেখেন না। তারা যা দেখেন আর যা দেখান পুরুটাই একটা মাস্ক। যেদিন এই মাস্ক আলাদা করার মতো পরিস্থিতি আসে, তখন হাজারো রকমের প্রশ্ন মনে জেগে উঠে-কেনো, কিভাবে, কার জন্যে কিংবা কি প্রয়োজনে এই দ্বিমুখী জীবনের আবশ্যকতা? অনেকেই তখন মাস্ক পরিহিত মানুষটাকেই আসল মনে করে আসল মানুষটাকেই আর চিনতে পারেন না। পাশাপাশি কয়েক যুগ একত্রে বসবাস করার পরেও অনেক ক্ষেত্রেই এই দ্বিমুখী জীবনের সন্ধান পাওয়া যায় না অথচ ব্যাপারটা ঘটছে। ঘটছে প্রকাশ্যে, দিবালোকে আর সবার অজান্তেই। এটা যেনো সেই কচুরীপনা যা স্রোতের মধ্যে স্রোতের বিপরীতে চলমান। হটাত করে চোখে পড়ে না কিন্তু যখন নিজের অবস্থান থেকে সেই কচুরীপানা অনেক দূর অবধি চলে যায়, তখন হয়তো ব্যাপারটা দৃশ্যমান হয় কিন্তু তখন সেই কচুরীপানা আর হাতের বা দৃষ্টির মধ্যে থাকে না। সে চলতেই থাকে তারমতো। চলমান সমুদ্রে কিংবা ভরা নদীর বুকে ভেসে থাকলেও এই কচুরীপানা তার নিজের প্রয়োজনে একপেট জল সর্বদা নিজের করে ধরে রাখে যা তার হয়তো প্রয়োজনই নাই। কিন্তু দ্বিমুখী জীবনের মানুষগুলির এই প্রয়োজন আছে বলেই তারা কোনো সুযোগ নেয় না, তারা তাদের প্রয়োজনটাই আগে বিবেচনা করে সামনে এগিয়ে যেতে থাকে। পিছনে কার কি হলো, তাতে তাদের ভাবার কোনো আবশ্যকতা মনে করে না। দ্বিমুখী জীবনের ভালোবাসায় প্রচুর খাদ থাকে কিন্তু এই খাদের উপরের চাকচিক্য এমনভাবে প্রতিফলিত হয় যা আসল সোনার রংটাকেই আরো আসল বানিয়ে চোখ ঝলসে দেয়, অন্যের মন আকর্ষন করে তাঁকে আরো কাছে আসার সুযোগ করে দেয়। আর এটাই সেটা যেখানে সমাজের মানুষগুলি প্রতিদিন প্রতারিত হয়। এখানে সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো-দ্বিমুখী জীবনের সব মানুষগুলি আবার এ রকমের মুখোশ পড়ে থাকে না। তারা মুখোশের আরালেও বাস্তব। প্রতারনা নাই।

দ্বিমুখী জিবনের সত্তা দ্বিধা বিভক্ত। তাদের দুটুই পাশাপাসি বিচরন করে-ঘৃণা আর মাত্রাতিরিক্ত ভরষা, সত্যতা আর মিথ্যার বেশাত, কঠিনতা আর দূর্বলতা, মায়া এবং হিংসা। এই দ্বিমুখী জিবনের সময় আর অসময় বলে কিছু নাই। যখন প্রয়োজন তখন তারা উভয়ই ব্যবহার করতে কোনো দিধাবোধ করেন না। ফলে দেখা যায় যে, যাকে কেউ কোনোদিন এমন কোনো কাজ, এমন কোনো ভয়ংকর ঘটনা ঘটাতে পারে বলে ভাবেনও নাই, তারাই সেটা করে ফেলে। তখন তারা সবাইকে এমনভাবে তাক লাগিয়ে দেয় যে, সবার মনে এই প্রশ্ন জাগে এটা কিভাবে সম্ভব সেই তার দ্বারা যে কিনা একটা তেলাপোকা দেখলেও ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে থাকতো?

এখন প্রশ্ন জাগে, যদি সবাই তাদের জীবনে কোনো না কোনো সময়ে এই দ্বিমুখী জীবনে বসবাস করেই থাকেন, তাহলে দ্বিমুখী না কারা? আসলে এর উত্তর খুব কঠিন নয়। সবার দ্বিমুখী জীবনের সংগা এক নয়। কেউ কেউ অতি অল্প বিশয়েই তার দ্বিমুখী জীবনের শুরু আর শেষ আবার কারো কারো এই বৈশিষ্ট এমন যে, প্রতিটি বিশয়েই তারা দ্বিমুখী। কারো দ্বিমুখী জীবনের ধারা শুধুমাত্র বৈষয়িক, আবার কারো কারো দ্বিমুখী জীবন ব্যক্তিগত। কেউ দ্বিমুখী জীবন দিয়ে সমাজকে কলুষ্মুক্ত করেন, আবার কেউ দ্বিমুখী জীবন দিয়ে সমাজকে কলুষিত করেন। দুটু দ্বিমুখী জীবন একসাথেও চলতে পারে যদি তাদের সেই দ্বিমুখী জীবনের গতিপথ হয় একই রেলের উপর। যখন এই দ্বিমুখী জীবনের সাথে ভিন্ন ধারার দ্বিমুখী জীবনের সংযোগ হয়, তখন ভয়ংকর পরিনতি ছাড়া আর কিছুই আশা করা যায় না।

দাম্পত্য জীবনেও এমন কিছু সময় আসে যখন মানুষ পরিস্থিতির কারনে কখনো কখনো দ্বিমুখী চরিত্রে ঢোকে যায়। যখন কোনো মহিলার স্বামী তার স্ত্রীর প্রয়োজনটা বুঝতে না পেড়ে বড়গাড়ি, বড়বাড়ি বড় বড় সপ্নে বিভোর হয়ে সার্বোক্ষন তার নিজের সংসারে উদাসীন থাকে আর অন্যত্র ব্যতিব্যাস্ত হয়ে সময় কাটাতে থাকে, তাহলেই তার নিজের স্ত্রীর দ্বিমুখী জীবনে প্রবেশ করার সম্ভাবনা অনেকাংশে বেড়ে যায় আর সেই মহিলাও দ্বিমুখী জীবনে তার নিজের অজান্তেই ঢোকে যায়। কারন, যখন একটা মেয়ে একা হয়ে যায়, নিজের ঘরে স্বামীর সংস্পর্শও ধীরে ধীরে অবহেলায় পরিনত হয়, যখন সারাদিন কাজকর্ম করার পর যখন মনে হয় কেউ শুধু হাতটা ধরুক। অথচ কেউ আর পাশে থাকে না, তখন তার একাকিত্ত বাইরে বেরিয়ে আসে। তখন তার চলাফেরা, আচার আচরন, মনোভাব দেখে কারো সন্দেহ থাকে না যে, সে একা। এরপরেই শুরু হয় ভয়ংকরতা। সমাজ তাঁকে স্পর্শ করার জন্য মুখিয়ে থাকে। একসময় সে তাঁর নিজের অজান্তেই দ্বিমুখী চরিত্রে প্রবেশ করে ফেলে। যদি পুরুষের বেলায় বলি-সেটাও একই রকম। পুরুষের বেলায় তখন সাবিত্রিদের আগমন হয়। সাবিত্রিরা শুধু আপনার দেহকেই মুলধন মনে করে না। ওরা মুলধন মনে করে আপনার অসহায়ত্বকে, আপনার একাকীত্বকে, আপনার আফসোসের উপলব্ধিকে। ইতিহাস খুজে দেখলে দেখবেন, বড়বড় মনিষীরা, বড়বড় ব্যবসায়ীরা কিংবা বড়বড় জ্ঞানীরা তাদের শেষ জীবনে এসেই এই আফসোসের সন্ধানটা পান। আর মৃত্যুর বিছানায় শুয়ে শুধু একটা কথাই বলে যান সবার উদ্দেশ্যে যে, আমি কি কারো জন্যেই কিছু করি নাই? কিংবা আমি তাহলে সারাজীবন কাদের জন্য এতো পরিশ্রম করলাম যখন আমার এই মুমুর্ষ সময়ে কেউ পাশে নাই কিংবা আমি যা চাই সেটা আর পাই না? এটাই মূল কথা। জীবনের শেষ সময়ে কেউ কারো কাছেই থাকে না কারন সবাই আলাদা। সবাই ব্যস্ত। তখন শুধু সামনে থাকে সাবিত্রীরা। হতে পারে এক সাবিত্রী থেকে নতুন আরেক সাবিত্রীর পরিবর্তন হয়। কিন্তু সাবিত্রীরাই শেষ একম্পেনিয়ন।

মুক্তার সাহেবকে আমি অনেকভাবেই যেভাবেই প্রশ্ন করছি না কেনো, আমি এখনো ঠিক কি কারনে আর কোন অপরাধে আসমানী বেগমের থেকে ধীরে ধীরে দূরে সরে গিয়েছিলেন, সেই একাকীত্তের পুরু চিরাচরিত ধারনাটা মনে হয় পাইনি। আমি তাই আবারো মুক্তার সাহেব কে প্রশ্ন করলাম,

আপনি বলছেন, আসমানী বেগম আপনার কথার অবাধ্য হয় না, তিনি কোনো পর পুরুষের সাথেও খারাপ কিছু করেন না, আবারো বলছেন, তিনি ঠিকই আছেন, তাহলে কোন জায়গায়টায় আপনি একটা দুরুত্ত দেখছেন যেখানে আপনার মনে হয় আপনি বঞ্চিত বা আপনাকে সঠিক আগের মতো আর মুল্যায়ন করছে না?

মুক্তার সাহেব সদা হাস্যের মানুষ। বেশ মিশুক আর জোরালো তার অকপ্ট বক্তব্য। তাঁকে ডাইরেক্ট প্রশ্ন ও করা যায়। তিনি আমাকে উলটা প্রশ্ন করলেন-

বাংলা একটা সিনেমা আছে। ইন্ডিয়ান। বেলাশেষে। দেখেছেন মুভিটা?

আমি বললাম, আমি খুব একটা মুভি দেখিনা। ছোত বেলায় দেখতাম, তাও কখনো এটা নেশার মতো ছিলো না। আর এখন তো কাজের চাপে সংবাদ ও দেখা হয় না।

মুক্তার সাহেব বলতে শুরু করলেন- তাহলে ‘বেলাশেষে’র মুভিটা র একটু কাহিনী বলি। হয়তো ব্যাপারটা আপনাকে আরো পরিষ্কার ধারন দিতে পারে।

৬৫ বছরের স্বামী আর ৬০ বছরের স্ত্রী। অনেক নাতি-নাত্নি, মেয়ের জামাই, ছেলেরা মেয়েরা সবাই একসঙ্গে মিলিত হয়েছেন গুরুতর এক সমস্যা নিয়ে। সমস্যাটা হল, স্বামী বলেছেন তিনি এই বয়সে এসে তার স্ত্রীর সঙ্গে পৃথক হতে চান এবং আরেকটি বিয়ে করতে চান। এই বুডো মানুষটির সিদ্ধান্তে অনেকেই হতবাক হলেও কেউ কেউ রাজি আবার কেউ কেউ রাজি নয়। যারা এই সিদ্ধান্তে রাজী না, তারা হতবাক হচ্ছেন, এই বয়সে কেন তিনি এমন একটা সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। ফলে নায়নাতকুর, ছেলেমেয়ে, মেয়ের জামাই সবাই মিলে পরিকল্পনা করলেন, ঠিক আছে অসুবিধা নাই, তবে তারা নিজেরা একঘরে কয়েক সপ্তায় নিজেরা নিজেরাই আলাপ আলোচনা করুক, ভাবুক, দেখুক তারপর নিজেরাই সিদ্ধান্ত নিক কোনটা করা উচিৎ। বুড়া-বুড়িও সম্মতি দিলেন, ঝগড়াতো আর হয় নাই, স্বামী স্ত্রীই তো। তাদের জন্য আলাদা ঘর দেওয়া হল, একদম নিরিবিলি পরিবেশ। কেউ তাদেরকে বিরক্ত করার নাই। কিন্তু সবাই এর মধ্যে একটা কাজ খুব গোপনে করে রাখলো। আর তা হচ্ছে তাদের রুমে গোপন একটা ক্যামেরা লাগিয়ে দিল এই দুই বুড়া বুড়ি কি কথা বলে তা দেখার জন্য। যখনই এই দুই বুড়া বুড়ি তাদের কথাবার্তা বলেন, তখনই দলবেধে অন্য বাড়ি থেকে সবাই মিলে ভিডিওতে তা প্রত্যক্ষ করেন।

পঞ্চাশ বছরের বিয়ের সেই অভিজ্ঞতার কথা, ভাল লাগার কথা, একসঙ্গে কষ্টের কথা, দুঃখের কথা, তাদের মিল অমিলের কথা, রাগের কথা, ভালোবাসার কথা একের পর এক তারা দুইজনে নিরিবিলি একত্রে বসে আলাপ করেন। আর সবাই তাদের এইসব অভিজ্ঞতার কথা শুনে কখনো অন্য সবাই হাসেন, কখনো চোখ মুছেন, কখনো অবাক হয়ে চুপ করে থাকেন। তারা সবাই একটা জিনিষ বুঝতে পারেন যে, সব স্বামীর কাছে তার সংসারটা এক রকমের, আর স্ত্রীর কাছে তার সংসারটা আরেক রকমের। কিন্তু কেউই যে ভুল নন তা ঠিক। স্বামীর কাছে দাম্পত্য জীবনের ভালোবাসাটা এক রকমের আর স্ত্রীর কাছে স্বামী আর সংসারের জন্য ভালোবাসাটা আরেক রকমের। একজন মায়াবী স্বামী সব সময়ই চেয়েছেন, তার অবর্তমানে তার আদরের স্ত্রীর যেনো কোনো কষ্ট না হয়, সে যেনো কারো কাছে হেয়ালীর পাত্র না হন, তার আদুরী স্ত্রী যেনো কোনো অর্থকরী কিংবা সুন্দর জীবন চালানোর জন্য কারো কাছে হাত না পাতেন। সেই দিকটা খেয়াল করে এই ভরষাযুক্ত স্বামী সব সময় চান তার স্ত্রীকে সাবলম্বি করে তুলতে। ফলে স্বামী সব সময়ই চেয়েছেন তার স্ত্রী এটা জানুক যে, তার স্বামী কোথায় কিভাবে কত রোজগার করেন, কত সঞ্চয় করেন, আর কিভাবে সেই কষ্টার্জিত সঞ্চয় থেকে কিভাবে তিনি তার স্ত্রীর মংগলের জন্য কি করছেন এবং তার পুরুপুরী এই পরিকল্পনার অংশ হয়ে যেনো তার স্ত্রী এটা খেয়াল করে সে মোতাবেক প্রস্তুতি নেন এবং তার উপর পারদর্শী হন। অন্যদিকে এই স্বামী দেখছে, তার স্ত্রী তার এইসব ব্যাপারে একেবারেই উদাসীন হয়ে তাদের সংসারে বেড়ে উঠা ছেলেমেয়ে, নাতি নাতকুর কিভাবে মানুষ হবে, কিভাবে আরামে থাকবে, কিভাবে নিরাপদ থাকবে ইত্যাদি নিয়েই বেশি নজর। স্বামীর কাছে ভালো লাগা ছিল বউকে নিয়া কোথাও রোমাঞ্চের উদ্দেশ্যে একা একা বেরিয়ে পড়া, কিন্তু স্ত্রীর কাছে যেনো সেই রোমাঞ্চের থেকে বেশী জরুরী ছিলো ছেলেমেয়েদের পড়াশুনা, তাদের কোচিং ক্লাস, তাদের স্বাস্থ্য, তার নিজের ঘর কন্নার কাজ, আত্মীয় সজনদের সেবা শশ্রুসা ইত্যাদির মধ্যে একটা বন্ধন স্রিস্টির লক্ষে সবাই মিলে পারিবারিক সময় কাটানো। স্বামী চেয়েছেন স্ত্রীর কাছ থেকে অনেকটা সময় যে সময়টা তারা ভালোবাসার কথা বলবে, পুরানো দিনের কথা বলবে, কোনো একটা সিনেমা দেখতে দেখতে মন ভরে আনন্দ করবে, বিখ্যাত কোনো কবির কবিতা পড়ে পড়ে তার অন্তর্নিহিত ভাবধারায় সিঞ্চিত হবেন। কিন্তু স্ত্রী তার পরিবারের সবার দিকে একসঙ্গে খেয়াল রাখতে গিয়ে, ছেলেমেয়েদের পরাশুনার দেখভাল করতে গিয়ে, অসুস্থ শ্বশুর শাশুড়ির দিকে নজর দিতে গিয়ে অধিকাংশ সময়টাই চলে গেছে অকাহ্নে, স্বামীর জন্য অফুরন্ত সময়টা আর তিনি বের করতে পারেন নাই। কেউ দুষী নন, কারো চাওয়ার মধ্যেই অতিরঞ্জিত ছিলো না। অথচ তারা যেনো কোথায় সুখি নন। তারপরেও তারা বহুকাল এই কম্প্রোমাইজের মধ্যেই একটু রাগ, একটু অভিমান, একটু গোস্যা আর বিস্তর জায়গা জুড়ে পরস্পরের ভালোবাসাটা এক সময় অভ্যাসে পরিনত হয়, তখন অভ্যাসটাই যেনো ভালোবাসা। স্বামীর টয়লেট করে আসার পর যে গন্ধটা একদিন স্ত্রীর কাছে দূর্গন্ধ মনে হতো, স্বামীর ঘামের গন্ধে ভরপুর যে গেঞ্জীটা একদিন নাকের কাছে নিলে একটা শুকনা বাজে গন্ধ বলে মনে হতো, একদিন সেই টয়লেটের গন্ধ, ঘামের দূর্গন্ধ আর দুর্গন্ধ মনে হয় না। অন্যদিকে স্ত্রীর ঘুমের মধ্যে ডাকা নাকের শব্ধ যখন কোনো একদিন এতোটাই অসহ্য মনে হতো, বিরক্তিকর মনে হতো, চুলে আধা ভেজা তেলের যে গন্ধ একদিন স্বামীর নাক বুঝে আসতো, সময়ের এতোটা পথ বেয়ে যখন সব গুলি ভালোবাসা একটা অভ্যাসে পরিনত হয়ে যায়, তখন স্ত্রীর সেই নাক ডাকা, আধাভেজা চুলের গন্ধ যেনো একটা সুখের পরশ মনের ভিতর প্রবাহিত হয়ে যায়। এই তো সে তো কাছেই আছে। ৯০ বছরের কোনো এক প্রোড় বুড়ো, ৮৫ বছরের কোনো মহিলার সাথে যখন এক সাথে স্বামী স্ত্রী হিসাবে বসবাস করেন, তখন তাদের এই বয়সে এসে আর সেই যুবক যুবতীর মতো শরীরের চাহিদা, রুপের চাহিদা আর কাজ করে না। কিন্তু তাদের মধ্যে ভালোবাসাটা একটা বিশাল আকার পাহাড় সম ঠায় দাঁড়িয়ে থাকে। তাহলে সেখানে কি ফ্যাক্টরটা কাজ করে? কাজ করে নির্ভরতা, কাজ করে একে অপরের উপর শ্রদ্ধা, বিশ্বাস, মায়া আর মহব্বত। কাপা কাপা হাতে যখন ৮০ বছরের বুড়ি এক কাপ চা নিয়ে ৯০ বছরের তার স্বামীর কাছে কাপ খানা হাতে দেন, কিংবা পানের বাটিতে পান আর সুপারী ছেচে যখন এক খিলি পান স্বামী তার ৮০ বছরে সংগিনীর মুখে তুলে দেন, আসলে তিনি শুধু এক কাপ চা কিংবা এক খিলি পানই দেন না, দেন সারা জীবনের মহব্বত আর ভরষা যে, তুমি ছাড়া আমার আর কোনো বড় বন্ধু নাই। তুমি আমার ভরষা, তুমি আমার নিরাপত্তা, তুমি আমার স্বামী, কিংবা স্ত্রী, তুমি আমার পরামর্শদাতা, বিপদে আপদে তুমিই আমার ডাক্তার কিংবা নার্স। তুমিই আমার সব। ব্যস্ততম রাস্তায় যখন আমি রাস্তা পার হতে গিয়ে আমার বুক কাপে, তোমার হাত ধরলেই আমার সব কাপুনী বন্ধ হয়ে যায়। তুমি আমার মায়ার সংসার। বুকের সব পাজরে পাজরে তুমি গেথে থাকা আমার প্রতিটি নিঃশ্বাস আর চোখের প্রতিটি বিন্দুজলে নীল আকাশের গাংচিলের মতো তুমি খেলা করো আমার  অন্তরের এমন এক কোটরে যেখান থেকে তোমাকে আলাদা করার কোনো ক্ষমতা আমার নাই। বেলাশেষে তুমিই আমার আর আমি সেই তোমার।

এই যে কাহিনীটা, এটা আসলে আমাদের মতো এই বয়সের মানুষের। আমরা আমাদেরকে আবার সেই প্রথম দিনের মতো করে পেতে চাই, পেতে চাই অফুরন্ত সময়ের তোমাকে। কিন্তু সেই অফুরন্ত সময়ে তুমি আর নাই। আমি একাই খাই, খাবার টেবিলে আছে, তুমি ব্যস্ত অন্য কিছুতে, আমি একাই ঘুমাই, তুমি ব্যস্ত অফিশিয়াল কাজে হয়তো ফোনে, নয়তো মিটিং এ, আমি একাই সারাদিন ছুটি কাটাই, কারন তোমার আর সেই সময়টা হাতে নাই। আমার আজকে অনেক খুশীর দিন, অফিসে ভালো কাজ হয়েছে, সবাই প্রশংসা করেছে, অথচ তোমার সেই আগের উচ্ছাস নাই, হুম বলেই হয়তো এমন একতা গুরুতর সংবাদ নিমিষেই হালকা হয়ে যায়। গল্প করতেও আর গল্প এগোয় না। 

কখনো কি আপনার মনে এটা উদ্ভব হয় নাই যে, আপনার মতো এমন একজন ব্যক্তিত্তশীল মানুষের নামে এমন একটা পরকীয়া বিষয়ক খবর যদি রটে যায়, আপনার কেমন লাগবে বা কি হতে পারে? আমি মুক্তার সাহেবকে প্রশ্ন করলাম।

মুক্তার সাহেব তার যথারীতি খুব সাভাবিক বাচন ভংগীতে আমার প্রশ্নের উত্তরে বললেন- আপনার প্রশ্নের উত্তর দেয়ার আগে আমি কিছু যোগ করি। আপনি কি মনে করেন না যে, একই খবর কারো কাছে শুভ আবার কারো কাছে অশুভ হতে পারে? এটা একটা দৃষ্টিভঙ্গির ব্যাপার কে কিভাবে দেখে। একই জায়গায় মিলিত হওয়া মানুষের রাস্তা আলাদা আলাদা হতে পারে। একই পরিস্থিতিতে একজন জীবনে এগিয়ে চলে, আবার আরেকজন জীবনের অসহায় অবস্থার সাথে বোঝাপড়া করে। কেউ কেউ বিন্দু বিন্দু অর্থ সঞ্চয় করে নিজের সপ্ন পুরন করে, অন্যজন তার গড়া সপ্ন বিন্দু বিন্দু ভুলের কারনে নিরুপায় অবস্থায় জন্য তার সপ্ন ভাংতে শুরু করে। 

কোনো অপরাধই রাতারাতি জন্ম নেয় না। যখন কোনো অপরাধ হয়, তখন আমরা শুধু তার উপরের রুপটাই দেখতে পাই। কিন্তু তার শিকড় অন্য কোথাও অনেক গভীরে হয়। আর শিকড়ের সন্ধ্যান হয় পুলিশ করে অথবা কোনো সচেতন মানুষ। পুলিশ যখন তদন্ত করে তখন প্রতিটি মানুষকে সে যেভাবে দেখে তা হল, সবাই মুখোশ পড়া ক্রিমিনাল। আর যখন কোনো সচেতন মানুষ অপরাধের সন্ধ্যান করেন, তিনি চারিপাশ ভাবেন, দেখেন, বুঝেন, তারপর মন্তব্য করেন। প্রথমেই সবাই তাঁকে ক্রিমিনাল ভাবে না। ব্যাপারটায় আর কিছুই না, একটা পদ্ধতিগত আর দৃষ্টিভঙ্গির পার্থক্য। আমাকে যারা জানে, যারা চিনে, তারা হয়তো ব্যাপারটায় আমাকে না যতোটা দোষী ভাববেন, তার থেকে অনেক বেশী সহমর্মিতা নিয়ে নিজেরাও কষ্ট অনুভব করবেন। এটা শুধু আমার বেলায় নয়, আসমানীর জন্যেও। কারন আমার সেই পরিচিত গন্ডি না আমাকে না আসমানীকে কষ্টে দেখতে চায়। তারপরেও ঘটনা তো ঘটেই। একটা সময় আসে, দুজনকে একই পরিমান ভালোবাসা, শ্রদ্ধা কিংবা সম্মান দেখাতে চাইলেও তারা কোনো না কোনো পক্ষ অবলম্বন করবেই। আর সেটা নির্ভর করে তাদের নিজস্ব পার্সোনালিটির উপর। আপনার প্রশ্নের উত্তরে আমার মন্তব্য আর কিছুই না, শুধু জেনে রাখুন যে, জীবনের চেয়ে আর কোনো কিছুই বড় নয়। এ জীবন আছে বলেই আকাশ এতো সুন্দর, পাহাড় এতো ভালো লাগে, বৈশাখের ঝড় কিংবা টিনের চালের বৃষ্টির ধ্বনি এতো রোমান্টিক মনে হয়। যদি জীবনটাই দূর্বিসহ উঠে উঠে, তাহলে কেউ আপনাকে সম্মান করে সুসাধু খাবার দিলেই কি, বা আপাঙ্কে অতি সম্মানের জায়গায় বসিয়ে পুজা করলেই কি। আমি আমাকে নিয়ে ভেবেছি, অন্য কারোর জন্য আমি বাচতে চাইনি। এটা সবার বেলায় প্রযোয্য। হ্যা, মাঝে মাঝে তো খারাপ লাগেই, কিন্তু সেটা আমার ভাল সময় কাটানোর কাছে হয়তো কিছুই না। অন্তত ভালো ঘুম হয়, ভালো বোধ হয়। আমার ভালো লাগাটাই আমার কাছে জরুরী।

আমি মুক্তার সাহেবের যুক্তির মধ্যে যেনো পুরুটাই মিশে গিয়েছিলাম। উনাকে কি প্রশ্ন করবো আর কি প্রশ্ন করবো না সেটাই এখন আমার কাছে যেনো কঠিন বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। জীবনের অর্থ, জীবনের মাহাত্য, কিংবা জীবন সম্পর্কে একটা মানুষের কতো গভীরবোধ থাকতে পারে মুক্তার সাহেবের সাথে কথা বললে হয়তো আমি বুঝতামই না। আমার এই ছোট চাকুরী জীবনে এ রকম অনেক দাম্পত্য অভীযোগ নিয়ে অনেক পরিবারের সাথে আমার কথাবার্তা হয়েছে। সেখানে যেটা দেখেছি- একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে সারাক্ষন বিস্তর অভিযোগ তুলতেই থাকেন। অভিযোগ করেন নানান বিষয়ে। তারা নিজেদের অপরাধ বুঝতে চান না, তাই তাঁর অপরাধের পরিপ্রেক্ষিতে হাজারো যুক্তি, পালটা যুক্তিতে তর্ক বিতর্ক করতে থাকেন, লজিক দেখাতে থাকেন। অথচ এই প্রথম আমি এমন একটা দাম্পত্য কলহের অভিযোগ সামাল দিচ্ছি যেখানে না মুক্তার সাহেব একবারে জন্যেও তাঁর প্রতিপক্ষ আসমানীর কোনো দোষ দিয়ে নিজের সাফাই গাইছেন। উলটা বরং যতটুকু সম্ভব তিনি কোথাও কোথাও আসমানীকে ততোটাই ডিফেন্ড করছেন যে, আস্মনাঈর জন্যই তা অধিক জিতার কারন। কিন্তু এখানে মুক্তার সাহেব কিংবা হয়তো সাবিত্রী কেউ আসমানীকে দোষারুপ না করে জিততেও চাইছেন না। সব কিছু যেনো পৃথিবীর একটা রহস্যজনক নিয়মে একেবারে সিস্টেমের মধ্যেই হচ্ছে ভাবনাটা এরকমের। অপরাধ বোধ আছে কিন্তু সেটা অপরাধ করার জন্য না। অনুতপ্ত হচ্ছেন কিন্তু সেটা তাদের কারো দোষেই নয়। এখানে যেনো আসমানী, সাবিত্রী বা মুক্তার সাহেব তিন জনেই কোনো একটা রহস্যজনক পরিস্থিতির শিকার। আমি মুক্তার সাহেবকে আজকের জন্য আর কোনো প্রশ্ন করবো না বলে মনে মনে ভেবে নিয়েছি। তারপরেও আমি আবার মুক্তার সাহেবকে জিজ্ঞেস করলাম

জীবন সম্পর্কে আপনার ফিলোসোফি কি?

এতোক্ষনে মুক্তার সাহেব উচ্চস্বরে হেসে উঠলেন। আমি এ যাবত মুক্তার সাহেবকে মুচকি হাসি ছাড়া একবারো এতো উচ্চস্বরে হাসতে দেখিনি। তিনি আরেকটা সিগারেট ধরিয়ে আমার দিকেও প্যাকেট টা বাড়িয়ে দিয়ে বললেন- নিন একটা ধরান যদি অভ্যাস থাকে। সিগারেটে আমার অভ্যাস আছে কিন্তু মুক্তার সাহেবের সামনে অথবা অফিশিয়াল ফর্মালিটিজের কারনেই হোক আমি এখনো সিগারেট ধরাইনি। কিন্তু এবার মনে হলো, একটা সিগারেট খেতে খেতে মুক্তার সাহেবের কাছ থেকে জীবনের ফিলোসোফিটা শুনি। পাশেই কফির পট ছিলো, ফ্লাষ্কে গরম পানিও ছিলো। আমরা দুজনেই কফি খেতে খেতে আলাপ করছি। মুক্তার সাহেব কথা বলছেন।

– শোনেন, জীবন অনেক বড়। তাঁর ফিলোসোফি আরো বড়। প্রতিটি ক্ষেত্রেই এর ভিন্ন ভিন্ন ফিলোসোফি আছে। আমি তো আর নিজে ফিলোসোফার নই বা এ নিয়ে বিস্তর পড়াশুনাও করিনি যে, আমি সেগুলির একক মর্মাথ বলতে পারবো। তবে আমি জীবনকে নিয়ে অনেক গবেষনা করেছি, নিজে নিজে ভেবেছি, মানুষের চাল চলন লক্ষ করেছি। একটা সময় ছিলো আমি অযথা দোকানের সামনে বসে থাকতাম শুধু বিভিন্ন মানুষের আচার ব্যবহার দেখার জন্য। কে কখন কি পরিস্থিতিতে কি ব্যবহার করে সেটা প্রতিটি মানুষের বেলায় ভিন্ন। তবে যে ফিলোসোফিটা আমাকে সবচেয়ে বেশী তাড়ায় বা নাড়ায় সেটা হচ্ছে ভবিষ্যত।

যেমন ধরুন, আজ থেকে ১০০ বছর পর ঠিক এই সময়ে দেখতে পাবেন (যদিও আমরা কেউ সেটা দেখে যেতে পারবো না) আমাদের যুগের বেশীরভাগ অথবা প্রায় শতভাগ মানুষ আর এই পৃথিবীতেই নাই। হয়তো খুবই নগন্য কিছু সৌভাগ্যবান অথবা অন্যঅর্থে দূর্ভাগ্যবানও বলা যেতে পারে, তারা বার্ধক্যের বোঝা মাথায় নিয়ে ক্ষীনদৃষ্টি আর দূর্বল শরীরে এমন কিছুর জন্য অপেক্ষা করছে যা কখনোই তারা চায় নাই। যার নাম ‘মৃত্যু’। এই শতবর্ষে ক্যালেন্ডারের পাতা প্রতিদিন পালটে যাবে, তাঁর সাথে সাথে পালটে যাবে তারিখ, মাস, বছর এবং অতঃপর যুগ। কেউ এটাকে আমরা থামাতে পারি নাই, পারবোও না, আর কেউ (হোক সে কোনো প্রতাপশালী সেনাপতি, হোক সে চৌকস কোনো রাজনীতিবিদ বা রাষ্ট্রনায়ক, কোনো বিজ্ঞান কিংবা কোনো বিজ্ঞানি, কোনো সর্বোচ্চ পদধারী ধার্মিক নেতা কিংবা দূধর্ষ সন্ত্রাসী) এই অমোঘ প্রাকৃতিক নিয়মটাকে উপেক্ষা করে অগোচরেও পরিবর্তন করতে পারে নাই, আর করার কোনো ক্ষমতাও রাখে না। এটাই প্রকৃতি আর তার নিয়ম। আজ এই মুহুর্তে যারা পথেঘাটে পাশ দিয়ে হেটে যাচ্ছে, তাদের বেশীর ভাগ মানুষকেই আমি চিনি না। এদের কেউ হয়তো কোটটাই পড়া, কেউ হয়তো ফুটপাতে নোংরা চুলে বসা, আবার কেউ হয়তো আমার মতোই স্থবির। কোট টাই পড়া মানুষগুলিকে দেখে পথের ধারে বাস্তহারা মানুষ গুলি হয়তো ভাবছে-আহা কতই না সুখে আছেন তারা। আবার সেই কোট টাই পড়া মানুষটি হয়তো এই বাস্তহারা মানুষটার থেকেও অধিক দুক্ষে আছে, কে জানে?  মজার কিংবা অবাক করার বিষয় হচ্ছে-সময়ের পথ ধরে আমার আপনার পূর্ব পুরুষের কিংবা আমার আপনার প্রয়াত বন্ধুবান্ধবদের পথ ধরে এদেরই কেউ কেউ মহাশ্মশানের সারিসারি পাথরে নাম লেখা কোনো এক নাম ফলকের মধ্যেই এক সময় লুকিয়ে যাবে ঠিক সেইস্থানে যার কথা আমরা আজ ভাবতেও পারি না। সেখানে যেমন কোনো আধুনিক পোষাক বলতে কিছু থাকে না, আর না থাকে কোনো ধার্মিক ব্যক্তির আলখেল্লাটাও। অনেকের বেলায় হয়তো সেই নামফলকটাও থাকবে না। কোথায় আছেন তারা, কার জায়গায় আছেন তাঁরও কোনো হদিস হয়তো পাওয়া যাবে না। আজ যে শরীরটাকে প্রতিদিন নোংরা মনে করে দেশী বিদেশী সাবান শ্যাম্পু দিয়ে সুগন্ধী মাখছি, তখন এই শরীরের মধ্যে হাজারো পোকা মাকড়, কর্দমাক্ত মাটি, নোনা জল, অপরিষ্কার জলের সাথে ভেসে আসা দূর্গন্ধময় আবর্জনায় সারাটা শরীর ভেসে গেলেও তাকে আর সুগন্ধী কেনো, উম্মুক্ত হাত দিয়ে সরানোর মতোও আমাদের কোনো শক্তি থাকবে না। শরীরে মাংশ পচেগলে মিশে যাবে মাটির সাথে, হয়তো কোনো এক কুকুর কিংবা শিয়াল আমাদের শরীরের অবশিষ্ঠ হাড্ডিটি নিয়ে দূরে কোথাও পচে যাওয়া মাংশটুকু খাওয়ার জন্য দৌড়ে অদৃশ্য হয়ে যাবে। কার সেই কংকাল, কার সেই হাড্ডি, এই পৃথিবীর কোনো জীবন্ত মানুষের কাছে এর কোনো মুল্য নাই। যে ঘরটায় আমি সারাদিনের ক্লান্তি শেষে অবসাদ শরীর নিয়ে মুলায়েম বিছানায় গা হেলিয়ে দেই এখন, সেই ঘরটা হয়তো থাকবে অন্য কারো দখলে। কে তারা, কি তার পরিচয়, সেটাও হয়তো আমাদের জানা হবেনা। যে বাগানটায় আমি প্রায়ই পায়চারী করে করে আকাশ দেখতাম, গাছগাছালীর মধ্যে উড়ে আসা ভ্রমর কিংবা পোকামাকড় দেখতাম, সেই বাগানের দখল এখন কার দখলে কে জানে। বাগানের গাছগাছালীর পরিচর্যার নামে যে পোকামাকড়গুলিকে আমি বিষ দিয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা করতাম, আমি আজ তাদেরই দখলে। যে বাচ্চাদের মুখরীত কোলাহলে আমার ঘর ভরে থাকতো, যাদের আগমনে আমার মন পুলকিত হতো, আজ সেখানে অন্য কেউ মুখরীত হচ্ছে। কতই না সাবধানতায় আগলে রেখেছিলাম আমার সেইঘর, সেই লন, কিংবা আমার যতো আয়েশী জিনিষ, আজ সেগুলি আমার কিছুই নয়। আমার সুন্দুরী স্ত্রী যখন তাঁর লাল শাড়িটা পড়ার পর কিংবা আমিই যখন নতুন কোনো একটা ড্রেস পড়ে বারবার আয়নার সামনে গিয়ে কতবার দেখতে চেয়েছি-কেমন লাগে আমাকে, অথচ আজ সেই আমি বা আমার সেই সুন্দুরী স্ত্রী তাঁর চেহাড়া কেমন দেখায় কাফনের সেই ধবল পোষাকে সেটা দেখার কোনো পায়তারাও নাই। সেই বৃহৎ আয়নাটার আর কোনো মুল্য নাই আমার কাছে। হয়তো সেখানে অন্য কেউ এখন তাঁর চেহাড়া দেখছে, হয়তো লাল শাড়ির পরিবর্তে নীল বা টাইকোট পড়া কোনো এক পুরুষ একটা ভেষ্ট পড়া ব্যাকব্রাস চুলের মহড়া দিচ্ছে। যে গাড়িটা প্রতিদিন আমাকে মাইলকে মাইল ঠান্ডা কিংবা শীততাপ হাওয়ায় বসিয়ে, মিষ্টি মিষ্টি গান শুনিয়ে অন্য কোথাও নিয়ে গেছে, সেটা আর আমার কোনো প্রয়োজন নাই। না সে আমাকে আর খোজে। কি অবাক না? জীবন এতো নিষ্ঠুর?

উফ, আমি যতোই মুক্তার সাহেবের সাথে কথা বলছি, আমার ভিতরে কম্পন শুরু হয়। উনি যা বলছেন, নতুন কিছু বলছেন না। কিন্তু এখন তো আমার কাছে সবই জাগ্রত স্পন্দের মতো মনে হচ্ছে। আমার বুক কেপে উঠছে, আমার চোখ ভিজে আসছে। আমার ভয় লাগছে। মনে হচ্ছে-আমিও আমার গলা ফাটিয়ে সেই ভগবানের দিকে তাকিয়ে বলি-কেনো, কেনো তুমি আমাকে এতো অল্প সময়ের জন্য এতো কিছু দিয়েও নিয়ে যাচ্ছো? মুক্তার সাহেবের কথা শেষ হয় নাই। তিনি বলেই যাচ্ছেন-

-আমার খুব কষ্ট হয় যখন ভাবি যে, কখন কোথায় কাকে কাকে নিয়ে অথবা আমার নায়নাতকুর আত্তীয়স্বজন স্ত্রী পোলাপান নিয়ে কবে কোথায় কি আনন্দে মেতেছিলাম, সেই ইতিহাস আর কেউ কখনো মনেই রাখবে না। পাহাড়ের চূড়ায় উঠে কতটা পথ হেটেছিলাম, আর সেই হাটাপথে আমি কতটুকু ঘাম ঝড়িয়ে চূড়ায় উঠে কি তৃপ্তি পেয়ে কি আনন্দে কতটুকু আত্তহারা হয়েছিলাম, সেই তথ্য না কেউ জানবে, না কেউ জানার কোনো আগ্রহ দেখাবে। কার সাথে কি নিয়ে আমার মনোমালিন্য হয়েছিলো, বা কে আমাকে কতটুকু ভালোবেসে কি অবদান রেখেছিলো অথবা কার কোন আগ্রহে আমি কোথায় কি করেছিলাম, কার কারনে আমার অন্তরে জালা উঠেছিলো আর কার কারনে আমার দিন আর রাত একহয়ে গিয়েছিলো, সেই ইতিহাসের কোনো মুল্য আজ বেচে থাকা মানুষগুলির কাছে কোনো অর্থ বহন করে না। না তাদের কাছেও যাদের জন্য এসব অন্তর্জালা ঘটেছে। নতুন প্রজন্ম নতুন পরিবেশ, নতুন সব কাহিনীতে ভরে থাকবে বর্তমান আর আগামীর প্রজন্ম। সেই পুরাতন পরিবেশের কোনো স্থান থাকবে না আজকের এই পরিবর্তীত বন্ধুমহল পরিবেশে। হয়তো কোনো এক ছোট বালিকা আমাদের কথা শুনে, অথবা ভালোবেসে একগুচ্ছ ফুল নিয়ে আমাদের সেই সমাধিতে দাঁড়িয়ে একটু অন্যমনষ্ক হয়ে পুষ্পস্তবক দিতেও পারে কিন্তু সেটা নিছক একটা মুহুর্তের ইমোশনাল কারনে। সবার বেলায় এটা আবার নাও হতে পারে। কিংবা জন্ম জন্মান্তরের শেষে প্রজন্মের পর প্রজন্মের শেষে আমি এমন করে বিলীন হয়ে যাবো যে, সেই অবুজ বালিকার পরবর্তী প্রজন্ম হয়তো আর একটা বাশী ফুলও নিয়ে আমার সেই সমাধিতে দাঁড়াবে না। কারন আমি তাদের কোনো ইতিহাসের মধ্যেই নাই। চিরতরেই বিলীন।

আজ যে সেলফীটা অনেক যত্ন করে তোলা হয়েছে, হাসিমাখা মুখ, চুলের বাহার, পোষাকের পরিপাটিতা, সব কিছু ধীরে ধীরে সেই শতবর্ষ পরে এমন করে মলিন হয়ে যাবে, হয়তো দেখা যাবে, সেই ছবি পরে আছে এমন এক কোনায় যেখানে থাকে পরিত্যাক্ত কোনো কাগজ বা ময়লার বাক্স। কোনো একদিন সেটা হয়তো অপ্রয়োজনীয় হয়েই বেরিয়ে যাবে আমার সেই শখের ঘরের দরজা পেরিয়ে। আমার প্রতিদিনের নেশা সেই সোস্যাল মিডিয়া, হোয়াটসাপ, ইত্যাদি সব কিছু এক নিঃশ্বাসে বন্ধ হয়ে যাবে সারাদিনের আপডেট আর কাহিনি। যে অর্থের জন্য আমি প্রতিদিন সারাটা সময় শুধু পরিশ্রমই করে গেছি, যাদের জন্য আমার সারাটা দিন বাহিত হয়েছে, সেই অর্থ কিংবা মানুষগুলি আজ আমার কোনো কাজেই আসবে না। শতবছর পরে তো আমার অর্থে গড়া কোনো এক ইমারতের কোনো একটা ইটের মধ্যেও আমার কোনো নাম বা অস্তিত্ব থাকবে না। হোক সেটা আমার পরিশ্রমে গড়া কিংবা আমার নিজের। সেখানে হাত বদলে বদলে আমার অস্তিত্তের শেষ পেরেগটুকু মেরে সেখানে হয়তো কোনো এক লোকের নাম লিপিবদ্ধ হয়ে আছে। যেটা আজ আমার নামে পরিচিত, শত বছর পর সেটা আমার আর নাই, না সেটা আমার নামেও অহংকার করে।

কি অদ্ভুত না?

শত বছরের হিসাবে যেমন আমি আর নাই, হাজার বছরের হিসাবে তো আমি কখনোই নাই। তারপরেও আজ আমি অনেক ব্যস্ততায় দিন কাটাই আগামিকালের জন্য, প্রয়োজনে- অপ্রয়োজনে, ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় অন্যের ধন প্রকাশ্যে অথবা গোপনে চুরি করে বিত্তবান হবার পার্থিব জগতে সুখী হবার নিমিত্তে আগামীকালের শান্তির জন্য মগ্ন। অথচ আগামিকালটাই আমার না। এই পৃথিবী আমাকে কখনোই মনে রাখবে না। কারন সে আমাকে ভালোই বাসে নাই। অথচ আমি তাকে ভালোবেসেছিলাম আমার জীবনের থেকেও বেশী। আর এটাই এই পৃথিবী। আমার থেকেও অনেক নামীদামী রাজা, মহারথী সময়ের পথ ধরে বিশ্বকে দাপিয়ে গেছেন, তাদেরকেও এই প্রিথিবী মনে রাখে নাই। আসলে এই পৃথিবীর কোনো বর্ষাই আমার না, কোনো শরতই আমার না। এর গাছপালা, এর নীলাকাশ, এর সুগভীর সমুদ্র কিংবা ঘনসবুজ পাহাড় কোনো কিছুই আমার না। এই আসমানি, এই সাবিত্রীও আমার না। আমার ঘরটাও আমার না।

শতবছর পরে, আমি এক অচেনা, নামহীন, অস্তিত্বহীন মানুষ যে আজকের দিনে বহু ব্যস্ততার মধ্যে দিন কাটিয়ে কিছুটা সময় এই নীল আকাশ, ঘন সবুজ পাহাড় অথবা পাখীদের কিচির মিচির শুনেছিলাম। অথচ এই সময়ে এসে কোনো এক সন্ধ্যায় খুব জানতে ইচ্ছে করে কেউ কি কখনো এটা জানার জন্য উম্মুখ হয়ে জানতে চাবে আজ থেকে শত বছর আগে কি ঠিক এখানে কেউ বসেছিলো কিনা যেখানে আমি এখন বসে আছি? খুব জানতে ইচ্ছে করে-কে সেই ভাগ্যবান যুবক আজ থেকে ঠিক শতবর্ষ পরে এখানে বসে চা কিংবা কফি পান করছে? হয়তো দেখা হবে সবার সাথে কোনো এক নাম না জানা ময়দানে।

তাহলে আরেকটা অনেক বড় প্রশ্ন মনে জেগেই রইলো- আমার স্রিষ্টিকর্তা আমাকে কোন উদ্দেশ্য নিয়ে তাহলে এই বিশ্ব ভ্রমান্ডে পাঠিয়েছিল? What was the purpose of my life to be created by my Lord? সেটাই আসলে একটা রহস্যময় ফিলোসোফি। আমার সেটা জানা নাই।  

 

 

সাবিত্রীর জবানবন্দি

আমি মুক্তার সাহেবের সাথে গত গোটা সপ্তাহ কথা বলার পর বুঝেছিলাম, ঘটনার একটা পিঠের হয়তো কিছু অংশ আমি দেখছিলাম। আরো দুটু অধ্যায় আমার দেখার বাকী ছিলো। একটা পক্ষ ছিলো সাবিত্রী নিজে, আর আরেকটা পক্ষ ছিলো স্বয়ং আসমানী। যেহেতু অভিযোগটা এসেছিলো আসমানীর পক্ষ থেকে, ফলে আমি এবার সিদ্ধান্ত নিলাম, আসমানী জবানবন্দি নিবো সবার শেষে নিবো। তাহলে এবার সাবিত্রীর পালা। সাবিত্রীকে খবরটা জানাতেই সাবিত্রী আমার সাথে কথা বলতে রাজী হলো।

সকাল হতেই আমার মনটা বেশ উৎকণ্ঠায় ভরে ছিলো, কিন্তু কেনো আমার সেই উতকন্ঠা কিংবা কেনো আমি এতোটা চঞ্চল অনুভব করছিলাম সেটা আমি বুঝতে পারছিলাম না। এমনই একটা আবেশে আমি সাবিত্রীর বাসায় হাজির হয়েছিলাম। সাবিত্রীর কাছে আমার প্রথম যে প্রশ্নটা ছিলো-আপনি কি মুক্তার সাহেবের সাথে আপনার পরকীয়ার অভিযোগ স্বীকার করেন যা আসমানী বেগম করেছেন?

সাবিত্রী আমার এমন প্রশ্নে একটু মুচকী হেসে দিয়ে বল্লো-

-পরকীয়ার আসল সংগা আমি জানি না, তবে মুক্তারের সাথে আমার সম্পর্ক আছে সেটা অবাস্তব না। আর সেটা কোন অবৈধ সম্পর্ক বললে ভুল হবে। যদি আপনি আমাদের এই সম্পর্কের গোড়াপত্তন জানতে চান, তাহলে আপনাকে শুরু করতে হবে সেইদিন থেকে যেদিন আমার জীবন বলি দেয়া হয়েছিলো এই সমাজের আষ্টেপিষ্ঠে বাধা কিছু জঞ্জাল আইন কানুন। সেই দিনটা আমার জীবনে যেমন খুবই একটা স্পর্শকাতরের দিন ছিলো, আবার অন্যদিকে এই মানুষশাসিত নারীর প্রতি একতরফা ভারসাম্যহীন সমাজে টিকিয়ে রাখার জন্যেও আমার জীবন বলি দেয়ার একটা দিন ছিলো। আবার যদি বলি, এটা এমনো একটা দিন ছিলো যা কিনা কখনোই আমি হয়তো চাইনি। অথচ আমাকে এইদিনে সেই কাজটাই করতে হয়েছিলো যা আমি নিজের ইচ্ছায় করতেই চাই নাই। কারন আমি ইতিমধ্যে এই সমাজের মুখোসের আড়ালে যে মুখাবয়ব দেখেছিলাম যা এক কথায় যদি বলি সেটা হচ্ছে-মেয়েরা আজো আমাদের এই সমাজে একটা অলিখিত বোঝা। সেদিন আমি কোনো এক সিড়ি থেকে এমনভাবে পিছলে পড়ে গিয়েছিলাম এমন একটায় জায়গায় যেখান থেকে না আমি নিজে বা না আমার পরিবার অথবা আমার কেউ সজ্জন টেনে আবার সেই রাস্তাটায় তুলে দিতে পারে যেটা সঠিক রাস্তা। আমি কাউকে এর জন্য দোষারুপ করতে চাই না। কারন সেই সক্ষমতা আমার পরিবারের কারো ছিলোও না। তাহলে কি ছিলো সেই ঘটনা? আপনি কি তাহলে সেখান থেকে শুনতে চান? আমার পুরু জবান বন্দী শুনে আপ্নারা কে কি বিচার করবেন সেটা নিয়ে আমি মোটেই দুসচিন্তাগ্রস্থ নই, না আমি ব্যথিত। কিন্তু কোন ঘটনা কোন্দিকে কিভাবে মোর নিয়ে কোথায় কোন ঝড়ে পরিনত হয় কিংবা কোথায় তা টর্নেডোর রূপ নেয় সেটা হয়তো আপনি উপ্লব্ধি করলেও করতে পারেন।

আমি বুঝতে চাইলাম তাঁর সেই ঘটনা যেখান থেকে আজকের পরিস্থিতির সৃষ্টি। বললাম, আমার হাতে অঢেল সময় আছে, আপনি সময় নিয়ে বলতে পারেন। সাবিত্রী এবার তাঁর গল্পে মনোযোগ দিলেন-

-আমি তখন সবেমাত্র কিশোরী, কত হবে বয়স? হয়তো পনেরো কিংবা ষোল! আপনাদের শহুরে জীবনের সমাজের সাথে আমাদের গ্রামের জীবনের সমাজের মধ্যে এতো বিস্তর ফারাক যে, একই দেশ, একই আইন, একই সংবিধান তবুও কিছুই যেনো এক না। আপনি আপনার আদরের মেয়েকে লালন পালন করে ততোটুকু বড় করতে চান, কোন পর্যায়ে নিয়ে যেতে চান, যতটুকুতে আপনি ভাবেন, ততোটুকু করতে আপনি পিছপা হন না। যখন তাঁর সময় হয়েছে বিয়ে দেয়ার মনে করেন কিংবা ভাবেন-আপনার মেয়ে এবার নিজের পায়ে দাড়িয়েছে, তাঁর পাত্র খোজা দরকার, তখনই তাঁর জন্য যোগ্য পাত্র দেখা শুরু করেন। ছেলে পক্ষ থেকে শুরু করে পাত্রের চৌদ্দ গোষ্ঠী ই শুধু নয়, তাঁর ইহকাল পরকালের সমস্ত বৃত্তান্ত ঘেটে অতঃপর মেয়েকে বিয়ে দিতে রাজী হন। শুধু এখানেই শেষ নয়, মেয়ের মন নির্বাচিত পাত্রের জন্য রাজী কিনা সেটাও কয়েকবার তাকে প্রশ্ন করেন। আর পদ্ধতির বিস্তর সময়টা নেহায়েত কম নয়। হয়তোবা বিশ একুশ তো অতিক্রম করেই। কারো কারো বেলায় পচিশও অতিক্রম করে। আপনাদের সমাজে এই পচিশ বছরের অবিবাহিত মেয়েটিকে নিয়ে কেউ অশালীন মন্তব্য করে না, অন্যরকম চোখেও দেখে না। বরং সে যেনো একটা অধ্যাবশায়ের মধ্যে আছে, নিজেকে তৈরী করার পর্বে আছে, এমনটাই সবাই ভাবে। তাকে সম্মান করে, তাকে কেউ ঘুনাক্ষরেও বোঝা মনে করেনা। কিন্তু আমাদের বেলায়? আমাদের গ্রামের একটা মেয়ের বয়স যখন এগারো থেকে পনেরোতে উঠে যায়, সে তখন হয়ে উঠে লক্ষাধিক ওজনের একটা বোঝা। আমরাই আমাদের নিজের বোঝা বহন করতে পারি না। আমরা স্কুলে যাই শুধু পাশে একটা স্কুল আছে বলে, তাই। সেই স্কুলে যাওয়ার পিছনে আমার ক্যারিয়ারের কোনো পরিকল্পনা থাকে না, পড়াশুনা করে জজ ব্যারিষ্টার কিংবা ডাক্তার উকিল হবার স্বপ্ন থাকে না। যেটা থাকে সেটা যেনো কোনো রকমে বাজার সদাই করার হিসাবটা জানা। ব্যাপারটা এমন নয় যে, আমরা চাই না বড় হতে। এমন না যে, আমরা উন্নত জীবনের মর্ম বুঝি না। কিন্তু তাতে কি আসে যায়? আমাদের নিজস্ব কোনো চয়েজ নাই, নিজের কোনো স্বপ্ন নাই, না আছে কোনো শক্তি। এমন একটা পরিস্থিতিতে আমাদের অনেক কিছুই মেনে নিতে হয়। মেনে নিতে শিখতে হয়। আমিও সেটাই করতে বাধ্য হয়েছিলাম-আমার বিয়ে হয়ে গেলো এমন এক মানুষের সাথে যাকে আমি চিনতাম আমার জন্ম লগ্ন থেকেই। সে আমার খালাতো ভাই। তার সাথে আমার কখনোই এমন কোনো সম্পর্ক ছিলো না যাকে আমরা বলি-ভালোবাসা বা প্রেম। হয়তো তার পরিবারের উদারতা কিংবা আমার রুপের মুগ্ধতায় সে আমাকে বরন করতে চেয়েছিলো। কোনো অবস্থাতেই তার সাথে আমার যায় না, অন্তত বিয়ে করে সংসার করার মতো ব্যাপারে তো নাইই।

আমি সাবিত্রীকে কোনো প্রশ্ন করছিলাম না। আমি শুধু সাবিত্রীর মুখের দিকে তাকিয়েছিলাম আর শুনছিলাম সাবিত্রীর জীবনের গল্প।

-ইচ্ছের বিরুদ্ধে গিয়েই হোক আর সামাজিকতা রক্ষার জন্যই হোক, আমি তার সাথে শেষ পর্যন্ত বিয়ে নামক সম্পর্ককে মেনেই নিয়েছিলাম। পড়াশুনার প্রতি আমার প্রচন্ড একটা আকর্ষন ছিলো। কিন্তু তাতে কোনো লাভ হয় নাই। এখানে আরো একটা ব্যাপার না বললে হয়তো আমার অবস্থার কথাটা আপনি বুঝবেন না। আমার আরো তিনটা বোন ছিলো। আর ছিলো একটা ছোট ভাই। ভেবেছিলাম, আর যাইই হোক, আমার এই মেনে নেয়ার সিদ্ধান্তে আমার পরিবার বেচে যাবে একটা সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে, আমি বেচে যাবো একটা অপয়া অপবাদ থেকে, কারন আমি সমাজকে ভয় পাই। কিন্তু তখনো আমি একটা ব্যাপার বুঝতে পারি নাই যে, ইচ্ছের বিরুদ্ধে কোনো সম্পর্ক জুড়তে যাওয়া একটা ভয়ংকর পরিবেশের জন্ম দেয়। অনেক সময় প্রতিবেশি বা সমাজের সম্মান বাচানোর জন্য অনেক সময় এই ইচ্ছের বিরুদ্ধে সম্পর্ক গড়ে তোলতে হয় বটে কিন্তু সময়ের পাল্লায় এই সম্পর্ক একটা বোঝা হয়েই দাঁড়ায়। আমাদের সমাজে আজো এমন অনেক বিয়ে হয়ে থাকে যা শুধু পরিবারকে খুশি করার জন্য। যাকে অন্যের বাড়িতে পাঠানোর জন্য আমরা অনেক কিছু করতে পারি। আমরা তখন হাসিখুশী অববয়ব নিয়ে বিয়ের সব ফরমালিটিজ করে সুখী হবার ভান করি।

আমি সাবিত্রীকে এবার প্রশ্ন করি-তাহলে আপনি বিবাহিতা? কিন্তু আপনার এই বিবাহের খবর কি সবাই জানে? কারন, আমি যতটুকু শুনেছি- আপনি কখনোই বিবাহ করেন নাই। এমনটাই শোনা যায়।

সাবিত্রী আমার দিকে না তাকিয়েই ঘরের পূর্ব পাশের জানালা দিয়ে ওই দূরের মেঘলা আকাশের দিকে তাকিয়ে একটা দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে শুধু মাথানেড়ে উত্তর দিলো আর মুখে শুধু বল্লো

-ডিভোর্সী।

সাবিত্রী একটু চুপ থেকে আবার বলতে লাগলো-একটা জিনিষ কি কখনো উপলব্ধি করেছেন? বিয়ের সময় দেখানো খুসি আর ভালোবাসার অভিনয়ে এটা কখনোই প্রমানিত হয় নাই যে, ভবিষ্যতে এই সুম্পর্কের মধ্যে তিক্ততা বা ঘৃণা আসবে না। কখনো কখনো দেখা যায়, এই দেখানো ভালবাসা আর অভিনয় তাদের মধ্যে প্রকাশ্য ঘৃণা মারাত্তক বিষে রুপান্তরীত হয়। কেনো এমন হয়, আর কি না করলে এমন হতো না এতা আর আমাকে নতুন করে আপনাকে ব্যাখ্যা করার দরকার মনে করি না। এ সমাজের এমন ঘটনা বিরল তো নয়ই বরং অহরহ ঘটে যাচ্ছে আমাদের চারপাশে। এই মারাত্তক বিষ যখন ঘৃণার রুপে সম্পর্কের মধ্যে ঢোকে পড়ে, তখন সম্পর্কটায় তিক্ততার সীমা এমনভাবে ছাড়িয়ে যায়, যেখানে থাকে শুধু রাগ, জিদ আর আফসোস। ভিন্ন সমাজে কি হয় জানি না, তবে আমার কাছে বারবার মনে হয়েছে যে, যখনই এই সীমা বাড়তে বাড়তে অনেক বড় হয়ে সীমার বাইরে চলে যায়, তখন সতর্ক হওয়া প্রয়োজন যে এখন এই সম্পর্ককে শেষ করা উচিত। বুঝে শুনে বেরিয়ে আসা উচিত। যাতে তার আগে কোনো মারাত্তক অঘটন না ঘটে। কেননা প্রায়ই তিক্ত সম্পর্কগুলির ক্ষেত্রে বুদ্ধির জায়গায় হিংসা ঢোকে পড়ে, আর তখন কিসের সমাজ আর কিসের জীবন সেটার শোচনীয় পরাজয় ঘটে। নিজেকে শেষ করে দেয়া বা নিজের ঘৃণার মানুষটাকে শেষ করে দেয়াই যেনো মুখ্য হয়ে দাঁড়িয়ে যায়। এমন অনেক কিছু হয় যে, সেই দম্পতি যে একদিন ভালোবেসে কিংবা উদার মন নিয়ে খুব কাছে এসেছিলো, তারাই সম্পর্কের তিক্ততায় একজন আরেকজনকে চাকু, বন্ধুক চালাতে পিছপা হয় না। আমি সেটা পর্যন্ত আমার এই অসম দাম্পত্য জীবন চালিয়ে নিতে চাই নাই। কিন্তু আমার বাবা মা কখনোই আমার এই মনের ভিতরের আবেগটা বুঝতে চায় নাই। একটা বাবা মা যখন সন্তানের জন্য কোনটা ভালো আর কোনটা খারাপ এটা বুঝতে পারেন না, তাহলে সেই পরিবারে সেই সন্তান একটা অসুস্থ্য পরিবেশেই বড় হতে থাকে। আর অসুস্থ্য পরিবেশ শুধু সাস্থ্যকেই ক্ষতি করে না, মনকেও। আমি আমার নিজের মনের আওয়াজ শুনতে পেয়েছিলাম। এই জীবনে শুধুমাত্র একটা থাকার জায়গা হলেই হয় না, জীবনে বাচার জন্য নিঃশ্বাস ফেলার একটা জায়গাও লাগে। আমার কাছেও সেটাই একদিন চরমভাবে মনে হয়েছিলো যে, কিছু জিনিষ যা প্রতিনিয়ত মনকে কষ্ট দেয়, মানসিক শান্তি নষ্ট করে, সেসব কাহিনী চিরতরে ভুলে যাওয়াই ভালো। তাতে অন্তরে মানসিক কষ্টটা আর থাকে না।

-আমার জীবনের প্রতিটি দিন যেনো চলছিলো ঠিক এরকম যে, এক শিফটে উনুন, আর আরেক শিফটে বিছানায় কারো জন্যে অপেক্ষা করা যে কখনোই না আমার ছিলো, না আমি তার ছিলাম। এটাই কি গরিবের লাইফ। শ্বশুর বাড়িতে যে খালা আমার শাশুড়ি হিসাবে নতুন জন্ম হলো, তিনি ছাড়া আর কেউ যেনো আমার নয়। স্বামী সারাক্ষন বাইরে বাইরে থাকে, নেশার জগতে তাঁর এতোটাই বিচরন যে, কবে কি দিন, সেটার নাম পর্যন্ত তাঁর মনে থাকে না। যখন সে রাতে বাসায় আসে, মনে হয় শুধু শারিরীক চাহিদাটাই তাঁর প্রধান। সেটাও আমার স্বামীর পুরুপুরি ছিলো না। তারপরেও আমি চেষ্টা করেছিলাম মানিয়ে নেওয়ার। কিন্তু বারবার একটা কথাই আমার মনে, মাথায়, অন্তরে ঘুরপাক খাচ্ছিলো-আমার এই যৌবনের দাম, আমার এই জীবনের দাম যদি শুধু শরীর দিয়েই হয়, তাহলে আমি কেনো এমন জীবন বেছে নেই না যেখানে আমি অন্তত আমার মতো করে বেচে যেতে পারি? আর সেই বাচায় যদি কেউ আমাকে নিঃশ্বাস ফেলার একটা অবকাশও করে দেয়? কে চায় না তার জীবন আরো ভালো থাকুক?

-খুব বেশীদিন টিকে নাই আমার এই বৈবাহিক সম্পর্ক। আমি বদ্ধপরিকরভাবে একতরফা এবার নিজের জন্যেই নিজে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, যে জীবনকে সমাজ প্রোটেকশন দেয় না, যে সমাজ ব্যবস্থা আমার মতো কোনো নারীর দায়ভার গ্রহন করে না, যে সমাজে আমি নারী হয়ে একটা বোঝা ছাড়া আর কিছুই না, সে সমাজের কোনো আইন কিংবা নীতি আমার জন্যে না। আমার জীবন আমারই। আমি যদি বেচে থাকি, তাহলে সমাজ আছে, যদি আষ্টেপিষ্ঠে আমি প্রতিনিয়ত আমার সমস্ত অধিকার থেকে নিপীড়িত মানুষের মতো একটা পাশবিকবন্ধি জীবনই এই সমাজের নীতির কারনে মেনে নিয়ে সামনে এগুতে হয়, আমার সে জীবনের কোনো প্রয়োজন নাই, না সেটা আমার জীবন। আমার এ রকম সিদ্ধান্তের কারনে আমি ডিভোর্স চাইলাম। আমার এ সিদ্ধান্তে বারংবার বড় ছোট সবার কাছ থেকেই হরেক রকমের উপদেশ আর প্রশ্নের সম্মুখীন হইয়েছিলাম। কিন্তু সব উত্তর সবসময় তার প্রশ্নের ন্যায় বিচার করে না। বিশেষ করে প্রশ্নটা যখন এমন হয় যেটা মনকে প্রতিনিয়ত কুড়ে কুড়ে খায়, আর হৃদয়কে ছুড়ি দিয়ে ফালা ফালা করে দেয়। কোনো কোনো প্রশ্নের উত্তর যখন কারো জীবনের নাশ হয়ে দাঁড়ায় তখন সেই উত্তরের শেষ পরিনতি সম্পর্কে উত্তারদাতার অনেক ভেবেচিন্তে দেয়া উচিত। আমি আমার এই সম্পর্কের শেষ পরিনতি ইতিমধ্যেই জেনে গিয়েছিলাম যে, সমাজের চাপের কারনে নেয়া আমার সেই সম্পর্ক একদিন আমাকে অনেক চড়ামুল্য দিয়ে পরিশোধ করতে হবে। তখনো এই সমাজ আমার পাশে দাঁড়াবে না। তাই সবকিছু আমি অনেক ভেবে চিন্তেই আমার সিদ্ধান্তে অটল ছিলাম।

সাবিত্রী আমার দিকে তাকিয়ে আমাকে এবার প্রশ্ন করলো- আচ্ছা বলতে পারেন বিয়েটা আসলে কি? এটা কি শুধু সহবাস? কিংবা জন্মদানের একটা পদ্ধতি? নাকি এর বাইরেও কিছু আছে?

সাবিত্রী আমার উত্তরের জন্য বসে রইলো না। আমি উত্তর দিতে উদ্যত হলেও সাবিত্রী যেনো সেই উত্তরের জন্য অপেক্ষায় ছিলো না। হয়তো সে জানে এর উত্তর। সাবিত্রী তাঁর নিজের হাতের বালাটায় একবার সামনে, একবার পিছে করতে করতে বলতে থাকলো- 

-এমনিতেই প্রত্যেকটা মানুষ নিজের মতো করে বাচতে চায়। আর এই বাচার জন্য হয়তো অনেক আর্থিক ক্ষমতা না থাকলেও মানুষ যতটুকু ক্ষমতা আছে সেটার উপরেই ভরষা করে নিজের মতো করে নিজে বাচতে চায়। কিন্তু কিছু মানুষের মধ্যে কর্তৃত্ব করার প্রবনতা এমন বেশী থাকে যে, এই ধরনের প্রবৃত্তির কারনে অন্য কিছু মানুষ ধীরে ধীরে সবার কাছ থেকে আলাদা হয়ে যেতে থাকে। এক সময় তারা একাই হয়ে যায়। আমিও এক সময় মনে হলো-একাই আমি। আমি যদি আসলে একাই হই, তাহলে পরাজয়ের গ্লানী টানবো কেনো?

-আমি জানি, দুটু মানুষকে জুড়ে দিয়ে একটা নতুন জীবন দেয়ার এই প্রথার নাম বিয়ে। বিয়েও কিন্তু একটা কন্ট্রাক্ট, দায়িত্তের কন্ট্রাক্ট, সরকারী অনুমোদিত একটা কন্ট্রাক্ট। হতে পারে এই কন্ট্রাক্টের মাধ্যমেই দুটু পরিচিত বা অপরিচিত মানুষ একজন আরেকজনের হাত ধরে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার শপথ করে। কিন্তু কারো হাত ধরে সামনে এগিয়ে যাওয়া মানেই কিন্তু উন্নতির দিকে যাওয়া সেটা কিন্তু নয়। আগে খুব জানা দরকার, হাত ধরা মানুষটি কোথায় নিয়ে যাচ্ছে। সাফল্যের সপ্ন, জীবনের আশা আর পরিশ্রমের পথ যদি যাত্রার পথ একদিকে না হয়, তাহলে আর যাই হোক, সাফল্যকে হাতে পাওয়া যায় না। আই লাভ ইউ বললেই শুধু ভালোবাসা হয় না। ভালোবাসার বহির্প্রকাশ হয় তার কাজে আর বাস্তবে। অনেকে হয়তো আই লাভ ইউ বললেই ভাবে ভালোবাসা হয়ে গেলো, কিন্তু সেটা কি অন্তরের না শরীরে তা যাচাই করার কোনো দরকার মনে করে না। ভালোবাসা হচ্ছে সেটা যা কাছে থাকলে এর প্রয়োজন অনুভব করা যায় না, মনে হয় আছেই তো। কিন্তু যখনই চোখের আড়ালে যায়, মন শুধু আনচান করে আর প্রতীক্ষায় থাকে, কখন কাছে আসবে। ভালোবাসা, কোনো ড্রেস বা জুতা তো নয় যে ফিটিং হলো না আর শপিংমলে গিয়ে ফেরত দিয়ে আসবো। একটুখানি ময়লা হলো বা ফেটে গেলো তো আলমারীর ভিতর লুকিয়ে রাখলাম। কিন্তু ওই ড্রেস বা জুতু যদি ফিটই না হয় তো তাহলে আমরা কি করবো? আমরা তো সেটা পড়তেই পারবো না। আর যদি পড়তেই না পারি আবার ফেলতেও না পারি তাহলে তো আলমারী ছাড়া আর কোথায় রাখবো? তখন হয়ত অন্যদের মতো আমরা আরেকটা শার্ট বা ড্রেস কিনে পড়ে নেবো যা একদম ফিটিং। কিন্তু যেদিন আমি সমস্ত কিছু একপাশে রেখে ওর সাথে জীবন বেধেছিলাম, সেদিন থেকেই আমি পন করেছিলাম, যাইই হোক, আমি থাকবো। সেদিন থেকে আমি তো অন্য কারো কাছে যাওয়ার কথা ভাবতেই পারি নাই। কারো চোখে তাকানোর কথা ভাবতেই পারি নাই। অন্যের সাথে থাকা, অন্যের হাসি, অন্যের জন্য আমি তো কোনো সপ্নই দেখতে পারি নাই। কিন্তু পরিস্থিতি এমন এক পর্যায়ে আমার ভাগ্যকে নিয়ে দাড় করিয়েছিলো যে, আমি হয়তো ওর হাতটা আজীবন ধরেই রাখতে পারতাম, কিন্তু আমি বুঝতে পারছিলাম যে, সেক্ষেত্রে আমার হাতটাই হয়তো কাটা যাবে।

-আমি আমার হাত কাটতে চাইনি। আমি আমাদের সম্পর্কটাকে কেটে দিয়েছিলাম। আর সেটা ছিলো শুধুমাত্র আমার একার সিদ্ধান্ত। কিন্তু আমি জানতাম না, এর পরের কাহিনীটা কি। আমার কাছে কোনো আগাম পরিকল্পনা ছিলো না, না ছিলো কোনো উপায়। আমি বেরিয়ে পড়েছিলাম অজানা কোনো এক গন্তব্যের উদ্দেশ্যে। আমার মা আমার এরুপ সিদ্ধান্তে অনেক শংকায় ছিলেন। আমার বাবা আমার এহেনো সিদ্ধান্তে আমাকে তাঁর মেয়ে বলেই পরিচয় দিতে যেনো অস্বীকার করছিলেন। আমার বাকী বোনেরা খুব ছোট ছিলো না যে, তারা বুঝে নাই আমার কি অবস্থা। কিন্তু তাদেরই বা কি করনীয় ছিলো? তারাই তো আমার থেকে আরো বেশী অসহায়। আমার বেরিয়ে যাবার সাথে আমার মা আমাকে একা ছাড়তে চান নাই। আমি দাঁড়িয়ে ছিলাম, সেই ষ্টেশনের প্লাটফর্মে। আমি আমার গন্তব্য কোথায় আমি জানি না। আকাশ ভর্তি সাদা সাদা মেঘ এক জায়গা থেকে অন্যত্র উড়ে যাচ্ছিলো, দুপুরের রোদ তখন হালকা হয়ে আসছিলো, শান্ত এক অপরাহ্ণ কিন্তু আমার ভিতরে তখন চলছিলো ভয়ানক ঝড় যার নাম ভয়। কেউ কেউ আমার দিকে এমনভাবে তাকিয়েছিলো যার চাহনী আমি বুঝি। আমি নারী, আমি যুবতী, আমি তাদের নেশার চোখের অর্থ বুঝি। কেউ দয়ার অন্তর নিয়ে আমার দিকে হাত বাড়িয়ে দেয় নাই। না কেউ জানতে চেয়েছে, আমি এতো বিষন্ন কেনো। ঠিক এই সময়ে যে মানুষটি আমার দিকে এগিয়ে এসেছিলো- তাঁর নাম এই মুক্তার। প্রায় পঞ্চাশ বছরের একজন মানুষ কিন্তু বুঝার কোনো উপায় নাই তাঁর বয়স। পরিপাটি একটা জমকালো নীল শার্ট পড়া ভদ্রমানুষ এই প্রথম আমাকে জিজ্ঞেস করলেন-কে তুমি?

সাবিত্রী কথা বলতে বলতে যেনো হটাত একেবারেই থেমে গেলেন। ভরা নদীর জোয়ারের বানের মতো অকস্মাৎ সাবিত্রীর চোখের কোনে চিকচিক করা অশ্রু ফোতায় ফোটায় ঝরে পড়তে দেখলাম। সাবিত্রী কাদছে। আমি সাবিত্রীকে কিছুই বললাম না। সাবিত্রী তাঁর গায়ের ওড়না দিয়ে চোখের অশ্রুটা মুছলেন। চোখের পানির কোনো রঙ নাই। অন্তর পোড়া চোখের পানির রঙ যেমন, কষ্টে ভরা বেদনায় ঝরে পড়া চোখের পানিও একই রঙ এর। কে জানি বলেছিলো- বেদনার রঙ নাকি নীল। কিন্তু আমি সাবিত্রীর কষ্ট কিংবা বেদনায় সেই নীল রঙ দেখি নাই, শুধু দেখেছিলাম, আকাশটা বড্ড গোমরা আর সাবিত্রীর ভেজা চোখের দলায়িত পাপড়ি। আচ্ছা, সাবিত্রীরা কেনো কাদে?

বললাম-তারপর?

-সেদিন সেই প্লাটফর্মে দাঁড়িয়ে মুক্তার সাহেবের প্রশ্নের উত্তর কি দিয়েছিলাম, আমার আজ ষ্পষ্ট মনে নাই। কিন্তু আমার গলা ফাটিয়ে যেনো বলতে চেয়েছিলাম, আসলেই কে আমি? আমার অস্তিত্তই বা কি? আমার পরিচয়টাইবা কি? কারো মেয়ে? কারো বোন? কারো স্ত্রী? নাকি একটা শরীর যাকে ছিন্নভিন্ন করতে কাক, চিল, শকুনেরা তৈরী? আমার বর্তমানই যখন এতো ভয়ংকর, তাহলে ভবিষ্যত কি হবে আমার? হয়তো  আমি এই পৃথিবীর মধ্যে ভিনগ্রহের নাম না জানা এক অদ্ভুদ কেউ যা আমি নিজেও জানি না। তবে মুক্তার সাহেবের সেই ‘কে আমি’ এই প্রশ্নের মধ্যে যেনো সত্যিই একটা অবাক করার মতো সুর দেখেছিলাম। আমি তাঁর এই প্রশ্নের মধ্যেই যেনো ‘আমি’ লুকিয়েছিলাম। আমি তাঁর চোখের চাহনী পড়তে চেয়েছিলাম, আমি তাঁর আবেগের ভাষা পড়তে চেয়েছিলাম। অপরিচিত এককন্ঠ যেনো আমাকে চারিদিক থেকে আচ্ছন্ন করে ফেলেছিলো। খুবই অবাক হয়েছিলাম, মুক্তার সাহেবের জন্য। কিন্তু আমার অবাক হবার আরো অনেক কিছুর বাকি ছিলো। মুক্তার সাহেবকে দেখে আমার মা এমন একটা উত্তর দিলেন যা আমি কখনো ভাবি নাই। আমার মা যেনো এই সমগ্র অসহায় পৃথিবীতে এমন কাউকে দেখলেন যেনো অন্ধকার রাতের দিকবিদিক হারানো কোনো নাবিকের সঠিক দিক পাবার এক আলোকবিন্দু। আমার মা অনেকটা বিহব্বল নেত্রে তাঁর দিকে তাকিয়ে বললেন-

-ভাই এটা আমার মেয়ে, সাবিত্রী। কোথায় যাচ্ছে, কার কাছে যাচ্ছে, কি নিয়ে যাচ্ছে, কিছুই জানি না। শুধু এইটুকু জানি যে, সাবিত্রী ঘর ছড়ছে। এই যুবতী মেয়ে কোথায় যাচ্ছে, আমি ভয় পাচ্ছি, না জানি আবার কোথায় কি বিপদের মধ্যে পড়ে।

-সেই থেকে মুক্তার সাহেবের সাথে আমার পরিচয়। তাকে আমি আগে কখনোই দেখিনি। নাম শুনেছিলাম অনেক কিন্তু তাদের মতো মানুষেরা সবার সাথে যেমন মিশেন না, তেমনি অনেকেই তাদের অবস্থানের কথা ভেবে তারাও মিশতে হয়তো দিধা করেন। তিনি আমাদেরই গ্রামের এক বড় ব্যবসায়ী। আমার মা তাকে চিনতেন। আমাকে তিনি আমার নিজ গ্রামে ফিরে যেতে বললেন এই ভরষা দিয়ে যে, খুব অচীরেই তিনি আমাকে আমার মতো করে বাচার একটা সুযোগ করে দিবেন, আমি আবার পড়াশুনা করতে পারবো, নিজের পায়ে দাড়াতে পারবো। ব্যাপারটা ঘটে গিয়েছিলো একেবারে সবার অলক্ষ্যে। মুক্তার সাহেবের চোখে আমি অন্য কিছু কি সেদিন দেখেছিলাম যা অন্য দশটি পুরুষের মধ্যে দেখি? এটাও ভেবেছিলাম। কিন্তু আমার ভাবনায় একটা কঠিন ছেদ পড়েছিলো। আমি আজো সেই দিনটির কথা ভাবি আর মনকে এটা বুঝাতে সক্ষম হই, জীবন আমার, সমাজ আমার নয়, জীবনের সব দুঃখ আমার আর সেটা আমি সমাজ থেকে পেতে চাই না, জীবনের সুখ আমার আর সেই সুখ আমি নিজের জন্য তৈরী করবো, সমাজের কোনো নিয়মের মধ্যে নয়। কোনো এক ঝড়ের সময় আমার উপড়ে যাওয়া ঘর যখন ঝড়ের শেষে বিলীন হয়ে যায়, সমাজের প্রতিটি মানুষ পাশে এসে শুধু মুখে আর ঠোটেই আহাজারী করে কিন্তু পুনরায় মেরামত করে যে, একটুখানী সহায়তা করবে সেটা আমার এই সমাজ নয়। বরং আমার সেই অসহায়ত্তকে কেন্দ্র করে আমাকে লুটে পুটে খাওয়ার একটা প্লট তৈরী করবে। যদি সেটাই হয়, তাহলে তো আমার সেটাই করা উচিত যা আমার সেই বন্ধুটি আমাকে সম্মানের সাথে বাচাতে চেয়েছিলো। প্রতিদান একটা মনুষত্যের ব্যাপার, আমার যা আছে তার বিনিময়ে সে যদি সত্যিকারভাবেই আমাকে সমাজের বাইরে গিয়ে এমন একটা জীবন দান করে যেখানে এই সমাজেই আমি একজন প্রগতিশীল মানুষ, শুধু নারীই নই, আমি একজন নীতিনির্ধারকও বটে, অথবা এমন একটা জীবন যেখানে সমাজের সব আইন আর কানুন আমার পায়ের নীচে পদায়িত, তাহলে কেনো আমি শুকনো রুটি দিয়ে গলা ফাসাবো? আর জল চাই, আমার ভালো পরিবেশ চাই। জীবন তো একটাই। সেতো আমাকে এটাই বলেছিলো যে, “আমি শুধু তোমার পাশে থাকতে পারি কিন্তু লড়াইটা তোমার, তোমাকেই লড়তে হবে। এটা বিজনেস নয়, এটা তোমার লাইফ।“ আমি যেনো সম্বিত ফিরে পেয়েছিলাম।

আমি সাবিত্রীকে জিজ্ঞেস করলাম-তাহলে আপনি প্রথম থেকে নিজের ইচ্ছায় জেনে শুনেই কি মুক্তার সাহেবের সাথে একটা পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে যাচ্ছেন এটা জানতেন?

সাবিত্রী আড়চোখে আমার দিকে তাকিয়ে একটু মুচকী হাসি দিয়ে বললেন-

-‘সময়’ নতুন সম্পর্ক তৈরী করে। আবার “সময়” পুরানো সম্পর্ককে নতুন করে সাজিয়েও দেয়। তখন ওই সম্পর্ক যে আকার আর যে রুপ নিয়ে ফিরে আসে, সেখানে থাকে নতুন চেহারা, নতুন আবেগ, আর নতুন চরিত্র নিয়ে। কষ্টের সময় যারা পাশে থাকে, তারাই হয়তো নিজের ফ্যামিলি হয়ে যায়। সে এখন আমার প্রকৃত পরিবার। আমি ফিরে তাকাতে চেয়েছিলাম সেই গ্রামে, কিন্তু দেখেছি বারবার, গাছটা কেটে গিয়েছিলো হয়তো শিকরটা কেউ কাটতে পারে নাই সত্য। তারপরেও সেই শিকড়ের মায়ায় ঢালপালাহীন বৃক্ষ হয়ে ফিরে যাইনি সেখানে। গ্রামের সাথে আমার সাময়িক বিচ্ছেদ হয়ে গেলো।

আমি বললাম, তাহলে তো আপনি এখন একাই থাকেন। আর এখানে মুক্তার সাহেব নিশ্চয় আসেন, দেখা করেন এবং সময় কাটান, তাই না? আপ্নারা কি বিয়ে করেছেন দুজনে?

সাবিত্রী আমার প্রশ্ন গুলি যেনো আগে থেকেই জানে এমন মনে হলো। আমার এমন প্রশ্নে সাবিত্রী না চমকালো, না নার্ভাস হলো। সাবিত্রীর কাছে মুক্তার সাহেবের মধ্যে যে সম্পর্ক তৈরী হয়েছিল সে ব্যাপারে সাবিত্রী যেনো ঝকঝকে পরিষ্কার ধারনায় ছিলো। কোনো রাখঢাক না করে সাবিত্রী বলতে থাকলো-

-একটা ব্রেক আপ শুধুমাত্র একটা ইংগিত যে, জীবনে রোমান্স ছাড়াও আরো অনেক সুন্দর উপহার আছে। যেগুলিকে আমাদের চিনতে হবে, খুলতে হবে, আর পুরু উপভোগ করতে হবে। আমার জীবনে সে ছিলো ঠিক সে রকমের একটা ব্যক্তিত্ত। আমি নারী, আমার মুল্য কারো কাছে হয়তো ঠিক ততোটা যতোটা আমি সক্ষম অবস্থায় দিতে পারবো। কিন্তু তার কাছে “নারী” ছিলো একটা দায়িত্ত, একটা অপরুপ মায়ার ভান্ডার। কতোটা আমি দিতে চাই, অথবা দিতে ইচ্ছুক সেটা তার কাছে জরুরী ছিলো না, তার কাছে জরুরী ছিলো সেটা যেটা আমার দরকার। একটা সম্মানীত জীবন। সমাজের কাছে আমার মাথা উচু করে দাড়াবার সিড়ি। কিন্তু আমি জানি আমার কি দেবার ক্ষমতা ছিলো। আসলে আমার কাছে কিছুই দেবার ছিলো না তার জন্যে। যা দিতে পারি সেটা তার হাতের কাছেই সারাদিন গড়াগড়ি যায়।

-একটা জিনিষ কি জানেন? জীবনে কাকে কতটা জায়গা দেবো সেটা ঠিক করে ফেলতে পারলে জীবনে আর কোনো সমস্যাই থাকে না। আর কার সাথে কি কমিটমেন্ট করা দরকার তার যদি কোনো বাধ্যবাধকতা না থাকে, তখন জীবনের স্রোত সবসময় একই থাকে। পিছুটানের আর ভয় থাকে না। আর যখন পিছুটানের ভয় থাকে না, তার সামনে দ্রুত গতির শক্তিটাও ধীর গতি হয় না। যতোক্ষন যেটা ভালো লাগবে, ততোক্ষন সেটা চালিয়ে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। আর যদি কখনো তাতে কোনো উলটা স্রোতের আভাষ পাওয়া যায়, হয় তাকে সমাধান করতে হবে, নতুবা নিজের পায়ের শক্তিকে জোরদার করতে হবে। কখনো কখনো বিয়েটার দরকার পড়ে না, দরকার হয় একটা সম্পর্কের। আর এই সম্পর্কে তখন গজে উঠে একটা বন্ধুত্তের অভ্যাস, মায়া। তখন যেটা হয়, একজন আরেকজনের কষ্টে বা বিপদে অন্য জন ততোটাই কষ্ট আর বিপদে থাকে যতোটা সে থাকে। অনেক সময় ঠিকানা ভুল হয় কিন্তু ওই ঠিকানায় যারা থাকে তারা হয়তো ঠিক লোক। আর এটাই সেই ঠিকানা যেটা ভুল কিন্তু সেখানে যিনি আসেন বা থাকেন, তিনি আমার জীবনের জন্য সঠিক। ভুল ঠিকানায় আমার সমস্ত জীবনের সঠিক মানুষটি বাস করে।

-আপনি আমাদের বিয়ের কথা জানতে চেয়েছিলেন, তাই না? তাহলে শুনুন। সামাজিক রীতির মাধ্যমে বিয়ের বন্ধনে আবদ্ধ দুজন মানুষের মধ্যে কোনো একদিন তারা বিচ্ছেদ ঘটিয়ে মুক্ত হতে পারেন বটে, কিন্তু যখন সেটা ঘটেই না, তাহলে আপনি কিভাবে তা ভাংবেন? আমি এই সমাজের রীতির বাইরে গিয়ে তাঁরসাথে এমন এক সম্পর্কে নিজে চিরদিনের মতো আবদ্ধ হয়ে গেলাম, যেখানে আমি আছি আমার মতো করে, তিনি আছেন তাঁর মতো। অতীত ভুলে যাওয়া যায় না বটে কিন্তু সেই অতীত আমাকে যেনো আর কখনো দুক্ষে ভারাক্রান্ত না করতে পারে সেই বর্তমান আর ভবিষ্যৎ আজকের দিনের মানুষটি আমাকে সম্মানের সাথে গলায় পড়িয়ে দিয়েছে। আমি সুখে আছি। আজ সমাজ আমাকে ঘিরে নীতির ব্যাপারে পরামর্শ করতে চাইলেও আমি এই সমাজকে পরিবর্তনের কোনো উপদেশ দেই না কারন এই সমাজ কারো কোনো উপদেশ শুনে না, এই সমাজ কারো জন্যই কিছু করে না। যদি কেউ কিছু করতে দেখেন, বুঝবেন তাঁর সেই মহৎ উদ্দেশের পিছনে আছে কোনো সার্থপরতা। হতে পারে নাম ফলানোর জন্য, হতে পারে তা প্রচ্ছন্ন কোনো রাজনীতির এজেন্ডা বা হতে পারে তা তাঁর নিছক কোনো নেশা। অসহায় মানুষ গুলি সব সময় অসহায়ই ছিলো, আছে এবং থাকবে। কিন্তু ভগবানের একটা মজার কৌশল হলো-অসহায় মানুষ একদিন কারো না কারো হাত ধরে ঘুরে দাড়ায়ই, এটা সেই ভগবানের একটা লীলাখেলার ক্ষুদ্র অংশ। মুক্তার সাহেব ছিলেন, আমার ‘অলিখিত ভগবান’।

আমার স্পষ্ট মনে পড়লো, মুক্তার সাহেব তাঁর জবানবন্দীতে ঠিক এ রকম একটা শব্দ ব্যবহার করেছিলেন- ‘অলিখিত ভগবান’। সাবিত্রী নিজেও আজ ঠিক এ শব্দটাই ব্যবহার করলেন। খুব জানতে ইচ্ছে করলো এই ‘অলিখিত ভগবান’ কথাটার অর্থ আসলে কি? মুক্তার সাহেবের কাছ থেকে ব্যাপারটা জানতে চেয়েছিলাম, কিন্তু তাঁর কথার তোড়ে ব্যাপারটা আর জানা হয় নাই। ভালোই হলো, অন্তত সাবিত্রীর কাছে এটার বিশদ ব্যাখ্যা জানা যাবে। আমি সাবিত্রীকে প্রশ্ন করলাম, এই অলিখিত ভগবান মানে কি?

অনেক ক্ষন হলো আমি সাবিত্রীর বাসায় এসেছি। সাবিত্রী নিজেও আমাকে এ যাবত কোনো চা পানি দিয়ে আপ্যায়ন করে নি আর আমিও ব্যাপারটা নিয়ে মাথা ঘামাইনি। কিন্তু এখন মনে হলো, এক কাপ চা কিংবা কফি হলে ভালো হতো। সাবিত্রী আমার মনের কথা বুঝতে পারলো কিনা জানি না, কিন্তু সে আমাকে কথার এই ফাকে বল্লো- চলুন, এক কাপ চা খাই আর কথা বলি। ব্যাপারটা একেবারে কাকতালিয় হলেও আমার মনে হলো, সাবিত্রী আমার চায়ের তেষ্টাটা বুঝতে পেরেছে। কি জানি, আমার মুখের মধ্যে চায়ের চেষ্টা ফুটে উঠেছিলো কিনা আমি জানি না, আর কারো মুখে ক্লান্তির ছাপ বুঝা গেলেও চায়ের তেষ্টা কখনো ফুটে উঠে কিনা আমার জানা নাই। আমি মুচকী হেসে বললাম, কিভাবে বুঝলেন যে, আমার আসলেই চা পান করতে একটু ইচ্ছে হচ্ছিলো?

সাবিত্রী কিছুই না বলে রান্না ঘরের দিকে হেটে গেলো। আমি সাবিত্রীর চলে যাওয়া দেখতে দেখতে বারান্দায় বসে অন্য এক ভাবনায় যেনো ডুবে গেলাম। কি অবাক করার মতো এক সম্পর্কে জড়িয়ে আছে এই দুটু মানুষ। কারো কোনো আফসস নাই, কষ্ট নাই, কনো দুঃখবোধ নাই। তারা নিজেকে নিয়ে নিজেরা খুব ভাল আছে। তারা আশেপাশের কোনো মানুশকে বিরক্ত করে না, কাউকে তাদের এই কষ্টের কিংবা সুখের সাথে ভাগাভাগিও করে না। এমন নয় যে, মুক্তার সাহেব তাঁর নিজের পরিবারকে সময় দেন না বা তাঁর দায়িত্তে কোনো অবহেলা করছেন। তাঁর ব্যবসায়িক কাজেও তিনি যে হেরে যাচ্ছেন তাও না। কোথাও কোনো গড়মিল নাই কিন্তু ব্যাপারটা সাভাবিক ভাবেও সমাজ মেনে নিচ্ছে না। হটাতই মনে হল, আমার কি এই তিনজনের বাইরেও অন্য কোনো কারো সাথে তাদের এমন সম্পর্কের ব্যাপারটা নিয়ে আরো গভীর তথ্য নেয়া দরকার? যেমন, মুক্তার সাহেবের ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে কিংবা সাবিত্রীর বন্ধু মহলের কাউকে? হতেও তো পারে যে, মুক্তার সাহেবের সাথে সাবিত্রীর এই সম্পর্কের কারনে অন্য কোথাও কিছু না কিছু প্রভাব ফেলছেই? ব্যাপারটা মাথায় এবং আমার নত বইয়ে লিখে রাখলাম।

-এই নিন চা। সাবিত্রী চা বানিয়ে নিয়ে এসছে। সাথে কয়েকটা ভাজা কিছু।

আমরা ভাজা পুড়ি খেতে খেতে চায়ে চুমুক দিচ্ছিলাম।

সাবিত্রী কথা শুরু করলো আবার।

-অলিখিত ভগবান নিয়ে কি যেনো বলছিলেন আপনি?

আমি বললাম, এই শব্দটা আমি মুক্তার সাহেবের কাছ থেকেও একবার শুনেছিলাম। আবার আপ্নিও ঠিক একই শব্দ ব্যবহার করলেন। ব্যাপারটা আমার কাছে খুব রহস্যময় মনে হলেও খুব ইন্টারেষ্টিং বলে মনে হচ্ছে। যদি আপনি এই ‘অলিখিত ভগবান’ মানে কি বলতেন, তাহলে হয়তো আরো ভালো করে আমি আপনাদের সম্পর্কটার ব্যাপারে বুঝতে পারতাম।

সাবিত্রী আমার দিকে তাকিয়ে বললেন- মুক্তার সাহেব আপনাকে এই ‘অলিখিত ভগবান’ নিয়ে কি ব্যাখ্যা দিয়েছে, আগে সেটা শুনি।

আমি বললাম, মুক্তার সাহেব এই অলিখিত ভগবান শব্দটার কোনো ব্যাখ্যা দেন নাই। এড়িয়ে গেছেন।

সাবিত্রী হাসলো। তারপর বলতে থাকলো,

-দিন হোক আর রাত হোক, প্রাকৃতিক দূর্যোগ থাকুক আর নাইবা থাকুক, কোনো এক “লক্ষ্য”কে সফল করার জন্য যখন কেউ যাত্রা করে, আর যাত্রার পথে যখন সে কোন এক চৌরাস্তার মধ্যে এসে দাড়ায়, তখন লক্ষ্যের দিকে যেতে সে কোন রাস্তা বেছে নিবে সেটা নির্ভর করে রাস্তাটা সে চিনে কিনা বা তার ধারনা আছে কিনা। যদি জানা থাকে, তাহলে মুল লক্ষ্যে যেতে কোন অসুবিধা নাই, কিন্তু যদি সঠিক নিশানা জানা না থাকে, তাহলে তার ভুল রাস্তা বেছে নেবার কারনে তার মুল লক্ষ্য তো দূরের কথা ভুল রাস্তায় গিয়ে আরো কতই না বিড়ম্বনায় পড়তে হতে পারে, সেটা সে ঐ চৌরাস্তায় দাঁড়িয়ে কল্পনাও করতে পারে না। যে যাত্রার উদ্দেশ্য ছিলো মুল লক্ষ্যে পৌঁছানো, তখন আর তার সেই মুল জায়গায় পৌঁছানো হয়ত হয়ে উঠেই না, বরং এরপর থেকেই শুরু হয় প্রতিটি পদক্ষেপ ভুলে ভরা বিড়ম্বনা।  আর সেখানে পৌছতেই যদি না পারা যায়, তাহলে সেই সব যাত্রার কোন মুল্য নাই। তাই চৌরাস্তায় এসে কোনটা নিজের মুল গন্তব্যের রাস্তা তা জানা খুবই প্রয়োজন। নিজের এই চৌরাস্তার সঠিক দিক না জানার কারনে চলার পথে অনেকের কাছেই হয়তো আপনি সঠিক নিশানার দিক জানতে চাইতেই পারেন, কিন্তু সবাই যে আপনাকে সঠিক নিশানা দিতে পারবেন এটাও সঠিক না। হতে পারে কিছু আনাড়ি অপরিপক্ক আর অনভিজ্ঞ জ্ঞানহীন মানুষ সর্বজান্তার মতো মনে মনে আন্দাজ করে আর বুদ্ধিদীপ্ত কালো মুখোশ নিয়ে জ্ঞান গম্ভীর বিবেচনায় আপনাকে একটা ভুল রাস্তার দিকে প্রবেশ করিয়ে দিল। তার তো কোনো ক্ষতি হলো না, কিন্তু তাকে আপনি বিশ্বাস করে আপনি যে ক্ষতির মুখে পতিত হলেন, সেটার মাশুল অনেক বড়। আপনি না জানার কারনে ইচ্ছেমতো আন্দাজ করে যদি ভুল রাস্তায়ও যেতেন আর যতোটা ক্ষতিগ্রস্থ হতেন, এসব বিবেকহীন মানুষের কারনে আপনি একই রকম ক্ষতিগ্রস্থ হবেন সে ব্যাপারে কোনো সন্দেহের অবকাশ নাই। তাই, কোন পথটা সঠিক আর কোন পথটা সঠিক নয়, এটা জানা অতীব জরুরী মুল লক্ষে পৌঁছানোর জন্য। এখানে আরো একটা বিষয় মাথায় রাখা দরকার যে, আপনার গন্তব্যস্থানের দিক সঠিকভাবে দেখিয়ে দেয়ার জন্য যে সবসময় বয়স্ক আর বুদ্ধিজীবি মানুষেরই দরকার তা কিন্তু নয়, হতে পারে একটা আনাড়ি বাচ্চাও আপনাকে সঠিক দিকটা দেখিয়ে দিতে পারে যা কোনো বয়স্ক ব্যক্তি যার ঐ রাস্তাগুলির সঠিক গন্তব্য দিক সম্পর্কে কোনো ধারানাও নাই। যেহেতু আপনি চৌরাস্তায় দাঁড়িয়ে আছেন, এবং আপনি জানেন না কোনটা আপনার রাস্তা, সেহেতু কারো উপর না কারো উপর আপনাকে নির্ভর করতেই হবে। আমার নিজ গন্তব্যের রাস্তা জানা ছিলো না কিন্তু লক্ষ্যটা জানা ছিলো। আর সেটা হল, আমি ভালোভাবে বাচতে চাই। আমি এই ক্রান্তিলগ্নে সবচেয়ে যার উপরে বিশ্বাস স্থাপন করেছিলাম, সেটা আমার ঈশ্বর, আমার ভগবানের উপর। আর ঠিক সেই সময়েই আমার দেখা হয়েছিলো এই মুক্তার সাহেবের সাথে। তিনি হয়তো ভগবান নন, কিন্তু হয়তো আমার ঈশ্বর কিংবা ভগবান তাকেই প্রথম আমার পথের নিশানা খুজে দেয়ার লক্ষ্যে পাঠিয়েছিলেন। আমি ভুল গন্তব্যে পদার্পন করিনি। আমি অনেকবার মুক্তার সাহেবকে এ কথাতা বলেছিলাম যে, তিনিই আমার অলিখিত ভগবান। আমি ঈশ্বর দেখি নাই, আমি ভগবান দেখি নাই, কিন্তু আমি মুক্তার সাহেবকে দেখেছি। জানেন? আমি একবার মুক্তার সাহেবকে প্রশ্ন করেছিলাম- তিনি কি আমার শরীরের জন্যই আমাকে ধরে রেখেছেন? উনি খুব মন খারাপ করেছিলেন। অনেক দিন আর তিনি আমার কাছে আসেন নাই। কিন্তু যোগাযগ রেখেছেন, আমার সব দিক মাথায় রেখেছেন, আমার কোনো কিছুতেই কোন অসুবিধা হোক সেতা তিনি হতেই দেন নাই। কিন্তু অনেক দিন আর আমার কাছে আসেন নাই। আমার মনে অনেক বেদনা জমেছিলো, আমি পানি শুন্য বৃক্ষের মতো মরুভূমিতে শুকিয়ে যাচ্ছিলাম। আমি প্রতিদিন আমার অদৃশ্য ভগবানের কাছে শুধু একটা প্রার্থনাই করেছি- আমাকে আবার আরেকটা সুযগ দাও হে ঈশ্বর। মুক্তার সাহেব আবার এসেছিলেন যেনো আমার ঈশ্বর আমার সাথে কথা বলছেন, আমাকে জড়িয়ে ধরছেন, সমস্ত মায়া, মহব্বত আর আবেগের চাদর দিয়ে মুড়িয়ে দিয়ে বলেছেন- আমি আছি তো। কিন্তু আমি তোমাকে একটুও ভালোবাসি না।

সাবিত্রী থামলেন। চা খাওয়া হয়ে গিয়েছিলো আমার। খালী কাপটা নিয়ে সাবিত্রী আবারো রান্না ঘরে চলে গেলেন। আমি বারান্দায় বসে সাবিত্রীর রান্না ঘর থেকে টুং টাং শব্দ শুনতে পাচ্ছিলাম। কিছুক্ষন পর সাবিত্রী ফিরে এলো। আমি সাবিত্রীকে কোনো কিছু বলার আগেই প্রশ্ন করলাম- যদি মুক্তার সাহেব আপনাকে ভালই না বাসে, তাহলে উনি এখানে কিসের টানে আসতেন?

সাবিত্রী এবার আমার সামনের চেয়ারটায় বস্তে গিয়েও বসলেন না। আমাকে কিছুক্ষনের জন্য অপেক্ষা করতে বললেন। এই বলে সাবিত্রী তাঁর অন্য একটি ঘরে প্রবেশ করলেন। প্রায় পনেরো বিশ মিনিট পর সাবিত্রী আবার ফিরে এলেন। তাঁর হাতে একটি কাগজ। বুঝা যাচ্ছে, খুব যত্ন করে রাখা একটি কাগজের বান্ডেল। সাবিত্রী কাগজটা আমার হাতে দিয়ে বললেন,

-নিন এটা পড়ুন। যখন মুক্তার সাহেব অনেকদিন আর আমার কাছে আসেন নাই, তখন তিনি আমাকে একটা চিঠি লিখেছিলেন। এটা আসলে চিঠি না, এটা মুক্তার সাহেবের ডায়েরীর একটা পাতার অংশ। তিনি সব সময় ডায়েরী লিখেন। যখন তিনি অনেকদিন আমার কাছে আসা বন্ধ করলেন, তখন আমি একবার তাঁর অফিসে গিয়েছিলাম। তিনি অফিসে ছিলেন না। পরে তিনি এই লেখাটা আমাকে পাঠিয়েছিলেন। আমি অনেক যত্ন করে এই লেখাতা রেখে দিয়েছি। তিনি কাকে উদ্দেশ্য করে এই লেখাটা লিখেছিলেন, আমার জানা নাই, তবে এটা তাঁর মনের ভিতরের একটা কষ্টের অনুভুতি ছাড়া আর কিছুই না। আমার যখন মন খারাপ হয়, আমার যখন নিজেকে একাকি মনে হয়, আমি তখন এই চিঠিটা বারবার পড়ি। আপনি পড়তে থাকুন, এর ফাকে আমি দুপুরের রান্নাটা চুলায় দিয়ে আসি। শুধু কথা বললে তো আর হবে না, খেতেও তো হবে। বলে সাবিত্রী রান্নাঘরে চলে গেলেন।

আমি লেখাটা খুললাম। অনেক বড় একটা লেখা। কোনো সম্বোধন নাই, না আছে কোনো দিন তারিখ। কিন্তু প্রথম বাক্যটাই যেনো বাধ্য করে পুরু চিঠিটা পরার জন্য। আমি সিগারেট খাই, কিন্তু খুব কম। এখন মনে হলো আমার একটা সিগারেট ধরানোর দরকার। পকেটেই আমার সিগারেটের প্যাকেট ছিলো, সিগারেটটায় আগুন ধরিয়ে একটা টান দিয়ে আমি লেখাটা পড়তে থাকলাম।

ভালোবাসি না আমি কাউকেই।

আসলে ভালোবাসাটা কি? ভালবাসা কি কোনো দ্রব্য বা কোনো পদার্থ যা চোখে দেখা যায়, ছোয়া যায় বা স্পর্শ করা যায় বা মাপা যায়? এটা কি এমন কিছু যে, ষোল ছটাকে এক কেজি ভালোবাসা হয় অথবা এটা কি এমন কিছু যে, চার আনা এক গন্ডায় এক শতাংশ ভালোবাসা হয়? অথবা এটা কি এমন কিছু যে, পাখীরা জেগে উঠলে, তাদের কিচির মিচির শব্দে কোনো এক সকালে বা সন্ধ্যায় সন্ধ্যতারা আকাশে উদিত হলে ভালোবাসার জন্ম হয়? কোথাও কি কোনো মহামনিষী লিখে গেছেন, কি কি ভাব ভংগিতে, কোন কোন সুরে বা কোন কোন আবেগে ভালোবাসা প্রকাশ পায়? ৫৫ বছর বয়স পার হয়ে গেলো আমার, কিন্তু কোনো বিদ্যালয়, কোনো কলেজ, কোনো ধর্মালয় আমাকে কেঊ এই ভালোবাসার বিক্রয়কেন্দ্র অথবা বিনিময় ষ্টলের নাম দিতে পারলো না। আমি ভালোবাসাকে আজো চোখে দেখি নাই। অনেক দেশ ঘুরেছি আমি। সম্রাট শাহজাহানের গড়া তাজমহল দেখেছি, প্রিন্স আর্চ বিশপ ডাইট্রিচের প্রিন্সেস সালোমির জন্য গড়া মার্বেল প্যালেস দেখেছি, উইলিয়াম কেলী স্মিথের প্রথম ছেলে সন্তানের জন্য গড়া “ক্যালী কেসেল” দেখেছি। কিন্তু আমি ওখানেও কোনো ভালোবাসার শপিং মল অথবা ভালোবাসা কিনতে পাওয়া যায় এমন কোনো দোকান দেখিনি। যারা ভালোবাসা বুঝে, কিংবা ভালোবাসে, তারা কিছু না কিছু দিয়েই তাদের সেই অদেখা, অচেনা ভালোবাসার সৌধ নির্মান করে, কিছু না কিছু স্মৃতি রেখেই প্রমান করে গেছেন যে, তারা ভালোবেসেছে। কিন্তু আমি এদের মতো কোনো কিছুই করে দেখাতে পারিনি আমি ভালোবাসি কাউকে। এতো বড় বড় অট্টালিকা, তাজমহল, ক্যাসেল, গার্ডেন বানানোর আমার কোনো সামর্থ নাই।

আচ্ছা, ভালোবাসা কোথায় খুচরা কিনতে পাওয়া যায়? কোনো সুপার শপে? বা কোনো বড় মলে? অথবা কোনো কারখানায়? আমি তো অনেক মল, অনেক সুপার সপ কিংবা অনেক কারখানায় খুজেছি এই ভালোবাসাকে। অথচ আজো আমি কারো জন্যেই এক ছটাক, এক শতাংশ কিংবা এক পাউন্ড ভালোবাসা কিনে আনতে পারি নাই!! কোথাও পাইও নাই!! তাহলে আমি কি কখনো কাউকে ভালোবাসি নাই? হয়তো তাই। আমি কাউকেই ভালোবাসি নাই হয়তো। তোমাকেও না।

অথচ, আমি কি অবুঝ বারবার। আমি ওদেরকে না ভালোবেসে, বারবার শুধু ওদের জন্য দুশ্চিন্তায় দিন কাটাই। সারাক্ষন ভাবি, ওরা যেনো ভালো থাকে, ওরা যেনো আনন্দে থাকে। ওরা যেনো নিরাপদে থাকে। আর এটা ভেবেই আমি সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শুধু ওদের জন্য ঈশ্বরের কাছে ওদের সুস্বাস্থ্যের দোয়া করি। সমগ্র দুনিয়ায় যেন ওরা মাথা উচু করে নিজের সম্মানে দাড়াতে পারে তার জন্য অমানুষিক পরিশ্রম করে রোজগার করি। আমার অবর্তমানে যেনো ওরা থাকে সাবলম্বি, তারজন্য আমার সারাটা দিন, সারাটা মাস আর সারাটা জীবন নিজের সকল আরাম, আয়েশ, আর সৌখিনতাকে ত্যাগ করে ওদের জন্য সঞ্চয় করি। নিজের অচল হয়ে যাওয়া মোবাইল ফোনটা, কিংবা খষে যাওয়া জুতার সোউলটা বারবার সেলাই করে, ওদের শখের ইচ্ছাগুলি পুরনে সদা চেষ্টা করি। খাবারের টেবিলে বড় সুসাধু চিংড়ি মাছটি নিজের খেতে ইচ্ছে করলেও সেটা আমি ওদেরকে দিতে পছন্দ করি। দূর থেকে কয়েকদিন বিরহের সময়টা কাটানোর পর যখন তারা ঘরে ফিরে, এই তারা যখন অসুস্থ্যতা থেকে সুস্থ্য হয়ে ঘরে ফিরে, আমি তখন আনন্দে ওদের বুকে জড়িয়ে ধরি আর বুক ভাসিয়ে দেই আমার অবাধ্য চোখের জলে। কোথাও ওদেরকে একা ছাড়তে ভয় পাই। সাতার না জানা বা অল্প সাতার জানা ওরা যখন নদীর জলে নামতে চায়, তখন নিজের শরীরে জ্বর নিয়েও আমি ওদের সাথে পানিতে সঙ্গ দেই যেনো ওরা পানিতে ডুবে না যায়। নাইট কোচের কোনো গাড়িতে বসে আমি সারারাত না ঘুমিয়ে গাড়ি ঠিকমত নিরাপদে চলছে কিনা সেই পাহারায় ক্লান্ত শরীর নিয়েও সারাটা রাস্তা জেগেই থাকি। অথচ, ওদেরকে আমি ভালোবাসি কিনা সেটা সবাইকে দেখানোর জন্য আমি কোনো ইমারত তৈরী করতে পারিনা। কারন, আমার ভালোবাসা হয়তো রকমের সুউচ্চ ভবনের মতো নয়।   

আচ্ছা, মানুষ ভালবেসে কি কখনো কাদে? অথবা মানুষ ভালোবেসে কি খিলখিল করে হাসে? এমন কি হয় যে, মানুষ ভালোবেসে কারো জন্যে মন খারাপ করে বসে থাকে? শুনেছি, ভালোবাসায় নাকি কান্না থাকে, হাসি থাকে, বেদনা থাকে, থাকে আরো অনেক কষ্ট, বিরহ, আবার থাকে আনন্দও। আমারো রকম হয়। যখন সে আমার কাছে থাকে না, যখন ওর শরীর খারাপ হয়, যখন ওর মন খারাপ হয়, যখন কোনো কিছুর জন্যে ওদের চোখে পানি আসে, আমারো মন খারাপ হয়, আমারো চোখেও পানি আসে। যখন ওরা আমার থেকে দূরে থাকে, ওরা নিরাপদে আছে কিনা তারজন্যে আমার ভয় হয়। ওরা ঠিকমতো খেলো কিনা, ওরা ঠিকমতো ঘুমালো কিনা, ওরা ভাল আছে কিনা এই ভাবনায় আমি তখন ওদের জন্য ভিতরে ভিতরে কষ্ট পাই, ভয় পাই, চোখ ভিজে আসে কান্নায়। আমি ওদের মিস করি। যখন ভাবি, ওরা একদিন আমার থেকে দূরে চলে যাবে, আমি একা হয়ে যাবো, আমারো অনিশ্চিত বিরহে চোখে জল আসে।

এটা কি ভালোবাসা?

যদি এটাই হয় ভালোবাসা, তাহলে আমি শুধু এটুকুই বলতে পারি, তাজমহল নির্মান না করেও, কোনো ক্যাসেল তৈরী না করেও, কোনো অট্টালিকা, কোনো ব্যবিলনের মতো শুন্যদ্যান নির্মান না করেও, সবটুকু মহব্বত দিয়ে, আদর দিয়ে আমি তোমাদেরকে আজীবন শর্তবিহীন ভালোবাসি। যখন আমি তোমাদের উপর রাগ করি, সেটাও আমার ভালোবাসা। যখন আমি অভিমান করি, সেটাও আমার ভালোবাসা, যখন আমি গোস্যা করি সেটাও আমার ভালোবাসা। কারন, আমার সব রাগ বা অভিমানের সব কিছুতেই মিশে আছে কোনো না কোনো দুসচিন্তা, কোনো না কোনো ভয় আর মিশে আছে শতভাগ সেই শর্তহীন ভালোবাসা। আমার প্রতি আমার সেই বাবা মার এই ভালোবাসাটা বুঝতে আমি ৫৫ বছর পার করে বুঝেছি, ছোটবেলার তাদের সেই শাসনেও ভালোবাসা ছিলো, শৈশবের কোনো এক সাধ অপুরনে আমার পিতামাতার অন্তরের ভিতরের কষ্টেও ভালোবাসা ছিলো, স্কুলের পরীক্ষায় ভাল রেজাল্ট না করায় সেই রাগ অভিমানের মধ্যেও ভালোবাসাই ছিলো।

তারা আজ কেউ কোথাও নাই। অথচ, আমি আজ বুকভরা সেই ভালোবাসা নিয়ে বারবার ফিরে যেতে চাই সেই অজপাড়াগায়ে আমার সেই ভিটায় যেখানে কাদামাখা হাতে আমার মা একটা বেত নিয়ে দুরন্ত ছেলেটাকে নদী থেকে উঠে আসার মেকি রাগ মাখা চোখে অথচ সত্যিকারের ভালোবাসা নিয়ে পাড়ে দাঁড়িয়ে থাকতো। আর বলতো-“উঠে আয় বলছি? তা না হলে আয় একবার, এই বেতটা দিয়ে তোকে মারি”

হয়তো তোমরাও একদিন……

বার বার ফিরে আসে যুগে যুগে, এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্মে। কি অদ্ভুত ভালোবাসা, তাই না?  

লেখাটা এখানেই শেষ। কিন্তু আমি যেনো বিহব্বল নেত্রে একা বসে রইলাম। আমি মুক্তার সাহেবের মতো হয়তো লিখতে পারবো না তবে আমার চোখের সামনে যেনো এক বিস্তর জগত ভেসে উঠলো। আমার মায়ের কথা, আমার বাবার কথা, আমার সন্তানদের কথা, আমার পরিবারের সবার কথা। আমি যেনো আরেক মুক্তার সাহেব। তিনি যেনো আমার কথাগুলিই তাঁর সাবলীল ভাষায় এতো সুন্দর করে ফুটিয়ে তুলেছেন, যা আমিও বলতে চাই।

সাবিত্রী ফিরে এসেছে আবার। পাশের চেয়ারটায় হাত মুছতে মুছতে বলোও- খেয়ে যাবেন। রান্না বসিয়ে দিয়ে এসেছি।

আমি সাবিত্রীকে এবার প্রশ্ন করলাম-আপ্নি তো আসমানীর ব্যাপারটা জানতেন। মুক্তার সাহেবের স্ত্রী। কখনো কি তার ব্যাপারে ভাবেন নি যে, মুক্তার সাহেবের আপনার উপর এ হেনো সম্পর্কে তার কি প্রতিক্রিয়া হতে পারে?

সাবিত্রী কোনো প্রতিক্রিয়া না জানিয়েই আবারো একটু চুপ করে থেকে মুখ খুললেন। সাবিত্রী বলা শুরু করলেন যে,

– একটা সময় আসে, যখন মানুষ একা থাকতে চায়। আবার একটা সময় আসে মানুষ যখন একাকীত্বকে ভয় পায়। আবার একটা সময় আসে মানুষ বুঝতেই পারে না সেকি একা থাকতে চায় নাকি মানুষের ভীড়ে থাকতে চায়? মানুষ তখন থাকে খুব ঘোরের মধ্যে। ঘোরের মধ্যে থাকা অবস্থাটা একটা বিপদজনক। এটা পশুদের বেলায় হয় না। তাদের পেট ভরা তো সব কাহিনী শেষ। সে তখন কোনো এক নির্জন জঙ্গলে গাছের নীচে একাই ঘুমিয়ে যায় যতোক্ষন তার পেট আবার ক্ষুধার ইঙ্গিত না দেয়। তাদের কাছে কৃষ্ণচূড়ার পাতার রঙ অথবা গোলাপের গন্ধ অথবা মরা জীবের কোনো অসহ্য ঘ্রান কোনো কিছুই বদল করে না। শীত এলে তারা গুহা খোজে, আশ্রয় চায়। বর্ষায় ওরা ভিজে ভিজে একস্থান থেকে অন্যস্থানে পায়েপায়ে অনেক দূর চলে যায়। কোথা থেকে এলো আর কোথায় গিয়ে থামবে, এটা নিয়ে ওদের কোনো মাথা ব্যথা নাই।

কিন্তু মানুষের বেলায়, সে সমাজ চায়, সে মানববসতি চায়। সে নদীর কুল চায়, চায় নদীর সাথে সাথে সভ্যতাও। এই সভ্যতার রেস ধরে মানুষ স্বপ্ন দেখে, ভালোবাসার কথা বলে। একজন আরেকজনের থেকে সুখি, আর খুসি হতে চায়। প্রতিযোগিতা বাড়ে। পছন্দ অপছন্দের হরেক পদের বং বাহারের যুক্তি তুলে কত যে নাটক, সিরিয়াল করে, তার কোনো ইয়ত্তা নাই। সুন্দর থেকে সুন্দরতমের তপস্যা চলে এই মানুষদের। আর এই তপস্যার অন্তরজালে কত কিছুই যে ব্যতিক্রম হয়, কেনো হয় কিভাবে হয় সে রহস্য সন্ধানেও আমরা বেশীরভাগ সময়ে ব্যর্থ হই। প্রতিযোগিতায় সুন্দুরী মেয়েরা সুখের ঘর হারায়, আবার সবচেয়ে অসুন্দর কোনো এক পঙ্গু মহিলা দিব্যি সুখে সংসার করে বেড়ায়। অশিক্ষিত কোনো এক মায়ের কোল ঘেঁষে দুনিয়া কাপানো সন্তানের জন্ম হয়, আবার সবচেয়ে পরিকল্পিত শিক্ষিত মায়ের কোলেই হয়ত বেড়ে উঠে সমাজের সবচেয়ে ঘৃণিত মানুষটি। কেউ ভালোবাসে, অনেক সপ্নের ভিতর ডুব দিয়ে দিঘির জলের ভেসে বেড়ায়। কেউ কেউ আবার ঐ দিঘির জলের নীল চ্ছটায় কল্পনাকে ভাসিয়ে দিয়ে আকাশের নীলাভ মেঘ দেখে হয়ত ভাবে, কেউ কি তার জন্য অনেকদিন বাচতে চায়? কিংবা এমন কি কেউ আছে যে, তার সমস্তটা দিয়ে নিজের করে ভালোবাসে? সবুজ ক্ষেতের ধারে বসে কোন এক কল্পনায় কোনো এক অপরিচিত রাজপুত্রের সাক্ষাতে কত কথাই না বলাবলি করে। কিন্তু তা নিছক কল্পনার রাজ্যেই থেকে যায়। হয়ত কাউকে রাজপুত্র ভেবে মিথ্যা কোন প্ররোচনায় আবদ্ধ হয়ে সারাটি জীবন মিথ্যার মধ্যেই বসবাস করে। জানে, মনে কষ্ট, জানে হেরে গেছে, জানে এই পথ থেকে বেড়িয়ে যাবার আর কোনো রাস্তা নাই, তারপরেও জীবন তো, চলতেই থাকবে। কিন্তু কোথায় সে রাজপুত্র আর কোথায় গিয়ে এর শেষ? জোছনা রাতের চকচকে আকাশের তারার মেলায় পাখা মেলে ঝি ঝি পোকার মতো করে একগুচ্ছ ঝিনঝিন আওয়াজের মতো কতই না সঙ্গিত রচনা হয়ে আছে বুকের পাজরের মাঝে। যত্ন করে ধরে আছে ভালোবাসা। কিন্তু ঐ ভালোবাসা তো এক তরফা। যন্ত্রনা শুধু বাড়েই। ওটাই কি শেষ? এই মিথ্যা ভালোবাসায় কোনো অংশিদারিত্ত নাই, কম্প্রোমাইজ আছে কিন্তু এডজাস্টমেন্ট নেই, কান্না আছে অনুতাপের কিন্তু শান্তনা নাই, ব্যথা আছে কিন্তু বলার লোক নাই, এই ভালোবাসা শুধু খুসি রাখা আর কিছুই নাই। এখানে ভালোবাসার নির্ঘাত ভালোবাসার পচন ধরেছে। আর এই পচন শুরু হয়ছে অন্তর থেকে, তারপর শরীরে। আর যেদিন থেকে এই পচন শুরু হয়েছে সেদিন থেকেই অস্থিত্তের পচন ধরেছে। এখন নিজের বাড়িতে, নিজের সমাজে, নিজের গন্ডিতে কেউ তার সাথে থাকতে চায় না। পরাজয় হয় সারা জীবনের।

যে ভালোবাসায় জিততে চায়, তাকে ভালোবাসা দিতে জানতে হবে। আর যে ঘৃণাকে জিয়িয়ে রাখতে চায়, তাকে সাফল্য এনে সেই জায়গায় যেতে হবে যেখানে তাকে স্পর্শ করার আর কারো ক্ষমতাও নাই। দুটুই কঠিন কাজ। কিন্তু এমনো কেউ আছে, যে ভালবাসল, সে হয়ত ভালবাসায় জিততেই পারলো না। এর মানে কিন্তু এই নয় যে, সে ভালোবাসায় হেরে গেলো। হয়ত সে ভুল জায়গায় ভুল জিনিসের সন্ধান করেছে। আজ কোনো এক ভাগ্যের গুনে যদি অনাকাঙ্ক্ষিত ভালোবাসা ফেরত যায়, কাল সে ভালোবাসার কাঙ্গাল হয়েই হারে। অথচ এমনো মানুষ আছে, কখনোই ভালোবাসা কি জিনিস নিজেও জানে না কিন্তু নিজের অজান্তেই সে লক্ষ লক্ষ মানুষের হৃদয়ে এমন করে স্থান নিয়ে আছে যে, চারিদিকে ভালোবাসা শুধু মৌ মৌ করে বেড়ায়। এরা এক সময় সমাজ নিয়ন্ত্রন করে, এরা এক সময় সবাইকে নিয়ন্ত্রন করে। আর যখন এটা কেউ মানতে নারাজ হয়, তখন মনে হয়, ঐ যে একবার চুপি চুপি ভালোবাসা এসেছিলো, সেটাই ছিলো জীবনের সবচেয়ে সস্থির সময় যা দেমাগ আর অশালীন ব্যবহারে মানুষ দূরে ঠেলে দিয়েছে। অনুতাপের আর শেষ থাকে না তখন।

আসলে এই পৃথিবীর কোনো কিছুই আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নাই। আবার সব কিছুই আমাদের নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই আছে। কেউ কবি হতে চায়, কেউ বৈজ্ঞানিক হতে চায়, কেউ অনেক ধনী হতে চায়, কেউ রাজনীতিক হতে চায়। আসলে এইগুলি ইচ্ছের উপর কিছুই নিরভর করে না। আবার এইগুলি যে ইচ্ছের উপর নির্ভর করে না, তাও ঠিক নয়। কারন কোথাও না কোথাও এর একটা রদ বদলের পালা আছে। কোথাও না কোথাও এই যোগসূত্রের একটা টার্ন আছে। যা কিছুদুর পর্যন্ত দেখা যায়, আর বড় অংশটাই আমাদের নজরের মধ্যে নাই। সবচেয়ে ট্যালেন্টেড ছাত্রটি আজ হয়ত কোথাও কোনো এক বড় অফিসের কেরানীর চাকুরী করে। অথচ যে সময়ে তাকে ট্যালেন্টেড ভাবা হয়েছিলো, সেটার গতিপথ পাল্টে আরেক দিকে টার্ন নেওয়ার কারনেই আজ সে সাফল্যের যে চূরায় উঠার কথা ছিলো তার থেকে অনেক দূরে। আবার এমনো হতে পারে, ব্যাকবেঞ্চে বসে থাকা সবচেয়ে নিরীহ ছাত্রটি আজ বিসসের কাছে এতোটাই সমাদৃত যে, কোনো সুত্রই মিলছে না। এই সুত্রটাই মিলাতে হবে। কারন কোন কিছুই হতাত করে হয়ে উঠে না। প্রকৃতি তার ধর্ম কখনোই পাল্টায় না। সেই একইভাবে, যে বালকটি একদিন কবি হতে চেয়েছিলো, সে হয়ত আজ সবচেয়ে বড় সমাজসেবি, যে একদিন সমাজসেবি হতে চেয়েছিলো, সে হয়ত আজ কারো কারো জন্যে ত্রাস। যা ঘটে তা সময়ের বিবর্তনের পালাক্রমে কিন্তু প্রকৃতির নিয়মের মধ্যেই ঘটে। আজ যে রুপের কারনে আমি আপনি অহংকারী, মনে হয় পৃথিবী বুঝি আমার চরনতলে আছড়ে পড়লো। শত শত হিরো, শত শত সুশ্রী মানবীগন না জানি কতদিন কতরাত তাদের ঘুম হারাম করে রাত জেগে জেগে আমার কথা ভাবছে। এটা ভাবা সহজ। হয়ত এমনো হতে পারে, আমাদের এই আজকের দিনের সম্ভাব্য সবকিছু দেখেই কারো চোখ, কারো বুক, কারো লালসার অন্তরালে এমনই ভালবাসার জাল বানিয়ে অক্টোপাসের মতো ঘিড়ে ফেলেছে, যে, কোনটা ভালোবাসা আর কোনটা ছলনা, বুঝাই দায়। যাকে তোমার আরধ্য, হয়তো দেখা যাবে তোমার চেয়েও অতি কুৎসিত কোনো রমনী তোমার আরধ্য কোনো পুরুষ তার শয্যাশায়ী। ব্যাপারটা হারজিতের নয়, ব্যাপারটা মতবাদেরও নয়, ব্যাপারটা অনেকাংশেই বৈষয়িক, আর কিছুটা তপ্ত বাসনা। ব্যাপারটা পছন্দেরও না অনেকাংশে। যে জামাটি আমি অপছন্দ করে দোকানে রেখে দিয়েছি, হয়তো ওই জামাটাই আরেকজন হন্যে হয়ে খুজছেন।

আজকে যে ট্রেনটায় আপনি উঠেছেন, সে ট্রেনের যে ব্যক্তিটি আপনার হাত ধরে তুলে নিলো, হয়ত সেই ছিলো আপনার সেই আরধ্য মানুষ। আপনি তাকে দেখেছেন কিন্তু হয়তো চিনতে পারেন নাই। কাল যখন আবার ট্রেনে উঠবেন, আপনি সেই ব্যাক্তিকে হয়ত আর কখনোই খুজে পাবেন না। সে অনেক দূর চলে গেছে। ফলে আমার জীবনের বাইরে আমি অন্য কারো কথাই ভাবি না এখন। আসমানীর সাথেও আমার কোনো বিরোধ নাই। না আমি আসমানীর ভালোবাসাকে ছলনা করে কেড়ে নিয়েছি। তাই সে ব্যাপারে আমার কোনো আফসোসও নাই।

 

আসমানী যখন আপনার নামে মুক্তার সাহেবের ব্যাপার নিয়ে অভিযোগ করলো, সেটাকে আপনি কিভাবে দেখেন? তার অভিযোগ করার তো ন্যায় সংগত। ঠিক কিনা? আপ্নিও তো কোনো আইনগত ভাবে তার নামে অভিযোগ করতে পারেন না। কারন মুক্তার সাহেব তো আসলেই আপনার কেউ নন। মানে লিগ্যালী কেউ নন। এ ব্যাপারে আপনার কি মতামত বলে মনে করেন? 

-আপনার প্রশ্নের ভিত্তি আছে। আর সে ভিত্তিটা সমাজের আইনের উপর প্রতিষ্ঠিত। অবশ্যই আসমানী বেগম আমার নামে কিংবা মুক্তার সাহেবের নামে অভিযোগ করতেই পারেন। হয়তো আসমানীর জায়গায় হলে আমিও করতাম। এটাই সাভাবিক। কিন্তু তার আগে আপনি আমার কিছু অভিযোগের উত্তর দিন। মহিলাদেরকে আমরা দেবীর সমান তুলনা করে থাকি। প্রায়ই দেখবেন হিন্দুদের দেবীমুলে হাজার হাজার মানুষ, নর নারী এই দেবীর চরন তলে লুটিয়ে ফুলের সমাহার করে দিচ্ছে। পারলে দেবীকে সম্মান দেখানোর জন্য নিজের প্রানটাও উতসর্গ করতে রাজী। কিন্তু আপনি কি জানেন যে, এটা শুধু মন্দির আর পুজার ঘর পর্যন্তই সীমাবদ্ধ। মহিলাদের সাথে লাগাতার অন্যায় আর অপরাধ ঘটে যাওয়া এটাই প্রমান করে যে, আমাদের সমাজে আমরা যে মহিলাদেরকে দেবী বলি তারা এমন অনেক দানব দ্বারা ঘিরে রয়েছে যারা তাদের জীবনকে নরক করে তুলেছে। প্রকাশ্যে কোনো মিহিলাকে পুড়িয়ে মারা হয়, নির্যাতন করা হয়, ধর্ষন করা হয় অথচ কেউ এগিয়ে আসে না। এমন কি অফিসে নারীর করত্রিত্ত মেনে নিলেও ঘরে কোনো নারীর কর্তৃত্ব কেউ মেনে নেয় না। আমি কি ঠিক বলেছি? যদি সেটাই সত্য হয়ে থাকে, তাহলে এই সমাজের এই মিথ্যা আইনের কি মুল্য আছে? 

-হ্যা, আসমানীর উপরেও আমার একই দর্শন। যেভাবেই হোক, আসমানিরই প্রথম অধিকার মুক্তার সাহেবের উপর। কিন্তু সমাজের বাইরে ও তো মানুষের জীবন বাধা থাকে। সেটা তাহলে কিসের ভিত্তি? জারজ সনাতের তো তাহলে কোনো সামাজিক ভিত্তিই থাকার কথা নয়। কারন সে সমাজের আইনের বাইরে থেকে আসা কোনো প্রানী। তাহলে তারপরেও সমাজ তাঁকে প্রানে মেরে ফেলে না কেনো? সমাজ মেনে নেয়। 

– নাহ, আসমানীর উপর আমার কোনো রাগ নাই। না কোনো হিংসা। হিংসা ভালোবাসা আর ঘৃণা এগুলি এমন কিছু আবেগ যা প্রতিটি মানুষের মাঝে পাওয়া যায়। সুযোগ সন্ধানী হওয়াও একটা আবেগ। সুযোগ সন্ধানী হওয়া কোনো খারাপ বিষয় নয়, কিন্তু তার জন্য কিছু সীমা থাকে, কিছু নীতি থাকে। কারো ক্ষতি করে, কারো অসহায় অবস্থার সুযোগ নিয়ে মানুষ কখনো সামনের দিকে এগুতে পারে না। বাবলা গাছ লাগিয়ে যদি কেউ ভাবে তাতে ফুল ফুটবে, সেটা কোনো পাগলামোর থেকে কম নয়। অবৈধ কোনো শুরু থেকে কোনো সম্পর্ক কখনো বৈধ হতে পারে না, না পারে সেখানে কোনো বৈধ কোনো ফলাফলের আশা। খারাপ পরিস্থিতি, খারাপ মানুষ আর খারাপ ফল এগুলি থেকে পার্থক্য করা শিখতে হবে যে কোনটা আমাদের ব্যক্তিগত বিষয় আর কোন বিশয়টা ব্যক্তিগত বিষয় থেকে আইনের দরজায় নিয়ে যেতে পারে। যখন কোনো মানুষের পরিস্থিতি ঠিক এটাই হয়, তখন অন্যান্য দিনের মতো সকালটা আর তেমন থাকে না যেমন ছিলো আগের কোনো সকালের মতো, না তার সন্ধ্যাটাও আগের মত পরিচিত মনে হয়। নিজেদের মধ্যে যখন কেউ হিংসা হানাহানিতে জড়িয়ে পড়ে, তখন আসলে সেটাই হয় যা রক্তের সাথে রক্তের পাল্লা। ক্ষতি হয় শুধু নিজেদের রক্তের। তাহলে এই খেলায় কে জিতে? কেউ না। আমি হয়তো সমাজের আইনের সাথে যাই না, কিন্তু মানুষের আইনের থেকেও সৃষ্টি কর্তার আইন আরো বড়, আরো বিস্তর। সেখানে একটা সম্পর্ক শুধু কাগজের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয় বলেই একটা অবৈধ সন্তান স্রিষ্টিকর্তার দান রোধ, বাতাস, অক্সিজেন, খাবার কিংবা জল সবই তার জন্য একই পরিমান বরাদ্ধ হয় যা হয়ে থাকে সমাজের আইনের মধ্যে বেড়ে উঠা কোনো সামাজিক সন্তান। তাঁর আইন অনেক সহজ। 

তাই আসমানীর অভিযোগকে আমি আমলে নেই না। যতোক্ষন মুক্তার সাহেব মনে করবেন যে, সাবিত্রীর আর প্রয়োজন নাই, ততোদিন আমি মনে করি মুক্তার সাহেবের সাবিত্রীকে প্রয়োজন আছে। 

মুক্তার সাহেবের সাথে আপনার জীবনের কাহিনীর শুরুতে আপনি একটা কথা বলেছিলেন যে, মুক্তার সাহেবের মধ্যেও আপনি প্রথমে এটা পড়তে চেয়েছিলেন কি কারনে তিনি নিজের ইচ্ছায় আপান্র সাথে কথা বলার জন্য এগিয়ে এলেন। আপনি এটাও বলেছিলেন, তাকেও আপনি অন্য দশটা মানুষের মতোই ভেবেছিলেন। আপনি সবই জানতেন মুক্তার সাহেবের সম্পর্কে। আপনি কি ইচ্ছে করলে মুক্তার সাহেবকে অভয়েড করতে পারতেন না? অথবা এমনভাবে একটা সম্পর্ক করতেন যাতে তিনি আর আপনি শুধু একজন গার্জিয়ান বা বন্ধু বা স্রেফ এমন কিছু? এখন যে পর্যায়ে আছেন আপ্নারা, বলা চলে স্বামী স্ত্রীর মতোই যদিও বৈধভাবে নয়, এটাকে কি এড়ানো যেতো না?

– হ্যা পারতাম। আবার হয়তো পারতামও না। সাবিত্রী উত্তর দিলো।

একটা জিনিষ জানেন? ভরষা। ভরষা একটা অনেক বড় ফিলোসোফি মানুষের। আমি যেদিন বাড়ি ছেড়ে ছিলাম, আমার কোনো কিছুর উপরেই কোনো ভরষা করার মতো জায়গা ছিলো না। আমার শরীরটাই আমার কাছে অনেক বোঝা মনে হয়েছিলো। আমার পা তাঁকে আর টেনে সামনে নিতে পারছিলো না। তারপরেও মনের কোথায় যেনো বাচার একটা আকুতি ছিলো। চেয়েছিলাম, জীবনটা মাত্র শুরু, অথচ এখানেই কেনো শেষ হয়ে যাচ্ছে? কোনো কি উপায় নাই খোলা? হয়তো সেই অজানা উদ্দেশ্যেই আমি বেরিয়ে গিয়েছিলাম অজানা পরিস্থির জন্য। আমি জানি যে কোন কিছুই ঘটতে পারে আমার। কিন্তু ঈশ্বর বলে তো কিছু আছে। আমি সেই ঈশ্বরের উপর ভরষা করেই ডানা মেলেছিলাম অজানা পথে। পথেই দেখা করিয়ে দিলেন ঈশ্বর এই ‘অলিখিত ভগবান’ মুক্তার সাহেবকে। ভরষা করা দোষের নয়। মানুষ যদি মানুষের উপর ভরষা না করে, তাহলে ধ্বংস বেশী দূরে নেই। কিন্তু কারো উপর ভরষা করার আগে সতর্ক থাকা খুবই জরুরী। হয়তো সে কারনেই প্রথমে আমি মুক্তার সাহেবকেও সেই দশটা মানুষের কাতারেই ভেবেছিলাম। পুরুষ মানুষ আর সিংহের মধ্যে কোনো তফাত নাই। তারা মাংশ পেলেই তাঁর সাধ নেয়। তাই ইচ্ছাকে ভালোবাসায়, আর ভালোবাসা থেকে সম্পর্ক তৈরী করার সময় এই সতর্ক থাকা ভীষনই প্রয়োজন। কিন্তু আমি এসবের কোনো কিছুই না জেনে শুধু ইচ্ছাটাকে ভালোবাসা আর শ্রদ্ধায় তাঁর সাথে আমার সম্পরকটা হয়। আমি পরিশ্রমী, আমি সাহসী যদি কেউ পাশে থাকে, আমি সৎ ছিলাম নিজের কাছে। আর এ সবের পিছনে দাঁড়িয়ে ছিলো আমার বেচে থাকার সপ্ন। দিন গেছে, মাস গেছে, সম্পর্কটা ঠিক এভাবেই চলেছে। কোথাও কোনোদিন কোনো নোংরা কাজ ঘটেনি। নোংরা কাজ ঘটেনি শুধু তাঁর কারনেই। তিনি ছিলেন একজন মহাপবিত্র মহাপুরুষ। তিনি আমার মনে ধ্যানে, শয়নে, জ্ঞানে, চলাফেরায় সারাক্ষন বর্তমান ছিলেন। আমি আজ পর্যন্ত একটা পাও ঘরের বাইরে রাখিনি যেখানে আমার এই ভগবান রুপী মানুষটির অনুমতি নাই। কলেজে যাই, কলেজ থেকে ফিরে আসি, ঈশ্বরের কাছে আরাধনা করি, যতটুকু পাই তাতেই আমি অনেক খুশী। অন্তত সম্মানের সাথে বেচে আছি। এটার থেকে আর কি চাই?

-একদিন। সেদিনের কথা আমি কখনো ভুলে যাবো না। একদিন আমি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ি। কেউ নাই আমার পাশে। একাই থাকি, একাই ঘুমাই। আমার সেই অসুস্থতার সময়ে যিনি আবার হাজির হলেন, তিনি এই মুক্তার সাহেব। তিনি এসে আমার বিছানার পাশে যখন বসলেন, আমার হাত ধরলেন, আমার মনে হলো, প্রিথিবীটা কত নিরাপদ। আমার দুচোখ ভরে জল গড়িয়ে যাচ্ছিলো। আমি বুজতেছিলাম না, এই জল কি আনন্দের না ব্যথার। কিন্তু জল পড়ছিলো। আমাকে মুক্তার সাহেব তাঁর বুকে জড়িয়ে ধরলেন, আর বললেন- আমি আছি তো পাশে।

 

এই যে ‘আমি আছি তো পাশে’ এটার অর্থ হয়ত অনেকেই বুঝবে না যতটা আমি অনুভব করেছি। বলতে পারেন, আমি সেই একটা দিনই কেদেছিলাম প্রান ভরে, মন ভরে। কান্নায় এতো সুখ আগে কখনো ভাবিনি। মুক্তার সাহেবের বুকে মাথা রেখে কখনো আমি ভেবেছি আমি আমার বাবার বুকে আছি, কখনো মনে হয়েছে তিনি আমার একতাই বন্ধু। কখনো মনে হয়েছে তিনি আমার ভাই কিংবা মা। আমি তাঁকে ভীষন ভালোবেসে ফেলেছিলাম।

আমার অনেক জর ছিলো।  মুক্তার সাহেব আমার মাথাটা তুলে আমার গালের দু পাশে তাঁর তালু দিয়ে একটা বাচ্চা মানুষকে যেভাবে দেখেন, অনেকক্ষন সেভাবেই দেখতে থাকলেন। তিনি আমার কপালে চুমু খেলেন, আমার গালে চুমু খেলেন, আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিলেন। আমার চোখ বন্ধ হয়ে এসেছিলো তাঁর পরশে। কখন কি হয়েছিলো আমি জানি না। এই প্রথম আমাদের মধ্যে শারিরীক সম্পর্ক ঘটে গেলো। কোনো জোরাজুড়ি ছিলো না, কোনো আপত্তি ছিলো না, না ছিলো কোনো আক্ষেপ। সেদিনের সেই ঘটনায় আমি কখন কোনোদিন আক্ষেপ করিনি, আজো না। আমি তো জানি, আমি অন্য কারোরই না, আমার সমস্ত সত্তা, আমার সমস্ত আত্তা, আমার সমস্ত ধ্যান ধারনা শুধু এই একটি মানুশকে কেন্দ্র করে। আমার কাছে কিছুই ছিলো না এই মহা মানুষতাকে দেয়ার। যা তিনি নিলেন সেটাও আমার কাছে ছিলো না। সেটা অনেক আগেই কেউ নষ্ট করে দিয়েছিলো। তিনি যেটা পেলেন, সেটা আমার অন্তর, আমার সত্তা। আমি এই অন্তর আর সত্তাকে আজো কোথাও কলুষিত করিনি। আমি জানি, আমার কোথাও চলে যাওয়া, আমার আরেকবার কোথাও হারিয়ে যাওয়া মানে এই মানুষটি ভাষাহিন, একাকি হয়ে যাবেন। আমার কোথাও যাবার পথ আর খোলা নাই। এতাকে আপনি নিজে নিজে শিকল পরার মত বলতে পারেন। আর এতাতে আমি কিছুতেই অসুখী নই।

-এই দুনিয়ায় উনাকে ছাড়া আর কে আছে আমার? আছেন একজন-তিনি আমার বিধাতা। কিন্তু বিধাতা তো আর মানুশ নন যে, আমার কাছে মানুষরূপী হয়ে ধরা দেবেন। অনেক সময় আমরা বলি-জীবই ঈশ্বর, জীব ধর্মই ঈশ্বর ধর্ম। এই মুক্তার সাহেব হচ্ছেন সেই জীব আমার কাছে। এবার আপ্নিই বলুন, কিভাবে আমি মুক্তার সাহেবকে ছেড়ে অন্যত্র পালিয়ে যাই?

তিনি আমার থেকে অনেক বয়সের বড়। কিন্তু মাঝে মাঝে যখন তিনি আমার সাথে খেলা করেন, আমাকে আদর করেন, আমাকে নিয়ে জানালার পাশে বসে থাকেন, আমি ছোট বাচ্চার মতো, একটা শান্ত বিড়ালের মতো সেই দুষ্টুমি, সেই আদর, সেই মানবীয় খেলাটা খুব আনন্দ করে মনের ভিতরটা শীতল করি। আমি নিজে তৃপ্ত, তিনি আমাকে ভরষার স্থানটা দিয়েছেন। এই প্রিথিবী থেকে চাঁদ যতো সুন্দর মনে হয়, নীল আকাসের সাথে চাদকে যেমন কোনো এক যুবতীর কপালের টীপ মনে হয়, অথবা অনেক দূরের কাশবন যখন সাদা মেঘের মতো হাওয়ায় দুলে দুলে মনকে দোলায়িত করে, যখন ওই চাদে গিয়ে পা রাখা যায়, কিংবা কাশবনের মাঝে হাজির হওয়া যায়, তখন তার আসল রুপ দেখে দম বন্ধ হয়ে আসে। তিনি আমার কাছে সে রকম নন। সেই চাঁদ আর কাশবন বাস্তবে হয়তো একটা খারাপ সপ্ন। আমরা সেখানে বসবাস করতে পারি না। আবার ছুটে আসতে চাই এই গাছ গাছালী ভর্তি নোনা সেঁতসেঁতে সোদা গন্ধের মাটিতে যেখানে বর্ষায় গাছের পাতা বেয়ে বেয়ে টিপ টিপ করে ফোটা ফোটা পানি আমাদের নাকের ডগা দিয়ে বুকের ভিতরে এসে অন্তর শীতল করে দেয়। মুক্তার সাহেব আমার সেই স্যাতস্যাত সোদা গন্ধ্যের মাটিতে বেড়ে উঠা একটা বটবৃক্ষ। আমি সুখে আছি। কারা কারা কষ্টে আছে সে খবর আমার দায়িত্ত নয়। একটা মানুষের শান্তিতে আর সুখে বসবাসের জন্য এই পৃথিবীর অনেক কিছু লাগে না। প্রিন্সেস ডায়ানার একেকটা নেকলেসের দাম ছিলো কোটি কোটি টাকার। তার একেকটা ড্রেসের দাম ছিলো হাজার হাজার ডলার। সাথে ছিলো রাজপ্রাসাদ। কি ছিলো না তার। ছিলো সবুজ চোখের মনি, ঈশ্বর যেনো তাকে একাই রুপবতী করে পাঠিয়েছিলো। অথচ মনে তার কোনো শান্তিই ছিলো না। সেই শান্তির খোজে শেষতক রাজপ্রাসাদ ছাড়তে হয়েছে তাঁকে। অন্যের হাত ধরতে হয়েছে। আর মাত্র ৩২ বছর বয়সেই তাকে এই প্রিথিবী ছাড়তে হয়েছে। যদি বাড়ি, গাড়ি, জুয়েলারী, আর টাকা পয়সাই হতো সব সুখের মুল চাবিকাঠি, তাহলে ডায়নার থেকে সুখী মানুষ আর এই প্রিথিবীতে কেউ ছিলো না। কিন্তু সেটা কি আসলেই সুখী ছিলো?

এখন যদি আপনি আসমানীর কথা আমাকে বলতে বলেন, তাহলে বল্বো যে, একটা তরকারীতে নুন কম হতে পারে, একটা পরোটা পুড়ে যেতে পারে, তার স্বাদ কিংবা মজা হয়তো একটু হেরফের হতেই পারে কিন্তু ভালোবাসা আর মহব্বতে যখন নুনের কমতি হয়, পুড়ে যায়, তখন জীবনের অনেক কিছুই শেষ হয়ে যায়। আর জীবনের এই প্রান্তে এসে যখন কেউ দাঁড়ায়, তখন এসি রুমেও ভালো ঘুম হয় না। নীল আকাশ দেখেও কবিতা লিখতে ইচ্ছে করে না। তখন যেটা মনে হয় তা হচ্ছে বিষাদময় রুচী। সেই রুচীতে আর যাই হোক পেট ভরে না। আর পেটে ক্ষুধা রেখে কোনোদিন কারো ভালো ঘুম হয়েছে তার কোনো প্রমান নাই। আসমানীর বেলায় মুক্তার সাহেব হয়তো সে রকম কিছু দেখেছেন। তা না হলে এতো বড় ব্যক্তিত্ত, এতো বড় মাপের একজন মহা পুরুষ কেনো তাঁর নীতির বাইরে গিয়ে এমন একটা অলিখিত ভালোবাসায় জড়িয়ে পড়বেন? তাঁর এই অলিখিত ভালোবাসাতাই আমার জন্যে হয়ে উঠেছিলো অলিখিত নিশ্চিত ভরষার স্থান। তিনি আমার প্রানশক্তির চেয়েও বড়। তিনি আমার উপরে একটা গাছ। ওই গাছ আমাকে জায়গা দেয় বাসা করার, ওই গাছ ঢাল পেতে দেয় আমাকে নিবিড় করে বসার। আমি চলে গেলেও এই গাছের না হবে কোনো ক্ষতি, না হবে তার ফলনে কোনো বিঘ্নতা। ঠিক সময়ে এই গাছ ফুল দিবেই, ফল দিবেই, আর ছায়া তো দিয়েই যায়। ঝড়ের দিনেও সে হয়তো অন্য আরো অনেক পাখীর জন্যে অভয়ারন্য স্রিষ্টি করে বটে কিন্তু সেই গাছ কোনোদিন অভিযোগ করে না কেনো অন্য আর কিছু পাখী তার ঢাল ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়। তবে যদি আবারো সে ফিরে আসে, গাছের কোনো অভিযোগ হয়তো থাকে না। কিন্তু যদি কোনো ঢালই আর খালী না থাকে, সেটা তো আর গাছের দোষ নয়। ভরষার স্থান কেউ ত্যাগ করলে গাছের কি দোষ!!

১৫/৫/২০১৯-২০ বছর আগের কিছু স্মৃতি…পর্ব-৩

আজ থেকে প্রায় ২০ বছর আগের কিছু দূর্লভ মূহুর্ত যা এখন অনেক অংশে ইতিহাস। এই ছবিগুলির মধ্যে অনেকেই প্রয়াত হয়েছেন (আল্লাহ তাদের বেহেস্তবাসী করুন), কেউ কেউ বার্ধক্যে পৌঁছে গেছেন, যারা সেই সময় ছোট পুতুলের মতো পুতুল নিয়ে খেলা করেছে, তারা অনেকেই আজ সমাজে কেউ ডাক্তার, কেউ বড় বড় মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানীতে কর্মরত, মেয়েদের মধ্যে অনেকেই মা হয়ে গেছে। ছেলেরাও আজ মাশ আল্লাহ খুব ভালো আছে। এইসব বাচ্চা গুলি, কিংবা বড়রা আমার অনেক কাছে মানুষ, এদের আগমন সব সময়ই আমাকে আনন্দিত করেছে। কিছুটা অবসর সময় ছিলো, তাই আগের দিনের কিছু ভিডিও আর স্থীর চিত্র নিয়ে বসেছিলাম। অতীত সামনে চলে আসে, নস্টালজিক হয়ে যাই। হয়ত কোনো একদিন, আমিও এই ভাবে ইতিহাস হয়ে যাবো, কিছুটা সময় কাছের মানুষেরা মনে রাখবে, এক সময় আমার জন্য এই পৃথিবী শেষ। গুটিকতক মনিষী ছাড়া বেশীর ভাগ মানুষেরাই অজানা ইতিহাসে মিশে গিয়ে বিলীন হয়ে যায়।

এটাই পৃথিবীর বাস্তব নিয়ম।

                         

১৪/০৫/২০২২-প্যারাডিম শিফট এবং ডমিনো ইফেক্ট

আজকে যে বিষয়টি নিয়ে আমি লিখতে চাচ্ছি- সেটার নাম প্যারাডাইম শিফট। এই প্যারাডাইম শিফটের সাথে ইউক্রেন, ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনের ন্যাটোতে যোগদানের একটা সম্পর্ক আমি দেখতে পাই। তাহলে সংক্ষিপ্তভাবে জানা দরকার, এই প্যারাডাইম শিফটটা কি।

যখন সাভাবিক কোনো চিন্তাচেতনা কিংবা কার্যক্রম অন্য কোনো নতুন নিয়ম বা চিন্তা চেতনা দ্বারা প্রতিস্থাপিত হতে দেখা যায়, তখন এই প্রতিস্থাপিত নতুন পরিবর্তিত চিন্তা চেতনাকেই প্যারাডাইম শিফট বলা হয়। অন্যঅর্থে যদি বলি-এটা হচ্ছে একটা মডেল, তত্ত্ব, বা দ্রিষ্টিভঙ্গি, ধারনা, কিংবা দৃষ্টান্ত যা প্রকৃত তত্ত্ব, দৃষ্টিভঙ্গি, কিংবা মডেল থেকে ১৮০ ডিগ্রী উলটা। প্যারাডাইমটা আসলেই আসল জিনিষ না, এটা একটা মানষিক ভাবনার সাথে প্রকৃত সত্যের একটা শুধু কাল্পনিক ছবি। কোনো একটা জিনিষের ব্যাপারে আমরা যা ভাবছি, বা দেখছি এর সাথে সেই জিনিষটার যে রকম প্রকৃত বৈশিষ্ট , এই দুয়ের মাঝেই থাকে প্যারাডাইম তত্তটি। এই প্যারাডাইম দিয়ে মানুষ কোনো একটা ধারনা, চিন্তা চেতনা, কিংবা কোনো একটি জিনিষের ব্যাপারে একটা ধারনা পায়। যার প্যারাডাইম শিফট যত কম, সে ততো অরিজিনাল জিনিষের কাল্পনিক রুপ দেখতে পায়।

একটা উদাহরণ দেই- ধরুন আপনি একটা লোকের চেহাড়া দেখে ভাবলেন যে, সে একটা নিশ্চয় ভয়ংকর সন্ত্রাসী। আপনার মন তাকে সেভাবেই ট্রিট করছে, সেভাবেই আপনি তাকে ওই খারাপ মানুষদের মধ্যে লিষ্ট করে ফেলেছেন। অনেকপরে যখন জানলেন যে, লোকটা ছিলো খুবই ভদ্র, ভালো ও খুবই অমায়িক এবং পরোপকারী। তখন আপনি অনেক মনোকষ্টে ভোগবেন। আফসোস হবে এই কারনে যে, আহ, সব কিছু না জেনে, না বুঝে কেনো আমি এমন একটা ভালো মানুষকে খুবই খারাপ ভেবেছি? এই যে নতুন ভাবনা আপনাকে আগের চিন্তাচেতনা থেকে হটাত করে ১৮০ ডিগ্রী উলটে গিয়ে আরেক নতুন ভাবনায় নিয়ে এলো, সেটাই প্যারাডাইম শিফট। থমাস কুন তার বিখ্যাত-“দি স্রাইাকচার অফ সায়েন্টিক রেভ্যুলেশন” বই এ প্রথম প্যারাডাইম শিফট শব্দটি চালু করেন। প্যারাডাইম যার যতো বেশি নিখুত, তার প্যারাডাইম শিফট ততো কম। আর যাদের এই প্যারাডাইম কোনো কিছুর ব্যাপারে প্রায় কাছাকাছি থাকে, তারা আসলেই জ্ঞানী এবং বাস্তববাদী। বর্তমান জগতে মানুষের প্যারাডাইম অনেক অনেক সত্যের থেকে বেশী দূরে বিধায়, আমাদের সমাজে ভুল সিদ্ধান্তে গন্ডোগোল বাড়ছে।

তাহলে এর সাথে ফিনল্যান্ড অথবা সুইডেনের বা ইউক্রেনের ন্যাটোতে যোগের সম্পর্ক কি?

কিছু খন্ড খন্ড ঘটনাকে খাতায় কষে বিশ্লেষন করলে দেখা যাবেঃ

(১)  ইউক্রেন CIS এর এসোসিয়েট মেম্বার। তারা প্রথম ইউরোপিয়ান দেশের সদস্য হবার জন্য অনুরোধ করে ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বির মাসে। কিন্তু তাদের সেই অনুরোধ রক্ষা করা হয় নাই বিভিন্ন রাজনৈতিক বিবেচনায়, বিশেষ করে রাশিয়ার নাবোধক জবাবের কারনে।  শুধু তাইই নয়, এই আমেরিকাই ইউক্রেনে অবস্থিত নিউক্লিয়ার ওয়ারহেডসহ পুরু নিউক্লিয়ার প্ল্যান্ট রাশিয়ার কাছে হস্তান্তর করতে সাহাজ্য করেছিলো। তখন কিন্তু আমেরিকা বা পশ্চিমারা ইউক্রেনের প্রতি ততোটা ভালোবাসা প্রকাশ করে নাই। কারন তখন ইউক্রেনকে তাদের প্রয়োজন ছিলো না, প্রয়োজন ছিলো ওয়ার্শ জোট ভাংগার নিমিত্তে রাশিয়াকে খুশী করা। তাতে ইউক্রেনের পারমানিক ক্ষমতা বিলুপ্ত হলেও পশ্চিমাদের লোকসান নাই।

(২)        ইউক্রেন একটি সমৃদ্ধ শালী দেশ বিশেষ করে ভোজ্য তেল, খাদ্য কমোডিটি, স্টীল, সিরিয়াল, গম ভুট্টা, নিকেল, আয়রন ইত্যাদি। দিনে দিনে রাশিয়া তার ৯০ শতকের ধ্বস থেকে কাটিয়ে উঠে আবার আগের শক্তিতে ফিরে আসছে যা পশ্চিমাদের জন্য সুখকর নয়। তাই তাঁকে চেপে ধরার একটা এজেন্দা দরকার। ইউক্রেন একটা ভালো অপ্সন। কারন এটা রাশিয়ার একেবারেই গোড় দোরায়।

(৩)       আমি, আপনি হয়তো এতো গভীর স্তরে ভাবি না কিন্তু যারা আন্তর্জাতিক খেলোয়ার তারা ঠিকই খবর রাখে কোথায় কি হচ্ছে আর কেনো হচ্ছে। খেয়াল করে দেখলে দেখা যায়, ২০১৪ সালে রাশিয়া ক্রিমিয়া দখল করলো,  প্রো-ওয়েশটার্ন প্রেসিডেন্ট প্রোসেংকুকে আউট করে দিলো, জর্জয়ায় রাশিয়ার আগ্রাসন কে ঠেকালো না, ওসেটিয়ায়র অবস্থাও একই। চেচনিয়াও তাই। আমেরিকা কিছুই বল্লো না, না ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন। একটা অতি জনপ্রিয় কমেডিয়ান এর আবির্ভাব হলো। প্রেসিডেন্ট হয়ে গেলো যার কনো প্রকার পলিটিক্যাল অভিজ্ঞতাও নাই। কিন্তু সাহস ছিল। হটাত করেই জেলেনেস্কীর আগমন ঘটে নাই সিন গুলিতে। প্রোসেংকুকে আউট করার সময়ই এই আঘাতটা আসার কথা ছিলো কিন্তু তখন ব্যাপারটা ঘটে নাই কারন গ্লোবাল রিসেশনে পসচিমারাও কোন্ঠাসা। ইউরোপ তো আরো কোন্ঠাসা। They take time.

(৪) ইউক্রেনকে ভালোবেসে পশ্চিমারা গদগদ হয়ে এতো সাপোর্ট করছে এটা ভাওব্লে ভুল হবে। নিজদের ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন লোন মাথায় রেখে কোনো দেশ বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার অন্য কোথাও ইনভেষ্ট করতে যায় না। এর পিছনে লাভ অবশ্যই থাকা দরকার। আর সেটার নাম জিরো-সাম গেম। Zero-sum games occur whenever the aggregate gain between winners and losers totals zero. আরেকটু পরিষ্কার করে বলি- জিরো-সাম গেমের সংগা হচ্ছে-নেট জিরো। আমি ধনী কারন আপনি গরীব, আমি গরীব কারন আপনি ধনী। আমি জিতেছি কারন আপনি হেরেছেন, আমি হেরেছি কারন আপনি জিতেছেন, ব্যাপারটা ঠিক এই রকমের। এরমানে এই যে, কোনো একটা ১০০% ভান্ডার থেকে আমি যখন ৫০% নিয়ে নেবো, আপনি আর কখনোই ওই ভান্ডার থেকে ইচ্ছে করলেও ১০০% নিতে পারবেন না। আমি যদি ওই ভান্ডার থেকে পুরু ১০০% নিয়ে নিতে পারি, আপনি পুরু ১০০% ই লস করবেন। আর এই কন্সেপ্টের কারনে পশ্চিমারা কখনো গনতন্ত্রের নামে, কখনো মানবাধীরকার নামে, কখনো বন্ধুপ্রতীম দেশ হিসাবে, কখনো কাউকে আগ্রাসীর বদনামে নিজেরা পাশে এসে দাঁড়ায়। কিন্তু মুল লক্ষ্য থাকে সেই সাহাজ্যার্থীর টোটাল ধন সম্পদের উপর অথবা তাঁকে সাহাজ্য করার নামে নিজেদের চিহ্নিত শত্রুকে নিঃশেষ করে দেয়া। ফলে যদি দেখেন ইরাক, আফগানিস্থান, বা লিবিয়া, প্যালেষ্টাইন, ইত্যাদির ঘটনাগুলি, সেখানে নিরাপত্তার নামে, সুষ্ঠ গন্তন্ত্রের নামে কিংবা সাধীন জীবনের প্রতিশ্রুতির নামে তাদের জীবনমান, সোস্যাল ফেব্রিক্স, লিভিং স্ট্যান্ডার্ড সবকিছু তছনছ হয়ে গেছে। তাদের ধন সম্পদ লুট করা হয়েছে, এসেট বলতে সব কিছুই লুট করা হয়েছে। লাভ হয়েছে একজনের, সম পরিমান লস হয়েছে ওই দেশ গুলির। ওদের মেরুদন্ড ভেংগে দেয়া হয়েছে, কমান্ড ভেংগে দেয়া হয়েছে। ওখানে এখন কোনো কিছুই আর আগের মতো নাই। এটাই লাভ। আর ততটাই লসে হয়েছে সে সব দেশের যারা জিরো সাম গেমটা বুঝে নাই।

(৫) একবার খেয়াল করে দেখলে দেখা যাবে যে, যে পরিমান হাই লেবেলের রাষ্ট্র প্রধান, সিনেটর, ফার্ষ্ট লেডি, স্পিকার, মিনিষ্টার, সেক্রেটারি এত ঘন ঘন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের সাথে বিপদজনক এক্টিভ যুদ্ধক্ষেত্রে শশরীরে দেখা করেছেন, এর কারন কি? এর কারন একটাই, তাঁকে বারবার মনে করিয়ে দেয়া বা তাঁকে বলা যুদ্ধের জন্য শান্তিচুক্তি করা যাবে না। আমরা আছি তোমার পাশে। কোনো সমঝোতা করা যাবে না। তাই না কনো জাতিসংঘের কেউ, না কোনো ডিপ্লোমেট, না কোন পশ্চিমা নায়ক যুদ্ধ বন্ধের কোনো উদ্যোগ নিলেন। তারা যুদ্ধে কোনো সমঝোতা না করার পরামর্শ দিতেই এতো রিস্ক নিয়ে শশরীরে সেই যুদ্ধ ক্ষেত্রে এসেছেন।

(৬) বোকা ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট সেই ফাদেই পা দিয়ে নিজের দেশের বেশ ক্ষতি করা শুরু করলেন। যত নিষেধাজ্ঞাই দিক, যত মিষ্টি কথাই বলুক, যত মহড়াই আশেপাশের দেশে কসরত করুক, কেউ কিন্তু ইউক্রেনের মাঠে নামলেন না। ৩০ টা দেশ, ৩০ টা আর্মি, ৩০ টা দেশের প্রধান সব মিলিয়ে তো একটা শক্তি অবশ্যই। যেখানে ন্যাটো তার আন্তর্জাতিক নিয়ম ভেংগে তার সদস্য সংগ্রহ করতে পারে, যেখানে কোনো আইন মানার ব্যাপারে তাদের কোনো পরোয়া নাই, এতো এতো মিউনিস্ক চুক্তি, এতো এতো শান্তি চুক্তি থাকা সত্তেও ন্যাটো বা ইউরোপিয়ানরা তাদের নিজেদের কাজ করে যাচ্ছে,  অথচ ইউক্রেনের যুদ্ধকে কেউ সহজ করে দিলো না। কেউ মাঠে নামলো না। দুনিয়া এদিক সেদিক করে ফেলবে এমন কথাও বললেন তারা,  অস্ত্র দিলেন, টাকার পর টাকা দিলেন, আশ্বাস আর শান্তনার বানীর কোনো কমতি নাই। যে কোনো পরিস্থিতিতেই তারা ইউক্রেনের পাশে থাকবেই। কিন্তু একটা ‘নো ফ্লাই জোন করতে পারলেন না, না যুদ্ধ বিমান দিয়ে ইউক্রেনকে সাহাজ্য করা হলো। দিন তারিখ ফিক্সড করে দুনিয়ার সব রিকুয়েষ্ট অগ্রাহ্য করে আফগানিস্থান এটাক করা যায়, ইরাকে বোমার পর বোমা ফেলা যায় অথচ আধুনিক কিছু মিজাইল আর ভাড়াটিয়া এক্সপার্ট দিয়া ইউক্রেনকে সাপোর্ট দিয়ে রাশিয়ার ভিতরে কিংবা রাশিয়ার ইন্টারেষ্টেড স্থানে এটাক করা গেল না। যুদ্ধ যুদ্ধই। করতে পারতো। কিন্তু করা হয় নাই। জেলেনেস্কী বারবার আশাহত হয়েছে। তার ভাবনার সাথে সত্যিটা মিলছিলো না, এখনো মিলছে না। জেলেনেস্কীর জন্য- কি ভেবেছি আর কি হইলো?  এটাই প্যারাডাইম শিফট।

(৭)        আমি একটা লেখায় লিখেছিলাম যে, তেল গ্যাসের উপর ইউরোপিয়ানরা নিষেধাজ্ঞা দিলো বটে অথচ সেই নিষেধাজ্ঞার সময়ে ইউক্রেন তো ইচ্ছে করলে ১ম দিন থেকে তাদের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া গ্যাস বা তেলের পাইপ নিজেরাই বন্ধ করে দিতে পারতো। কিন্তু সেটা কিন্তু করে নাই। না ইউক্রেন করেছে, না ইউরোপিয়ানরা ইউক্রেনকে করতে বলেছে। ইউরোপিয়ানরা সেটা বন্ধ করতে বলে নাই কারন সেটা তাদের দরকার। নিষেধাজ্ঞা থাকবে কিন্তু তারা সেটা নিবেন। তাহলে নিষেধাজ্ঞা কিসের? প্রেসিডেন্ট কি এতো বোকা যে সে তার দেশের উপর দিয়ে যাওয়া পাইপ লাইন বন্ধ করতে পারতো না? তাঁকে আসলে সেটা করতে দেয়া হয় নাই। যুদ্ধের প্রায় ৫৬ দিন পর ইউক্রেন নিজের থেকে তাদের ডোনেস্ক এর উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া পাইপ লাইন বন্ধ করেছে। তাও আবার কাউকে না বলেই। অনেকটা জিদ্দে। কেউ কি মনে করেন তাতে ইউরোপিয়ানরা জেলেনেস্কীর উপরে খুব খুশী হয়েছে? একেবারেই নয়।

(৮) তাহলে জেলেনেস্কী এটা করলো কেনো? সে না প্রকাশ্যে বলতে পারছে অনেক গোপন কথা, না সে স্বাধীনভাবে নিতে পারছে নিজের সিদ্ধান্ত। ফলে সে একটা জিনিষ খুব ভালো করে বুঝে গেছে যে, যুদ্ধ যতোদিন বেশী চলবে, এই যুদ্ধে প্রেসিডেন্ট হিসাবে নিজের দেশের জন্য তার কি করার ছিলো এটা যুদ্ধ শেষে তর্জমা হবেই। আর তখন বেরিয়ে আসবে কেনো সে বা তার কেবিনেট একক সিদ্ধান্ত নিতে পারে নাই, অন্তত সেই সব সাধারন নাগরিকদের জীবনের কথা চিন্তা করে যে, অনেক আগেই একটা আপোষের মাধ্যমে দেশটাকে পুরুপুরী ধংশের হাত থেকে বাচানো যেতো। তাই মাঝে মাঝে দেখা যায়, জেলেনেস্কী ইচ্ছামত জাতী সংঘকে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে তাদের অপারগতার কথা বর্ননা করে গালাগালীও করছে। এটাই আসলে প্যারাডাইম শিফট। কিন্তু তার এই প্যারাডিম শিফট আসতে সময় লেগেছে প্রায় দুই মাসের বেশী যে, সে যা ভেবেছিলো, আসলে সেটা সত্যি ছিলো না।  

এখন যেটা সুইডেন আর ফিনল্যান্ড ভাবছে, যে, তারা ন্যাটোতে জয়েন করলে সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। তাদেরকে কেউ আঘাত করলে ন্যাটো ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের সব অস্ত্রপাতী নিয়া সুইডেন আর ফিন ল্যান্ডের জন্য ঝাপাইয়া পড়বে ইত্যাদি কিন্তু যেদিন ওরা দেখবে যে, আইনের মার প্যাচে, আর্টিকেল ৫, আর আর্টিক্যাল ১০ এর দোহাই দিয়ে ন্যাটো বলবে, এই আর্টিক্যাল গুলির বাধ্যবাধকতায় তো তারা বাধা, কিভাবে এটম বোম্ব দিয়ে রাশিয়াকে ঘায়েল করবে? তার থেকে নাও ১০০ বিলিয়ন ডলার লোন, কিংবা এই নাও সফিশটিকেটেড রাশিয়ার এন্টি ট্যাংক মিজাইল, মারো রাশিয়াকে, আমরা পাশের দেশে আমাদের আধুনিক যত্রপাতি লইয়া কসরত করিতেছি যেনো রাশিয়া ভয় পায়, কিন্তু রাশিয়া যেহেতু অস্তিত্ব সংকটে আছে, ফলে Do or Die ফর্মুলায় এই দুইদেশকে ক্রমাগত অনেকভাবে বিরক্ত করতেই থাকবে। তখন এই দুইটা দেশের মনে হবে, নাহ নিউট্রাল থাকাই সবচেয়ে ভালো ছিলো। ন্যাটোতে যোগ দেয়া ঠিক হয় নাই। মাঝখান দিয়ে একটা ডেস্পারেট রাশিয়ার রোষানলে নিজের সাজানো দেশটার শুধু ক্ষতিই করলাম।  সময় মতো ঐ সব প্রতিশ্রুতদেওয়া দলগুলি একই কাজ করবে যেটা তারা করেছে ইউক্রেনের জন্য। এটাই হবে সুইডেন আর ফিন ল্যান্দের জন্য প্যারাডাইম শিফট।

ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের বা ন্যাটোর এই আন্তরীক আহবানে অভিভুত হয়ে তাদের নিজস্ব চিন্তাধারা থেকে এতোটাই দূরে সরে গিয়েছে যে, মনে হয়েছে ওরাই ঠিক। আর এই ডমিনো ইফেক্টই সুইডেন আর ফিনল্যান্ড এখন ন্যাটোতে যোগদানের করে একটা বিপদের মধ্যে পড়তে যাচ্ছে।

রাশিয়া হয়তো এই মুহুর্তে সরাসরি তাদেরকে আক্রমন নাও করতে পারে কিন্তু পারষ্পরিক বাই লেটারাল সহযোগীতা, তেক গ্যাস, ইলেক্ট্রিসিটি সাপ্লাই, কমোডিটি, পোর্ট ফ্যাসিলিটি, ইত্যাদি তো নষ্ট হবেই, ২৬০০ কিলোমিটার কমন বর্ডার কখনোই শান্ত থাকবে না। 

১৪/০৫/২০২২-ফিনল্যান্ড ন্যাটোতে জয়েনের আগ্রহ

গতকাল ১২ মে তে প্রেসিডেন্ট সুওলি নিনিতসু ন্যাটোতে যোগ দেয়ার কথা অফিশিয়ালী জানিয়েছেন। তাতে রাশিয়া ফিনল্যান্ডের উপর খুবই নাখোস।  এই দুটু বক্তব্যের প্রেক্ষিতে আমার নিজস্ব কিছু বিশ্লেষনঃ

যে কোনো সাধীন দেশ তার নিজের দেশের সার্থের কারনে যে কোনো আন্তর্জাতিক জোট করতেই পারেন। এটা সে দেশের ইখতিয়ার। সেই দিক দিয়ে আমি বল্বো, ফিনল্যান্ডের সিদ্ধান্ত শতভাগ সঠিক। সুইডেনের ব্যাপারেও তাই।

অন্যদিকে আসি, ন্যাটোতে কেনো যেতে হবে তাহলে? কারন ন্যাটো ইউরোপকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য প্রতিশ্রুতবদ্ধ। এটাই সবার জানা। কিন্তু ন্যাটো যখন গঠিত হয় সেটা আসলে শুধু ইউরোপকে সুরক্ষিত দেয়ার জন্য হয়েছে এটা বললে একটু ভুল হবে, এটা আসলে চিরাচরিত সর্বদা রাশিয়াকে যেভাবেই হোক সাইজ করার জন্য। আর এই সত্যটা রাশিয়া জানে। তারমানে এই দাঁড়ায় যে, ন্যাটো এবং রাশিয়া আজীবন একটা বৈরী সম্পর্কের নাম।

রাশিয়া ১৯৯০ সালের পর থেকে ধরা যায় একটা আত্তগোপনেই নিজের মধ্যে নিজেরা আছে। আশেপাশের কাউকে খুব একটা ডিস্টার্বড করছিলো না। তারপরেও বিভিন্ন পলিটিক্যাল কর্মকান্ডে যে নাই সেটা নয়, যেমন সিরিয়ার আসাদের সাথে তার একচ্ছত্র ফ্রেন্ডশীপে সিরিয়া বিধ্বস্ত, মায়ানমারের সইরাশাসকদের সাথে আতাত করে রোহিংগাদের বিতাড়ন এসব। ক্রিমিয়ার ব্যাপারটা আলাদা। এসব বিগপাওয়ারগুলি সবসময় একটা এজেন্ডা নিয়েই থাকে, আর তাতে বেশ অনেক জাতী, অনেক দেশ আজীবন ধ্বংসস্তূপের মধ্যেই নিপিড়িত হতে থাকে। যেমন আমেরিকা করেছে ইরাক, প্যালেস্টাইন, ইরান, কিউবা, আফগানিস্তান, লিবিয়া এমন আরো অসংখ্য দেশে। এটাই ওদের কাজ। কেউ দুধে ধোয়া তুলসীপাতা নয়।

এখন ঝগড়াটা লেগেছে ইউক্রেনকে ঘিরে কিন্তু মারামারিটা করছে সেই রাশিয়া আর পশ্চিমা তথা ন্যাটোজোটই। মাঝখান দিয়ে অতি সাধারন মানুষগুলি বাস্তহারা হচ্ছে, ছোট ছোট ছেলেমেয়েরা যুদ্ধের ভয়াবহতা দেখছে, বয়ষ্ক মানুষগুলির আয়ু সংক্ষিপ্ত হয়ে যাচ্ছে। একটা দেশ লন্ডভন্ড হয়ে চিরতরে শেষ হয়ে যাচ্ছে। কারোরই লাভ হচ্ছে না, লস হচ্ছে শুধু সেখানটায় যেখানে বোমা আর মিজাইল পড়ে ক্ষত হচ্ছে পুরু দেশ তাদের।

ফিনল্যান্ড এবার যেনো টার্গেট হতে যাচ্ছে রাশিয়ার। কিন্তু রাশিয়ার জন্য ব্যাপারটা অতো সহজ হবে না যতোটা সে ইউক্রেনে করতে পারছে। ইউরোপের মধ্যে সবচেয়ে বেশী আর্টিলারী ইকুইপমেন্ট (রাশিয়া ব্যতিত) আছে ফিনল্যান্ডের। খুবই শক্তিশালী এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম আছে ফিনল্যান্ডের, ট্যাংকের দিক দিয়েও ফিনল্যান্ড অত্যান্ত শক্তিশালী এবং তাদের আছে অত্যাধুনিক Leo 2´s plus এন্টি ট্যাংক মিজাইলস যাদের মধ্যে আছে Swedish-U.K. NLAW, the U.S. made TOW, Israeli made SPIKE-missile  ইত্যাদি। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অতি পরিকল্পনা মাফিক এবং মনোযোগের সহিত ফিনল্যান্ড তাদের ডিফেন্স সিস্টমকে এমনভাবে গড়ে তুলেছেন যে, প্রায় ৮ লক্ষ নাগরীক রিজার্ভ ফোর্সে আছে, দেশের প্রায় ৮০% স্থলভাগ ফরেস্ট অধ্যুষিত এলাকা এবং রাস্তাগুলি এমনভাবে বানানো যা সব ডিফেন্স ফোর্সের পরিকল্পনা মাফিক। ইউক্রেন যুদ্ধে ফিনল্যান্ড সুইডেনের মতো এ রকম প্রকাশ্যে কোনো কিছুই করে নাই অথচ করেছে। তুরষ্কের পরে ফিনল্যান্ডের আছে দ্বিতীয় বৃহত্তম ল্যান্ডফোর্স। প্রকৃত কথা হচ্ছে যে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ফিনল্যান্ড তাদের ডিফেন্স সিস্টমকে একেবারে পরিকল্পনা মাফিক সাজিয়ে গেছে। এ কথাটা প্রকৃত আভাষ পাওয়া যায়, তাদের বর্তমান প্রেসিডেন্ট  সুওলি নিনিতসু গত ১২ মার্চ ২০২২ তারিখে রাশিয়ার আগ্রসন এবং ফিনল্যান্ডের অবস্থানের উপর রিপোর্টার আমানপোরের এক প্রশ্নের উত্তরে-আমানপোর প্রশ্ন করেছিলেন প্রেসিডেন্ট সিওলি নিনিতসুকে, Are you scared? উত্তরে প্রেসিডেন্ট বলেছিলেন, We are not scare but we are awake.

এখানে একটা কথা বলা দরকার যে, ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট আর রাশিয়ার পুতিনের সম্পর্কটা কি রকম। দুটুই খুব ডিপ্লোমেটিক চরিত্রের। খুব কম কথা বলে। ওদের একটা বাক্যে অনেক কিছু প্রকাশ করার মতো ক্ষমতা থাকে।

Finland’s President Sauli Niinistö has known Putin for a decade and often acts as a de facto interpreter, explaining the Russian president's thinking to Western allies – and vice versa. Niinistö is among a handful of world leaders who continue to contact the Russian president, trying to put a stop to the war.

ফিনল্যান্ড এ যাবতকাল রাশিয়ার প্রতিবেশী হিসাবে ভালোই ছিলো এবং রাশিয়াও ফিনল্যান্ডকে নিয়ে কোনো দুসচিন্তায় ছিলো না। ইউক্রেন যুদ্ধ ফিনল্যান্ডকে ভাবিয়ে তুলেছে, অন্যদিকে ঘোলা পানিতে মাছ ধরার মতো একটা পরিস্থিকে কাজে লাগিয়ে ন্যাটো এবার ফি ল্যান্ডের কান ভারী করে তাদেরকেও ন্যাটোর সদস্য করতে উঠে পড়ে লেগেছে কারন ফিনল্যান্ড ও রাশিয়ার সাথে প্রায় এক হাজার কিলোমিটার কমন বর্ডার নিয়ে আছে। আর ন্যাটোত চাচ্ছেই রাশিয়ার দোরগোড়ায় পৌঁছে যাক যাতে রাশিয়া নড়াচড়া করতে না পারে।

ফিনল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট সিওলি নিনিতসুর সাথে একবার পুতিনের আন্তরীকভাবে কথা হয়েছিলো (ওরা আসলে একসাথে অনেক বছর ধরে ঘোড়া দৌড় খেলতো, ওরা দুজনেই ভালো স্পোর্টসম্যান) এই ন্যাটো সংক্রান্ত ব্যাপারে। প্রেসিডেন্ট সিউলি নিনিতসু জিজ্ঞেস করেছিলো, যদি তারা ন্যাটোতে যোগ দেয়, তাহলে পুতিনের জবাব কি? পুতিন বলেছিলো যে, এখন আমরা ফিনল্যান্ডের প্রতিটি বর্ডার গার্ডকে বন্ধু মনে করি, কিন্তু তোমরা যদি ন্যাটোতে যোগ দাও, তাহলে তাদেরকে আর আমরা বন্ধুর চোখে দেখবো না।

এই বক্তব্যগুলি মারাত্তক। কারন, পুতিন খুব ডেস্পারেট চরিত্রের মানুষ। সে মনে করে ইউরোপ, পশ্চিমারা রাশিয়াকে অনেক অনেক ক্ষতি করেছে এবং এখনো তারা তার ক্ষতিই চায়। সে এটাও মনে করে যে, রাশিয়া যদি ক্ষতিগ্রস্থ হতে হতে নিঃশেষই হয়ে যায়, তাহলে অন্যদের আর বাচিয়ে রেখে লাভ কি? এটা একটা ভয়ংকর ধারনা। সুইসাইডাল মানুষের কাছে প্রিথিবীর কোনো কিছুই দামী নয়।

ফিনল্যান্ড হয়তো ভীতু নয়, কিন্তু রাশিয়া যেহেতু তার অস্তিত্ব সংকটে ভোগছে ফলে মরন কামড় দিতে তার কোনো ভয় নাই। আর এই কারনে ফিনল্যান্ড এবং সুইডেনের আরো সময় নেয়া উচিত ন্যাটোর আতিশয়তায় কিংবা উচ্ছসিত অভিনন্দনে এই মুহুর্তে পা না দেয়া বা ন্যাটোতে যোগ না দেয়া। তাতে রাশিয়ার কি হবে সেটা তো সে আগেই ভেবে নিয়েছে, অস্তিত্ব সংকট, ফলে যা হবে সেটা হলো রাশিয়া ফিনল্যান্ডকে আঘাত করবেই। ফলাফল কি হবে সেটা যাই হোক। এতে ন্যাটোর হয়তো কিছুই হবে না, মাঝখান দিয়ে সাজানো একটা দেশ যুদ্ধের কবলে পড়ে শান্তি নষ্ট হবে আর সাধারন মানুষ বিপাকে পড়বে। ন্যাটোর সদস্যপদ পাইতেও ফিনল্যান্ডের হয়তো আরো বছরের উপর লেগে যাবে যদি সবদেশ তাদের পার্লামেন্টে এটা পাশ করে। তানা হলে হয়তো আরো অধিক সময় পার হবে। সেই অবধি ন্যাটোর পক্ষে ফিনল্যান্ড এর জন্য কিছুই করার ইখতিয়ার নাই। ফিনল্যান্ডকে একাই ফেস করতে হবে রাশিয়াকে। ইউক্রেনও ভীতু ছিলো না, তারাও Awaken ছিলো, কিন্তু পরিশেষে কি দেখা গেলো? সারাটা দেশ এখন ধুলিস্যাত।

FINLAND IS ONE OF THE BEST COUNTRIES IN THE WORLD, WANTING ONLY PEACE, AND HAS AND NEVER WILL START ANY WAR.

১৩/৫/২০২২- রকি কাহিনী

আমাদের বাসায় কুকুর পালন কেউ পছন্দ করে না। কিন্তু গত কয়েকমাস আগে হটাত করে কোথা থেকে এক লোকাল কুকুর আমাদের বাসার সামনে এসে হাজির। সারাদিন বাসার সামনেই থাকে, পারলে গ্যারেজের মধ্যে নিজে থেকেই যেনো সেলফ ডিক্লেয়ারড পাহারায় থাকছে। তাঁকে নরম্যাল খাবার দিলে ছুয়েও দেখে না। কয়েকদিন চেষ্টা করেছি, ভাত, রুটি, কিংবা এই জাতীয় জিনিষ খেতে দিতে কিন্তু তার এমন একটা ভাব যেনো, ধুর!! কি দিছো এগুলি?

তারপর মাংস দিয়ে লবন দিয়ে মেখে একটা পরিষ্কার পাত্রে সাথে এক বাটি পানি দিলে উনি ধীরে ধীরে খেতে আসেন। তাও আবার পুরুটা তিনি খান না। একটু পেট ভরে গেলেই বাকী খাবারটা তিনি রেখে অন্যখানে গিয়ে পেট টানটান করে শুয়ে পড়েন। অনেক গবেষনা করছি এটা কোথা থেকে এলো, আর উদ্দেশ্যটা কি? আগেই বা কই ছিলো? শুনলাম পাশেই নাকি কোনো এক বাসায় থাকতো, ওখান থেকে তিনি রাগ করে এই যে এসেছে, ওদিকে সে আর ভুলেও যায় না।

এই কুকুরের আচরনে ইদানিং দেখি আমার বউ ওনার জন্যই শুধু মাংশ পাক করে। নাম রেখেছে আবার 'রকি'। রকি বলে ডাক দিলেও আবার ফিরে তাকায়। আমার ডাক্তার মেয়ে আবার ওর জন্য মাঝে মাঝে খাবারও কিনে নিয়ে আসে। আর আমিও বাদ যাই নি। কয়েকদিন নিউ মার্কেটের "৬৫ টাকায় বিরিয়ানীর দোকান" থেকে বিরিয়ানিও কিনে এনেছিলাম। ফলে আমি যখন বাসায় গিয়া হাজির হই, ব্যাপারটা এখন এমন হয়ে দাড়িয়েছে যে, গাড়ি থেকে নামলেই একেবারে পায়ের কাছে ঘুর ঘুর করে আর যেনো বলতে থাকে- 'আমার বিরিয়ানির প্যাকেট কই?'

তো গতকাল অনেক বৃষ্টি ছিলো। রকি সারাদিন গ্যারেজেই চার পা চার দিকে ছড়াইয়া নাক ডেকে মনে হয় ঘুমাচ্ছিলো। আমি বাসায় যাওয়ার পর, সে কোনো চোখ না খুলেই খালি লেজ নাড়ছিলো। ধমক দিলাম বটে কিন্তু তিনি এক চোখ খুলে দেখলো আমাকে আর লেজটা আরো একটু বেশী করে নাড়াইলো। ভাবখানা এই রকম, আরে বস, ডিস্টার্ব করো না।

গার্ডকে দিয়ে ওনার জন্য মুরগীর তরকারী আর এক প্লেট ভাত এনে খাওয়ানোর পর দেখি হটাত তার এই শারীরিক কসরত।

13/5/2022-সম্ভাবনা

প্রতিনিয়ত কারেন্সীর মান কমে গেলে অর্থনীতিকে স্থিতিশীল রাখতে ব্যাংকিং সেক্টরে সুদের হার বাড়ানো ছাড়া অনেক দেশের আর কোনো ইমিডিয়েট বিকল্প থাকে না। সেই প্রেক্ষাপট থেকে বলছি- হয়তো আমাদের দেশের ব্যাংকিং সেক্টরেও এটা ঘটতে পারে।

অন্যদিকে গত কয়েকদিন আগে দেখলাম আমাদের দেশে গোল্ডের দাম কমেছে। গোল্ড যেহেতু কারেন্সীর ভ্যালু নির্নায়ক, ফলে ডলারের দাম বাড়ার সাথে গোল্ডের দাম কমার কোনো যুক্তি খুজে পাইনি। হতে পারে এটা ইনফ্লেশন থামানোর একটা সাময়িক কৌশল।

৩য় মহাযুদ্ধটা আসলে ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে। সেটা ইকোনোমিক্যাল ওয়ার। কোনো অস্ত্র ছাড়া দেশে দেশে এই গন্ডোগোল পাকাবে, আর এর সুযোগে একটা বিশাল পোলারাইজেশনের সৃষ্টি হবে।

ইউক্রেনের যুদ্ধটা এর জন্য অনেকাংশে দায়ী। একটা সুপার পাওয়ার গত ২২ বছর হোম ওয়ার্ক করে প্রস্তুতি নিয়েছে, সংগী বাছাই করে বলয় তৈরী করেছে, আরেক পক্ষ হুট করে কোনো হোম ওয়ার্ক না করে যখন যা ইচ্ছে সেটাই প্রয়োগ করার চেষ্টা করছে। একটা অসম পরিকল্পনা মনে হচ্ছে।

একজন খুব ক্যালকুলেশন করে হম্বি তম্বি না করে কাজ করেই যাছে যেনো একটা সিনেমার দৃশ্য থেকে আরেকটা দৃশ্য সাজানো। অন্যজন এক গাদা সভা পরিষদ নিয়ে তাল মাতাল অবস্থা। বেশি ধরতে গিয়ে সব যেনো হাত থেকে সরে যাচ্ছে।

একটা প্রবাদ পড়েছিলাম A bird in hand is more worthy than that of two in the bush.

আল্লাহ আমাদের সবাইকে ধৈর্য ধরার তৌফিক দিন।

12/05/2022-আমার এখন কেবলই মনে হচ্ছে যে,

(১) খুব দ্রুত রাশিয়া ইউক্রেনে তাদের স্পেশাল অভিযান আপাতত স্থগিত করবে কারন রাশিয়ার উদ্দেশ্য যা ছিল তার প্রায় বেশিরভাগ সম্পন্ন। স্পেশাল অপারেশন বন্ধ করলে রাশিয়ার লাভ দুটু। এক. আমেরিকা বা অন্য দেশ ইউক্রেনে আর যুদ্ধাস্ত্র পাঠানোর ব্যবসাটা করতে পারবে না। দুই. ওদিকে সে ইউক্রেন ছেড়েও দেবে না। জাষ্ট পাহাড়াদারের মত অবস্থান। তার শক্তিও ক্ষয় হবে না।

(২) অন্যদিকে চীন তৈরী হচ্ছে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে তাইওয়ানের স্ট্যাটাস এবং ইন্দোপ্যাসিফিক কন্ট্রোল নিয়ে। কথাবার্তা ঠিক মনে হচ্ছেনা।

(৩) দুইটা সুপার পাওয়ারের সাথে একই সংগে ঝগড়ায় লিপ্ত হওয়া বুদ্ধিমানের কাজ নয় আমেরিকার।

(৪) আরব বসন্তের মতো এবার আবার পশ্চিমা বা ইউরোপিয়ান বসন্তের বাতাস বইতে শুরু না করে। কারন জার্মানি, ইউকে, আমেরিকায় ইনফ্লেশনে সাধারন জনগন ধীরে ধীরে ক্ষিপ হচ্ছে।

(৪) কাতারের সাথে জার্মানের তেল বিষয়ক কথাবার্তা বিফল হচ্ছে। বিকল্প তেল না পেয়ে জার্মানি বোকার মত রাশিয়ার তেল গ্যাস পুরুপুরি বর্জনের কথা আগাম বলে দিয়েছে যা আপাতত মনে হচ্ছে ভুল হয়েছে।

(৫) ইউক্রেন নিজের থেকে ইউক্রেনের ট্রাঞ্জিট দিয়ে তেল গ্যাস বন্ধ করায় জার্মানি, ইউক্রেন, স্লোভাকিয়া, পোল্যান্ডে এখন ওয়ান থার্ড সরবরাহ বন্ধ। ফলে ইউরোপের ইউনিটিতে একটা ফাটল দেখা যাচ্ছে।

(৫) গতকাল দেখলাম চীন খুব স্পষ্ট ভাষায় আমেরিকাকে হুশিয়ারী দিয়েছে এভাবেঃ আমেরিকা উইল বি হার্ট ইফ দে ইন্টারফেয়ার এবাউট তাইওয়ান স্ট্যাটাস এন্ড ইন্দোপ্যাসিফিক ইস্যু। কথাটা ছিলোঃ হার্ট। বিপদজনক ঠান্ডা কিন্তু কঠিন শব্দ।

(৬) চীন তার ডলার রিজার্ভের ব্যাপারে নিরাপদ রাখার সিস্টেম উদ্ভাবন করছে in case sanctioned. কথা হচ্ছে- চীন নিষেধাজ্ঞার কথা মাথায় নিচ্ছে কেনো? সামথিং রঙ।

(7) চীনের সরকারী সব অফিস আদালতে চাইনিজ মেইড কম্পিউটার রিপ্লেস করছে। চীনের ব্যাংকিং সেক্টর সুইফটকে বাইপাশ করে কিভাবে ইন্টারন্যাশনাল ট্রানজেকশন চালু রাখা যায় সেটা ইতিমধ্যে চালু করেছে।

এই রকম অনেক হোমওয়ার্ক চীন করে যাচ্ছে, যার আলামত আসলেই বিপদজনক।

পচা শামুকে কার কার যে পা কাটে বা কাটবে, একমাত্র সময় বলতে পারে।

7/5/2022-ফেসবুকে মিটুলের লেখা ৭ ই মে

আজ ৭মে আমার ও আখতারের জীবনের একটি বিশেষ দিন।বিবাহ বার্ষিকী নয়। তার চেয়েও অনেক মূল্যবান একটি দিন। আমাদের লাভ ডে আজ।লিখতে চেয়েছিলাম না। কিন্তু না লিখে পারলাম না। কেননা আমি আজ সিলেটের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে বেড়াচ্ছি বন্ধুদের সাথে। মনে কিন্তু ঠিকই আছে!! এ কি ভোলার মত বিষয় আপনারাই বলেন!!

আমি অনেক ভালো আছি তাঁর সাথে, বর্ণনা করে বোঝাতে পারবো না।আমিও চেষ্টা করি আমার মানুষটিকে ভালো রাখবার। আসলে আমরা একে অপরকে রেসপেক্ট করি ও বোঝার চেষ্টা করি, যা মনের সুখের খোরাক জোগায় এবং খুবই দরকার। তবে আমার চেয়ে আখতারই বেশি মূল্যায়ন করে আমাকে। আমার আনন্দ গুলো যেমন অন্তর দিয়ে উপভোগ করে, তেমনি আমার মন খারাপ বা কষ্ট কোনটাই তাঁর যেন ভালো লাগে না।অনেক স্বাধীনভাবে জীবন যাপণ করছি। তাই বলে আমি কখনও অবিশ্বাসের কোন কিছু করেছি বলে মনে পড়ছে না।আমাকে সব রকম পরামর্শ দেয় সব সময়, সেটা আর্থিক বা বৈষয়িক যে কোন বিষয়ে। আমার সবচেয়ে বড় ভরসার জায়গাটি আখতার।আলহামদুলিল্লাহ। আজ এই দূরে বসে সিলেটের লালা খালে তোলা বেশ কিছু ছবি আখতারের জন্য পোস্ট দিলাম।আজকের এই আনন্দগুলোও তাঁর জন্য পেয়েছি।বান্ধবীরা সিলেট যাচ্ছে বলতেই তিনি বলে বসলো-তুমিও যাও!!! অনেক বড় মনের মানুষ আখতার।মহান আল্লাহ ওকে সুস্থ শরীরে মান সম্মানের সাথে দীর্ঘজীবি করুন এবং জানমালের নিরাপত্তা দিন সে দোয়া করি। সবাই আমার পরিবারের জন্য দোয়া করবেন প্লিজ প্লিজ।

04/05/2022-মার্কিন ডিফেন্স মিনিষ্টার লয়েড অষ্টিন এর বক্তব্যের

মার্কিন ডিফেন্স মিনিষ্টার লয়েড অষ্টিন  এর বক্তব্যের বিপরীতে ছোট একটা বিস্লেষন

গত সপ্তাহে মার্কিন ডিফেন্স মিনিষ্টার লয়েড অষ্টিন কিয়েভে গিয়েছিলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীর সাথে দেখা করতে। বিশালদেহী মানুষ। তিনি সেখানে একটা কথা মনের অজান্তেই প্রেস ব্রিফিং এ হুট করে বলে ফেলেন। আর সেটা হলো- “Our focus in the meeting was to talk about those things that would enable us to win the current fight and also build for tomorrow.” Furthermore, Austin admitted for the first time that the US is a fighter in the war by using the first-person plural to describe both the US and Ukraine engaged in a “battle” against Russia. “We want to see Russia degraded to the point where it can’t do the types of things it did in invading Ukraine,” Austin continued.

এই বক্তব্যের মাধ্যমে অষ্টিন সরাসরি স্বীকার করে নিলেন যে, আমেরিকা ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার বিরুদ্ধে একটি অংশ। কিন্তু লয়েড অষ্টিনের কথার সাথে জো বাইডেন প্রশাসনের উম্মুক্ত ডিক্লেরেশনের মিল নাই। জো বাইডেন প্রশাসন সবসময় যেটা বলে আসছে যে, ন্যাটো দেশের সাথে যে কোনো কনফ্রন্টেশন মানে ৩য় বিশ্ব যুদ্ধ। সেটা কিছুতেই আমেরিকা চায় না। কিন্তু লয়েডের বক্তব্যে সেটা নাই, লয়েড যেটা বলেছে সেটা আসলেই পর্দার ভিতরের কথা, আর তার মুখ ফসকে বেরিয়ে গেছে। এই মুখ ফসকে বেরিয়ে যাওয়া বক্তব্যে আমেরিকার কি কি ক্ষতি হতে সেটা ভাবার ব্যাপার।

(১)        জো বাইডেন প্রশাসনে অনেকেই আছেন যারা চায় যে, আমেরিকা যুদ্ধে নামুক। কিন্তু ফেডারিয়ালিষ্ট সিনিয়ার এডিটর জন ডেনিয়েল ডেভিশসন বলেন যে, যদিও রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনকে ব্যাটল ফিল্ড হিসাবে ব্যবহার করে আমেরিকা যুদ্ধে যেতেই পারে কিন্তু আমেরিকার সাধারন জনগনের এই যুদ্ধে কোনো ম্যান্ডেট নাই বিধায় আমেরিকার যুদ্ধে যাওয়া ঠিক হবে না এবং এই যুদ্ধে আমেরিকা প্রক্সি ওয়ার হিসাবে অংশ গ্রহন করছে এটাও প্রকাশ করা যাবে না।

(২) যদি রাশিয়াকে প্রকাশ্যে আমেরিকা এইমর্মে ইংগিত দেয় যে, আসলেই তারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে আছে (যদিও রাশিয়া এটা জানে কিন্তু অফিশিয়লি নয়) তাহলে রাশিয়া আমেরিকার যে কোনো সৈনিক তথা জনগনকে রাশিয়ার শত্রু মনে করে টার্গেট করবেই।

(৩)       A second possibility is that if Putin sees his conventional military forces being suffocated, he will resort to further cyber attacks on Western infrastructure, chemical weapons, or his tactical, “battlefield” nuclear weapons arsenal. It’s a prospect that was unthinkable eight weeks ago but is now routinely discussed and this will put more Americans in danger.

লয়েড অষ্টিনের এই মুখ ফসকে বেরিয়ে যাওয়া বক্তব্য ইতিমধ্যে রাশিয়ার মাথায় ঢোকে যাওয়া আমেরিকার প্রক্সী ওয়ারকে আরো বেশী বেগবান করে তুলতে পারে। To date, there has been no American bloodshed in the thick of the war in Ukraine. However, Russia may not hesitate to do so now.

তাই এই লেবেলের মানুষদের কথা বলার সময় শব্দচয়ন, ডিপ্লোমেসি, এবং কি বলা দরকার সেটা সর্বদা মাথায় রেখে বলা উচিত। তা না হলে যে কোনো সময়ে বড় ধরনের কিছু আশংকাকে উড়িয়ে দেয়া যায় না।

06/05/2022-ইউক্রেন যুদ্ধের পটভুমি

১৮ শতাব্দীর শেষের দিকে জন্ম আজকের ইউক্রেনের। ইতিহাসের শেষের অধ্যায়ে এসে ইউক্রেন পোল্যান্ড এর গন্ডি থেকে বেরিয়ে যায় এবং তখন ইউক্রেন অষ্ট্রিয়া-রাশিয়ার মাঝামাঝিতে বর্দার করে অবস্থান নেয়। রাশিয়ার কাছাকাছি অংশটি প্রধানত রাশিয়ান ভাষাতেই বেশী অভ্যস্থ যদিও তারা ইউক্রেনেরই নাগরীক।

(ছোট নোটঃ After the Union of Lublin in 1569 and the formation of the Polish–Lithuanian Commonwealth, Ukraine fell under the Polish administration, becoming part of the Crown of the Kingdom of Poland)

ইউক্রেনের প্রাগৈতিহাসিক কাহিনীতে না যেয়ে আমি ১৯৯১ সাল থেকে ইউক্রেনের বিষয়টি যদি বিশ্লেষন করি দেখা যাবে- বার্লিন পতনের ২ বছর পর ১৯৯১ সালে যখন ইউক্রেন স্বাধীনতা পেলো, ঠিক তখন থেকেই ইউক্রেনের ভিতরে রাজনৈতিক এবং কূটনইতিক ঝামেলার শুরু। প্রাথমিকভাবে এটা ছিলো ইউরোপ এবং রাশিয়ার জিওকালচার এর বিভক্তির কারনে। কিন্তু  ২০০৪ সালের অরেঞ্জ রেভুলিউশন দিয়ে শুরু হয় রাজনৈতিক অস্থিরতা। অরেঞ্জ রেভুলিউশন হলো- a series of protests and political events that took place in Ukraine from late November 2004 to January 2005, in the immediate aftermath of the run-off vote of the 2004 Ukrainian presidential election, which was claimed to be marred by massive corruption, voter intimidation and electoral fraud.

প্রেসিডেন্ট প্রার্থী Viktor Yushchenko এবং Viktor Yanukovych এর মধ্যে ভোট কারচুপির ঘটনায় এই অরেঞ্জ রেভুলিউশন। যদিও Viktor Yushchenko  জয়ী হন কিন্তু এটা দেশের জনগন মেনে না নেওয়ায় দেশের ভিতরেই উত্তপ্ত অবস্থা চলতে থাকে। অবশেষে উচ্চ আদালতের নির্দেশনায় এবং নিরপেক্ষ ভোট গননায় শেষমেষ ৫২% ভোটে জয় দেখিয়ে Viktor Yushchenko কেই প্রেসিডেন্ট হিসাবে আদেশ দেয়া হয় এবং অরেঞ্জ রেভুলিউশনের নিষ্পত্তি হয়।

এর মধ্যে অন্য অঞ্চলে একটা অঘটন ঘটে যায়। জর্জিয়া আগে থেকেই ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে যোগ দেয়ার জন্যে উম্মুখ হয়েছিলো। এই সময়ে জর্জিয়ার মতাদর্শে যুক্ত হয় ক্রোয়েশিয়া এবং ইউক্রেন।  রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জর্জিয়া এবং ইউক্রেনকে ন্যাটোর সদস্যপদ দিতে না করেন ন্যাটোকে। ফলে ন্যাটো শুধুমাত্র ক্রোয়েশিয়াকে সদস্যপদ দিয়ে জর্জিয়া এবং ইউক্রেনকে বাদ দেয় ঠিকই কিন্তু ইউক্রেনের বেলায় ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন একটা “association agreement” করে যার লক্ষ্য বলা হয় Implementation of the association agreement could mean major changes in Ukraine that would bring it closer to EU standards. রাশিয়া ইউরোপিয়ানের এবং ন্যাটোর এই উদারতাও পছন্দ করে নাই। আবার অন্যদিকে রাশিয়ার কারনে জর্জিয়া ন্যাটোতে যুক্ত হতে না পারায় রাশিয়ার বিরুদ্ধে জর্জিয়া আন্দোলন শুরু করলে ২০০৮ সালে রাশিয়া জর্জিয়া আক্রমন করে এবং Abkhazia and South Ossetia কে জর্জিয়া থেকে আলাদা সার্ভোমত্ত স্ট্যাটাস প্রদান করে।

 

যাই হোক যেটা বলছিলাম, প্রেসিডেন্ট Viktor Yushchenko  এর আমলটা তার ভালো কাটে নাই এবং তিনি জর্জিয়ার বিরুদ্ধে রাশিয়ার এই আক্রমনে জর্জিয়ার পক্ষ নেয় যার ফলে ইউক্রেনের সাথে রাশিয়ার একটা শত্রুতামুলক সম্পর্ক তৈরী হয়। অবশেষে ২০১০ সালে তিনি ভোটে হেরে যান

এবং Viktor Yanukovych (যিনি ২০০৪ সালে হেরে গিয়েছিলেন, তিনি) প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন। কিন্তু তার ক্ষমতায়নের সময়ে তিনিও বিরোধি দলের দাপটে দেশ পরিচালনায় ভালো করতে পারেন নাই ফলে সারা দেশ জুড়ে ‘মাইডান স্বাধীনতা চত্তরে” বিশাল গনঅভ্যুথানে ২০১০ সালে (ক্ষমতার ৪ বছর পর) ক্ষমতা থেকে বিতাড়িত হন। একেই মাইডান বেভুলিউশন নামে পরিচিত। মাইডান রেভুলিউশনের মাধ্যমে ইউক্রেনিয়ানরা চেয়েছিলো যে, “association agreement”  যা কিনা এক অর্থে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে একাত্ততা বা সদস্যপদ লাভে একটা দরজা খোলা রাখা সেটা ঘোষনা করা আর সাক্ষরিত হওয়া। Viktor Yanukovych  ছিল প্রো-রাশিয়ান। তিনি সেটা করতে অস্বীকার করেন। এই সময়ের বিরোধী পার্টির নেত্রী মহিলা Tymoshenko ছিলেন রাশিয়া বিরোধি কিন্তু ইউরোপিয়ান পক্ষীয় মতাদর্শের।  ক্রমাগত তার দাবী এবং আন্ডলন চলতে থাকলে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ইউনোকোভিচ ২০১১ সালে তাঁকে এরেষ্ট করেন এবং ৭ বছরের জেল দেন। এসব জটিল রাজনৈতিক টালমাতাল অবস্থায় শেষ পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট Viktor Yanukovych  রাশিয়ায় পালিয়ে যান এবং প্রোসেংকু নতুন প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ গ্রহন করেন।

প্রেসিডেন্ট প্রোসেংকো ছিলেন প্রো-ওয়েষ্টার্ন। তিনি প্রেসিডেন্ট হবার পরে সর্বাত্তক চেষ্টা করেন যাতে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে যোগ দেয়া যায়। এখানে বলা বাহুল্য যে, প্রেসিডেন্ট প্রোসেংকোকে ব্যবহার করে আমেরিকা এবং ইউরোপ বেশ কিছু কাজ করে ফেলেন। তদানিতন ওবামা প্রশাসন ২০১৪ সালে ওয়েষ্টার্ন লিড ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কার্যাদি দেখভালের জন্য তদানিন্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে প্রধান করে ওবামা প্রশাসন ইউক্রেনের দায়িত্ত দেন। এই কার্যাদির মধ্যে যেতা ছিলো তা হচ্ছে- ডনবাস, ডনেস্ককে এই দুই অঞ্চলকে রাশিয়ার মতাদর্শ থেকে উতখাত করা। কারন ইউক্রেন সর্বদা এদেরকে প্রো-রাশিয়ান ভাবতো, এখনো ভাবে। ফলে এদের উপর চলে সর্বাত্তক হামলা, আক্রমন, এবং সামরীক অভিযান। ওদেরকে এক প্রকার রাজাকারের মতো ট্রিট করা হতো এবং এই দুই অঞ্চলের মানুষ তথা রাশিয়ান স্পিকিং ইউক্রেনিয়ানদেরকে নির্দিধায় খুন, বাস্তুহারা এবং শারীরিক টর্চারে নিমজ্জিত করতে শুরু করে। শুরু হয় জটিল সমীকরন। উপায়ন্তর না দেখে রাশিয়া এই দুই অঞ্চলকে সাহাজ্যের হাত বাড়িয়ে দেয়। ২০১৪ সালে মালিয়েশিয়ান যাত্রীবাহী প্লেন ২৯৮ জন যাত্রীসহ ইউক্রেনে মিজাইল ফায়ারে নিপতিত হলে উক্ত দোষ রাশিয়ার উপর চাপিয়ে দেয় যদিও রাশিয়া সেটা প্রত্যাখ্যান করে। একদিকে রাশিয়ার সাপোর্টে ডনবাস, ডোনেস্ক অস্ত্র তুলে নেয় অন্যদিকে ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট প্রোসেঙ্কোর নেত্রিত্তে ডনবাস এবং ডোনেস্ক এবং ক্রিমিয়ার মানুষগুলিকে সরকারী সামরীক বাহিনী, অস্ত্র এবং সৈনিক দিয়ে উতখাত করার সর্বাত্তক চেষ্টা করে। অবশেষে রাশিয়া ক্রিমিয়া দখল করে নেয়।

 

রাশিয়ার এহেনো তীব্র সামরিক অভিযানে প্রেসিডেন্ট প্রোসেঙ্কো রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে মিনস্কে এক বৈঠকে মিলিত হন যেখানে ফ্রান্স প্রেসিডেন্ট President Francois Hollande এবং German Chancellor Angela Merkel এর উপস্থিতি ছিলো। উক্ত বৈঠকে ১৩টি শর্ত সাপেক্ষে যুদ্ধ বিরতি কিংবা অবসানের ঘোষনা দেন উভয় পক্ষ। আর সেটাই হলো মিনস্ক চুক্তি। লক্ষ্য ছিলো- end the war, an immediate cease-fire and the withdrawal of all heavy weaponry in order to create a “security zone.”

কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, উক্ত মিনস্ক চুক্তি ইউক্রেন কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ না নিয়ে উলটা আমেরিকার দ্বারস্থ হয়। তখন তদানিতন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইউক্রেনে লিথ্যাল অস্ত্র সরবরাহ বিক্রির অনুমোদন দেয় যা ওবামা প্রশাসন করতে না করেছিলো। আর একাজে ট্রাম তার ডিফেন্স এডভাইজার কার্ট ভলগারকে দায়িত্ত দেন। ব্যাপারটা এখানেই শেষ ছিলো না। বরং আমেরিকা Ukraine Security Assistance Initiative এর নামে প্রচুর পরিমান সামরীক শক্তি বৃদ্ধির লক্ষে আর্থিক সাহাজ্য দেয়ার জন্য কংগ্রেসে অনুমোদন পাশ করিয়ে দেয়। এর মাধ্যমে রাশিয়া আমেরিকাকে এই অঞ্চলে একটা প্রক্সি ওয়ারের সামিল হওয়া হিসাবে গন্য করছিলো। Russia accuses the United States of encouraging the break in order to weaken Moscow, and a Kremlin spokesperson reissues a promise to defend “the interests of Russians and Russian-speakers.”

২০১৯ সালে ভ্লডিমির জেলেনেস্কী প্রায় ৭০% শতাংশ ভোটে প্রেসিডেন্ট প্রোসেংকোকে হারিয়ে বিপুল ভোটে জয়ী হয়। জেনেস্কীর পার্টি পার্লামেন্টেও মেজরিটি পায়। তার ইলেকশন মেনিফেষ্টু ছিলো-(ক) দূর্নীতি এবং দারিদ্রতা দূরীকরন (খ) পুর্ব ইউক্রেনের যুদ্ধকে দমন করা।

জেনেস্কী প্রেসিডেন্ট হয়েই তিনি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করেন এবং এক টেলিফোন বার্তায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জেলেনেস্কীকে এক প্রকার উষ্কানীই দিয়েছেন বলে জানা যায় যাতে ইউক্রেন অতি সত্তর রাশিয়ার বিরুদ্ধে এবং আমেরিকার নেত্রিত্তে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে তথা ন্যাটোতে যোগদানের পথ তরান্নিত করে।

(https://edition.cnn.com/2019/09/25/politics/donald-trump-ukraine-transcript-call/index.html)

যাই হোক, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কিংবা অন্য কারো ফেক ভরসায় প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কী গত ২০২০ এর জুনে ইউক্রেন NATO Enhanced Opportunities Partner তে নাম লিখায়। যেখানে অষ্ট্রেলিয়া, জর্জিয়া, ফিনল্যান্ড, জর্দান, এবং সুইডেনও ন্যাটোর যুগ্ম মিশন এবং সামরীক মহড়ায় অংশ নিতে অংগীকার বদ্ধ হয়। একই বছর সেপ্টেম্বরে জেলেনেস্কী তার পার্লামেন্টে ন্যাটোতে যোগ দেয়ার দৃঢ় অংগীকার হয়ে National Security Strategy অনুমোদন করে যার অর্থ ছিলো সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে ইউক্রেন ন্যাটোতে এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে যোগ। উক্ত আইন পাশ করার পরে জেলেনেস্কী ফেব্রুয়ারী ২০২১ সালে অনেকগুলি কাজ করে ফেলেন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-(ক) ইউক্রেনের রাশিয়াপন্থী অলিগার্দের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন বিশেষ করে অইলিগার্গ ভিক্টোর মেদ্ভেদচুক যিনি ইউক্রেনের বৃহৎ প্রো-রাশিয়ান পলিটিক্যাল পার্টির চেয়ারম্যান (খ)  ইউক্রেনের সরকার মেদ্ভেদচুকের সমস্ত আর্থিক এসেট কব্জা করেন (খ) রাশিয়ার সমস্ত টিভি চ্যানেল ইউক্রেনে সম্প্রচার বন্ধ করেন (গ) জাতীয় স্লোগান- ইউক্রেন শুধু ইউক্রেনিয়ানদের জন্য, আর বাকী সব অবৈধ।

রাশিয়া ব্যাপারটা বুঝতে পেরেছিলো যে, এখানে শুধু ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীই জড়িত নয়, তারসাথে আমেরিকা এবং ইউরোপ সামিল। তাই ভ্লাদিমির পুতিন ডিসেম্বর ২০২১ থেকে জানুয়ারী ২০২২ পর্যন্ত তার দখলে থাকা ক্রেমিয়ায় অজস্র সামরীক যন্ত্রাদি এবং সৈন্য মোতায়েন শুরু করে। তবে একই সাথে পুতিন আমেরিকা এবং ইউরোপিয়ান ইউনিয়নকে এইমর্মে আলোচনায় বসার উদ্যোগ নিতে বলেন। সেখানে পুতিন Set of Security Gurantees নামে একটা কন্সেপ্ট পেপারও দাখিল করেন-This includes a draft treaty calling for tight restrictions on U.S. and NATO political and military activities, notably a ban on NATO expansion. The Biden administration delivers written responses in January; few details are made public, but it rejects Russia’s insistence that Ukraine never be accepted into NATO and proposes new parameters for security in the region.

রাশিয়ার এজেন্ডাকে ন্যাটো বা ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন কোনো প্রকার গুরুত্ত না দিয়ে গত ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২২ এ  Germany announces the suspension of the Nord Stream 2 pipeline, while the United States, EU, and UK pledge additional financial sanctions against Russian entities. রাশিয়া ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২২ তারিখে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালায়।

05/05/2022-কে জিতছে এই যুদ্ধে?

একটা যুদ্ধ হচ্ছে রাশিয়া আর ইউক্রেনের মধ্যে যেনো এটা একটা ঘরোয়া ব্যাপারের মতো যদিও রাশিয়া তার পার্শবর্তী সাধীন দেশ ইউক্রেনকে আক্রমন কোনোভাবেই গ্রহনযোগ্য হতে পারেনা। তারপরেও এটা বাস্তবে ঘটেছে। এখন এই যুদ্ধের বা অপারেশনের বিশ্লেষনে যদি যাই আমরা কয়েকটা প্রশ্নের উত্তর এখনো জানি না বলেই মনে হচ্ছে।

এই যুদ্ধে কার কি ইন্টারেষ্ট, যদি সেটা জানা যায়, তাহলে হয়তো ব্যাপারটা আচ করা সম্ভব। একটা জিনিষ খেয়াল করেছেন সবাই যে, আমরা যারা আমজনতা, যাদের পোট্রেইট মিডিয়া ছাড়া অন্য কোনো মিডিয়ায় এক্সেস নাই বা যেতে চাই না। আর সোস্যাল মিডিয়া হচ্ছে সবচেয়ে অনির্ভরশীল একটা প্রোপাগান্ডার মাধ্যম। পোট্রেইট মিডিয়াগুলিতে প্রতিনিয়ত এটা দেখছি যে, পশ্চিমা মিডিয়াগুলি

(ক) অনবরত ইউক্রেন জিতে যাচ্ছে, ইউক্রেন জিতবেই এ ধরনের খবর দিচ্ছে। এই খবরগুলির পিছনে কতটা গ্রাউন্ড তথ্য নিয়ে বিশ্লেষন করা তা কিছু কেউ জানাচ্ছে না।

(খ) কোনো পশ্চিমা দেশ বা ইইউ কিন্তু এই যুদ্ধটাকে থামানোর জন্য এগিয়ে আসছে না।

(গ) বরং যে যেখান থেকে পারে, সব ইইউ দেশগুলি একযোগে টাকা পয়সা, অস্ত্র, ট্রেনিং এমনকি বিশেষ টেকনোলজি এবং প্রোপাগান্ডা দিয়ে ইউক্রেনকে সাহাজ্য করছে এবং পিস টকে কেউ আগ্রহ দেখাচ্ছেই না।

(ঘ) সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো- পশ্চিমা পক্ষসহ ইইউ আগ্রাসী রাশিয়ার কোনো কথাই শুনতে নারাজ বিধায় তাদের মিডিয়া পুরু দুনিয়া থেকে ব্লক, তাদের সাথে কোনো সেমিনারে বসলে ওয়াকআউট ইত্যাদিও করছে। অর্থাৎ আমাদেরকে যা শুনতে হবে তা শুধু একপক্ষ থেকে। তাহলে দুই পক্ষ না শুনে আমরা যারা আমজনতা তারা কিভাবে বিচার করবো কে কতটুকু দোষী বা দায়ী?

কার কি ইন্টারেষ্ট

এবার একটু এদিকে নজর দেই। যুদ্ধটা হচ্ছে ইউক্রেনে যে কিনা ইইউর সদস্যও নয়, আবার ন্যাটোরও না। অথচ ইইউ এবং ন্যাটো পুরু ইউক্রেন যুদ্ধটাকে যেনো নিজের যুদ্ধ মনে করে এগিয়ে নিচ্ছে। অথচ ইউক্রেনকে গত ১৪ বছর যাবত ইইউ এর সদস্যপদ বা ন্যাটোর অন্তর্ভুক্ত করার আশা দিয়েও ইইউ বা ন্যাটো তাঁকে কোনো সদস্যপদ দিতে নারাজ ছিলো। তাহলে হটাত করে সবাই ইউক্রেনের জন্য এতো উঠে পড়ে লাগলো কেনো? কার কি ইন্টারেষ্ট এখানে? যে পরিমান ডলার, আর অস্ত্র ইউক্রেনে এ যাবত দেয়া হয়েছে, কার কাছে যাচ্ছে, কে ইউজ করছে, কিভাবে সেগুলির কন্ট্রাক্ট কিছুই কিন্তু ফলোআপ হচ্ছে না। অথচ এই পরিমান অর্থ যদি যুদ্ধের আগে এই ইউক্রেনকে দেয়া হতো, তাহলে ইউক্রেন ধনী দেশসমুহের মধ্যে একটা হয়ে যেতো।

ইউকে

ইউকে খুব অল্প কিছুদিন আগেই ইইউ এর সদস্যপদ থেকে নিজের ইচ্ছায় বেরিয়ে গেছে কারন তার পোষাচ্ছিলো না। যে বাজেট দিয়ে তাঁকে ইইউ তে থাকতে হয় আর কমন এজেন্ডায় থাকার কারনে অন্য ২৭টি দেশ থেকে যেভাবে ফ্রি মাইগ্রেশন হয় ইউকে তে, তাতে তাদের লাভের থেকে ক্ষতি অনেক বেশী হয়। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, সবচেয়ে বেশী লাভ হয় আসলে অন্যান্য দরিদ্র ইইউ এর দেশগুলির যাদের মেম্বারশীপ ফিও কম, আবার সদস্য থাকায় তাদের জন্য বরাদ্ধ বোনাস অনেক বেশী। তাই ইউকে এর নাগরিকগন ব্রেক্সিট এর মাধ্যমে এই ইইউ থেকে চিরতরে বেরিয়ে গেছে। কিন্তু ন্যাটো যেহেতু একটা কোঅর্ডিনেটেড ডিফেন্স সিস্টেম, তাই ইউরোপ তার নিজস্ব ডিফেন্স সিস্টেম গড়ে না তোলা পর্যন্ত ইউকে কে থাকতে হবে এমন শর্তেই ইইউ ইউকেকে সদস্যপদ খারিজ করার অনুমতি দিয়েছিলো। ফলে, ইউকে এর আধিপত্যতা ইইউ দেশসমুহে প্রায় নাই বললেই চলে একমাত্র ন্যাটো কান্ট্রির ডিফেন্স নিরাপত্তার একজন সদস্য ছাড়া। কয়েকশত বছর সারা দুনিয়া চষে বেড়ানো ইউকে, তার মোড়লগিড়ি কখনোই ছাড়তে চায় না, কিন্তু বাস্তবতা হলো যে, তার হাত ক্রমশই ইন্টারন্যাশনাল এরিয়াতে দূর্বল হওয়াতে সে আগের হাবভাব ধরে রাখা সম্ভবও হচ্ছিলো না। আর এজন্যই অন্তত ন্যাটোর ডিফেন্স বলয়ে থেকে এবং একটা গ্রেট পাওয়ারের মাহাত্যে এই যুদ্ধে আসলে সরগরম থাকতে চাচ্ছে ইউকে। তাছাড়া আমেরিকার বলয় থেকে ইউকে যেতে পারবে না বা যেতেও চায় না। কারন ইউরোপিয়ান ফেডারেল সেন্ট্রাল ব্যাংক এই ইউকের জন্য একটা মারাত্তক আর্থিক অস্ত্র যেটা না থাকলে ইউকে এর অনেক ক্ষমতা হ্রাস পেতে পারে। এটাকে ধরে রাখাও ননমেম্বার ইউকে এর বিশেষ চাল। ফলে, একটা এটা তার আর্থিক নিরাপত্তা যেমন নিশ্চিত করে তেমনি তার আধিপত্যতা বজায়ের একটা মই ছাড়া আর কিছুই না। অন্যদিকে ইউকে এই রাশিয়া বা ইউক্রেনের বেশীর ভাগ পন্যের উপর যেমন তেল, গ্যাস, অন্যান্য কমোডিটির উপর সে নির্ভরশীলও নয়। তাই, ইউক্রেন ধংশ হলেই কি আর বেচে গেলেই কি। অন্যদিকে পুরানো শত্রু রাশিয়া যদি এই যুদ্ধে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্থ হয়, তাতে ইউকে এর লাভ ছাড়া তো ক্ষতি নাই।

ইউএসএ

আমেরিকা কিন্তু ইইউ দেশের সদস্য নয়। কিন্তু সে ন্যাটোর সদস্য। দুটু দুই জিনিষ। আপনি যদি লয়েড অষ্টিনের সর্বশেষ বক্তব্যটা শুনেন, দেখবেন তিনি সেখানে বলেছেন, আমরা রাশিয়াকে অতোটাই দূর্বল দেখতে চাই যতোটা হলে রাশিয়া আর মাথা তুলে দাড়াতে পারবে না। আর ঠিক এই বক্তব্যটাই হচ্ছে ইউএসএ এর ইন্টারেষ্ট ইউক্রেনে। ইউক্রেনকে ভালোবেসে আমেরিকা এতো টাকা পয়সা এতো অস্ত্র সাপ্লাই দিচ্ছে ভাবলে সেটা হবে ভুল। তারাও একটা প্রচন্ড ব্যবসায়ীক লাভের মুখ দেখছে অস্ত্র বিক্রি করে। আর যতোদিন এই যুদ্ধটা থাকবে, আর্মস বিক্রির ততোটাই বাজার থাকবে আমেরিকার। কারন রাশিয়ার সাথে বর্ডারিং দেশগুলি তাদের নিরাপত্তা বাড়ানোর লক্ষ্যে খাবারের থেকে বেশী অস্ত্র কিনতে আগ্রহী হবে রাশিয়ার সাথে বর্ডারিং দেশগুলি, হোক সেটা ন্যাটোর অধীনে বা ইইউর অধীনে বা নন-ইইউভুক্ত দেশ। এখানে আরেকটা ব্যাপার খুব ভালোভাবে লক্ষ্য করার বিষয় আছে-সেটা হলো, রাশিয়ার সাথে প্রক্সি যুদ্ধ চালিয়ে আমেরিকা তো রাশিয়ার সাথেই যুদ্ধ করছে, কিন্তু যুদ্ধটা নিজের দেশের মধ্যে নয় আবার রাশিয়াকে সরাসরি এটাক করতেও হলো না। পেন্টাগন স্বীকার করেছে যে, তারা জার্মানীতে ইউক্রেনের অনেক নাগরীককে মিলিটারী প্রশিক্ষন দিচ্ছে যাতে তারা ইউক্রেন যুদ্ধে অংশ গ্রহন করতে পারে। তারমানে যুদ্ধটা আরো বিলম্বা হোক। আর আমেরিকা রাশিয়ার তেল, গ্যাস কিংবা অন্যান্য কমোডিটির উপরেও ততোটা নির্ভরশীলও নয়। অন্যদিকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট একচ্ছত্র ২২ বছর ক্ষমতায় থাকাতে রিজিম পরিবর্তনেরও কোনো সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না, যা পশ্চিমাদের জন্য একটা অবশ্যই মাথাব্যথার কারন। আর এই যুদ্ধের মাধ্যমে যদি সেটা অর্জিত হয়, খারাপ কি? তাহলে এমন একটা যুদ্ধ আমেরিকা থামাতে যাবে কেনো? ইউক্রেন ঠিক সেই ট্রাপটাতে পা দিয়েছে আমেরিকার হয়ে যেই ট্র্যাপটা রাশিয়া দিয়েছিলো আফগানিস্থান যুদ্ধে। কিন্তু রাশিয়াও সেই যুদ্ধে টিকে নাই।

ইউক্রেন

এখানে একটা কথা না বললেই নয়। আমরা কি কেউ জানি ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সাল অবধি ডনবাস, ম্যারিউপোল, ক্রিমিয়ায় কি হয়েছিলো? আমি ২য় মহাযুদ্ধের এ যাবতকাল যতো ওয়ারফুটেজ আছে, সম্ভবত তার ৬০% নিজে দেখার চেষ্টা করেছি এবং সেই ফুটেজগুলিতে আমি একটা জিনিষ ক্লিয়ারলি বুঝেছি যে, হিটলার কিভাবে ইহুদীজজ্ঞ শুরু করেছিলো এবং শেষ করতে চেয়েছিলো। সেই সব ইহুদীরা নিরাপদ ছিলো না আবার অন্যায়কারীও ছিলো না। হিটলারের মতাদর্শে তারা চলতে চায় নাই বিধায় তাদের ওই পরিনতি ভোগ করতে হয়েছিলো। সেই ফুটেজগুলি দেখার পরে যদি ২০১৪ সাল থেকে ২০২১ সাল অবধি ডনবাস, ম্যারিউপোল, কিংবা অন্যান্য সিটিতে স্পেশাল ফোর্স আজব ব্যাটালিয়ান কি করেছে পাশাপাশি দেখি, একই ছক, একই প্ল্যান, একই সিস্টেম। এমন কি এই আজব ব্যাটালিয়ান হিটলারের সময়ে ব্যবহৃত ইন্সিগ্নিয়াও ইউজ করতো। একদম ছোট ছোট বাচ্চাদেরকে স্কুল কলেজগুলিতেই শিক্ষা দেয়া শুরু হয়েছিলো যাতে ছোট ছোট ইউক্রেনিয়ান বাচ্চারা মনেপ্রানে বিশ্বাস করে যে, রাশিয়া ইউক্রেনের শত্রু। Battle in Donbass, Donbass war at Airport, Fast Forwar to Fasicim, War in Europe-Drama in Ukrain, Trapped ইত্যাদি গ্রাউন্ড যিরো থেকে নেয়া ফুটেজগুলি দেখি, তাহলে হিটলারের ইহুদীনিধন আর ইউক্রেনের মধ্যে রাশিয়ান নাগরিকদের নিধনের মধ্যে কোনো তফাত পাবেন না। এই বিগত ৮ বছরের নিধনে কোনো ইউরোপিয়ান দেশ, বা পশ্চিমারা কোনো প্রকারের ভয়েস রেইজ করেন নাই। এমন কি আমরা যারা আমজনতা তারাও মিডিয়ায় এর একচুয়াল প্রতিফলন না হওয়াতে কিছুই জানি না। কিন্তু এরমধ্যে মিন্সক চুক্তি করে আপাতত একটা যুদ্ধবিরতি ঘোষনা করেছিলো ইউক্রেন। আমাদের অনেকের মনে এই প্রশ্নটা কেনো আসে না যে, মিন্সক চুক্তিটা কি এবং কেনো হয়েছিলো? ২০১০ সাল থেকে ২০২১ সাল অবধি ওই যুদ্ধে প্রতিটি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট (ভিক্টোর ইউনিকোভিচ, ওলেক্সান্দার টুরচিউনোভ, পেট্রো প্রোসেঙ্কো, এবং বর্তমান জেলেনেস্কী) সবার স্ট্রাটেজি ছিলো এক-"রাশিয়ান স্পিকিং নাগরীক বা রাশিয়ার প্রতি ইনক্লাইনেশন আছে এমন ইউক্রেনিয়ান নাগরিক কিংবা দাম্পত্য জীবনে মিক্সড রাশিয়ান নাগরিকদেরকে নিধন করে ফেলা"। ইউক্রেনের জাতীয় টেলিভিশনে দেয়া সেই সব প্রেসিডেন্ট গনের ভাষন শুনলে দেখবেন, কি ম্যাসেজ ছিলো। সেই ২০১০ থেকে ইউকে এবং ইউএসএ এবং তাদের মিত্ররা ক্রমাগত ইউক্রেনকে আর্থিক সাহাজ্য করে যাচ্ছিলো। আর এই কথাটা কিন্তু ডিফেন্স মিনিষ্টার লয়ে অষ্ওটিন স্বীকার করেছেন, তার সাথে স্বীকার করেছেন ডিফেন্স সেক্রেটারী লিজ ট্রুসও।

২০১০ সাল থেকে ২০২১ সাল অবধি ইউক্রেনে একটা সিভিলওয়ার এমনিতে চলছিলো। আর সেটা ইউক্রেনের মধ্যে রাশিয়া স্পিকিং এবং ইউক্রেনিয়ান নাগরিকদের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিলো শুধুমাত্র ডনবাস, লুটেন্সক, ক্রিমিয়া, মারাইউপোল, এবং আরো কিছু শহর যাকে বলা যায় ইথনিক ক্লিঞ্জিং অপারেশন হিসাবে। আর এবার শুরু হয়েছে গোটা দেশ জুড়ে। খুবই দূর্নীতি পরায়ন দেশ হচ্ছে এই ইউক্রেন।

 

 

চীন

চীন, ইন্ডিয়া, এশিয়ান দেশ, আফ্রিকান এইসব দেশগুলি কিন্তু রাশিয়ার বিরুদ্ধে যায় নাই, আবার খুব ট্যাক্টফুলি ভোটদান থেকে বিরত থেকে এটাই প্রমান করেছে যে, অন্তত তারা পশ্চিমাদের সিদ্ধান্তের সাথে একমত নয়। এই চীন, ইন্ডিয়া, আফ্রিকা কিংবা অন্যান্য এশিয়ান দেশের কি ইন্টারেষ্ট সেটা বিস্তারীত না বল্লেও বুঝা যায় যে, রাশিয়াকে এদের প্রয়োজন বেশী ইউক্রেন থেকে।

ইইউ

যদি একটা জিনিষ লক্ষ্য করা যায় কারা কারা এই ইইউ তে আছেন। ইইউ এর সদস্যদেশুলি হচ্ছে- Austria, Belgium, Bulgaria, Croatia, Republic of Cyprus, Czech Republic, Denmark, Estonia, Finland, France, Germany, Greece, Hungary, Ireland, Italy, Latvia, Lithuania, Luxembourg, Malta, Netherlands, Poland, Portugal, Romania, Slovakia, Slovenia, Spain and Sweden. এই দেশগুলির বর্তমান আর্থিক বা সামরিক ক্ষমতা কি? যদি এই দেশগুলিকে তিনটা গ্রুপে ভাগ করি, তাহলে দেখা যাবে যে, খুবই দূর্বল আর্থিক অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকা দেশগুলি হচ্ছে-অষ্ট্রিয়া, ক্রোয়েশিয়া, সাইপ্রাস, এস্টোনিয়া, হাংগেরী, আয়ারল্যান্ড, লাটভিয়া, লিথুনিয়া, লুক্সেমাবার্গ, মালটা, পর্তুগাল, রোমানিয়া, স্লোভাকিয়া, স্লোভেনিয়া। মানে প্রায় ৩০ টি দেশের মধ্যে ১৪টি দেশ। ৫০%। একটু শক্ত কিন্তু দূর্বলের থেকে একটু উপরে আছে বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, ফিনল্যান্ড, ইতালী, পোল্যান্ড। ২৫%। আর যারা প্রথম সারিতে আছেন, তারা হচ্ছেন-ফ্রান্স, জার্মানী, গ্রীস, স্পেন। অর্থাৎ ২৫%। তার মানে সিদ্ধান্ত মেকিং এ সবসময়ই দেখবেন, ফ্রান্স, জার্মানী, আর কেউ নয়। অর্থাৎ ১০%। এমন একটা কাঠামোর মধ্যে ইইউ জড়িয়ে আছে যে, বিগ বস যেভাবে চাবেন, সেভাবেই ছোটরা থাকলে ভালো হবে মনে করে যে কোনো সিদ্ধান্তেই তারা ‘ইয়েস’ বলে চালিয়ে দেয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকে না। ইউক্রেন না ইইউর সদস্য, না ন্যাটোর সদস্য, অথচ ইইউর সদস্যরা এই ইউক্রেনের পাশে বিগ বসের কারনে দাঁড়িয়ে থাকায় যেটা হয়েছে, ইইউর নিজের সবচেয়ে বেশী ক্ষতি করেছে বলে বিশেষজ্ঞদের ধারনা। ক্ষতি ইউকের হয় নাই, ইউএসএ এর হয় নাই, হয়েছে ইইউ এর। যারা রাশিয়ার উপর সর্বোতভাবে নির্ভরশীল।

জার্মান

একটা জিনিষ খেয়াল করলে দেখা যায় যে, গ্রাউন্ড যিরোতে জার্মান সাংবাদিক প্রায় নাই বললেই চলে। কারন বর্তমান ভাইস চেন্সেলর ওলফ সুলজ তাদের সাংবাদিকদেরকে এভাবেই ব্রিফ করেছেন যেনো ইউক্রেন যুদ্ধের গ্রাউন্ড জিরো প্রতিবেদন মিডিয়াতে সম্প্রচার না হয়। একমাত্র ডিডব্লিউ কিছু নিউজ করে যেগুলিও প্রায় ৫০-৫০ বায়াসড যা না করলেই হলুদ সাংবাদিকতায় পড়ার সম্ভাবনা। Frank-Walter Steinmeier জার্মান প্রেসিডেন্ট, তাঁকে গত সপ্তাহে ইউক্রেন ভিজিট করতে বললে তিনি সেই ইনভাইটেশনকে পরিত্যাগ করেছেন। তিনি কিয়েভে আসবেন না। কারন ইতিমধ্যে জার্মানীতেও তাদের দল, নাগরীক এবং অন্যান্য সুধীজনের মধ্যে প্রচন্ড একটা দ্বিভাজন শুরু হয়েছে পক্ষে বিপক্ষে। কারন, সাধারন নাগরিকগন ইতিমধ্যে রাশিয়ার গ্যাস, তেল, কমোডিটির অভাবে একটা অশনি পরিস্থিতির আন্দাজ করতে পারছেন। একটা পলিটিক্যাল চাপ বাড়ছে প্রতিনিয়ত। সবাই তো যুদ্ধংদেহী নয়।

কিছু কথাঃ

অজস্র অস্ত্র প্রবাহ একটা সময়ে বুমেরাং হতে পারে। আফগানিস্থানে যেসব অস্ত্র আমেরিকা ফেলে এসেছিলো বা সরবরাহ করেছিলো, ওইসব অস্ত্র শেষ পর্যন্ত আফগানিস্থানের মিলিশিয়ারা আমেরিকার বিরুদ্ধেই ব্যবহার করতে শুরু করেছিলো। যার কারনে কোনো বিকল্প ছাড়াই আমেরিকাকে তড়িঘড়ি করে আফগানিস্থান ছেড়ে আসতে হয়েছিলো।

নিষেধাজ্ঞা পুরু ওয়েষ্ট এবং ইইউসহ সারা দুনিয়ায় একটা অস্থিরতা আনবে। যেমন ইইউ শেষ পর্যন্ত একটা ব্যাপার স্বীকার করেছে যে, রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা কোনো কাজে আসে নাই।

রাশিয়ার রুবলকে দূর্বল করার জন্য যখন সুইফট থেকে রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংককে কেটে দেয়া হলো, তখন রাশিয়ার নিজের কারেন্সী ছাড়া কোনো প্রকারের ব্যবসা করা সম্ভব ছিলো না। ফলে রুবল যখন একমাত্র অপসন, আর রাশিয়ার কমোডিটি যখন অন্যের খুবই দরকার, তখন বাধ্য হয়ে শেষ পর্যন্ত অন্যানরা সুইফটের বাইরে গিয়ে রাশিয়ার শর্ত মেনে নিয়েই এখন রুবলে তাদের লেনদেন করতে বাধ্য হচ্ছ্যে। যেই রুবল যুদ্ধের আগে ছিলো ১ ডলার= ৭২ এখন সেই রুবল চলে এসছে ১ ডলার= ৬৭। অথচ নিষেধাজ্ঞার ঠিক পরপরই ১ ডলারের সমান ছিলো ১৩৯ রুবল। একই রুবল যুদ্ধের আগের থেকেও শক্ত অবস্থানে চলে এসছে। পুরু ইউরোপ জুড়ে এখন ডলারের চেয়ে বেশী প্রবাহ হচ্ছে রুবলের। এতে যেটা হবে, সেটা হচ্ছে পেট্রো ডলারের নির্ভরতা অনেক অনেক কমে যাবে। ফলে ডলার তার শক্তিশালী অবস্থা হারাবে, ইউরোপিয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক তাদের আধিপত্যতা হারাবে, চীন, দুবাই, আরব দেশগুলি তাদের তেল হয় রাশিয়ান রুবল, বা চীনের আরএমবি, অথবা নিজস্ব কারেন্সীতে লেনদেন করা শুরু করবে।

 

তাহলে কারা জিতছে এই যুদ্ধে?

01/05/2022- Russia’s 3B strategy in Ukraine

যুদ্ধ জয়ের সবচেয়ে বড় ট্যাক্টিক্স হচ্ছে সেই কউশলটা যা আগে কোথাও ব্যবহার করা হয় নাই। সব দেশ সব সময় তাদের সামরিক সদস্যদেরকে একটা ধাচের মধ্যে সমর বিদ্যা চর্চা করান। কিন্তু কেউ যদি ততাহকথিত সমর জ্ঞান পালটে এমন কিছু অভিনব কায়দা গোপনে পরিচালনা করেন যার সম্পর্কে কারো কোনো ধারনা নাই, তখন অনেক অস্ত্র খরচ করেও শত্রুকে মোকাবেলা করা সম্ভব হয় না। পুতিনের সমর কৌশলের মধ্যে এমন কিছু নতুনত্ত আছে যা সচরাচর বই পুস্তকে লিখা নাই। একটু খোলাসা করে বলি;

কিয়েভের একদম কাছে গিয়ে সে আর কিয়েভ দখল করলো না। আপাত দৃষ্টিতে মনে হচ্ছে দখল করতে পারলো না। কিভের কাছাকাছি (মানে মাত্র ১০ কিমি দূরে) অবস্থান করলো প্রায় ৮ দিন। কিছুই করলো না। অবাক লাগার কথা। প্রায় ৬৬ দিন অতিবাহিত হয়ে গেলো, বুঝা যাচ্ছে না আসলে কে জিতে যাচ্ছে। রাশিয়ার আগ্রাসনকে আমি কিন্তু সাপোর্ট করছি না। এটা আগ্রাসনই বল্বো। অন্যায় তো অবশ্যই। কিন্তু যেহেতু সুপার পাওয়ারগুলি এখন নিজেরাই নিজেদের জন্য খেলছে, দেখি রাশিয়া কোন রহস্যময় সমর কৌশল অবলম্বন করছে।  

Cdr Benjamin “BJ” Armstrong, a US naval officer যাকে বলা হয় সমর চিন্তায় একজন পারদর্শী। তিনি মন্তব্য করেছেন, রাশিয়া ক্রিমিয়া দখলের সময় যে ট্যাক্টিক্স অবলম্বন করেছিলো যাকে Russia’s 3B strategy বলা হয়, সেই একই ট্যাক্টিক্স পুতিন ইউক্রেনেও অবলম্বন করেছে বলে মনে হয়। তাহলে এই Russia’s 3B strategyটা কি?

In Russia’s 3B strategy, the first B stands for ‘Blockade’,

the second for ‘Bombardment’ and

the third for ‘Boots’ on the ground.

US military experts suggest that Russia so far has successfully executed this strategy that has seriously hampered Ukraine’s fighting ability in the eastern part of the country.

এই স্ট্রাটেজি পালনে ক্রিমিয়া দখলের সময় রাশিয়া প্রথমে ইউক্রেনের Sevastopol port কে ব্লকেড এবং চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলেছিল। তারপর রাশিয়া ইউক্রেনের ডিফেন্স ফোর্সকে বোম্বার্ডমেন্টে ধংশ করে ফেল্লো। then it landed its boots in Crimea.

ঠিক একই কাজ ফেব্রুয়ারীর ২৪ তারিখ থেকে রাশিয়া শুরু করেছে।  রাশিয়া  ইউক্রেনের Sevastopol port কে লঞ্চিং প্যাড হিসাবে ব্যবহার করেছে, ক্রিমিয়া দখলের সময়ও সে এটা করেছিলো। অতঃপর সেখান থেকে ডেডলী মিসাইলস, মেরে ইউক্রেনের ডিফেন্স ফোর্সকে এটাক করেছে। অতঃপর রাশিয়া Kerch Strait প্রনালীকে ব্লক করে দিয়েছে। Kerch Strait হচ্ছে আজম সাগর এবং ব্ল্যাক সাগরকে সংযোগ করে। ফলে আজব সাগরের পুরু কন্ট্রোল রাশিয়া নিয়ে নেয়। And lastly, it landed its boots in Ukraine to usurp the vast swathes of the country. এর মাধ্যমে রাশিয়া ঠিক আগের মতোই তার 3B strategy পরিচালনা করলো।

Now, Russia is applying this strategy to the whole of Ukraine, by creating a blockade of the Ukrainian territories by hijacking the port cities of Mariupol, Berdyansk, Mykolayiv and Odesa.

এখন যেটা রাশিয়া করছে তা হলো-এই ব্লকেডের মাধ্যমে ইউক্রেনের ফোর্স এবং অর্থনীতি পুরুটাই বিপর্য্যের মুখে। রাশিয়ার এই ব্লকেডের জন্য ইউক্রেন তাদের অঢেল খাদ্য সামগ্রী এশিয়া, ইউরোপ এবং আমেরিকায় রপ্তানী করতে পারছে না। অথচ ইউক্রেনকে বলা হতো ইউরোপ/আমেরিকার খাদ্য ভান্ডারের একটি গুদাম।

একটা সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, ২০১৯-২০২০ সালে ইউক্রেন ছিলো প্রিথিবীর ২য় বৃহৎ রপ্তানীকারক দেশ। ২০২০-২১ সালে আগের বছরের থেকেও প্রায় ২৫% বেশী উতপাদন করেছিলো ইউক্রেন যেখানে প্রধান খাবারগুলি ছিলো বার্লি, কর্ন, সিরিয়াল, ভেজিটেবল ওয়েল। এখন সে সব খাদ্য সামগ্রির বহির্বিসশে ইউক্রেন রপ্তানী করতে পারছে না। অচিরেই সারা বিসশে খাদ্যের একটা সংকট তৈরী হতে পারে বলে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম জানিয়েছে।

Now, you may ask, what exactly are America and Ukraine doing to prevent Russia’s 3B strategy to come to fruition? Well, frankly speaking, the two nations seem to be falling prey to Russia’s carefully fabricated military warfare. Ukraine still has not devised any strategy to break Russia’s 3B trap, and that’s what has now unnerved US military experts in epic proportions.

০২/০৫/২০২২-আজ রোজার শেষ দিন, কাল ঈদ

আজ এ বছরের রমজান মোবারক শেষ হয়ে যাবে। বয়স বাড়ছে, আর জীবনের উপর ভয়ও বাড়ছে, বাড়ছে দুসচিন্তা, কমছে শরীরের শক্তি, তার সাথে কমে যাচ্ছে নিজের উপর কনফিডেন্স। যেভাবেই হোক আর যখনই হোক, একটা সময় তো আসবেই যেদিন আমি আর থাকবো না। খুব মন খারাপ হয় যখন এটা ভাবি, অন্যের জন্য কতটা মন খারাপ হয় সেটা আমার জানা নাই, কিন্তু নিজের উপরেই বেশী মন খারাপ হয় যে, ইশ, এতো সুন্দর একটা দুনিয়া ছেড়ে শেষ অবধি আমাকে চলেই যেতে হবে এমন একটা গন্তব্যে যার আমি কিছুই জানি না, দেখি নাই, এবং পুরুই খালী হাতে!! আর সবচেয়ে মন খারাপের দিকটা হচ্ছে- কোনো কিছুর বিনিময়েই আমি আর আমার এই পুরানো স্থানে একটি মুহুর্তের জন্য ও ফিরে আসতে পারবো না, কোনো কিছুই আর আমি কারো কাছে দাবীও করতে পারবো না, এমন কি আমার তৈরী করা অট্টালিকা, আমার রেখে যাওয়া ব্যাংক ব্যালেন্স, আমার নিজের সব কিছুর কিছুই না। যখন জীবিত ছিলাম, তখন এগুলির সত্তাধীকারী আমি ছিলাম, কিন্তু যে মুহুর্তে আমি চলে যাবো, এর কোন কিছুই আর আমারটাই আমার না। এমন একটা জীবন ঈশ্বর আমাকে কেন দিলেন? শুধু কি পরীক্ষার জন্যই? আমি তো তার এই পরীক্ষায় কোনোদিনই পাশ করতে পারবো না যদি তিনি সঠিক নিয়য়ে আমার দলিল পত্র দেখতে থাকে। যদি পুরুই হয় আমার পাশের নাম্বার তার অনুগ্রহের উপর, তাহলে তিনি আমাকে আরো লম্বা, আরো লম্বা, তার থেকেও লম্বা একটা জীবন দিলেন না কেনো?

কি জানি? হয়তো এই জীবনের পরে আরেক যে জীবন আমার ঈশ্বর বরাদ্ধ রেখেছেন, সেটা হয়তো আরেক অধ্যায় যা আমাদের কারোই জানা নাই। পরীক্ষার তো অনেক গুলি ধাপ থাকে। হয়তো এই জীবনের শেষ যেই মৃত্যু দিয়ে, হতে পারে সেখান থেকে আরো একটা ধাপ শুরু। কেউ তো আর এ যাবত সেই ধাপ থেকে ফিরে এসে বলে নাই, তার কার্যপ্রনালী কি, কি সেই ধাপের নমুনা।

যাই হোক, যেটা বলছিলাম, খুব সুস্থ্য ভাবে ৩০ টি রোজা করার শক্তি আল্লাহ আমাকে দিয়েছেন। আমি প্রতিবছর নিজের বাসায় দুইটা হাফেজ কে দিয়ে কোরান খতম তারাবি করি। কিন্তু গত দুই বছর করোনার কারনে সেটা পালন করা যায় নাই। আমি করতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমার স্ত্রী মিটুল তাতে বাধ সেধেছিলো ভয়ে। এবার আর কোনো কথা শুনতে চাইনি। হাফেজ ইসমাইল এবং হাফেজ মেহেদী নামে দুইটি বাচ্চা ছেলে আমাদের তারাবী লীড করেছিলো। ২০ রোজায় আমরা পুরু কোরান খতম করেছি (আলহামদুলিল্লাহ)

দোয়া কবুলের নমুনাঃ

আমার মাথায় আছে, আল্লাহ বলেছিলেন, আমি প্রতিদিন আমার রোজদার বান্দার ইফতারীর সমত যে কোনো ২ টি পজিটিভ ইচ্ছা বা দোয়া কবুল করতে প্রতিশ্রুত বদ্ধ। আমি এটা সব সময় মনে প্রানে বিশ্বাস করি এবং রোজার প্রথম দিন থেকেই আমি মোট ৬০ টি চাওয়া লিখে নেই। আমি জানি আমার জীবনে এই রকম ৬০ টি চাওয়া আসলে নাই। দেখা যায়, হয়তো ঘুরে ফিরে গোটা ১০ টি চাওয়াই থাকে। এ যাবত আমি আমার রবের কাছে কি কি চেয়েছিলাম, সেটা আর এখন বলছি না। তবে আমি স্পষ্ট দেখেছি, আমার প্রায় সব গুলি ইচ্ছা আল্লাহ পুরুন করেছেন। তিনি আমাকে চাকুরীর পর ব্যবসা করতে দিয়েছেন, কারো কাছেই আমার হাত পাততে হয় নাই, আমার সন্তানদেরকে তিনি সুস্থ্য রেখেছেন, মানুষের কাছে তিনি আমাকে সম্মানের সহিত রেখেছেন। অনেক কিছু করেছে আমার রব।  

গত বছর আমি খুব মনে প্রানে প্রায় প্রতিটি রোজায় আল্লাহর কাছে এই দোয়াটি করেছিলাম যেনো আমাকে তিনি ঋণ গ্রস্থ জীবন থেকে উদ্ধার করেন। কারন আমি আমার মা ইন্ডাস্ট্রিজে জন্য বেশ কিছু লোনে জর্জ্রীত হয়ে গিয়েছিলাম। এই বছরে রোজার আগেই আল্লাহ আমাকে সম্পুর্ন লোন থেকে মুক্ত করেছে। এবারই প্রথম আমি লোন মুক্ত জীবনে পা দিয়ে একটা বড় সঞ্চয়ের পথে আছি। আমার ছোট মেয়েকে আমি আগামী ২ বছরের অগ্রিম টাকা দিয়ে রেখেছি আমেরিকায় পরার জন্য। বড় মেয়ের জন্যেও একটা সঞ্চয় আমি করতে পেরেছি। আমার নিজের জন্যেও করতে পেরেছি। এর থেকে আর কত সুখী রাখবেন আমার রব আমাকে? আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ।

এবার রোজায় আমি শুধু আমার মৃত আত্তীয় স্বজনের জন্য, আমার মেয়েদের জন্য, আমার স্ত্রীদের জন্য, আর আমার ব্যবসার জন্য প্রতিদিন দোয়া করেছি। আর আমি মনে প্রানে চেয়েছি যে, আমি যেনো সম্পুর্ন হোম ওয়ার্ক করে তারপর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করতে পারি। আমি আমার সেই হোম ওয়ার্কের মধ্যেই এখন আছি। আমি সেই হোম ওয়ার্কের সময়কাল ধরেছি আরো ৬ বছর। ৬৩ বছর আয়ুষ্কাল পর্যন্ত যেহেতু আমাদের নবী ৬৩ বছরের বেশী বেচে ছিলেন না, তাই আমিও ধরে নিয়েছি আমারো ৬৩ বছরের বেশী বেচে থাকার ইচ্ছা করা উচিত না।

গত ঈদে আমার ছোট মেয়ে আমাদের সাথে ছিলো, এবার সে আমাদের সাথে নাই। সে এখন আমেরিকায়। আগামিতে আবার কে কার সাথে থাকবে না, কে জানে? উম্মিকার একটা বিয়ে হওয়া দরকার। উম্মিকাকে নিয়ে একবার একটা মারাত্তক ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম, বিয়েটা টিকে নাই। তাই এবার আর আমি ওর মতের বিরুদ্ধে গিয়ে কোনো সিদ্ধান্তই দিবো না। এতে যখন ওর বিয়ে হয় হোক। এবার আমি প্রদিন উম্মিকার জন্য ওর বিয়ের জন্য, একটা ভালো পাত্রের জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করেছি।

৩০/৪/২০২২ -রাশিয়ার তেল/গ্যাস এবং ইউরোপের নিষেধাজ্ঞার খেলা

রাশিয়ার তেল/গ্যাস এবং ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা

আমি এর আগেও অনেকবার লিখেছিলাম যে, নিষেধাজ্ঞা হচ্ছে দুইমুখু সাপের মতো, শাখের কারাতের মতো, যেতেও কাটে, আসতে কাটে। ফলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার আগে যিনি নিষেধাজ্ঞা দিবেন, তাঁকে অনেক হিসাব কষে দেখতে হবে, তিনি আবার সেই নিষেধাজ্ঞার কারনেই প্রতিঘাতে না পড়েন। যেদিন ইউরোপ রাশিয়ার উপরে নিষেধাজ্ঞা দিতে থাকলো, তখনি বুঝেছিলাম, মারাত্তক ভুল সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। ইংরেজীর সেই প্রোভার্ভ কাজে লাগে নাই এই ইমোশনাল নিষেধাজ্ঞা দেয়ার সময় যে- Never bite the hand who feeds you.

নিষেধাজ্ঞার প্রভাবঃ

রাশিয়ার উপর প্রায় ৭ হাজারেরও বেশী নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইউরোপ এবং পশ্চিমারা। অথচ এই রাশিয়ার উৎপাদিত ন্যাচারাল গ্যাস, ফসিল ওয়েল, নিকেল, এলুমিনিয়াম, গম, লোহা, ইস্পাত, ইউরেনিয়ামের উপর ইউরোপের সবগুলি দেশ প্রায় ৪০ থেকে ৭০% পর্যন্ত নির্ভরশীল। এমন একটা অবস্থায় বহুদূরের যুক্তরাজ্য এবং যুক্তরাষ্ট্রর নেত্রিত্তে বা পরামর্শে রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞায় তারা যতোটা না কাবু হবে তার থেকে  এই নিষেধাজ্ঞায়  ইউরোপ কাবু হবে ৪০-৭০% বেশী। কারন ইউরোপ ৪০-৭০% কমোডিটির উপর রাশিয়ার উপর নির্ভরশীল। এটাই হবার কথা ছিলো আর সেটাই হয়েছে। নিষেধাজ্ঞায় পশ্চিমাদের বুদ্ধিতে ইউরোপের মারাত্তক ভুলটা হয়েছে যখন রাশিয়ার সেন্ট্রাল ব্যাংককে সুইফট সিস্টেম থেকে বের করে দিয়ে পুরু বিশ্ব ব্যাংকিং থেকে আউট করায়। ফলে কি ঘটেছিলো? ঘটছিলো যে, আগে রাশিয়ার পন্য কিনে তারা পেমেন্ট করেছে ইউরো বা ডলারে। রাশিয়া সুফট সিস্টেমে থাকায় রাশিয়া সহজেই সেই ইউরো বা ডলার কনভার্ট করে তাদের নিজস্ব কারেন্সীতে পরিবর্তন করতে পারতো অথবা ইউরো বা ডলারকে রিজার্ভ হিসাবে রাখতে পারতো। কিন্তু এখন সুফট সিস্টেম থেকে আউট হওয়ায় রাশিয়া এখন আর ইউরো বা ডলারের পেমেন্ট ক্যাশ করতে পারেনা। এরমানে, রাশিয়া তার পন্য ঠিকই দেবে কিন্তু মুল্য ঘরে পাবেনা যেহেতু সেটা সুইফট সিস্টেমের আওতায় ইউরো বা ডলারের কারনে আটকে যাচ্ছে। পশ্চিমারা চেয়েছিলো যাতে অর্থনীতির দিক দিয়ে রাশিয়াকে পঙ্গু করে দেয়া যায়। কিন্তু রাশিয়া তো আর লিবিয়া, ইরাক বা আফগানিস্থান নয়। এবার রাশিয়া ডিক্রি জারী করেছে-রাশিয়া তার নিজস্ব কারেন্সী ছাড়া কোনো প্রকারের কারেন্সীতে রাশিয়া তার পন্য বিনিময় করবে না। আর সেটা শুরু হবে গ্যাস পন্য দিয়ে। মজার ব্যাপার হলো, ইউরোপের সবকটি দেশ রাশিয়ার এই গ্যাসের উপরে কম বেশী কেউ কেউ ৪০% থেকে শুরু করে ৭০% পর্যন্ত নির্ভরশীল।

রুবলে ব্যবসাঃ

শুধুমাত্র হাঙ্গেরী ছাড়া প্রাথমিকভাবে কেহই রাশিয়ার এই নতুন নির্দেশ মেনে নিতে রাজী হয়নি। তারা ইউরো বা ডলারেই পেমেন্ট করবে বলে রাশিয়াকে ফের জানিয়ে দিয়েছিলো। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে-দোকানীর জিনিষ যদি দোকানীর আইনে কেউ না নিতে পারে, তাতে খদ্দেরেরই ক্ষতি। হয় দোকানীর নিয়মে পন্য নাও, না হয় যাও। আর ঠিক এটাই হয়েছে। প্রথমে রাশিয়া পোল্যান্ড এবং বুলগেরিয়ার গ্যাসলাইন বন্ধ করে দিয়েছে। পোল্যান্ড খুব হিম্মতের সাথে জানিয়ে দিয়েছে-রাশিয়ার গ্যাস ছাড়াও তারা চলতে পারবে কারন তাদের রিজার্ভ আছে প্রায় ৭৫%। আমার মাথায় আসে না, এই রিজার্ভ কিন্তু ন্যাচারাল সোর্স থেকে রিজার্ভ নয়, এটা রাশিয়া থেকেই কেনা অতিরিক্ত গ্যাস। এটাতো একসময় শেষ হবেই? তখন পোল্যান্ড কি করবে? পোল্যান্ড বলছে-সে জার্মানীর থেকে গ্যাস নিবে। তাহলে জার্মানীর গ্যাস থাকতে হবে নিশ্চয়ই! অথচ জার্মানী নিজেই রাশিয়া এবং স্পেন থেকে গ্যাস কিনে। এদিকে জার্মানীও রাশিয়াকে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে এবং ইউরো/ডলার ছাড়া তারাও রাশিয়াকে রুবলে পেমেন্ট করবে না বলে জানিয়েছে। অন্যদিকে অনেকদিন ঘুমিয়ে থাকার পর স্পেন হটাত ঘুম থেকে জেগে বলে বসলো যে, জার্মানী যদি পোল্যান্ডকে গ্যাস সরবরাহ করে, তাহলে স্পেন জার্মানিতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেবে। কেমন চক্কর!!

যাই হোক যেটা বলছিলাম-

রাশিয়ার কঠিন হুশিয়ারীতে পোল্যান্ড এবং বুলগেরিয়ার গ্যাসলাইন বন্ধ করার কারনে বাকী ইউরোপিয়ানদের একটু টনক নড়েছে যে, গ্যাস তো লাগবেই, গ্যাস ছাড়া তো আর রুম হিটিং হবে না, কলকারখানা চলবে না, সব অচল হয়ে যাবে, ইন্ডাস্ট্রিজ বন্ধ হয়ে যাবে ইত্যাদি। কিন্তু উলটা মন্তব্য করতেও দ্বিধা করেনি ইউরোপ। তারা বলেছে-রাশিয়া গ্যাসের মাধ্যমে ইউরোপকে ব্ল্যাকমেইল করছে। আজব ব্যাপার হচ্ছে-একদিকে ইউরোপ রাশিয়ার সবকিছুর উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যে, কেউ যেনো রাশিয়া থেকে কিছুই না নেয়। একেবারে এক ঘরে করতে চেয়েছে। এখন আবার যখন রাশিয়া নিজেই সেই  সাপ্লাই ইউরোপে বন্ধ করে দিলো এবং ইউরোপের কথাতেই রাশিয়া একঘরে হয়ে থাকতে চাইলো যে, যেহেতু কেউ আমার পন্য নিবে না, তাই আমিও বন্ধই করে দিলাম, তখন আবার ইউরোপ বলছে, এটা কেমন কথা? আমরা নিষেধাজ্ঞা দিবো ঠিকই, কিন্তু তুমি আমাদেরকে তেল গ্যাস সব দিবা কিন্তু ফ্রিতে। কারন আমরা ইউরো/ডলারে দাম দেবো আর সেটা পশ্চিমারা তাদের ব্যাংক সিস্টেমে আটকে দিবে। আমাদের টাকা আমাদের কাছেই রয়ে গেলো, আবার পন্যও ফ্রিতে পাইলাম!!

আহাম্মকের মতো মনে হয়েছে আমার কাছে এই সিন্ডিকেটিজমটা। সত্তোর্ধ বয়সী প্রায় ২৪ বছর যাবত একাধারে রাষ্ট্রনায়কের কাছে এসব একেবারে হাস্যকর মনে হবার কথা না? তাই পুতিন স্যাম্পল হিসাবে আপাতত পোল্যান্ড এবং বুলগেরিয়ার গ্যাসলাইন বন্ধ করে দিলেন। ঠেলার নাম বাবাজি এটা সবাই জানে, ফলে এবার দেশের অবস্থা বেগতিক দেখে প্রথমে ইউরোপের ৪টি দেশ ইতিমধ্যে রাশিয়ার সাথে রুবলে পেমেন্টের জন্য একাউন্ট খুলতে রাজি হয়ে গেলো এবং তারা পেমেন্টও করে দিলো।  তাহলে বাকী দেশগুলি এখন কি করবে?

ইউরোপের জন্য কি অপশন খোলাঃ

ইউরোপের জন্য এখন দুটু অপশন খোলা-(ক) হয় রাশিয়ার শর্ত মেনে নিয়ে রুবলের মাধ্যমে গ্যাস নেওয়া অথবা (খ) রাশিয়ার গ্যাসের উপর বিকল্প তৈরী করে রাশিয়ার গ্যাস না নেয়া এবং নিষেধাজ্ঞা জারী রাখা।

জার্মানীর চ্যান্সেলর উলফ সোলজ রাশিয়ার এই নতুন নির্দেশনায় খুবই ক্ষিপ্ততার সাথে রাশিয়ার শর্ত নাকচ করে দিয়ে ২৯ মার্চ বলেছিলো যে, কোনো অবস্থাতেই তারা গ্যাস কন্ট্রাক্টের বাইরে অর্থাৎ হয় ইউরো না হয় ডলারে পেমেন্ট, অন্য কোনো কারেন্সিতে জার্মানী যাবে না। আজ প্রায় ৩০ দিন পর জার্মানীর একমাত্র গ্যাস ক্রেতাকোম্পানি UNIPER পুতিনের শর্ত মেনে নিয়ে রুবলের মাধ্যমেই এখন গ্যাস ক্রয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অষ্টিন কোম্পানি O&V, ইতালীর ANI এবং অন্যান্য ইউরোপিয়ান দেশের গ্যাস সরবরাহ কোম্পানীগুলিও একইভাবে গ্যাজপ্রোম ব্যাংকে তাদের রুবলের একাউন্ট খুলছে।

নিষেধাজ্ঞার কার্যকারিতা কিঃ

এখন প্রশ্ন হচ্ছে-রাশিয়ার উপর পশ্চিমা এবং ইউরোপের নিষেধাজ্ঞা বজায় থাকা সত্তেও, সুইফট থেকে রাশিয়াকে আউট করে দিয়েও আবার সেই রাশিয়া থেকেই রাশিয়ার শর্তে গ্যাস কেনায় পশ্চিমাদের কিংবা ইউরোপের কি সম্মান বজায় থাকলো? নিষেধাজ্ঞা কি তাহলে কার্যকরী হলো?। এর ব্যাখ্যা তাহলে কি?

রাশিয়া থেকে গ্যাস কেনা আর রাশিয়া থেকে পুতিনের শর্তে গ্যাস কেনা এক নয়। যদি এসব কোম্পানীগুলি পশ্চিমা এবং ইউরোপিয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাশিয়া থেকে গ্যাস ক্রয় করে, তাহলে এসব কোম্পানীকে শাস্তির মুখে পড়ার কথা না?  কিন্তু অবাক করার বিষয় হচ্ছে-ব্রাসেলস এখন পুরুই নিশ্চুপ। তাহলে ব্রাসেলসের এই চুপ থাকার কারন কি? এরও একটা ব্যাখ্যা আছে যা আমাদের মতো আমজনতা জানেই না। আর সেটা হচ্ছে-নিষেধাজ্ঞার শর্তের মধ্যে একটা ছোট ফাক রাখা হয়েছিলো। আর সেটা কি?

কিছুদিন আগে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন সব সরবরাহকারীদের জন্য একটা গাইডবুক দিয়েছে। সেখানে তিনটা গাইডলাইন দেয়া হয়েছেঃ

(1)        Uphold EU sanction

(2)        Abide by Putin’s Decree

(3)        Secure Natural gas for Europe.

আসলে এই গাইডলাইনে উভয়পক্ষের জন্য Win-Win Situation রাখা হয়েছে। আর ঠিক এই গাইডলাইনের ২ নং শর্তের কারনেই ইউরোপের গ্যাস কোম্পানীগুলির বিরুদ্ধে ইউরোপ বা পশ্চিমারা কোনো শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নিতে পারবে না বা পারতে চায় না। তারা সবাই সানন্দে এখন দুটু করে একাউন্ট খুলছে গাজপ্রোম ব্যাংকে। প্রথম একাউন্ট ইউরো বা ডলারে, অন্যটি রুবলে। একই ব্যাংকে, গাজপ্রোম ব্যাংক।

লেনদেনটা কিভাবে হবেঃ

তাহলে এই লেনদেনটা কিভাবে হবে? সেটাও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন বলে দিয়েছে। প্রথমে ক্রেতা তার পেমেন্ট ইউরো বা ডলারে জমা করবে গাজপ্রোম ডলার/ইউরো ব্যাংক একাউন্টে। গাজপ্রোম ব্যাংক অতঃপর সেই ইউরো বা ডলার রুবলে কনভার্ট করে তাদের পেমেন্ট নিয়ে নিবে। কিন্তু এখানে আরেকটা জটিল সমস্যা আছে যে, যেহেতু ইউরোপ এবং পশ্চিমারা রাশিয়ার সেন্ট্রাল ব্যাংককে সুইফট থেকে বের করে দিয়েছে, ফলে গাজপ্রোম ব্যংক কিছুতেই গ্যাসের পেমেন্ট ইউরো বা ডলার থেকে রুবলে কনভার্ট করতে পারবে না। তাহলে উপায়?

ঠিক এখানেও ইউরোপিয়ানরা তাদের সরবরাহকারীদেরকে গাইডলাইন দিয়ে দিয়েছে এভাবে-

(এখানে একটা কথা না বললেই নয়। আমরা যারা ব্যবসা করি তারা এটা খুব ভাল করে জানি কিন্তু অন্যান্য ব্যক্তিরা যারা ব্যংকিং সেক্টরে এলসির (LC: Letter of Credit)  সাথে জড়িত নন, তাদের বুঝার জন্য বলছি যে, সাধারনত ইম্পোর্ট এক্সপোর্টে যখনই কোনো পেমেন্ট বেনিফিশিয়ারী ব্যাংক রিসিভড হয়, তখনই পেমেন্টের কাজ শেষ হয়ে যায় বলে ধরে নেয়া হয়। কিন্তু এই ক্ষেত্রে যতোক্ষন না পর্যন্ত ইউরো বা ডলার রাশিয়ার রুবলে কনভার্ট না হচ্ছে ততক্ষন পর্যন্ত পেমেন্ট রিসিভড হয়ে বলে ধরে নেয়া যাবে না। আর এটার জন্য শুধুমাত্র ইন্টারকারেন্সী চেঞ্জ পালিত হবে। তার মানে কি? তারমানে গ্যাজপ্রোম ব্যংক তাদেরই গ্যাজ প্রোম ডলার/ইউরো একাউন্টে রুবল বিক্রি করবে এবং রুবলের দামের উপর ইউরো বা ডলার উঠানামা করবে। ইউরো বা ডলারের মানের উপর রুবলের মান উঠা নামা করবে না। খুবই বিপদজনক অবস্থায় আছে এখন ইউরো এবং ডলার। আগে ইউরো বা ডলারের মাপে রুবল উঠানামা করতো, এবার ডলার/ইউরো রুবলের মাপে উঠা নামা করবে।

তাহলে রুবল কি দূর্বল হতে যাচ্ছে নাকি সবলঃ

তাহলে আরেক প্রশ্ন জেগে উঠে- রুবলকে শক্তিশালী করা নাকি রুবলকে দূর্বল করলে ডলার বা ইউরোর লাভ? যদি পশ্চিমারা ১ ডলার সমান ২০০ রুবল করতে চায়, করুক, তাহলে যখন ইউরোপিয়ানরা রুবলে গ্যাসপেমেন্ট করবে তখন ডলার বা ইউরোর সমান পরিমান রুবল দিতে হলে ওদেরকে অনেক ডলার বা ইউরো খরচ করতে হবে। আর যদি ডলার/ইউরোর মান সমান সমানে থাকে তাহলে ইউরো/ডলার কম খরচ করতে হবে। আর ঠিক একারনেই এবার পশ্চিমা এবং ইউরোপিয়ানরা রুবলের মান শক্ত করার চেষ্টা করছে কিন্তু বিজ্ঞ পুটিন বলছে, তোমরা আমার রুবলের দাম আরো কমাইয়া দাও, আমার কোনো সমস্যা নাই।

ইউরোপ এর বন্ডেজের ভীত তাহলে কই যাবেঃ

ইউরোপের আসলে এখন কিছুই করার নাই। In fact, for Europe, its a choice between Air Conditiong and Peace. জার্মানী পরিষ্কারভাবে Air Conditioning বেছে নেয়ার চেষ্টা করেছিলো ইতালীর মতো। ইতালী তার জনগনকে এসি চালানোর ক্ষেত্রে একটা তাপমাত্রা নির্ধারন করে দিয়েছে। কিন্তু সেটা কয়দিন?

 মূল কথায় আসি। ইউরোপ এবং পশ্চিমাদের দ্বারা আরোপিত নিষেধাজ্ঞার মুল লক্ষ্য ছিলো রাশিয়াকে অর্থনৈতিক দিক দিয়ে পংগু করে ফেলা। কিন্তু সেটা কি হয়েছে? সেটা কিন্তু হয় নাই। ইউরোপ নিজেই রাশিয়াকে প্রতিদিন গড়ে ৮০০ মিলিয়ন ইউরো পে করে থাকে এই গ্যাসের জন্য। এরমানে ইউরোপ নিজেই পুতিনের ওয়ারমেশিনকে ফান্ডিং করছে। জার্মান কিংবা ইউরোপিয়ান কোম্পানী রাশিয়াকে মিলিয়ন মিলিয়ন ইউরো/ডলার দিচ্ছে, রাশিয়া সেই ইউরো/ডলার দিয়ে তার যুদ্ধের খরচ মিটিয়ে ইউক্রেনকে ধংশ করছে। আর ইউক্রেন আবার জার্মানী কিংবা ইউরোপীয়া ইউনিয়নের দেশগুলি থেকেই অস্ত্র সরবরাহ পাচ্ছে। তার মানে কি দাড়ালো?

Moral of the Story is: All the lectures and principles are farse and what matters in the end is only own interest.

  

২৯/৪/২০২২-ইউক্রেন যুদ্ধ সমাচার 

অন্যান্য রাষ্ট্রপ্রধানগন (বিশেষ করে ইইউ, ইউকে, ফ্রান্স, জার্মানী অথবা ইউএস ইত্যাদি) তাদের রাষ্ট্র পরিচালনার অভিজ্ঞতা হয়তো একটা টেনিউর অথবা সর্বোচ্চ দুইটা টেনিউর। অনেকের আবার ২য় টেনিউরে রাষ্ট্রপ্রধান হবেন কিনা সে চিন্তায় সারাক্ষন কি কি করা যায়, কিভাবে কি পলিশি করলে ভোট বেশী পাওয়া যাবে তার মহাচিন্তায় মহাপরিকল্পনা করতে থাকেন। গ্লোবাল রাজনীতির থেকে নিজের জন্য রাজনীতিই বেশী করেন। অথচ রাশিয়ার পুতিন গত ২২ বছর যাবত প্রেসিডেন্ট হিসাবে তো বহাল আছেনই, তার উপর আগামী আরো ১৪ বছর তার প্রেসিডেন্সীর নিশ্চয়তাও রয়েছে। তারমানে ৩৬ বছরের একনাগাড়ের প্রেসিডেন্ট মিঃ পুতিন সাহেব। এমন একটা ঝানু রাজনীতিবিদ কি একেবারে কোনো হোমওয়ার্ক ছাড়া একা সারা দুনিয়ার বিরুদ্ধে খেলতে নামবে, এটা কি বিশ্বাস করা যায়? যত যাইই হোক, পুতিন এই ইউক্রেন যুদ্ধে হারার জন্য নামে নি, আর যুসশটা কতদিন চালাবে এটার সম্পুর্ন কন্ট্রোল আসলে পুতিনের হাতেই। আরো কিছু মাহাত্য তো আছেই।

ইউক্রেন আক্রমনকে আমি ব্যক্তিগতভাবে সমর্থন করিনা। কিন্তু জুলুমের রাজত্তে যখন কেউ না কেউ অধিক শক্তিশালী রাজ্য দারা প্রতিনিয়ত শোষিত হয়, তখন শোষকদের উপর কেউ জুলুম করলে সেটা অনেকটা মনের অজান্তেই সমর্থন পাওয়া শুরু করে যদিও আক্ষরিক অর্থে তা সমর্থনযোগ্য নয়। রাশিয়াকে সাপোর্ট করার পিছনে বেশীরভাগ মানুষের মনের ভাবটা ঠিক এইরকম। যাই হোক, ইউক্রেন যুদ্ধের কিছু আভাষ আমি পূর্বেই লিখেছিলাম, এবার মনে হচ্ছে সেগুলির বেশ কিছু নিদর্শন বাস্তবে প্রকাশ হতে শুরু করেছে। সেই পরিবর্তনগুলি কিঃ

ক।       ইউনিপোলার ওয়ার্ড অর্ডার পরিবর্তিত হচ্ছে। এখন হয়তো ট্রাঞ্জিশন পিরিয়ড চলছে বলে বলা যায়।  

খ।        ডলার কারেন্সীর একচ্ছত্র রাজত্ব খুব অচীরেই শেষ হতে যাচ্ছে। পেট্রোডলারের যে রাজনীতি সারা দুনিয়ায় একচ্ছত্র দাদাগিরি চালিয়ে একটা ভারসাম্যহীন      অর্থনীতির বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়েছিলো, সেটার প্রায় বিলুপ্তির সূচনা শুরু হয়ে গেছে।

গ।        মানি সিস্টেমের যে “সুইফট ব্যবস্থাপনা” সারাটা দুনিয়ায় প্রতিটি দেশকে জালের মতো একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে সবাইকে আটকে ফেলেছিলো, সেটা থেকেও দেশগুলি বিকল্প পথ পেয়ে যাচ্ছে।

ঘ।        পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞায় রাশিয়ার অর্থনৈতিক বলয়ে যতটা আঘাত হানার কথা ভাবা হয়েছিলো, ততোটা কিন্তু আঘাত হানতে পারেনি। রুবল সেই ধাক্কাটা প্রায় কাটিয়ে উঠে যাচ্ছে। ফলে রুবল একটা শক্তিশালী কারেন্সী হিসাবে আবির্ভুত হতে যাচ্ছে।

ইউক্রেন যুদ্ধের ফলাফল কি ?

ক।       আমেরিকার প্রাথমিক ইনিশিয়াটিভে ন্যাটো যতোটা তাদের মধ্যে হুজুগে পড়ে বন্ডেড হয়েছিলো, এখন সেই ন্যাটো সদস্যদের মধ্যেই বিশ্বাসের ঘাটতি দেখা যাচ্ছে। কারন প্রতিটি দেশের চাহিদা আলাদা আলাদা। একটি দেশের মুলনীতি, মুল চাহিদা, মুল কাঠামোর সাথে অন্য যে কোনো দেশের মুলনীতি, মুল চাহিদা বা মুল কাঠামোর মধ্যে তফাত থাকেই। আর সেই তফাতের কারনেই একেক দেশের ভূমিকা একেক পরিস্থিতিতে একেক রকম হবে। প্রাথমিক হুজুগের বলয় থেকে বেরিয়ে যখন বাস্তবতায় দেশগুলি চোখ খুল্লো, তখন দেখা গেলো, নিজের দেশের জনগনের জন্য প্রয়োজনীয় তেল, গ্যাস, খাবার, কিংবা মৌলিক চাহিদার যোগানের জন্য যা দরকার আর যেখানে এটা আছে সেটার উপরেই তারা পুর্বান্নে নিষধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছে। আর সেই নিষ্রধাজ্ঞা যেনো এখন বুমেরাং হয়ে নিজেদেরকে আঘাত করছে। এর ফলে যা হচ্ছে- ন্যাটোর মধ্যেই একে অপরের উপর আস্থা কমে যাচ্ছে। এরা এখন আর আগের মতো দল বেধে মিটিং, সেমিনার, কিংবা দ্বি পাক্ষীয়, তৃপাক্ষীয় ক্লোজডোর বৈঠক করছে না। ভাটা পড়েছে সব কিছুতেই। এই অনাস্থার অনুপাতটা আরো বাড়বে দিনে দিনে।

খ।        জেলেনেস্কী বারবার সারা দুনিয়াকে রাশিয়ার তেল, গ্যাস ইত্যাদি না নিতে অনুরোধ করছে, নিষেধাজ্ঞায় রাখতে বলছেন। কিন্তু মজার ব্যাপার হলো, জেলেনেস্কির এতো আকুতি মিনতি করে এই নিষেধাজ্ঞা পালনে কাউকে এতো অনুরোধ করার দরকার ছিলো না যদি সে নিজেই ইউক্রেনের উপর দিয়ে রাশিয়ার পাইপলাইন গুলিকে অকেজো করে দিতো। পাইপলাইনই যদি সচল না থাকে, নিষেধাজ্ঞা না থাকলেও কেউ রাশিয়া থেকে তেল/গ্যাস নিতে পারতো না। এখন প্রশ্ন হচ্ছে-জেলেনেস্কী তাহলে ইউক্রেনের উপর দিয়ে প্রবাহিত তেল/গ্যাস লাইন/পাইপ লাইন ধংশ করে দিলো না কেনো? এর কারন একটাই-যদি জেলেনেস্কী এই কাজটা করতো, তাহলে ইইউ নিজেই ইউক্রেনকে ধংশ করে দিতো। আর ২য় কারনটা হচ্ছে, জেলেনেস্কী নিজেও ব্যক্তিগতভাবে আর্থিক লোকসানে পড়ত। তাই জেলেনেস্কী কোনোটাই করে নাই, এবং ইইউ নিজেও ইউক্রেনের ভিতর দিয়ে প্রবাহিত রাশিয়ান পাইপ লাইনকে সবসময় সুরক্ষা দিয়ে সাপ্লাই সচল রেখেছে।

গ।         রাশিয়া কিন্তু তার অস্ত্র ভান্ডারের কিছুই আপাতত ব্যবহার করে নাই। বিশেষ করে আধুনিক যন্ত্রপাতী। যা করেছে সেটা নেহায়েতই একটা অবসলিট এবং পুরানো দিনের জাঙ্ক মেশিনারিজ দিয়ে। রাশিয়া এই ইউক্রেন যুদ্ধটা এখনই শেষ করতে চাইবে না। কারনঃ

(১)        রাশিয়া পেট্রোডলার কারেন্সী শেষ করে নিজেদের কারেন্সী বা চায়নিজ-রুবল-রুপি ইত্যাদির সমন্নয়ে একটা কারেন্সী প্রতিস্থাপিত না করা অবধি পুতিন ইউক্রেনের যুদ্ধটা চালিয়ে যাবে। আর এর মধ্যে দেয়া তার সেই সব পয়েন্ট তো আছেই যা সে উল্লেখ করেছে- নিউ নাৎসি, মিলিটারাইজেশন ইত্যাদি।

(২)        আগামী শীত হবে ইইউর জন্য একটা বিপর্যয়। কারন উক্ত শীতে রাশিয়ার তেল এবং গ্যাস, গম, যব, সিরিয়াল ইত্যাদির অভাবে ইইউর উপর একটা বিপর্যয় নেমে আসবে। তখন হয় ইইউ রুবলেই ট্রেড করবে, অথবা জনগন সাফার করবে। তাতে প্রতিটি দেশে বিক্ষোভ হবার সম্ভাবনা এবং তখন নেতারা নিজেদের গদি নিয়ে হুমকীর মধ্যে থাকবেন।

(৩)       এমতাবস্থায় সবাই ইউক্রেনকেই তাদের জীবন বিপর্য্যের কারন হিসাবে দায়ী করবে। ভুলে যাবে মানবতা, রিফুজিরাও সেই দেশ থেকে বিতাড়িত হবার সম্ভাবনা থাকবে। জেলেনেস্কী আত্তগোপনে চলে যাবেন, রাশিয়া তার নিজের পছন্দমত সরকার প্রতিস্থাপন করবেন। সেই সরকার এসে হয়তো রাশিয়াকে আবার আগের মতো সব কিছু করতে বলবেন যাতে ইইউর সাথে আবার সাভাবিক সম্পর্ক গড়ে উঠে।   

কে কি ভুল করছে বলে মনে হয়ঃ

ক।       ওয়ার্শো ভেংগে যাবার পরে আসলে রাশিয়া কখনোই ইইউ অথবা আমেরিকার শত্রু ছিলো না। রাশিয়া অনেকটা ইউরোপের ধাচেই এগিয়ে যাচ্ছিলো। কিন্তু আমেরিকা সর্বদা রাশিয়াকে তার চিরশত্রুই মনে করে। আসলে আমেরিকার শত্রু চিনতেও ভুল হয়েছে। তার শত্রু চীন, রাশিয়া নয়। তাই রাশিয়াকে ওর দলে নিয়ে চীনকে মোকাবেলা করা উচিত ছিলো আমেরিকার। ইউক্রেনকে দিয়ে অযথা রাশিয়ার গলায় পারা দেয়া আমেরিকার ঠিক হয় নাই। এতে সবচেয়ে লাভবান হয়েছে চীন। আর সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে আমেরিকা এবং ইইউ ।

খ।        রাশিয়া যখন ন্যাটোর সদস্যপদ চেয়েছিলো, ন্যাটোর উচিত ছিলো রাশিয়াকে সদস্যপদ দেয়া। যদি সেই সদস্যপদ দিতো, তাহলে আজকে ইউরোপ থাকতো সবচেয়ে নিরাপদে, চীন থাকতো সবচেয়ে চাপে। এশিয়াও থাকতো চাপের মধ্যে। রাশিয়াকে ইচ্ছে করেই আমেরিকা সদস্যপদ দিতে চায় নাই। এটা একটা মারাত্তক ভুল ছিলো।

গ।        ইউক্রেন যুদ্ধে জেলেনেস্কী আসলে ইউক্রেনের মংগল কামনা করে নাই। যখন যুদ্ধশেষে ইউক্রেনের চিন্তাবিদেরা এই যুদ্ধের আগাগোরা নিয়ে বিশ্লেষন করবেন, তখন দেখা আযবে যে, জেলেনেস্কী আসলে ছিলো রাজাকার প্রেসিডেন্ট। আজকে তাকে ;হিরো’ আখ্যায়িত করলেও সব বিবেচনা করে একটা সময় আসবে যখন ইউক্রেনের মানুষেরা ‘জেলেনেস্কী’ নামটা ‘মীর জাফর’ নামের মতো হয়তো ব্যবহার করবে।

31/04/2020-রহস্য। 

রহস্য। 

এমন একটা নাম, যে নিজেই সবার কাছে এক রহস্য। এই পৃথিবীর প্রতিটি প্রানীর নিজস্ব একটা রহস্য থাকে। সে সেই রহস্য বুকে নিয়েই আজীবন প্রকাশ্য দিবালোকে সবার সাথে উম্মুক্তভাবে ঘুরে বেড়ায় যেনো আমরা যা দেখছি সেটাই সব, কিন্তু তার ভিতরে, অন্তরে, মনে বা মগজে হয়তো কিছু না কিছু রহস্যঘেরা জাল রয়েই যায়। এই রহস্যের কোনো কুল কিনারা নাই, না আছে সরল অভিব্যক্তি। এই রহস্য কখনো সত্যতায়, কখনো মিথ্যায় আবার কখনো দুঃখের ভারাক্রান্ত পিপায় কানায় কানায় ভরে থাকে। এটা খুব সহজ নয়, আছে কিনা বাস্তবে তাও সঠিক বুঝা যায় না কিন্তু নাই এটা বলা যাবে না। কোনো ভিক্ষুক আজীবন ভিক্ষে করে খেলেও দেখা যাবে সে আসলে কখনোই ভিক্ষুক ছিলো না, তার কাছে যা ছিলো তা দিয়ে হয়তো আর পাঁচ দশটা মধ্য ক্লাসের পরিবারকে আজীবন লালন করা যায়, অথচ রহস্য হচ্ছে সেই ভিক্ষুক সারাদিন রোদে পুড়ে, বৃষ্টিতে ভিজে লজ্জা শরমের মাথা খেয়ে জরাজীর্ন কাপড় পড়ে দ্বারে দ্বারে ভিক্ষা করাই ওর নেশা। এই রহস্য বুঝা মুষ্কিল। আবার দেখা যায়, সদাহাস্য যে মানুষটি আমার আর আপনার সামনে কখনো মন খারাপ করতে দেখা যায় না, হয়তো যখন সে নিতান্তই একা থাকে, অথবা গভীর রাতে যখন তার ঘুম ভাংগে, তখন হয়তো কোনো এক একাকীত্তের বেদনায় তার দুই চোখ জলে ভরে থাকে অথচ দিনের আলোয় তার ঠোটে সব সময়ই থাকে একটা মনকারা হাসি। কি সেই গোপন রহস্য?  অরু, শারমিন, মাধুরীর পরিচয়টা আমি ইতিমধ্যে দিয়েছি। কিন্তু এরা কি আসলেই কেউ ছিলো? সবার জীবনেই এমন কেউ থাকে যারা কোথাও না কোথাও অরু, বা শারমিন, মাধুরী, বা ঘষেটি বেগম অথবা মনিকা, বা পারু হয়ে বাচে। এরা মেরুদন্ডসম্পন্ন শক্তিহীন প্রানীর মতো ঠিকই কিন্তু যদি প্রয়োজনিয় পুষ্ঠির জোগান দেয়া যায়, মায়াবী ব্যবহাত্রে মমতায় গড়ে তোলা যায়, তারা লিকলিক করে বড় সুফলা গাছ হয়ে দাঁড়িয়ে যেতে পারে কিন্তু বেশীর ভাগ সময়েই এরা থেকে যায় অপ্রকাশ্যে। রাস্তাঘাটে চলার সময়ে আমি এদের দিকে তাকাই, ভাবি আর আমার কল্পনায় ওরা জীবিত হয়ে উঠে এই ডায়েরীতে। অথচ আমি এদের কাউকেই চিনি না। তবে বড্ড মায়া হয় এদের জন্য। আমিও তো হতে পারতাম ওদের মতো কেঊ? 

এইসব ছিন্নমূল মানুষ গুলির জীবনের গল্প আলাদা। এদের কান্নায় ভরে থাকে ভালোবাসা, এদের ভালোবাসায় ভরে থাকে বেদনার মতো অনেক কাহিনী। এটা তো ঠিক যে, কান্নার আহাজারীতে সুর থাকে না, থাকে বেদনা আর কষ্ট যে কষ্টের কোনো নাম নাই, যে কষ্টের রুপ কাউকে দেখানো যায় না। এরা এমনই কিছু মানুষ "অন্য দুনিয়া"য় একাই থাকে। আমাদের মানুষের সবচেয়ে বড় অক্ষমতা হচ্ছে-আমরা ভিতরেরটা দেখি কম, কিন্তু সত্যিটা সব সময় মানুষের ভিতরেই থাকে।  এইসব ছিন্নমূল মানুষেরও শৈশব কাল ছিলো, যৌবন ছিলো, হয়তো সেইসব শৈশব কিংবা যৌবন আমাদের অনেকের থেকেই আলাদা। সময়ের সাথে সাথে যে কোনো ডকুমেন্ট পালটে দেয়া যায়, যে কোন ডকুমেন্ট নকল করা যায় হুবহু আসলের মতো কিন্তু কেউ কি কখনো তার অতীতের সেই শৈশব, যৌবন পালটে দিতে পেরেছে? কিন্তু এইসব ছিন্নমুল মানুষগুলির সেটাও পালটে যায়, তাদের মুখাবয়বও পালটে যায়। বাচার জন্য পালটে ফেলতে হয় তাদের সব। তাই এসব "অন্য দুনিয়ার" মানুষগুলির বাহ্যিক চেহারা আমরা দেখতে পাই বটে কিন্তু এদের ভিতরের কষ্টটা আমরা না দেখতে পাই, না বুঝতে পারি। বাচার তাগিদে এরা নিজের সাধ্যের বাইরে গিয়েও কাজ করে। তারা তাদের জীবনের পাহাড় অতিক্রম করার জন্য আপ্রান চেষ্টায় সারাটি জীবন একাই যুদ্ধ করতে করতে এক সময় হয় অকুল সাগরে ভেসে যায় অথবা হয়তো কোনো কিনারে এসে থেমে যায়। তারপরেও মানবিক গুনাবলীর অংশ হিসাবে এরাও প্রেম করে, এরাও ভালো একটা জীবন পাওয়ার আশায় ঘর বাধার সপ্ন দেখে। কিন্তু বেশীরভাগ সময়েই যখন প্রেম নামক এই দুধটুকু পুড়ে শেষ হয়ে যায়, তখন মনে হয় ঘোড়া এসেছিলো, ঘোড়া জলও খেয়েছিলো, কিন্তু কেউ কোনোদিন ঐ ঘোড়াকে বাস্তবে দেখে না।

এ জগতে সবচেয়ে বড় রহস্য বিধাতা নিজে, আর সেই রহস্যময়ী বিধাতা মানুষের জন্য আরো কিছু রহস্য তৈরী করে জাল বুনে রাখেন। তারমধ্যে অন্যতম "সময়", "সম্পর্ক", "মন", "অন্তর", "মায়া", "ভালোবাসা", আর "চোখের জলের" সাথে "ঠোটের হাসি"। রাগ, গোস্যা, ঘেন্না কিংবা হানাহানি কোনো রহস্য নয়। কেনো নয়? এই রহস্যের কোনো ব্যাখ্যা নাই।  

Service Information Booklet

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

Army Pension Book

Dox Deposited Finally to FC Army

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

Other Dox for Pension

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

ACR

মেজর জেনারেল আনোয়ার কর্তৃক এ সি আর

মেজর জেনারেল আনোয়ার ১১ পদাতিক ডিভিশনে আমার জিওসি ছিলেন। উনি যখন বি ডি আর এর ডি জি ছিলেন, তখনো আমি একবার তার অধীনে ২৬ রাইফেল ব্যাটালিয়ানে মারিষ্যায় কাজ করেছিলাম। অনেকে অনেক কথা বল্লেও আমার কাছে লোকটিকে অনেক জেনুইন মনে হয়েছে। পরবর্তীতে তিনি ওম্মানের রাষ্টদুত হিসাবে প্রেষনে যান এবং অতঃপর বিদায়। 

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

কর্নেল আজিম কর্তৃক এ সি আর

১১ পদাতিক ডিভিশনে আমি যখন কাজ করছিলাম জি এস ও-২ (অপারেশন) হিসাবে, তখন লেঃ কর্নেল হাসান সোহ্রাওয়ার্দী ছিলেন জি এস ও-১, পরবর্তীতে জি এস ও -১ হিসাবে আসেন লেঃ কর্নেল আজিম। এই সময়ে আমি দুইজন কর্নেল ষ্টাফ পেয়েছিলাম, একজন কর্নেল বেলাল, আরেকজন কর্নেল ইকবাল করীম ভুইয়া। এই দুইজনেই পরবর্তীতে আর্মির সেনাপ্রধান হন। 

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

কর্নেল এহতেশাম কর্তৃক এসিআর

র্কনেল শাহাদাত জিএসও-১ এর দায়িত্ত শেষে কর্নেল এহতেশাম আসেন। তার আরেকটি পরিচয় হলো, তিনি আমাদের প্রয়াত প্রেসিডেন্ট এরশাদের আপন ভাগ্নে ছিলেন। যাই হোক, তিনিও আমার জিএসও ছিলেন মিলিটারী ডাইরেক্টরেট এ।  আমরা তখন মোট ৫ জন কোর্ষ্মেট মিলিটারী ডাইরেক্তরেটে কাজ করছি। অন্যদিকে অন্যান্য ব্রাঞ্চেও আরো গোটা ৪/৫ জন কোর্ষমেট কর্মরত ছিলো। যেমন মেজর আকবর, মেজর আলমগীর ইত্যাদি। 

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুবীন কর্তৃক এসিআর।

 

১১ পদাতিক ডিভিশন জিএসও-২ (অপারেশন) থেকে গানারী ষ্টাফ কোর্ষ করতে গিয়েছিলাম আর্টিলারী সেন্টার এন্ড স্কুলে। গানারী ষ্টাফ কোর্ষ শেষ করে আমার পোষ্টিং হয়েছিলো, আর্মি হেড কোয়ার্টারের জি এস ব্রান্স, ট্রেনিং ডাইরেক্টরেটে। তখন প্রাথমিকভাবে আমি ডিএমটি হিসাবে কয়েকদিন পেয়েছিলাম ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তফা কামালকে। তার কিছুদিন পরেই এলেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুবিন। উভয় ডাইরেক্টরই ছিলেন আমাদের এক্স মির্জাপুরিয়ান। ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুবিন পরবর্তীতে আর্মির সেনা প্রধান হয়েছিলেন। 

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

Service Records

সেনাবাহিনীর চাকুরী একটা বিশেষ চাকুরী। বলা হয়, যে একবার সোলজার, সে নাকি আজীবন সোলজার। কথাটা একেবারেই সত্য। আমিও আর্মিতে থাকতেই চেয়েছিলাম, কিন্তু এদেশের রাজনীতি আর বড় বর আর্মির জেনারেলরা যেভাবে নিজেদের মর্যাদা টাকা, ক্ষমতা আর বিলাসের উপর ছেড়ে দিয়েছেন, তাতে মানসম্মান নিয়ে আর্মিতে থাকা কঠিন। ফলে ষ্টাফ কলেজ করে, গানারী ষ্টাফ করে, একটা পদাতিম ডিভিশনের জিএসও-২ (অপারেশন), আর্মি হেড কোয়ার্টারে জিএসও-২ (ট্রনিং), এ রকম আরো ভালো ভালো পদে আসীন থেকেও, বের হয়ে এসেছি আর্মি থেকে। খারাপ লেগেছিলো, কিন্তু নিজের কাছে আত্তসম্মানতাই বড় মনে হয়েছে, আর নিজের উপর একটা ভরষা ছিলো। সবার অনুরোধ উপেক্ষা করেই আমি শেষ পর্যন্ত আর্মি থেকে ১৮ বছর চাকুরী করে ১৯ তম বছরে বেসামরীক অংগনে এসে কোনো চাকুরীর জন্য এপ্লাই না করে ব্যবসায় মনোযোগ দিয়েছি। আজ তার প্রায় ১৭ বছর পুর্ন হতে যাচ্ছে। আরেকটা আর্মির চাকুরীর বয়সের সমান প্রায়। 

আর্মির এই ১৮/১৯ বছরে আমার যেখানে যেখানে যা যা রেকর্ড আছে, তার সমস্ত হিসাব কিতাব এই ছোট্ট পাতায়। 

Please wait while flipbook is loading. For more related info, FAQs and issues please refer to DearFlip WordPress Flipbook Plugin Help documentation.

২৮/০৩/২০২২-ন্যাচারাল প্রতিশোধ

ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের বক্তব্য শোনার জন্য কানাডা, আমেরিকা, ইউকে, পোল্যান্ড, ইজরায়েল, অষ্ট্রেলিয়া, জার্মান, ফ্রান্স ইত্যাদি পার্লামেন্টে বিশেষ অধিবেশন হয়েছে। সব এমপিগন, মিনিষ্টারগন স্ট্যান্ডিং ওভেশনে সম্মান দিয়ে একাত্ততা দেখিয়েছেন। এছাড়া জি-৭, জি-২০, স্কোয়াড, ব্রিক্সস, ব্রাসেলস মিটিং তো আছেই, তারপর ন্যাটোর পরপর অনেকবার মিটিং, ন্যাটো দেশসমুহের মধ্যে বারবার মিটিং/ বৈঠক, জাতিসংঘের বিশেষ অধিবেশনে বহুবার গুতেরিসের ভাষন, প্রেসিডেন্ট জেলেনেস্কীরও ভার্চুয়াল ভাষন, ইত্যাদি বহুবার সম্প্রচার করা হয়েছে। এ ছাড়া, বিভিন্ন সময়ে রাষ্ট্রপ্রধানদের বিশেষ বিশেষভাবে কয়েকজন একত্রে মিলিত হয়ে বৈঠক করেও বিভিন্ন প্রস্তাব করেছেন। রাশিয়ার একনায়কতন্ত্র স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে কয়েক হাজার নিষেধাজ্ঞাসহ রাশিয়ার কমার্শিয়াল, ইকোনোমিক্যাল নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে অন্যান্য দেশ সমুহকেও ন্যাটো এবং পশ্চিমারা বিভিন্ন দেশকে এমন এমন চাপের মধ্যে রেখেছে যে, হয় তাদেরকে ন্যাটো, ইইউ দেশসমুহ তথা পশ্চিমাদের কথা শুনতে হবে, অথবা তারাও তাঁদের নিষেধাজ্ঞায় পতীত হবেন এমন কথাও বলা হয়েছে। উপরন্তু, যেসব দেশকে আগেই এই পশ্চিমারা বিভিন্ন কারনে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছিলো, যেমন ইরান, ভেনিজুয়েলা ইত্যাদি তাদেরকে এখন আবার নিষেধাজ্ঞার বাইরে নিয়ে ওই সব দেশের তেল/ গ্যাস রপ্তানীর শর্তে যোগাযোগও করেছে। শুধু এখানেই শেষ নয়, হাজার হাজার মিলিয়ন, বিলিয়ন ডলারের সাহাজ্য, মাত্রাতিরিক্ত অস্ত্র সরবরাহ, এমনকি প্রানে মেরে ফেলার হুমকী দিতেও কোনো বাধা ছিলো না। একটা সুপার পাওয়ারের দেশের প্রেসিডেন্টকে আরেকটা সুপার পাওয়ারের দেশের প্রেসিডেন্ট তাঁর ক্ষমতা উতখাতের নিশ্চয়তা দিয়ে, রিজিম পরিবর্তনের হুমকীও দিয়েছে।

আমি মানি, রাশিয়া ইউক্রেনের মতো একটা স্বাধীন রাষ্ট্রকে এভাবে অতর্কিত হামলায় হাজার হাজার মানুষের ভোগান্তি কিংবা দেশ দখলের মতো কাজ করতে দেয়া উচিত না এবং তাঁর এই কাজকে কোনোদিনই সমর্থনযোগ্য নয়। সারা দুনিয়ার বিশেষ করে ন্যাটো, ইইউ, ব্রিক্স, পশ্চিমা দেশ, ফ্রান্স, জাপান, অষত্রেলিয়া, আমেরিকা, কানাডা, জার্মান কিংবা এসব দেশ যে মানবতা দেখাচ্ছে, তা ঠিকই আছে। আমিও তাঁদের এসব কর্মকে সমর্থন করি।

কিন্তু ঠিক তারপরের যেটা আমার জানতে ইচ্ছে করে-

তারা কি এসব শুধু ইহুদী, খ্রিশটিয়ান, হোয়াইটস এর জন্যই প্রজোজ্য নাকি সব মানুষের জন্য? তারা কি আফগানিস্থান, সিরিয়া, প্যালেষ্টাইন, ইয়েমেন, তালেবান, ইরাক, ইত্যাদি দেশগুলির মানবেতর মানুষগুলির জন্যেও এটা করতে পারতেন না? এতো এতো পার্লামেন্টারী সেসন না হোক, অন্তত কিছুটা আওয়াজ, কিছুটা সাহস, কিছুটা আশসাস? এখানে এই কথা আবার কেউ বলবেন না যে, অন্যান্যদের উপর অত্যাচারের কারনে ইউক্রেনের সাধারন মানুষের ভোগান্তি কেনো সমর্থন করা হবে? ঠিকই তো। সেটাও সমর্থন যোগ্য নয়। কিন্তু প্রশ্নটা ইউক্রেনের সাধারন মানুষের ব্যাপারে নয় শুধু, প্রশ্নটা সেই ভোগান্তিগুলির মানুশ গুলির জন্যেও। কিন্তু অইসব ভোগান্যি গুলির জন্য দায়ী কারা? কে বা কারা করেছে সেসব? কাদের দ্বারা সেই সব ভোগান্তিগুলি হয়েছে বা হচ্ছে? এখনো তো হচ্ছে? এই ন্যাটো, এই পশ্চিমারা, এই ইহুদীরা, এই খ্রিষ্টানরা, এই হোয়াইটসরাই তো বিমান থেকে অতর্কিত হামলা, হাজার হাজার মানুষের রিফুজি হবার কান্নার সিনারীও, ধর্ষন, লুটপাট, জীবননাশ করেছে। হয়তো ফ্রান্স করে নাই কিন্তু আমেরিকা করেছে, তখন ফ্রান্স চুপ ছিলো। হয়তো আমেরিকা করে নাই ইউকে করেছিলো, তখন আমেরিকা, ফ্রান্স উভয়েই চুপ ছিলো, হয়তো রাশিয়া করেছে কিন্তু টার্গেট মুসলমান ছিলো বলে আমেরিকা, ফ্রান্স, কানাডা, জার্মান সবাই চুপ ছিলো। তখন কি ওই সব সন্ত্রাসী ক্ষমতাধরদেরকে অন্তত কথা দিয়ে ধমক দিয়ে প্রতিহত করার নৈতিক দায়িত্ব রাখতে পারতো না? সেসব দেশের মানুষেরাও তো অতীব সাধারন জনগনই ছিলো। তাঁদের বেলায় এতো কাভারেজ, এতো মিটিং, এতো সোচ্চার কেনো করলো না আজকের দিনের নেতারা? তখন কি তারা ওয়ার্ল্ড লিডার হিসাবে এই ওয়ার্ল্ডে ছিলেন না? তারা যদি সমন্নিতভাবে আবার বলছি সমন্নিতভাবে এক জোটে সেই সব অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াতেন, তাহলে কি এই প্রিথিবিতে অন্য আরেক জুলুমবাজের তৈরী হতো?

এর মানেই এই, যারা আজ রাশিয়ার এই এগ্রেসিভ অন্যায়কে সমর্থন করে, তারা আসলে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে কথা বলছে না, কথা বলছে সেসব ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে যারা ইউক্রেনের এই অবস্থায় মনে করছে যে, ইউক্রেনদের উপর আরেক জুলুমবাজ অন্যায় হচ্ছে বলে এতো ব্যাপক নরাচরা করছেন। এটা ডাবল স্ট্যান্ডার্ড বলেই ভাবা হচ্ছে। ১৪ গোষ্টি নিয়া একজনের বিরুদ্ধে লড়াই করাই যায়। ১৪ গোষ্টির শক্তি নিয়া পাশের বাড়ির বস্তির মফিজও মাস্তানী করতে পারে একজনের বিপক্ষে। ওয়ান টু ওয়ান করুক না? দেখা যাক কি হয়? সব শিয়ালেরে একসাথে করে হুক্কা হুয়া দেয়া মানে একা সাহসী নয়। এই যে ৩ হাজার ইহুদী ইজরায়েলে গেলো ইউক্রেন থেকে, তাদেরকে বাসস্থান দেয়ার জন্যে অকোপাইড গাজায় শুরু হয়েছে আরেক ধংশযজ্ঞ। কই কেউ তো এই মুহুর্তে সেটার ব্যাপারে সোচ্চার হচ্ছে না? মিডিয়া কাভারেজও নাই, কিন্তু ওইসব নীরিহ মানুষগুলি তো বাস্তচ্যুত হচ্ছে। তাঁদের ব্যাপারে কেউ তো কিছু বলছে না?

ন্যাচার যখন প্রতিশোধ নেয়া শুরু করে, তখন শুরু হয় খুব ছোট কিছু থেকে। তখন সব জুলুমবাজদের সাথে যারা চুপ ছিলো, তারাও সেই ন্যাচারাল প্রতিশধের আওতায় এসে যায়। হতে পারে, সেই প্রক্রিয়টা শুরু হয়ে গেছে আর এটা খুব দ্রুত গতিতে এগিয়ে আসছে বলে আমার ধারনা। এই মুহুর্তে যতোটা ক্লিন দেখা যায় পরিস্থিতি, সেটা হয়তো ততোটা ক্লীন নয়। যার যার সার্থে আঘাত লাগলে কিছুদিন পর বুঝা যাবে, কে কার বা কার কে।

গ্রামে যখন দুই মোড়ল মারামারি করে, সেই গ্রামেই কেউ কেউ খুব মুচকী মুচকি হাসে এইজন্য যে, অন্তত এক মোড়ল আরেক মোড়লেরে ঘুষি তো মারছে!! যে ঘুষিটা আসলে অই মুচকি মুচকি হাসা নীরিহ পাবলিক মারতে চাইতো কিন্তু কখনো পারে নাই। এই দুই মোড়লকে আসলে কেহই পছন্দ করে না। তারা গাড্ডায় পড়লে অধিকাংশ লোকই অন্তরে একটু শান্তি পায়। মজা হলো-দুই মোড়লের অধোপতন সবাইই চায়। ভালোবাসা বা ক্রতজ্ঞতা যতোটুকু কেউ দেখায় সেটা জাষ্ট না পাইরা।

এই আর কি।

18/03/2022-ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার উপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার প্রভাব  

যুদ্ধ কোনো কালেই কারো জন্য ভালো সংবাদ বয়ে আনে নাই। দুটু মোরগের মধ্যে ফাইটিং এ ও দুটু মোরগই ক্ষতিগ্রস্থ হয়। আর যখন দেশ যুদ্ধে লিপ্ত হয়, তখন দেশের মানুষের সাথে অন্যান্য প্রতিবেশী যারা যুদ্ধেই নেই, তারাও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এই তথ্যটা জানে না এমন নয়, তারপরেও যুদ্ধ হয়। এর একটাই কারন যে, সব প্রতিকুল আবহাওয়ায় ক্ষতির সাথে কিছু মানুষের ব্যবসা, আর সেই ব্যবসায় লাভ ও হয়। হতে পারে এই লাভটা অন্য এমন মানুষের যারা মাঠের বাইরে দাঁড়িয়ে যুদ্ধটা চালিয়ে যাক এটাই দোয়া করছে।

ইউক্রেন যুদ্ধ রাশিয়ার সাথে একটা অসম যুদ্ধ। এটা হবারই কথা না। কিন্তু তারপরেও হয়েছে এবং হচ্ছে। তাহলে এখানে কে ফাদে পড়লো, কাকে কে ফাদে ফেল্লো, এটা জানা আরো বেশী দরকার যাতে যুগে যুগে এই ফাদ পাতা ইতিহাস থেকে কেউ শিক্ষা নিতে পারে। মজার ব্যাপার হচ্ছে-ইতিহাস থেকে কেউ কখনো শিক্ষা নেয় না।

ইউক্রেন যুদ্ধ থেকে অনেক গুলি বিশ্লেষন বেরিয়ে আসছে ক্রমাগত। আজ আমি একটা নিয়ে আলাপ করার চেষ্টা করছি। যার নাম ‘নিষেধাজ্ঞা’।

রাশিয়ার উপর পুরু বিশ্ব প্রায় হাজার খানেকের বেশী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। এই নিষেধাজ্ঞা নিয়েই আজকের আলাপ।

২৪ শে ফেব্রুয়ারী তে যখন ভ্লাদিমির পুতিন ইউক্রেন আক্রমন করে, পুতিন কি এসবের ব্যাপারে হোম ওয়ার্ক করে নাই? রনক্ষেত্র এক জিনিষ আর সারা দেশের অর্থনইতিক বিষয়টা আরেক জিনিষ। যদি পুতিন সেই রনক্ষেত্রের বাইরে দেশের অর্থনইতিক ব্যাপারটা নিয়ে হোম ওয়ার্ক না করে থাকেন, তাহলে আমি বল্বো এটা হয় আমাদের ভুল ধারনা, না হয় পুতিন বিচক্ষন নয়। কিন্তু ২২ বছর যাবত একটা রাষ্ট্রপ্রধান তাও আবার সুপার পাওয়ারের মতো দেশ রাশিয়ার, কেজিবির প্রধান, বয়ষ্ক ব্যক্তির পক্ষে এগুলি নিশ্চয় সে ভেবেছে। তাহলে এবার আসি, পুতিন এই অর্থনইতিক নিষেধাজ্ঞা কিভাবে মোকাবেলা করছে।

দেশের অর্থনীতিকে স্টাবল রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ

(ক)       রাশিয়াকে পশ্চিমারা সুইফট নামক  গ্লোবাল ফাইনান্সিয়াল সিস্টেম থেকে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় আন্তর্জাতিক মার্কেটে লেন দেনে বিশাল অসুবিধার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। ফলে রাশিয়া তাঁর নিজস্ব মীর নামক সিস্টেমের মাধ্যমে ইলেল্ট্রনিক ট্রান্সফার, বিদেশী ব্যংকের সাথে লেন দেন, মাষ্টার কার্দের বিকল্প মিরের মাধ্যমে লেন দেনের বিকল্প ব্যবস্থা করেছে। এটা হয়তো সারা বিশ্ব জুড়ে এখনই কাজ করতে সক্ষম হবে না কিন্তু প্রয়োজনীয় লেন দেনে কোনো অসুবিধা নাই। একটা সময় আসবে যখন এই পশ্চিমাদের একচ্ছত্র সুইফট এর বিকল্প হিসাবে একদিন মীর দাঁড়িয়ে গেলে, রাশিয়ার অর্থনইতিক নিষেধাজ্ঞা অচিরেই বেশ আবার পুনর্জীবন পেয়ে যাবে।

(খ)        পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞার মধ্যে সবচেয়ে বড় ধাক্কাটা হচ্ছে রাশিয়ার রিজার্ভে যে ইউ এস ডলার এবং ইউরো ছিলো, সেতার উপর কঠিন নিষেধাজ্ঞা। তাঁর মানে ডলার এবং ইউরো রাশিয়ার জন্য একেবারেই এখন নিরাপদ না। এর জন্যে রাশিয়া যা করেছে সেতা হলো- রাশিয়া এখন চায়নার মতো নিজস্ব কারেন্সীর মাধ্যমে বিদেশীদের সাথে ট্রেড করা শুরু করেছে। রাশিয়ার সাথে চায়নার মধ্যে রুবল-ইয়েন প্রথা চালু হয়েছে ইতিমধ্যে। ন্তুরষ্ক রুবলের মাধ্যমে রাশিয়ার সাথে ট্রেড লেন দেনে সম্মত হয়েছে। ভারতের সাথেও রুবল-রুপীর একটা সমঝোতা  হয়েছে তেল বিষয়ক লেন দেনে। এসব করার কারনে পুরু দুনিয়ায় যেখানে ডলার- ইউরোওই ছিলো একমাত্র ব্যবসায়ীক লেন দেনের কারেন্সী, সেটা ধীরে ধীরে কমে আসবে।

(গ)       আমদানী কারকদেরকে ডলারের বিপরীতে রুবলে পেমেন্ট প্রদানের নীতিমালায় রাশিয়া একটা প্যাকেজ ঘোষনা করেছে যে, বিদেশী সবার সাথে রাশিয়া ৮০% ডলার রেটে রুবলের পরিবর্তনে তাঁদের আমদানী দ্রব্যের দাম পরিশোধ করা। এতে যা হবে সেটা হলো- রুবল ধীরে ধীরে আন্ত্রজাতিক মুদায় পরিনত হবে এবং আমদানীকারকেরাও অনেক কিছু ২০% ছাড়ে মালামাল আমদানী করতে গেলে লাভবান হবে। তাঁর মানে এই যে, ডলারের বাজার একটা বিশাল এরিয়ায় অকেজো হয়ে যাবে।

(ঘ)        রাশিয়া ২০২২ সাল অবধি ইউরেসিয়া ইকোনোমিক ইউনিয়ন ভুক্ত দেশে সমস্ত পন্য রপানীতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে আর্মেনিয়া, বেলারুশ, কাজাকিস্থান, কিরগিস্তান ইত্যাদি। এর মাধ্যমে রাশিয়া তাঁর নিজের দেশের লোকদের নিত্যদিনের পন্যকে নিরাপদ করে ফেললেন। বাইরের লোকদের জন্য এসব নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য এখন অসুবিধায় পড়বে। তাঁদের জন্য পন্যের দাম হবে আকাশ্চুম্বি। তাতে রাশিয়ার কিছুই যায় আসে না। কারন রাশিয়া আগে নিজের দেশের মানুষকে ভোগান্তি থেকে বাচাবে।

(চ)        রাশিয়ার কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার বাড়িয়ে ২০% করেছে। এর মাধ্যমে রাশিয়ার রুবলের দরপতন হ ওয়াতেও সাধারন জনগন রুবলের দরপতনে কিছুটা হলেও ইনফ্লেশন থেকে মুক্তি পাবে। প্রাইস স্ট্যাবিলিটি করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন দেশ এই পদিক্ষেপ গ্রহণ করে থাকে। এখানে একটা ব্যাপার জানা দরকার যে, সুদের হার বাড়ালে কিভাবে প্রাইস স্ট্যাবিলিটি ঠিক থাকে। সেটা একটা বিশাল অংকের হিসাব, তাই বিস্তারীত আলাপ করা হলো না। তবে জেনে রাখা ভালো যে, সুদের হার বাড়িয়ে প্রাইস স্ট্যাবিলিটি একটা সাময়িক পদক্ষেপ মাত্র। রাশিয়া এখানেই থেমে থাকেনি। ক্রেডিট ইন্সটিটুশন গুলিকে রাশিয়ার সেন্ট্রাল ব্যাংক নতুন লোনে কোনো ইন্টারেস্ট নেবে না কিংবা কেউ যদি ডিফল্টার হয় রুবলের দরপতনে, তাদেরকে ডিফল্টার হিসাবে ধরা হবে না যতোক্ষন রুবল স্ট্যাবল না হয়। এর ফলে দেখা যাচ্ছে ২৪ ফেব্রুয়ারিতে যখন ১ ডলারের দাম ছিলো ১২০ রুবল, এখন সেটা ১০০ রুবলের নীচে চলে এসছে।

(ছ)        আন্তর্জাতিক লোনের ব্যাপারে রাশিয়ার দুটু পেমেন্ট সিডিউল ছিলো গত ১৫ মার্চে। কিন্তু ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক রাশিয়ার ডলার রিজার্ভ ব্লক করাতে সে ১১৭ মিলিয়ন ডলার পেমেন্ট করতে পারছিলো না। যদি রাশিয়া এই পেমেন্ট দুটু রিপেমেন্ট করতে না পারতো, তাহলে রাশিয়া আন্তর্জাতিকভাবে ব্যনাগকিং সেক্টরে একটা ডিফল্ট করে ফেলতে পারতো। একবার কোনো কোম্পানী বা দেশ যখন কোনো একটা জায়গায় ফল্ট করে, তখন তাঁর সি আই বি ও লাল হয়ে যায়। আর সি আই বি লাল হলে অন্য কোনো ব্যাংক বা দেশ তাঁর সাথে আর লেন দেন করতে পারে না। কিন্তু রাশিয়া তাঁর রিজার্ভ ফান্ড যেটা ডলার বা ইউরোতে ছিলো, ইতিমধ্যে বাজার রেটে ১১৭ মিলিয়ন ডলারের সমান রুবলে পেমেন্ট রিলিজ করার জন্য অফিশিয়ালী আদেশ দিয়ে দিয়েছে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংককে। এখন যদি ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক সেটা রুবল কারেন্সীতে পেমেন্ট না করে, তাহলে এটার দায় ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকের, রাশিয়ার না।

(জ)       রাশিয়া বিনা মুল্যে তাঁর নাগরিকদেরকে অনেক সুবিধা প্রদানের অঙ্গীকার করেছে এবং দেয়া শুরু করেছে। তাঁর মধ্যে জরুরী বিষয়গুলি হচ্ছে- ছাত্রদের টিউশন ফি, পারিবারিক ভরন পোষনের খরচ, সিনিয়ার সিটিজেন্দেরকে অতিরিক্ত রুবল প্রদান, চাকুরীজীবিদের বেতন বৃদ্ধি, পেন শনের টাকা বৃদ্ধি, পাবলিক সেক্টরে আরো অনেক কিছুর ছাড়।

(ট)        স্মল এবং মিডিয়াম এন্টারপ্রিনিউরদেরকে রাশিয়া সরকার প্রনোদোনা প্যাকেজ দেয়া হচ্ছে যাতে তারা এই রুবল দরপতনে তাঁদের ব্যবসা আগের মতো করতে পারে। সাবসিডিয়ারী, ক্রেডিট ফেসিলিটি সহ সব ধরনের ব্যবস্থা রাশিয়া ইতিমধ্যে ব্যবস্থা করেছে।

(ঠ)       নিষেধাজ্ঞার কারনে কোনো ব্যবসায়ী যেনো তাঁদের উতপাদিত দ্রব্য উতপন্নে কম না করে তাঁর জন্যে রাশিয়া সরকার যা যা লাগে তাঁর সব ব্যবস্থা করবে বলে আশহাশ দিয়েছে। আর সেসব পন্য আপাতত ডমেষ্টিক বাজারেই ব্যবহারের ঘোষনা দিয়ে কিন্তু বাইরে রপ্তানী করতে নিষেধ আরোপন করেছে। তাতে দেশের ভিতরে দ্রব্যমুল্য একটা নিয়ন্ত্রনে থাকবে এবং বহির্বিশহে অন্যরা সাফার করবে। এটাই রাশিয়ার পরিকল্পনা। এর মধ্যে রয়েছে চিনি, গ্যাসোলিন, মেটাল, গম, ডিজেল, এবং অন্যান্য রপ্তানীমুলক দ্রব্য।

(ডঃ)     বিদেশী কোম্পানীগুলি যারা রাশিয়াতে ব্যবসা বন্ধ করার জন্য বলেছে, রাশিয়া তাঁর ব্যবসায়ীদেরকে বলেছেন যে, তাঁর নিজের দেশের নাগরিকগন যেনো সেসব ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান নিজেরা চালায়। বিদেশীদের এই ব্যবসাগুলি চালাইতে যা অর্থের জোগান লাগবে, সেটা রাশিয়ান সরকার বহন করবে। এর সাথে রাশিয়ার সরকার এটাও বলেছে, যদি কোনো বিদেশী কোম্পানী রাশিয়ায় এখনো ব্যবসা করতে চায়, তাহলে তারাও একটা ছাড়ে করতে পারে কিন্তু যদি রাজী না হয়, তাহলে এসব কোম্পানীগুলি রাশিয়ার তরফ থেকে রাষ্ট্রীয়করন করে রাশিয়ানরাই চালাতে পারে। এদের মধ্যে রয়েছে- ম্যাডোন্যাল্ডস, ভক্স ওয়াগন, শেল, এপেল, মাইক্রোসফট, এইচ এন্ড এম, ইত্যাদি।

(ব)        চায়নার ইউনিপে রাশিয়ার সর্বত্র চালু করা যার মাধ্যমে মাষ্টার কার্ড, ভিসা কার্ডের ইফেক্ট কমে যায়। মীরের পাশাপাশি ইউনিপে দুটুই চালু থাকবে।

যে কোনো একটা নতুন সিস্টেম পুরুপুরী চালু হতে কিছুটা সময় লাগে। রাশিয়ার এসব বিকল্প যখন ধীরে ধীরে সফল হতে থাকবে, তখন বিশ্ব বাজারে যেটা হবে সেটা হলো- মাষ্টারকার্দের মতো কিংবা ভিসা কার্দের মতো সিস্টেম গুলি আর সার্বোজনীন থাকবে না। তারা বেশ বড় একটা বাজার হারাবে। এর সাথে রাশিয়ার মীর কিংবা চায়নার ইউনিপে নতুন করে একতা বিপ্লব দিবে।

বড় বড় কোম্পানীগুলি বিসশ বাজার থেকে অনেক গুটিয়ে আসবে, বাজার হারাবে। আমাদের দেশে এক সময় কে এফ সি, পিজা হাট একচ্ছত্র বাজার পেলেও এখন প্রচুর লোকাল পিজার বাজার ভর্তি যা অইসব বিদেশী দোকান গুলি থেকে অনেক সস্থা। হতে পারে মানের দিক দিয়ে হয়তো ততোটা নয়, কিন্তু তারপরেও অনেক সাধারন ক্লায়েন্ট লোকাল পিজা বাজারেরো ভীর কম না। এর মানে বেশ কিছু ক্লায়েন্ট হারানোর মতো।

রাশিয়ার র মেটারিয়াল অন্যান্য দেশে রপ্তানী না যাওয়াতে অইসব দেশের অনেক শিল্প মুখ থুবরে পড়ে যাবে। তেল, গ্যাসোলিন, গ্যাস, স্টীল, গম, বার্লি, চিনি, ইত্যাদির সল্পতার কারনে বিসশে একটা উর্ধগামী মুল্যের প্রভাব পড়বে। যা অন্যান্য দেশকেও বিপদেই ফেলবে। কিন্তু এর মধ্যে রাশিয়া ধীরে ধীরে সাবলম্বি হয়ে উঠবে।

এর অর্থ একটাই- অর্থনইতিক অবরোধে সবাই একইভাবে সাফার করবে, শুধু রাশিয়া একা নয়।

23/02/2022-আমি ২০০৩ সালে ইউক্রেনের কিয়েভে

আমি ২০০৩ সালে ইউক্রেনের কিয়েভে বেড়াতে গিয়েছিলাম একবার। তখন আমি জর্জিয়ায় জাতিসঙ্ঘ মিশনে কর্মরত ছিলাম। ইউক্রেনের এক মেজরের বাসায় উরুগুয়ের এক পাইলটকে সাথে নিয়ে তাঁর বাসায় বেড়াতে গিয়ে কিয়েভ সম্পর্কে আমার ধারনা একেবারে পালটে গিয়েছিলো। মানুষগুলি খুবই শান্তপ্রিয় আর শহরটাও মানুষগুলির মতো একেবারে শান্ত। কোনো কোলাহল নাই, সবাই ব্যস্ত আর খুবই মিশুক। মাত্র সপ্তাহখানেক ছিলাম।

উরুগুয়ের ওই পাইলটের সাথে এখনো আমার যোগাযোগ থাকলেও ইউক্রেনের সেই মেজরের সাথে আমার যোগাযোগ নাই। গতকাল সেই ইউক্রেনের উপর রাশিয়া আক্রমন করেছে শুনে খুব কষ্ট লাগলো মনে। ক্রেমলিন দেখার খুব শখ ছিলো। আমি ক্রেমলিনেও ভিজিট করতে গিয়েছিলাম। যেহেতু মিলিটারী অবজারভার হিসাবে কর্মরত ছিলাম, ফলে আমার সাথে কর্মরত একজন রাশিয়ান আর্মি অফিসারের সহায়তায় আমরা ক্রেমলিনের কিছুটা অংশ আমি সেখানে ভিজিট করতে পেরেছিলাম। মনে মনে ভেবেছিলাম, কতই না শক্তিশালী এসব ক্রেমলিন। আজ যেনো এটাই মনে আসলো দ্বিতীয়বার।

বিশ্ব রাজনীতির অভ্যন্তরে অনেক দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক এজেন্ডা লুকিয়ে থাকে বিধায় আমরা যা নগ্ন চোখে দেখি সেটা আসলে সেটা না যেটা দেখি। তাঁর ভিতরে হয়তো লুকিয়ে থাকে আরো ‘গভীর কিছু’। কিন্তু এই ‘গভীর কিছুর’ দ্বারা সংঘটিত কোনো অস্বাভাবিক ঘটনা পুরু বিশ্বকে অগোছালো করে ফেলে যদিও এই ‘গভীর কিছু সংঘটিত’ বিষয়ে অনেকেই জড়িত থাকেন না। ছোট বা বড় কোনো দেশই এর থেকে পরিত্রান পায় না। ছোয়া লাগেই। ইউক্রেনকে আক্রমন করে রাশিয়া কতটুকু উপকৃত হবে বা ইউক্রেন কতটা ক্ষতিগ্রস্থ হবে সেটা সময়ই বলে দেবে। কিন্তু আমাদের মতো দেশ যারা এর আশেপাশেও নাই তাঁদের কি কি হতে পারে?

আমাদের দেশ অনেকটাই আমদানী-রপ্তানী নির্ভর একটি দেশ। আর এই আমদানী-রপ্তানী বেশীরভাগ হয় ইউরোপের অনেকগুলি দেশের মধ্যে। ইউরোপে মোট ২৮ টি দেশ আলাদা আলাদা হলেও বাস্তবিক হচ্ছে এরা একটা গুচ্ছগ্রামের মতো। ফলে ইউরোপের একটি দেশের ভিসা পেলেই আমরা অনায়াসে অন্য দেশগুলি ভ্রমনের সুবিধা পাই। কারেন্সীও একটা ‘ইউরো’ যদিও সবার আলাদা আলাদা কারেন্সী আছে। ইউরোপের এই দেশ গুলি কোনো কোনো ন্যাচারাল সম্পদে বেশ উন্নত। ফলে একটা দেশে যদি এ রকম গোলমাল চলতে থাকে, সাভাবিকভাবেই অন্য এলাকায় এর প্রভাব পড়েই। প্রভাব পড়বে জ্বালানীর দামে, গ্যাসের দামে, বেড়ে যাবে আমদানী রপ্তানী খরচ যা প্রকারান্তে সাধারন মানুষের উপরেই বর্তাবে। প্রভাব পড়বে উগ্র পন্থীদের যারা মাথা চাড়া দিয়ে উঠতে পারে আশেপাশের দেশ সমুহে। প্রভাব পড়বে ‘মুক্ত ও গনতান্ত্রিক বিশ্ব কন্সেপ্টে’ যদিও ‘মুক্ত ও গনতান্ত্রিক বিশ্ব কন্সেপ্ট’ এখন আছে বলে মনে হয় না। প্রভাব পড়বে সাইবার সিস্টেমে, শেয়ার মার্কেটে, ভোগ্য পন্যে, ইত্যাদি। এ ছাড়া প্রভাব পড়বে বন্দরগুলিতে। 

বাংলাদেশ যদিও এর অনেক দূরের একটি দেশ কিন্তু ইউরোপে রপ্তানী করা পোষাক শিল্প একটা ঝুকির মধ্যে পড়ার সম্ভাবনা প্রচুর। আর যারা সরাসরি ইউক্রেনের সাথে আমদানী-রপ্তানীতে যুক্ত তাঁদের অবস্থা এখন খুবই আতংকের। আমাদের দেশ ইউক্রেন এবং রাশিয়া থেকে অনেক ভোগ্যপন্য আমদানী করে যেমন মটর, সোয়াবিন, গম,  ইত্যাদি, সেটা আরো উর্ধ গতি হতে পারে দামে। এ ছাড়াও আমাদের রপ্তানীকারক মালামাল যেমন প্লাষ্টিক, চামড়া, চামড়া জুতা, হিমায়িত খাবার, পাট বা পাটের দ্রব্য এসব রপ্তানীতে ঘটবে প্রচুর ব্যাঘাত। এমন একটা পরিস্থিতিতে আসলে আমরা সবাই ক্ষতিগ্রস্থ হবো তাতে কোনো সন্দেহ নাই।

অন্যদিকে বড় বড় পরাশক্তি যতোই পিউনেটিভ একশন নিবে বলে যত প্রতিশ্রুতিই দেন না কেনো, যা ক্ষতি হবার তাঁর বেশীরভাগ ক্ষতি ইতিমধ্যে হয়ে গেছে। জাতিসঙ্ঘ, ন্যাটো, কিংবা অন্যান্য অক্সিলারী ফোর্স গ্রাউন্ডে যেতে যেতে রাশিয়ার উদ্দেশ্য হাসিল হয়েই যাবে। তারমধ্যে ইউক্রেন ন্যাটোর কোনো সদসই না।

ভবিষ্যৎ কি হবে এই মুহুর্তে বলা খুব দূরুহ।

13/03/2022-যুদ্ধের ১৭ দিন পর ইউক্রেন

যুদ্ধের ১৭ দিন পর ইউক্রেন যুদ্ধে গোপনে গোপনে একটা কম্প্রোমাইজের কথা শুনা যাচ্ছে যে, জেলেনেস্কি রাশিয়ার তিনটা শর্তই মেনে যুদ্ধ বন্ধ হোক, সাভাবিক জীবন আবার ফিরে আসুক, তাতে সায় দিয়েছে। কিন্তু এই যুদ্ধ আমাদেরকে কি কি শিক্ষা রেখে গেলো?

যুদ্ধের প্রথম দিনে জেলেনেস্কি দৃঢ়কন্ঠে ঘোষনা দিয়েছিলো যে, ইউক্রেনের প্রতিটি ইঞ্চি তারা ডিফেন্ড করবে। কারন সে সেটাই বলেছিলো যেটা পশ্চিমারা ওকে বলতে বলেছিলো যে, We will defend every inch of land of our friendly allainaces. কিন্তু সেটা কেনো হলো না? যদি কিছুটা বিশ্লেষন করি দেখবো যে, জেলেনেস্কী চারটা ভুল করেছেঃ

(১) সে পশ্চিমা, ইউরোপ এবং ন্যাটোর সাপোর্টের উপর অতিরিক্ত ভরষা করেছিলো। জেলেনেস্কী জানতো যে, ইউক্রেন রাশিয়ার কাছে সবদিক দিয়েই দূর্বল। কিন্তু জেনেস্কী পশ্চিমাদের, ইইউ এবং এলায়েন্সেরের ভরষাকে একটা ট্রাম কার্ড হিসাবে ভেবেছিলো। আর এটা তাঁর কোনো দোষ না। কারন ১লা সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে জেলেনেস্কী এক ভাষনে বলেছিলো যে, স্বয়ং বাইডেন জেলেনেস্কিকে বলেছেন, ইউক্রেন ন্যাটোর মেম্বারশীপ পাবেই আর সেটা যেভাবেই হোক। শুধু তাই না, জেলেনেস্কি এটাও বলেছেন যে, এপ্রিল ২০২১ এ বাইডেন তাকে এই কথাও বলেছেন যে, ইউক্রেনকে কখনোই আমেরিকা একা ছেড়ে যাবে না যদি রাশিয়া বা অন্যকোন কেউ তাকে আঘাত করেও। জেলেনেস্কী ভেবেছিলো, রাশিয়ার এতো বড় আর্মি আনবিক বোমা ইত্যাদির বিরুদ্ধে প্রথমে ন্যাটো তথা অন্যান্য দেশের পারমানবিক হুমকীর মাধ্যমে আমেরিকা, ব্রিটেন, ইইউ, তাকে তৎক্ষণাৎ সাহাজ্য করবে, তারপরের ঘটনা তো আছেই, আর্থিক সাহাজ্য, ইত্যাদি।

কিন্তু ঘটনাটা ঘটেছে উলটা। আমেরিকা সামনে আসলো না, ন্যাটোকেও ব্যবহার করলো না, নো ফ্লাই জোনও তৈরী করলো না, আবার বিমানও দিলো না। তারা তাকে এটাও বলেছিলো যে, আমেরিকা, ন্যাটো, ইইউ সবাই রাশিয়াকে এমনভাবে বয়কট করবে যাতে তাঁর তেল, গ্যাস, ফুড কমোডিটি ইত্যাদি আর কেউ না নেয়। রাশিয়াকে পংগু করে দেয়া হবে। কিন্তু সেটাও হলো না। আর হলেও সেতার ইফেক্ট অনেক অনেক পরে হয়তো। কথায় কথায় আমেরিকা রাশিয়ার তেল/গ্যাস বয়কট করলো ঠিকই, কারন না রাশিয়ার রপ্তানী আমেরিকাকে ইফেক্ট করে , না আমেরিকার আমদানী আমেরিকাকে সাফার করায়। তারা দুটুই তেল, গ্যাসের দেশ। অন্যদিকে বিট্রেন কিন্তু বয়কট করার পরেও তেল গ্যাস রীতিমত নিতেই থাকলো কারন সেটা তাঁদের নিত্যদিনের জন্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য। আবার অন্যদিকে ইইউ বাইডেনের এই অবরোধে রাজী হলো না। তারা আরো ৫ বছর সময় চাইলো। কারন প্রায় ৪০% তেল/গ্যাসের উপর পুরু ইউরোপ রাশিয়ার উপর নির্ভরশীল। তাঁদের জনগনের অসুবিধা তারা করতে পারবে না।

(২) জেলেনেস্কীর ২য় ভুল ছিলো-পশ্চিমাদের কাছে ইউক্রেনের গুরুত্তকে অনেক বেশী, এটাই সে মুল্যায়ন করেছিলো । জেলেনেস্কি ভেবেছিলো যে, ইউক্রেন হচ্ছে ইউরোপের একটা শিল্ড। জেলেনেস্কী ২২/০১/২০২২ তারিখে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে তাঁর এক ভাষনে বলেছিলো-গত ৮ বছর যাবত ইউক্রেন ইউরোপের শিল্ড হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে এবং ইউক্রেন গত ৮ বছর যাবত রাশিয়ার মতো এমন একটা বৃহৎ আর্মিকে ঠেক দিতে পারছে। শুধু তাইনা, গত ২১/০২/২০২২ তারিখে অনুরুপ ভাষনে জেলেনেস্কী এটাও বলেছিলো যে, ইউক্রেন ছাড়া ইউরোপের ডিফেন্স বলয় কোনদিন সুরক্ষিত নয় এবং ইউরোপ ইউক্রেনকে ছাড়া স্বয়ংসম্পুর্নও নয়। ফলে ইউক্রেনের টেরিটোরিয়াল সভরেন্টি যদি ইউরোপ না রক্ষা করে, তাহলে ইউরোপ নিজেই রাশিয়ার কাছে হুমকী। কিন্তু জেলেনেস্কি বুঝতেই পারে নাই যে, ইউক্রেন হচ্ছে এই ইউরোপের কাছে একটা এক্সপেন্ডেবল আইটেমের মতো। তারা তাকে ন্যাটোর সদস্যপদ আগেই দেয় নাই, এখন তো আরো অনেক বাধা। দিচ্ছে, দিবে, এই এপ্লিকেশন গ্রহন করা হয়েছে ইত্যাদি বলে ইউক্রেনকে আবার ছেড়েও দিচ্ছিলো না। আসলে ব্যাপারটা হলো যে, তারা তাকে শুধু পুতিনের বিরুদ্ধে একটা টুলস হিসাবে ব্যবহার করছিলো যেটা জেলেনেস্কি বুঝতেই পারে নাই। মজার ব্যাপার হলো, এই ইউজফুল টুলস এর একটা এক্সপায়ারী ডেট ছিলো। আর সেটা এই ২৪ ফেব্রুয়ারী যখন রাশিয়া ইউক্রেনকে আক্রমন করে।

এই একই ঘটনা ঘটেছিলো ১৯৮০ এ আফগানিস্তানে যখন পশ্চিমারা মুজাহিদিনদেরকে রাশিয়ার বিরুদ্ধে ফাইট করার জন্য অর্থ সাপোর্ট দিয়েছিলো। অথচ আফগানিস্তান কিন্তু পশ্চিমাদের কাছে স্ট্র্যাটেজিক্যালী ইম্পোর্ট্যান্ট ছিলো না। আসলে সেটা ছিলো জাষ্ট সোভিয়েটকে পশ্চিমাদের একটা ব্লাডি নোজ দেয়ার পরিকল্পনা। সেখানেও আফগানিস্থান রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের একটা টুলস ছিলো।

সেই একই কাজ কিন্তু আমেরিকা করেছে জর্জিয়ার সাথেও। জর্জিয়াকে পশ্চিমারা ন্যাটো মেম্বারশিপ দেয়ার কথা বলেছিলো ২০০১ সালে। পশ্চিমারা জর্জিয়াকে প্রচুর আর্মস দিয়েছিলো, অতঃপর জর্জিয়া যুদ্ধ করে জর্জিয়া রাশিয়ার সাথে। যখন যুদ্ধ শুরু হলো, পশ্চিমারা পুলআউট করলো। আবখাজিয়া নামে আরেকটা দেশের সৃষ্টি হয়েছিল ২০০৩ সালে। আবখাজিয়া রাশিয়ার খুবই অনুগত একটা দেশ যা জর্জিয়ার জন্য হুমকী।

এই ভুলটাই জেলেনেস্কি করলো যে, তাকে ন্যাটোর মেম্বারশিপ দেয়া হবে, ইইউর সদস্য করা হবে, আর ইউক্রেন ইইউর সবচেয়ে বড় ঢাল হিসাবে রাশিয়ার ফোরফ্রন্টে স্ট্র্যাটেজিক ইম্পোর্ট্যান্ট হিসাবে দাঁড়িয়ে থাকবে, ভেবেছিলো। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে-ইউক্রেনের জন্য ন্যাটো একটা জাষ্ট কথার ঝুলি ছাড়া আর কিছুই ছিলো না।

(৩) জেলেনেস্কীর ৩য় ভুলটা ছিল-সে পুতিনের রিয়েল ইনটেনশনকে পড়তে পারে নাই। আর পড়লেও ভুল পড়েছে। এটা অবশ্য জেলেনেস্কীর দোষ না। যুদ্ধ লাগার আগেও কেউ বুঝতে পারে নাই যে, পুতিন আসলেই ইউক্রেন এটাক করবে। জেলেনেস্কী ভেবেছিলো, থ্রেট আগেও ৮ বছর যাবতই ছিলো, রাশিয়া বারংবার থ্রেট দিতেই থাকবে, কিন্তু গত ৮ বছরের মতো পশ্চিমাদের ভয়ে রাশিয়া সাভাবিকভাবেই অন্তত যুদ্ধনামক ভয়াবহতায় জড়াবে না। এমন কি ২৮ জানুয়ারী ২০২২ তারিখে জেলেনেস্কির এক ভাষনে বলেছিলো যে, মিডিয়ার ভাষ্যে যেনো মনে হয় আমরা অতি শীঘ্র রাশিয়ার সাথে যুদ্ধে জড়িয়ে যাচ্ছি। কিন্তু রাশিয়া কখনোই যুদ্ধে জড়াবে না এটা নিশ্চিত। যুদ্ধ হবে এটা জেলেনেস্কীর মাথাতেও ছিলো না।

(৪) জেলেনেস্কির ৪র্থ ভুল টা ছিলো-জেলেনেস্কী সবসময় বিশ্বাস করতো যে, তাকে ন্যাটো, ইইউ, ইউকে, আমেরিকা, ফ্রান্স, কিংবা জার্মান সবাই সবকিছু দিয়ে একত্রে সাহাজ্য করবেই। সে বিশ্বাস হারায় নাই। ফলে সে পুতিনের কোনো কথায় রাজী না হয়ে শেষমেষ যুদ্ধেই থেকে গেলো। সে বুঝতেই পারে নাই যে, সবাই ‘অনলাইন’ যুদ্ধ করবে। আর সে মাঠে একা হয়ে যাবে।

যুদ্ধে একাই থেকে যাওয়ার কারনে হয়তো জেলেনেস্কী আপাতত হিরো হয়ে গেলো কিন্তু যখন যুদ্ধ থেমে যাবে, সবশর্ত মেনে ইউক্রেন আবার ফিরে আসবে, তখন ব্যাখ্যায় দেখা যাবে অনেকেই, জেলেনেস্কী কতটা ভুল করেছিলো। আর এই ভুল একদিন জেলেনেস্কীকে নামিয়ে আনবে ওদের দেশের ইতিহাসের মধ্যে সবচেয়ে নীচে। আজকের দিনের ইউটিউব, ফেসবুক কমেন্টস একদিন ফেড হয়ে গিয়ে সেটাই সামনে আসবে যে, পুতিন প্রথমে যেটার দাবী করেছিলো সেটাই তো হলো, সারাবিশ্ব শুধু তাকিয়েই ছিলো, তাহলে ইউক্রেনের লিডারের এটা বুঝতে এতো দেরী করেছিলো কেনো? ইতিহাস তাঁর উত্তর দিবে। জনগন এতো কিছু বুঝে না, তারা বুঝে প্রতিদিনের আনন্দ, তাঁদের পরিবার আর সম্পর্ক। রাজ্য, রাজা, দেশ নিয়ে এতো কিছু তারা ভাবে না।

ইতিহাস এটাও বিচার করবে কিভাবে সারাবিশ্ব এই মানুষগুলিকে ধোকা দিয়েছে, যুদ্ধনামক এমন একটা ভয়াবহতায় ছেড়ে দিয়ে দূরে দাঁড়িয়ে কথার ঝুলি ছেরেছে। বড্ড মায়া লাগে যখন দেখি, ছোট একটা বাচ্চা আহত মায়ের কোলে ঘুমিয়ে আছে, সে হয়তো জানেই না চারিদিকে যুদ্ধ। কিন্তু একদিন সে এই ইতিহাস পড়বে আর নিজের বিবেচনায় বুঝতে শিখবে, কোথায় সিনিয়াররা ভুল করেছিলো, আর কি করা উচিত ছিলো। তখন তাঁর কাছে আজকের দিনের এইসব হিরোইক ইউটিউবের কোনো মুল্য থাকবে না।

যুদ্ধ কারো জন্যই ভাল নয়। রাশিয়ার পুতিন ও একদিন তাঁর দেশে একটা খারাপ মানুষের মধ্যে মুল্যায়িত হবে। কারন সারা বিশ্ব কর্তৃক অবরোধের কারনে ওরাও প্রতিদিন কষ্টে থাকবে।

কিয়েভ খুব কঠিন রাস্তায় এটা শিক্ষা পেলো যে, পশ্চিমাদের, ইউরোপের কিংবা অন্যান্য এলায়েন্সের মিথ্যা নির্ভরশীলতায় এবং মিথ্যা সাপোর্টের আশ্বস্ততায় অসম দেশের সাথে যুদ্ধ করতে যাওয়া একটা খারাপ আইডিয়া।

12/03/2022-এই কয়দিনের রাশিয়ান-ইউক্রেন যুদ্ধের

এই কয়দিনের রাশিয়ান-ইউক্রেন যুদ্ধের উপর মানুষের বিভিন্ন কমেন্টস পরে যেটা আমার ধারনা সেটা হলো-

আসলে কেহই কিন্তু ইউক্রেনের মতো একটা স্বাধীন রাষ্ট্রের উপর রাশিয়ার এটাক সাপোর্ট করে না। তারপরেও কেউ রাশিয়াকে আবার কেউ ইউক্রেনের পক্ষে মনতব্য লিখছেন। তাহলে ব্যাপারটা কোথায় তাঁদের এই কন্ট্রাডিকশন?

ব্যাপারটা কি এই যে, আমেরিকা, ইইউ, কিংবা ন্যাটো, বা জায়ান্ট সংবাদ মিডিয়াগুলির বিভিন্ন সময়ে পক্ষপাতিত্বমূলক ব্যবহারের কারনে মানুষেরা এখন ওই সব এলায়েন্সের উপর বিরক্ত এবং রাগ। অনেক দেশে ওরা অন্যায় করে, কিন্তু সেটা ওরা অন্যায় বলে স্বীকার করে না, সেটাকে একটা ভিন্ন নামে টেরোরিষ্ট এক্টিভিটি নামে ধংশজজ্ঞ চালায়, নির্বিঘ্নে মানুষ মারে, বাচ্চাদের মারে, সাথে দেশটাও ধংশ করে প্রায় দখলই করে থাকে। ওদেরকে অন্যায়টা বুঝানো যায়না, কারন ওরা শক্তিশালী, মোড়ল। আমরা আমজনতা, গরীব, শক্তিহীন এবং ওদের বিপক্ষে কথা বলার কোনো সাহস কিংবা সুযোগ নাই। এই আমজনতা কষ্ট পায়, দুঃখ পায়, ভাষাহীনভাবে নিজের ঠোট নিজেরাই কামড় দিয়ে চুপ করে থাকে। অসহায় এই আমজনতা। কিন্তু স্বৈরশাসক মোড়লেরা এবং জায়ান্ট সংবাদ মিডিয়াগুলি এসব আমজনতার পালস বুঝলেও স্বীকার করে না যে যেটা ওরা করছে সেটা অন্যায়। আফগানিস্থানে প্রথবার আমেরিকার এটাক যেমন আম জনতা না মানলেও কিছু বলতে পারে নাই, আবার সেই আফ গানিস্তানেই যখন আবার তারা সেই আগের তালেবানদেরকে ক্ষগমতায় বসিয়ে আরেকবার আম জনতাকে উদ্দেগের মধ্যে ফেলে কোনো প্রতিকার করে না, তখনো আম জনতা দুটু ঘটনাকেই আগ্রাসন এবং অন্যায় বলে জেনেছে। আম জনতা দেখেছে যে, ওরা নিজের সার্থেই সব কিছু করে। ওদেরকে কেউ কিছু বলতে পারেনা। এরফলে অন্য আরেক জুলুমবাজ যখন সেই একই জুলুম করতে থাকে, আর সেই জুলুমের প্রতিকারের জন্য সইসব মোড়লেরা, সংবাদ মিডিয়া তাঁদের রক্ষার জন্য একাধারে সাপোর্ট করতে থাকে, তখন রাশিয়ার মতো জুলুমবাজ মোড়লেরা কোনো না কোনো আবেগ থেকে একটা প্রচ্ছন্ন সাপোর্ট পায় এই আম জনতার কাছ থেকে। আর এই সাপোর্ট টা আর কিছুই না, আম জনতার রাগ আর বিরক্তের কারনে। আম জনতা তখন ভাবে- মরুক এরা এবার যারা আগেও মানুষের উপর জুলুম করেছে কিন্তু কিছু করার ছিলো না। এবার ওরা সাফার করুক। আর এই সাফার করুক কন্সেপ্টের মধ্যে ইউক্রেনের মতো, সিরিয়ার মতো, আফগানের মতো, রোহিংগারদের মতো আম জনতারা মরে, আর করুনার পাত্র হয়।

তাহলে যুদ্ধটা আম জনতার মধ্যে আসলে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে নয়, বা রাশিয়ার পক্ষেও নয়, এটা একটা সেই সব মোড়ল আর সংবাদ মিড়িয়ার বিপক্ষে যারা সাদাকে সাদা বলে না, কালোকে কালো বলে না। তাঁদের এসব চিন্তাধারা যতোদিন পরিবর্তন না হবে, জুলুমবাজদের পক্ষে সবসময় কেউ না কেউ সাপোর্ট করতেই থাকবে। এর ফলে সাধারন আমজনতার কষ্ট হতেই থাকবে, হোক সেটা ইউক্রেন কিংবা অন্য কেউ।

আজকে যদি জুলুমবাজ পুতিন মরেও যায়, তারপরে কি পশ্চিমারা রাশিয়ার আমজনতার কথা ভেবে তাঁদের উপর দেয়া সব নিষেধাজ্ঞা তুলে নিবে বলে ভাবছেন? নিবে না। 

আমাদের দেশে একটা কথা আছে- পাটা পুতায় ঘষাঘশিতে মরিচের জান শেষ। আমরা, হোক সেটা ইউক্রেন, সিরিয়া, আফগানিস্থান, ইরাক, ইয়েমেন, কিংবা কাশ্মীর, সবাই হচ্ছি সে মরিচ। আর এক জুলুম্বাজ রাশিয়া আরেক জুলুমবাজ পশ্চিমা বা এলায়েন্স হচ্ছে পাটা পুতা।

6/3/2022- ইউক্রেন যুদ্ধ

যে যাইই বলুক, যুদ্ধ কারো জন্যই ভালো নয়। হোক সেটা ইউরোপে, আর হোক সেটা মধ্যপ্রাচ্যে। সবার, বিশেষ করে ওয়েষ্টার্ন এবং ইইউ, তাঁদেরও উচিত সাদাকে সাদা বলা, কালোকে কালো বলা যখন কোন আগ্রাসন হয় হিউম্যানের উপর। যদি সেটা না হয়, তাহলে এই দুনিয়ার মানুষের মধ্যে বিভেদ হতেই থাকবে। তারা সাদাকে সাদা না বলায়, কালোকে কালো না বলায়, এখন যেটা হচ্ছে, সেটা হলো, এই অসহায় ইউক্রেনবাসীদের উপরে অনেকেই মায়া দেখাচ্ছে না অথচ তারা কোনো দোষও করে নাই। তারাও আমাদের মতো অতি সাধারন মানুষ। একবার ভাবুন তো, যখন আমার আপনার পরিবার এ রকমভাবে সাফার করে, তখন কি পরিমান রক্তক্ষরন হয়? হোক সে যে কোনো ধর্মের বা দেশের। এই কঠিন উপলব্ধিটা যতোদিন ক্ষমতা লোভি নেতারা না বুঝবে, ততোদিন সর্বত্র সর্বসাধারন মানুষ, হোক সে প্যালেষ্টাইন, সিরিয়া, ইরাকী, বা ইউক্রেন, কিংবা হোক সে ইহুদি কিংবা মুসলিম, তাঁদের জীবন কোনোভাবেই সুরক্ষিত না।

আজকে যারা রাশিয়ার আক্রমনকে একটা প্রতিশোধমূলক হিসাবে দেখে আত্মতৃপ্তি পাচ্ছেন, তারাও কিন্তু যুদ্ধকে সায় দেননা কিন্তু তারপরেও তাঁদের মন্তব্য অনেক সময় এমন হয় যে, মরুক ওরা আর ওদের নেতারা যারা দূর্বলকে এতোদিন মেরেছে। এবার ওদের পালা যারা অসহায় মানুষকে এতোদিন নির্মমভাবে মেরেও কোনো আফসোস করতো না। এখন সেইসব নেতাসহ সাধারন জনগন যারা কালোকে কালো আর সাদাকে সাদা বলে নাই,  তাঁদেরকে মরতে দেখে বা কষ্ট দেখে বাকীরা যেনো মনে একটা শান্তি অনুভব করেন। কিন্তু এটাই আসল সত্য নয়। কারন এই মানুষগুলিও জানে যে, সেই সব শিশুরা, অসহায় ব্যক্তিরা তো তাঁদের নেতাদেরকে সাদাকে সাদা আর কালকে কালো না বলার জন্য অনুপ্রানিত করে নাই। তাহলে এখন নেতাদের সাথে ওরা কেনো অন্যদের সিম্প্যাথি পাবে না? কিন্তু তারপরেও কিছু রাগ কিংবা গোস্যা থাকে যে, তারাও তো সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলে নেতাদের বিপক্ষে আন্দোলন করে নাই!! তারাও তখন চুপ ছিলো, নীরব ছিলো।

আমি ইউক্রেন, ইরাকী, সিরিয়া, প্যালেষ্টাইন, ইয়েমেন, সব সাধারন মানুষের জন্য কষ্ট অনুভব করি। হুশ হোক বিশ্ব নেতাদের, জ্ঞান ফিরে আসুক সব নেতাদের যারা অন্যায়কে অন্যায় আর আগ্রাসনকে আগ্রাসন, সাদাকে সাদা আর কালোকে লো বলে সবার জন্য একটা সমান প্লাটফর্ম তৈরী করবেন। তাহলেই এই যুদ্ধ, এই আগ্রাসন এবং এই ঘৃণা কিংবা বিদ্বেষ কমে শান্তির একটা বিশ্ব তৈরী হবে।

এই বিশ্বভ্রমান্ডে কাউকে ছাড়া কেউ বাচতে পারবে না। সমস্ত সম্পদ আল্লাহ সব জায়গায় এক তরফা দেন নাই। সবাই সবার উপর নির্ভরশিল। সবাইকেই সবার সরকার।